সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন বিচার শুরু

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০০:৫৯, জানুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৩, জানুয়ারি ২২, ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন শুনানি মঙ্গলবার দেশটির কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে শুরু হয়েছে। আগামী নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের পূর্বে ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করতে সংবিধানের বিরল ধারা প্রয়োগের এই উদ্যোগ নেওয়া হলো। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

ডেমোক্র্যাট দলের নেতারা রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত সিনেটে ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করতে আহ্বান জানিয়েছেন। সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ও আগামী নির্বাচনে ট্রাম্পের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী জো বিডেনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনে তদন্তের জন্য চাপ ও পরে তদন্তে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ডেমোক্র্যাটরা এই অভিশংসন প্রস্তাব এনেছেন।

মঙ্গলবার সিনেটে বিচার শুরু হলে সেখানে অসংখ্য টেলিভিশনের ক্যামেরাম্যানরা উপস্থিত হয়েছে। দেশটির প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস বিচার প্রক্রিয়া শুরু করেন।

মঙ্গলবারেই বিচারের নিয়ম-বিধি নিয়ে ভোটাভুটি হতে পারে। এর মধ্যে থাকতে পারে সিনেটের পক্ষ থেকে সাক্ষীদের সমন জারি করা হবে কিনা। সম্ভাব্য সাক্ষীদের মধ্যে ট্রাম্পের সাবেক নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনও থাকতে পারেন।

বিচার প্রক্রিয়া শুরুর পূর্বে সিনেটে দেওয়া ভাষণে রিপাবলিকান দলনেতা মিচ ম্যাককনেল বলেন, বিচারের শুরুতে সাক্ষীদের সমনজারি ও নথির বিষয়ে ডেমোক্র্যাটদের যে কোনও সংশোধন প্রস্তাবের তিনি বিরোধিতা করবেন।

এর আগে ডেমোক্র্যাটদের পক্ষ থেকে ম্যাককনেলের বিরুদ্ধে বিচার প্রক্রিয়া নস্যাৎ করার অভিযোগ করা হয়েছে।

সিনেটে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হলেও মঙ্গলবার সুইজারল্যান্ডের দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সম্মেলনে যোগ দিতে ওয়াশিংটন ছাড়েন ট্রাম্প।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি মার্কিন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন বিল পাস করে। সেখানে ২২৮-১৯৩ ভোটে বিলটি পাস হওয়ার পর মঙ্গলবার এটি সিনেটে উঠতে যাচ্ছে। তবে ট্রাম্পের দাবি, বিরোধী দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া বিলটি অসাংবিধানিক। তাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে তারা পার্লামেন্টে এ সংক্রান্ত বিল উত্থাপন করেছে। ডেমোক্র্যাটরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে তার অভিশংসন চান। আর রিপাবলিকানরা চান যত দ্রুত সম্ভব এই বিচার থেকে ট্রাম্পকে মুক্ত করতে। সিনেটে ট্রাম্পের বিপাকে পড়ার আশঙ্কা খুবই কম। কারণ সেখানে ক্ষমতাসীন দল রিপাবলিকান পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠ। তারা ইতোমধ্যে অভিশংসনের বিপক্ষে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছে।

/এএ/এমএমজে/

লাইভ

টপ