শাসনতন্ত্র নিয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি

Send
উদিসা ইসলাম
প্রকাশিত : ০৮:০০, অক্টোবর ১৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৫, অক্টোবর ১৮, ২০২০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ওই বছরের ১৮ অক্টোবরের ঘটনা।)
গণপরিষদের মুলতবি হওয়া অধিবেশন বসার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এই অধিবেশনে খসড়া শাসনতন্ত্রের সংশোধনী নিয়ে আলোচনা করার কথা রয়েছে। আলোচনার জন্য ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের সংসদীয় কমিটির সভায় প্রস্তাব যাচাই-বাছাইও শুরু হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অধিবেশন মুলতবির এই সময়টাতে বারবারই সদস্যদের উদ্দেশে বলেছেন প্রয়োজনীয় সংশোধনী থাকলে সেসব নিয়ে কথা বলতে।

১৯ তারিখের প্রস্তুতি শেষ

১৯ অক্টোবর সকাল সাড়ে নয়টায় বাংলাদেশ গণপরিষদের অধিবেশন শুরু হবে। এই অধিবেশনে শাসনতন্ত্র সংশোধনীর ওপর সাধারণ আলোচনা হবে। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে, গত ১২ অক্টোবর গণপরিষদের অধিবেশন শুরু হয় এবং তিন দিন মুলতবির পর আবারও শুরু হতে যাচ্ছে অধিবেশন। সেই সময় খসড়া শাসনতন্ত্র, পরিষদ সদস্যদের বিশেষ অধিকার বিধিসহ প্রয়োজনীয় বেশকিছু বিল উত্থাপিত হয়। আওয়ামী লীগ সংসদীয় দলের চিফ হুইপ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান,  মুলতবি অধিবেশনের অবশিষ্ট সময়ে অধিবেশনে সাধারণ আলোচনা শুরু হবে এরপর  শাসনতন্ত্র বিলের ধারাওয়ারি আলোচনা শুরু হবে।

 সংসদে মহিলা আসন প্রশ্নে আওয়ামী লীগ নেতাদের বিবৃতি

পৌর এলাকায় মহিলাদের ভোটের মাধ্যমে পরিষদের মহিলা সদস্য নির্বাচনের জন্য বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ  যে প্রস্তাব করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তিনজন মহিলা নেত্রী এর প্রতিবাদ করেন। এক বিবৃতিতে আওয়ামী লীগ নেত্রীরা মহিলা পরিষদের প্রতিষ্ঠা সংবিধানের ৬৫ নম্বর অনুচ্ছেদ পাঠ করার আহ্বান জানায়। এই অনুচ্ছেদের যে কোনও আসন থেকে মহিলাদের প্রতিনিধিত্ব করার অধিকারের কথা বর্ণিত আছে। যে ক্ষেত্রে শতকরা ৯০ জন মহিলা গ্রামে বাস করেন সেক্ষেত্রে শুধুমাত্র পৌর এলাকার শতকরা ১০ জন মহিলার ভোটের দাবি করে মহিলা পরিষদ তাদের সমাজতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গিকেই প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বলে আওয়ামী লীগ নেত্রীর বিবৃতিতে জানান। বিবৃতিতে সাজেদা চৌধুরী রাফিয়া আক্তার ও মমতাজ বেগম স্বাক্ষর করেন।

বৈদেশিক মুদ্রার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৯ কোটি

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার সংরক্ষিত অঙ্ক ৮ কোটি ৭০ লাখ পাউন্ডে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ যে কোনও সময় আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল থেকে ছয় কোটি পাউন্ড স্টার্লিং নিতে পারবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হামিদুল্লাহ এনার প্রতিনিধির সঙ্গে ঘরোয়া আলোচনাকালে এ তথ্য প্রকাশ করেন। প্রকৃতপক্ষে বিগত বছরের এই সময়ে গোটা পাকিস্তানের বৈদেশিক মুদ্রার সংরক্ষিত অঙ্ক ছিল তিন কোটি ৫০ লাখ পাউন্ড। বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রভূত সম্ভাবনা সম্পর্কে আশাবাদ প্রকাশ করে গভর্নর বলেন, আগামী বছর দেশের রফতানি যখন স্বাভাবিক পর্যায়ে যাবে তখন বৈদেশিক মুদ্রা আয় সাড়ে ১৭ কোটি পাউন্ড স্টার্লিং থেকে ২০ কোটি পাউন্ড স্টার্লিং দাঁড়াতে পারে।

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের সর্বোচ্চ বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়া হবে

সরকার শিগগিরই সকল নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের সর্বোচ্চ বিক্রয় মূল্য নির্ধারণের কথা ঘোষণা করবে। সরকার নির্ধারিত মূল্যের বেশি দামে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বিক্রয় শাস্তিযোগ্য হবে বলে ঢাকায় ওয়াকিবহাল মহল থেকে বলা হয়। সরকার মূল্যবৃদ্ধি, কালোবাজারি ও মুনাফাখোর প্রতিরোধের জন্য এসব ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে পত্রিকাগুলোকে জানানো হয়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেশে প্রস্তুত অথবা বিদেশ থেকে আমদানিকৃত উভয় ধরনের সকল নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য নির্ধারণের কাজ শুরু করেছে। এরপর নির্ধারিত মূল্যের বেশি দামে বিক্রি করতে দেওয়া হবে না। সরকারের নির্দেশ অমান্য করলে সরকারি প্রশাসন অপরাধীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে। উপরোক্ত বেঁধে দেওয়া দামের বাইরে কেউ বেচা-বিক্রি করলে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে বলে জানানো হয়।

 

/এমআর/এমএমজে/

লাইভ

টপ