X
মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২
২১ আষাঢ় ১৪২৯

মঙ্গলে আদিম প্রাণের প্রমাণ মেলেনি অ্যান্টার্কটিকায় পাওয়া উল্কাপিণ্ডে

আপডেট : ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ২১:২২

কয়েক দশক আগে পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়া মঙ্গল গ্রহের চার বিলিয়ন বছর বয়সী উল্কাপিণ্ডে মঙ্গলে আদিম প্রাণের প্রমাণ মেলেনি। বৃহস্পতিবার এমনটাই জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

১৯৯৬ সালে নাসার নেতৃত্বাধীন একটি দল জানায়, শিলায় জৈব যৌগগুলো জীবিত প্রাণীদের দ্বারা ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। তবে অন্যান্য বিজ্ঞানীরা বিষয়টি নিয়ে সন্দিহান ছিলেন। সম্প্রতি কার্নেগি ইনস্টিটিউশন ফর সায়েন্স-এর অ্যান্ড্রু স্টিলের নেতৃত্বে একটি দল এ নিয়ে গবেষণা চালায়।

অ্যান্ড্রু স্টিল জানান, উল্কাপিণ্ডের ক্ষুদ্র নমুনাগুলোতে দেখা গেছে, কার্বনসমৃদ্ধ যৌগগুলো আসলে পানির ফলাফল; সম্ভবত লবণাক্ত পানি দীর্ঘ সময়ের জন্য শিলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল।

এই ফলাফল সায়েন্স জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

মঙ্গল গ্রহের ভেজা এবং প্রারম্ভিক অতীতে শিলাটির কাছাকাছি অন্তত দুইটি প্রভাব ঘটেছিল।

লাখ লাখ বছর আগে তৃতীয় একটি প্রভাবে এটি লাল গ্রহ থেকে দূরে এবং মহাকাশে চলে যাওয়ার আগে গ্রহের পার্শ্ববর্তী পৃষ্ঠকে উত্তপ্ত করেছিল। ১৯৮৪ সালে অ্যান্টার্কটিকায় চার পাউন্ড (দুই কেজি) ওজনের শিলাটি পাওয়া গিয়েছিল।

গবেষকদের মতে, মঙ্গল গ্রহে থাকাকালে ভূগর্ভস্থ পানি শিলার ফাটলগুলোর মধ্য দিয়ে চলন্ত কার্বনের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গ্লব তৈরি করেছিল। একই জিনিস পৃথিবীতে ঘটতে পারে এবং মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডলে মিথেনের উপস্থিতি ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করতে পারে। কিন্তু দুই জন বিজ্ঞানী যারা মূল গবেষণায় অংশ নিয়েছিলেন তারা এই সর্বশেষ ফলাফলকে ‘হতাশাজনক’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। নিজেদের ১৯৯৬ সালের দাবির পক্ষেই অনড় থাকার কথা জানিয়েছেন তারা।

হিউস্টনে নাসার জনসন স্পেস সেন্টারের জ্যোতির্বিদ্যা গবেষক ক্যাথি থমাস-কেপ্রতা এবং সাইমন ক্লেমেট বলেন, ‘যদিও উত্থাপিত ডাটা ক্রমবর্ধমানভাবে (উল্কাপিণ্ড) সম্পর্কে আমাদের জ্ঞানকে যোগ করে, তবে ব্যাখ্যাটি খুব কমই অভিনব বা এটি গবেষণা দ্বারা সমর্থিত নয়।’

তিনি বলেন, অসমর্থিত জল্পনা উল্কাপিন্ডে জৈব পদার্থের উৎপত্তি সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানে কিছু করতে পারে না। তবে অ্যান্ড্রু স্টিলের মতে, প্রযুক্তির অগ্রগতি তার দলের নতুন অনুসন্ধানগুলোকে সম্ভব করেছে। তিনি মূল গবেষকদের প্রশংসা করেন এবং উল্লেখ করেন যে, ওই সময়ের আলোকে তখনকার অনুমানটি ছিল ‘একটি যুক্তিসঙ্গত ব্যাখ্যা’।

তিনি বলেন, তাদের নতুন এই আবিষ্কারটি এই গ্রহে কীভাবে জীবন শুরু হয়েছিল তা আমাদের বোঝার জন্য বিশাল এবং মঙ্গল গ্রহে বা এনসেলাডাস এবং ইউরোপায় অন্য কোথাও জীবন সন্ধান করার জন্য আমাদের প্রয়োজনীয় কৌশলগুলোকে পরিমার্জিত করতে সহায়তা করবে। সূত্র: এবিসি নিউজ, ইউএস নিউজ।

/এমপি/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
বন্যা মোকাবিলা: প্রকৃতির ভ্রুকুটি ও আমাদের বিস্কুট দৌড়
বন্যা মোকাবিলা: প্রকৃতির ভ্রুকুটি ও আমাদের বিস্কুট দৌড়
বঙ্গবন্ধু কূটনৈতিক উৎকর্ষ পদক পাচ্ছেন দুই রাষ্ট্রদূত
বঙ্গবন্ধু কূটনৈতিক উৎকর্ষ পদক পাচ্ছেন দুই রাষ্ট্রদূত
বিজিএমইএ’র নতুন লোগো
বিজিএমইএ’র নতুন লোগো
সীতাকুণ্ডে কনটেইনার বিস্ফোরণ: এক মাসেও অগ্রগতি নেই মামলার
সীতাকুণ্ডে কনটেইনার বিস্ফোরণ: এক মাসেও অগ্রগতি নেই মামলার
এ বিভাগের সর্বশেষ
চাঁদের মাটিতে গাছ
চাঁদের মাটিতে গাছ
আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের মেয়াদ বাড়ানোর পরিকল্পনা নাসার
আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের মেয়াদ বাড়ানোর পরিকল্পনা নাসার
১০ বছরের মধ্যে মঙ্গলে মানুষ পাঠাতে চান ইলন মাস্ক
১০ বছরের মধ্যে মঙ্গলে মানুষ পাঠাতে চান ইলন মাস্ক
গ্রহাণুর আঘাত থেকে পৃথিবীকে রক্ষার মিশনে নাসা
গ্রহাণুর আঘাত থেকে পৃথিবীকে রক্ষার মিশনে নাসা
উল্কাপিণ্ড ধ্বংসে মিশন শুরু করলো নাসা
উল্কাপিণ্ড ধ্বংসে মিশন শুরু করলো নাসা