শূন্য খাঁচা আর অপরিচ্ছন্ন চিড়িয়াখানা, হতাশ দর্শনার্থীরা

Send
মাসুদ আলম, কুমিল্লা
প্রকাশিত : ১২:০০, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩৫, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০

শূন্য খাঁচাকুমিল্লা চিড়িয়াখানা দেখে ফিরে যাচ্ছিলেন মো. হাশেম নামে একজন দর্শনার্থী। খুব সকালে তিনি দেবিদ্বার থেকে পরিবার নিয়ে এসেছেন এখানে। তার ধারণা ছিল, চিড়িয়াখানায় নানা জাতের পশুপাখি দেখে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করবেন। কিন্তু সেই ধারণা পাল্টে গেলো তার। অনেকটা শূন্য খাঁচা, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, ময়লা আর পচা পানির দুর্গন্ধে একরকম হতাশা নিয়ে ফিরে যান তিনি। হাশেমের মতো বহু দর্শনার্থী প্রতিদিন চিড়িয়াখানাটির এই রুগ্‌ণ দশা দেখে অতৃপ্তি নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

দর্শনার্থী মো. হাশেম বলেন, ‘তেমন পশুপাখি নেই চিড়িয়াখানাটিতে। অনেকটা পরিত্যক্ত বাড়ির মতো। ধারণা ছিল, খাঁচায় বন্দি থাকা পশুপাখি দেখাবো পরিবারের সদস্যদের। শূন্য খাঁচার এমন পরিবেশের কথা জানলে জনপ্রতি ২০ টাকা টিকিট কিনে প্রবেশ করতাম না।’

চিড়িয়াখানায় সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ঝোপঝাড় আর জঙ্গলে ডুবে আছে কুমিল্লা চিড়িয়াখানা। দীর্ঘদিন জমে থাকা পচা পানি দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে চারিদিকে। বাঘ, সিংহ ও হনুমানসহ অধিকাংশ পশুপাখির খাঁচা শূন্য। মেছো বাঘের বাচ্চা এবং বানরসহ অল্প কিছু পশুপাখি চোখে পড়ে। তবে সেগুলোও রয়েছে অবহেলায়-অযত্নে। নিয়মিত খাবার পানি এবং খাদ্য সংকটে ভুগছে পশুপাখিগুলো। খাঁচার পাশে গিয়ে দাঁড়ালে ক্ষুধার্ত বানর ও পাখিগুলো দৌড়ে আসে। কর্তৃপক্ষের এমন উদাসীনতায় খাঁচায় বন্দি পশুপাখিগুলো রুগ্‌ণ হয়ে পড়ছে।

নোংরা পরিবেশে একটি মেছো বাঘএছাড়া খাঁচার চারপাশে কাদাপানি ও ময়লা-আবর্জনার ভাগাড় তৈরি হয়েছে। পশুপাখি থাকার স্থানগুলো স্যাঁতসেঁতে। খাঁচার সামনে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। 

চিড়িয়াখানার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা মো. শাহ আলম জানান, বাঘ, সিংহ ও হনুমানসহ অধিকাংশ পশুপাখির খাঁচা শূন্য। এখানে তিনটি হরিণ, একটি অজগর সাপ, দুটি মেছো বাঘের বাচ্চা, তিনটি ময়ূর, একটি কালাম পাখি, ছয়টি খরগোশ, ১০টি বানর, চারটি তিতির পাখি ও তিনটি বাজ পাখি রয়েছে।

কুমিল্লা চিড়িয়াখানার এই বেহাল দশা দেখে জাকির ও নিজাম উদ্দিন নামে আরও দুই দর্শনার্থী বলেন, ‘ময়লা আবর্জনাপূর্ণ পরিবেশ এবং পচা পানির দুর্গন্ধে খাঁচায় বন্দি থাকা পশুপাখিগুলোর কষ্ট হচ্ছে। তারা অত্যন্ত ক্ষুধার্ত। চিড়িয়াখানার পরিবেশটাকে পরিবর্তন করা প্রয়োজন।’ চিড়িয়াখানার প্রাণ ফিরিয়ে আনতে পশুপাখি সংগ্রহের দাবি জানান তারা।

একটি হরিণকে খাবার দেওয়া হচ্ছেচিড়িয়াখানার ইজারাদার মো. আনিছুর রহমান বলেন, ‘পানি নামতে না পারায় এখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। বৃষ্টিতে প্রায় সময় হাঁটু সমান পানি তৈরি হয়। আমি ৩০ লাখ টাকা দিয়ে জেলা পরিষদ থেকে চিড়িয়াখানা ও বোটানিক্যাল গার্ডেন ইজারা নিয়েছি। কিন্তু জেলা পরিষদ কর্তৃপক্ষ চিড়িয়াখানার জন্য দৃশ্যমান কোনও উন্নয়ন করছে না। জেলা পরিষদ এবং সরকার চাইলে কুমিল্লা চিড়িয়াখানা আবারও প্রাণ ফিরে পাবে।’

চিড়িয়াখানায় পশুপাখি সংকট এবং পরিবেশের বিষয়ে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘জাতীয় চিড়িয়াখানা থেকে আমাদের কোনও পশুপাখি দিচ্ছে না। আমরা কুমিল্লা চিড়িয়াখানায় কিছু পশুপাখি দিতে একাধিকবার লেখালেখি করেছি। বন্ধবন্ধু সাফারি পার্কেও যোগাযোগ করেছি। এছাড়া আমাদের জনবল সংকটও রয়েছে। এ কারণে পরিবেশ ঠিক রাখা সম্ভব হচ্ছে না। একজনমাত্র লোক আছে, তিনি খাঁচায় থাকা পশুপাখিগুলোকে খাবার দেন। তবে আমাদের একটি টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে চিড়িয়াখানাটি সংস্কার করতে। এছাড়া চিড়িয়াখানাটি পশুপাখি সমৃদ্ধ করতে চেষ্টা চলছে।’    

/আইএ/এমএমজে/

লাইভ

টপ