বঙ্গবন্ধুর জন্য ৫০ হাজারবার কোরআন খতম করলো এতিম শিশুরা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:২৯, আগস্ট ১৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২৩, আগস্ট ১৪, ২০২০

ভার্চুয়াল দোয়া মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ অন্যরামুজিবর্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় এক লাখবার পবিত্র কোরআন খতমের উদ্যোগ নিয়েছে সরকারি শিশু পরিবার এবং বেসরকারি এতিম খানার শিশুরা। এরইমধ্যে ৫০ হাজারবার কোরআন খতম করেছে তারা। এতে অংশ নিয়েছে প্রায় ৭১ হাজার শিশু।

শুক্রবার (১৪ আগস্ট) সকালে ৫০ হাজারবার পবিত্র কোরআন খতম এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে এ কথা জানিয়েছেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ জয়নুল বারী।

সমাজসেবা অধিদফতর এ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। অধিদফতর মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ দোয়া মাহফিলে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সমাজসেবা অধিদফতর প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ ও প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান খসরু। গণভবন প্রান্তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে কোরআন খতমের তথ্য তুলে ধরে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ জয়নুল বারী বলেন, ‘মুজিবর্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার নিদর্শন এবং তিনিসহ সব শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় ৮৫টি সরকারি শিশু পরিবার, ৩ হাজার ৯২৮টি ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ডপ্রাপ্ত বেসরকারি এতিমখানার নিবাসীরা এক লাখবার পবিত্র কোরআন খতমের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।’ তিনি জানান, গত মার্চ থেকে শুরু করে ৮২টি সরকারি শিশু পরিবার ও দুই হাজার ৮৭০টি বেসরকারি এতিমখানার ৭০ হাজার ৮৫০ জন নিবাসী ৫০ হাজারবার পবিত্র কোরআন খতম করেছে।

অনুষ্ঠানে সরকারি শিশু পরিবারের এতিম শিশুদের মধ্যে দুই জন শিশু তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে। তারা শিশু পরিবারগুলোতে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে।

দোয়া মাহফিলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ১৫ আগস্টের সব শহীদ, জাতীয় চার নেতা, মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলনসহ ন্যায় প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সব শহীদের রুহের মাগফেরাত কামনা করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনার পাশাপাশি দেশ ও দেশের জনগণের কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে দোয়া করা হয়।

কোরআন খতমের জন্য এতিম শিশুসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা কোরআন খতম করেছো এবং সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।’

১৫ আগস্ট বাবা-মাসহ সবাইকে একসঙ্গে হারানোর কথা উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘এতিম হওয়ার কষ্টটা আমরা বুঝি।’ এতিম শিশুদের প্রতি নিজের ভালোবাসার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তোমরা একেবারে একা না। আমরা আছি তোমাদের পাশে। আমি এবং আমার ছোট বোন সব সময় তোমাদের কথা চিন্তা করি।’

প্রসঙ্গত, ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ শিশুদের পুনর্বাসনে চাইল্ড প্রটেকশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন। যুদ্ধশিশুদের সেখানে লালন-পালন, চিকিৎসা, শিক্ষা, দত্তক দেওয়া ইত্যাদির ব্যবস্থা করা হতো। আজকের শিশু পরিবার তারই পরিবর্তিত রূপ। বর্তমানে বাংলাদেশে ৮৫টি সরকারি শিশু পরিবার এবং ৬টি ছোটমণি নিবাস রয়েছে। ছোটমণি নিবাসগুলোতে পিতৃ-মাতৃহীন নবজাতক থেকে শুরু করে ছয় বছর পর্যন্ত শিশুদের লালন-পালন করা হয়। এছাড়াও রয়েছে দুস্থ প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র, শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র, সরকারি আশ্রয়কেন্দ্র, বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র। এছাড়া বেসরকারি এতিমখানার শিশুদের ভরণপোষণের জন্য প্রতিটি এতিম শিশুর বিপরীতে সরকারি অনুদান দেওয়া হয়।

/এমএইচবি/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ