এক টেবিলে আল্লামা শফী-বাবুনগরী ও আনাস, দিয়েছেন সম্প্রীতির বার্তা

Send
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
প্রকাশিত : ২২:১৪, জুলাই ০৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৪৫, জুলাই ১০, ২০২০

এক টেবিলে বসে লাইভে বিবৃতি দেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী (বামে) ও আনাস মাদানী (ডানে)। মাঝে তাদের মুরব্বি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শফী।

দূরত্ব ভুলে এবার হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা আহমদ শফীর উপস্থিতিতে এক টেবিলে বসলেন সংগঠনটির মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও সংগঠনটির প্রচার সম্পাদক এবং  শফির ছেলে আনাস মাদানী। বুধবার (০৮ জুলাই) বাদ মাগরিব হাটহাজারী দারুল উলুম মাদ্রাসায় তারা একই টেবিলে বসে তাদের মধ্যে দূরত্ব ঘুচিয়ে সম্প্রীতির বার্তা দেন। অনুষ্ঠানটি হেফাজতে ইসলামের ব্যানারে ওই মাদ্রাসা থেকে লাইভ সম্প্রচার করা হয়।

ওই লাইভ অনুষ্ঠানে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও জুনায়েদ বাবুনগরী লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন। তাদের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বৈঠকে উপস্থিত থাকা হেফাজতে ইসলামের প্রচার সম্পাদক আনাস মাদানী। এসময় জুনায়েদ বাবুনগরী আনাস মাদানীকে ভাই হিসেবে সম্বোধন করেন।

লিখিত বক্তব্যে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘আজ বুধবার বাদ মাগরিব আমি ওলামায়ে কেরাম এবং দেশবাসীর সামনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় পরিষ্কার করার জন্য উপস্থিত হয়েছি। আশা করছি আমাদের এই লাইভে আপনাদের অনেক জিজ্ঞাসার উত্তর পেয়ে যাবেন। গণমাধ্যম এবং সামাজিক মাধ্যমে যারা বুঝে না বুঝে অহেতুক লেখালেখি করে আমাদের মাঝে  দূরত্ব তৈরির আভাস দিচ্ছেন, কাল্পনিক মিথ্যা বানোয়াট তথ্য দিয়ে পক্ষ বিপক্ষ তৈরির পাঁয়তারা করছেন, তারা আসলেই ভুল করছেন। আমাদের মাঝে কোনও দূরত্ব নেই। আমরা সবাই হাটহাজারী মাদ্রাসার পরিচালক হযরতের রুহানি সন্তান।  হযরতের হাতে গড়া বাগানের ফসল। আমাদের মাঝে দূরত্ব তৈরি করে সফল হবেন না, সফল হতে দিবো না ইনশাআল্লাহ। যে বা যারা আমাদের ও মাদ্রাসার বিরুদ্ধে অহেতুক লেখালেখি করছেন তারা নিজেদের আখেরাতের কামাই নষ্ট করতে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, আমি আজকের এই লাইভ থেকে আপনাদের সতর্ক করতে চাই, আপনারা থামুন। আজকের পর থেকে ভুল বিভ্রান্তিমূলক লেখালেখি ও প্রচারণা বন্ধ করুন। আপনারা আমাদের ভাই, বন্ধু। আমাদের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি থেকে ফিরে আসুন। জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করুন।

প্রিয় ছাত্র ভাইয়েরা, হাটহাজারী মাদ্রাসার হযরত আমাদের জন্য নেয়ামতে ওজমা। আমাদের মাথার ছায়া, মুকুটহীন সম্রাট। হুজুরের শেষ অবস্থায় আমরা যারা হুজুরের মনে কষ্ট দেবো, তারা আল্লাহর ওলির সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণার শামিল। হুজুরের পরিবার আমাদের চরম শ্রদ্ধার পাত্র। প্রিয় ছোট ভাই আনাস এবং আমার মাঝে কোনও বিভেদ নেই। এক ঘরের মধ্যে যেমন ভুল হয়ে গেলে সবাই বসে এর সমাধান করে ফেলে তেমন আমাদের মাঝেও ভুল বুঝাবুঝি আমরাই সমাধান করে নেবো। আমাদের মুরুব্বি আছেন। উনারা আমাদের সংশোধন করে দেবেন। আপনারা আমাদের সহযোগিতা করবেন। আপনারা আমাদের পাশে থাকবেন। হাটহাজারী মাদ্রাসাসহ সকল কওমি মাদ্রাসার পাশে থাকবেন। এসব কওমি মাদ্রাসার ঈমান আকিদা রক্ষার জন্য আমাদের মুরুব্বিরা না খেয়ে, না পরে উপবাস থেকে দ্বীন রক্ষার জন্য ইসলামের কিল্লা স্বরূপ প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। আপনারা যারা আলেম ওলামা ইসলামকে ভালোবাসেন তারা মাদ্রাসায় সহযোগিতা করে যাবেন। এই মাদ্রাসা বেঁচে থাকলে আমাদের ঈমান ও আমলের হেফাজত হবে।’

অন্যদিকে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীও লিখিত বক্তব্যে সম্প্রীতির বার্তা তুলে ধরেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘প্রিয় দেশবাসী ও আমার স্নেহের ছাত্রবৃন্দ। আপনাদের সবার দোয়ায় জীবনের শেষ প্রান্তে এসে আপনাদের ও মুরুব্বিদের আমানত হিসেবে বেঁচে আছি। কিছুদিন যাবত হাটহাজারী মাদ্রাসার কিছু ঘটনা প্রবাহ, তিলকে তাল করেছেন। ভুল বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। দলাদলি করার পাঁয়তারা করতেছেন। আমি সবাইকে বলতে চাই, আপনারা বিনা তাহকিকে এইসবে কান দেবেন না, কোনও শৃঙ্খলা নষ্ট করবেন না। মাদ্রাসায় শান্ত পরিবেশ আছে। আপনারা আগের মতো মাদ্রাসায় সহযোগিতা করে যাবেন। আমাকে সহযোগিতা করবেন। আমাদের মধ্যে কোনও ভুল বোঝাবুঝি নেই। সবাই দোয়া করবেন। আমি আপনাদের জন্য দোয়া করিতেছি। এবং হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ইসলামের পতাকাবাহী একটি সংগঠন। ইসলাম রক্ষায় আগের মতো দেশবাসীকে সাথে নিয়ে কাজ করবে। এখানে কোনও গ্রুপিং নেই। হেফাজতে ইসলামের মহাসচিবসহ সবাই স্ব স্ব পদে বহাল আছেন। শাপলা চত্বরে আন্দোলনসহ আপনারা যা শুনতেছেন এগুলো অপপ্রচার মাত্র। হেফাজতে ইসলামের আন্দোলন বিশেষ কোনও দল বা গোষ্ঠীর ব্যাপারে কখনও ছিল না। হেফাজত আগের মতোই আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে ইনশাআল্লাহ।’

ভিডিওটি দেখুন:

>

/টিএন/

লাইভ

টপ