পেঁয়াজ তোলার সময় আমদানি বন্ধ থাকবে: কৃষিমন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৪১, জানুয়ারি ১৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪৩, জানুয়ারি ১৬, ২০২০

কৃষিমন্ত্রীপেঁয়াজ চাষিদের ন্যায্যমূল্য দিতে সরকার নতুন উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, ‘পেঁয়াজ তোলার সময় মূল্য কমে যায়। মূল্য না পেয়ে কৃষকেরা পেঁয়াজ আবাদে উৎসাহ হারিয়ে ফেলেন। এই বছর বাণিজ্য ও কৃষি মন্ত্রণালয়ে আলোচনা হয়েছে। চাষিদের ভালো মূল্য দেওয়ার লক্ষ্যে পেঁয়াজ তোলার সময় আমদানি বন্ধ থাকবে।’ বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদে প্রশ্ন-উত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য আয়েন উদ্দিনের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি এই তথ্য জানান।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকের শুরুতে প্রশ্ন-উত্তর অনুষ্ঠিত হয়।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘পেঁয়াজ নিয়ে সারাদেশে নানা ক্ষোভ, আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছিল। বর্তমানে বাজারে কিছুটা স্থিতিশীলতা এসেছে। দেশে পেঁয়াজের চাহিদা বছরে ৩০ থেকে ৩২ লাখ মেট্রিক টন। দেশে উৎপাদিত হয় বছরে ২৩ থেকে ২৪ লাখ টন। বাকি পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। গত মৌসুমে বৃষ্টি বেশি হওয়ায় অনেক পেঁয়াজ ক্ষেতেই নষ্ট হয়ে যায়। আবার হঠাৎ করে ভারত রফতানি বন্ধ করে দেয়। ফলে বিরাট ঘাটতি হয়। দেশের যেসব এলাকায় পেঁয়াজ বেশি হয়,  সেসব এলাকায় মাঠপর্যায়ে কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

এই বছর টার্গেটের চেয়ে বেশি এলাকায় পেঁয়াজ রোপণ হচ্ছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘এই বছর ২৩ থেকে ২৪ লাখ মেট্রিক টনের বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন করা হবে। আমরা যে পদক্ষেপ নিয়েছি, তাতে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে পেঁয়াজ নিয়ে সামনের বছর সমস্যা হবে না।’

জাসদের শিরিন আখতারের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘ভারত ইতোমধ্যেই পেঁয়াজ রফতানির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। কাজেই পেঁয়াজের মূল্য কমবে। এর মূল্য ১১০ টাকা কেজি থাকবে না।’

সবজির মূল্য তুলনামূলকভাবে এবার বেশি উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘কৃষি মন্ত্রণালয় উভয় সংকটে আছে। একদিকে আবাদে খরচ বেশি, মূল্য কম হলে বলা হয়, কৃষকেরা মূল্য পাচ্ছেন না। আবার অস্বাভাবিক মূল্যও গ্রহণযোগ্য নয়। মূল্য বেশি হলে গরিব মানুষের সমস্যা হয়। মূল্য কমে গেলে কৃষকেরা সমস্যা পেড়েন।’ মূল্য সহনশীল পর্যায়ে রাখতে চেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানান।

/ইএইচএস/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ