এবারে বেলারুশ ছাড়লেন নোবেলজয়ী বিরোধী নেতা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০১:৫৮, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৮, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০

প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কোর পদত্যাগ দাবি জোরালো হওয়ার মধ্যে বেলারুশ ছেড়ে গেছেন দেশটির আরেক বিরোধী নেতা ও নোবেলজয়ী লেখক স্টেভলানা আলেক্সিভিচ। তার সহযোগী অবশ্য বলছেন, চিকিৎসার জন্য জার্মানি যাওয়া আলেক্সিভিচ আবারও ফিরে আসবেন। তবে গত মাসের বিতর্কিত নির্বাচনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরুর পর দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন বেশ কয়েকজন বিরোধী নেতা। এদিকে, প্রতিবেশি লিথুনিয়ায় স্বেচ্ছা নির্বাসনে থাকা বেলারুশের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী স্টেভলানা টিকানোভস্কায়ার সঙ্গে মঙ্গলবার সাক্ষাৎ করবেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।গত মাসে তদন্তকারীদের মুখোমুখি হয়েছিলেন নোবেলজয়ী লেখক স্টেভলানা আলেক্সিভিচ

গত ২৬ বছরের শাসনকালে সবচেয়ে বড় হুমকির মুখে পড়েছেন বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেনকো। গত ৯ আগস্ট অনুষ্ঠিত এক নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ ওঠার পর তার পদত্যাগের দাবিতে দেশটিতে জোরালো বিক্ষোভ শুরু হয়। প্রতি সপ্তাহেই সেখানকার বিভিন্ন শহরে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন লাখ লাখ মানুষ। ২৭ সেপ্টেম্বর (রবিবার) সর্বশেষ বিক্ষোভের সময়ও বহু মানুষকে আটক করা হয়েছে।

লুকাশেঙ্কো বিরোধী আন্দোলন জোরালো করতে বিরোধীরা গড়ে তুলেছেন সমন্বয় কাউন্সিল। এর অন্যতম সদস্য নোবেলজয়ী লেখক স্টেভলানা আলেক্সিভিচ। কাউন্সিলের যে অল্প কয়েক জন নেতা এখনও বেলারুশের অভ্যন্তরে মুক্ত অবস্থায় থাকতে পারছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম ২০১৫ সালে সাহিত্যে নোবেলজয়ী এই লেখক। তবে লুকাশেঙ্কো সরকারের দায়ের করা এক অপরাধের মামলায় আগস্টে তাকে তলব করে দেশটির তদন্তকারীরা।

এছাড়া মুখোশধারী ব্যক্তিরা বেশ কয়েকজন বিরোধী নেতাকে অপহরণের পর লেখক স্টেভলানা আলেক্সিভিচের বিরুদ্ধেও একই চেষ্টা চালানো হয়। এ মাসের শুরুতে রাজধানী মিনস্কে আলেক্সিভিচের বাড়িতে প্রবেশের চেষ্টা চালায় মুখোশধারীরা। পরে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বিভিন্ন ইউরোপীয় দেশের কূটনীতিকেরা।

সোমবার নোবেলজয়ী ওই লেখকের সহযোগী তাতিয়ানা তিউরিনা জানান, চিকিৎসা ছাড়া আরও কয়েকটি কারণে দেশ ছেড়েছেন স্টেভলানা আলেক্সিভিচ। তবে এর কোনওটিই রাজনীতির সঙ্গে সম্পর্কিত নয় বলে দাবি করেন তিনি। তাতিয়ানা জানান, সুইডেনের একটি বই মেলায় অংশ নেবেন লেখক। এছাড়া সিসিলিতে একটি পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানেও যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তার। আলেক্সিভিচ ফিরে আসবেন জানালেও তিনি বলেন, ‘অবশ্যই, সেই ফেরা নির্ভর করবে কর্তৃপক্ষ তাকে কখন ফিরে আসার অনুমতি দেবে তার ওপরও।’

এদিকে, মঙ্গলবার দুই দিনের লিথুনিয়া সফর শুরু করছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রন। সেখানে স্বেচ্ছা নির্বাসনে রয়েছেন বেলারুশের অন্যতম বিরোধী নেতা স্টেভলানা টিকানোভস্কায়া। গত ৯ আগস্টের নির্বাচনের এই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী নিজের জয় দাবি করলেও বিক্ষোভ শুরুর কয়েক দিনের মাথায় লিথুনিয়ায় চলে যান। মঙ্গলবার ফরাসি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা রয়েছে তার।

উল্লেখ্য, বিতর্কিত নির্বাচনের পর ২৭ সেপ্টেম্বর ৫০তম দিনের মতো বেলারুশে বিক্ষোভ হয়েছে। দেশটির নির্বাচন কমিশন বলছে, ওই নির্বাচনে ৮০শতাংশ ভোট পেয়েছেন ১৯৯৪ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কো। গত সপ্তাহে মিনস্কে এক অঘোষিত অনুষ্ঠানে ষষ্ঠ মেয়াদের মতো শপথ নিয়েছেন তিনি। তবে বিরোধীরা বলছেন, অন্তত ৬০ শতাংশ ভোট জালিয়াতি করে পেয়েছেন লুকাশেঙ্কো। বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশসহ যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, লুকাশেঙ্কোকে বেলারুশের বৈধ প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকার করছে না তারা।

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ
X