ঢাকায় কমছে শূন্য আইসিইউ’র সংখ্যা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:৩১, অক্টোবর ৩০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৩৩, অক্টোবর ৩০, ২০২০

করোনা টেস্ট (ছবি: ফোকাস বাংলা)কিছুদিন আগেও ঢাকা মহানগরীর হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র ( আইসিইউ) গুলোতে রোগী  ছিল কম, শূন্য আইসিইউর সংখ্যাই ছিল বেশি। কিন্তু  শুক্রবার ( ৩০ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যায়, ঢাকা মহানগরীর ১৯টি হাসপাতালের ৩১৪টি আইসিইউর মধ্যে বর্তমানে রোগী রয়েছে ১৭২টি আইসিইউতে,আর ফাঁকা রয়েছে ১৪২টি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনার ডেডিকেটেড প্রথম হাসপাতাল কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে থাকা ১৬টি আইসিইউর ১৬টিতেই রোগী রয়েছে, ৫০০ শয্যার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের ১০টিতেও রয়েছে রোগী। মুগদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ১৪টি আইসিইউতেও রোগী আছেন।

তবে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ২৪টি আইসিইউর মধ্যে রোগী রয়েছেন ১৪টিতে, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালের ১৫টি আইসিইউ থাকলেও রোগী রয়েছেন ১২ জন, তিনটি ফাঁকা। বিএসএমএমইউর ১৬টির মধ্যে ১২ জন রোগী রয়েছেন, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালের ১৬টির মধ্যে ছয়টিতে রোগী আছেন। আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ১০টি আইসিইউতে রোগী রয়েছেন চার জন, শুন্য ছয়টি। সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ছয়টি আইসিইউর মধ্যে রোগী রয়েছেন তিনজন, বাকি তিনটি শূন্য, আসগর আলী হাসপাতালের ৩৬টি  আইসিইউর মধ্যে রোগী রয়েছেন ১৭ জন, বাকি ১৯টি ফাঁকা। স্কয়ার হাসপাতালের ২৫টির মধ্যে রোগী রয়েছেন ৯জন, বাকি ১৬টি ফাঁকা। ইবনে সিনা হাসপাতালের ছয়টির মধ্যে রোগী আছেন পাঁচ জন, একটি ফাঁকা। ইউনাইটেড হাসপাতালের ২২টির মধ্যে রোগী রয়েছেন ৯ জন, বাকি ১৩টি ফাঁকা। এভার কেয়ারের ২০টির মধ্যে রোগী রয়েছেন ১৮ জন, বাকি দুইটি ফাঁকা। ইম্পালস হাসপাতালের ৫৬টির মধ্যে রোগী আছেন সাত জন, বাকি ৪৯টি ফাঁকা। এ এম জেড হাসপাতালের ১০টির মধ্যে রোগী আছেন চার জন, বাকি ছয়টি ফাঁকা এবং বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালের ১২টি আইসিইউর  সবগুলোতেই রোগী রয়েছেন।

তবে সারাদেশে মোট আইসিইউ-তে ভর্তি রোগীর সংখ্যা কম, শয্যা ফাঁকা রয়েছে বেশি। সারাদেশে কোভিড রোগীদের জন্য আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৫৬৪টি। এর মধ্যে ভর্তি আছেন ২৬৭ জন, আর শয্যা ফাঁকা রয়েছে ২৯৭টি।

 

/জেএ/এপিএইচ/

লাইভ

টপ