X
সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২
৩১ শ্রাবণ ১৪২৯

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রাণিসম্পদ পুনর্বাসনে উদ্যোগ কী

মাহফুজ সাদি
৩০ জুন ২০২২, ১০:০০আপডেট : ৩০ জুন ২০২২, ১৫:১৩

কোরবানির ঈদের আগে স্মরণকালে ভয়াবহ বন্যায় বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়েছে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সাড়ে ৬ হাজারেরও বেশি গবাদিপশুর খামার। এই খাতে সহায়তার জন্য ২৮ কোটি ৫৪ লাখ ৩০ হাজার ৯২০ টাকা বরাদ্দের চাহিদাপত্র প্রস্তুত করেছে প্রাণিসম্পদ অধিদফতর। তবে এই চাহিদাপত্রের অর্থ কবে নাগাদ সরবরাহ করা হবে, সেটি জানাতে পারছেন না অধিদফতরের কর্মকর্তারা।

ঈদুল আজহার আর ১০ দিনের মতো বাকি। এসময়ে বিক্রির জন্য যেসব খামারি পশু বড় করছিলেন, তারা এখন ঘোর সংকটে পড়েছেন। তাদের দাবি, এই মুহূর্তে তারা সরকারি সহায়তা না পেলে ক্ষতি পুষিয়ে ওঠা তাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়বে। অন্যদিকে অধিদফতর বলছে, ‘বরাদ্দ পাওয়া সাপেক্ষে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন হবে। এ সংক্রান্ত কোনও নির্দেশনা এখনও জারি করা হয়নি। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিস্তীর্ণ জনপদ প্লাবিত হয়ে প্রাণিসম্পদের যে পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, সেই অনুযায়ী চাহিদাপত্রটি তৈরি করা হয়েছে। স্থানীয় কৃষক-খামারিদের সেই ক্ষতি লাঘবে পুনর্বাসন কার্যক্রমের আওতায় সম্ভাব্য কর্মসূচির বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

অধিদফতর জানিয়েছে, সিলেট অঞ্চল দিয়ে শুরু হওয়া এবারের বন্যায় পাঁচ বিভাগের ১৫টি জেলায় বিস্তৃত হয়েছে। এসব জেলার ৯৫টি উপজেলার ৬ হাজার ৫৬৯টি গবাদিপশুর খামার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে মোট আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ৩২৮ কোটি ১৪ লাখ ৫১ হাজার ১৫০ টাকা। ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলগুলোর প্রাণিসম্পদ অফিসগুলোর পাঠানো তথ্যের ভিত্তিতে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

সরকারি হিসাবেই ক্ষয়ক্ষতির এমন চিত্র উঠে আসলেও প্রকৃত ক্ষতির পরিমাণ আরও বেশি হবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। এই খাতের ক্ষতির পরিমাণ হ্রাস করতে বন্যা শুরুর পরপরই তাৎক্ষণিকভাবে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে প্রাণিসম্পদ অধিদফতর। এখন পুনর্বাসনের কার্যক্রমের আওতায় ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের সহযোগিতা করার জন্য বরাদ্দের চাহিদার সারসংক্ষেপ প্রস্তুত করেছে তারা।

বন্যা মোকাবেলায় গো-খাদ্য, ঔষধ ও টিকার চাহিদার সার-সংক্ষেপে বলা হয়েছে, পাঁচ বিভাগে গো-খাদ্য দানাদারে ২৬ কোটি ৪৯ লাখ ৯২ হাজার টাকা, কৃমিনাশক ট্যাবলেটে ৩৭ লাখ ৮১ হাজার ২৫০ টাকা, এন্টিডাইরিয়াল ও স্যালাইনে ৭৫ লাখ ৭১ হাজার ২০০ টাকা, এন্টিবায়োটিকে ১৬ লাখ ৭১ হাজার ৪০০ টাকা, গবাদিপশুর টিকা এফএমডিতে ৩৭ লাখ ৩৭ হাজার ৪৪০ টাকা, তড়কায় ১ লাখ ৪৯ হাজার ১৫০ টাকা, পিপিআরে ১ লাখ ২০ হাজার ৭৫০ টাকা, বাদলায় ৪৯ হাজার ২০০ টাকা, গলাফুলায় ১৭ হাজার ৪০ টাকা, গোটপক্সে ১৭ হাজার ৪৯০ টাকা এবং হাঁসমুরগির টিকা বিসিআরডিভিতে ৬ লাখ ৩ হাজার ৪৫০ টাকা, আরডিভি ৫ লাখ ৯৭ হাজার ১৫০ টাকা, ডাকপ্লেগ ১৩ লাখ ১৯ হাজার ১০০ টাকা ও ফাইল কলেরায় ৮ লাখ ৪ হাজার ৩০০ টাকা। 

এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে গো-খাদ্য দানাদার ৩২০ টন, কৃমিনাশক ট্যাবলেট ৩২ হাজার পিস, এন্টিডাইরিয়াল ও স্যালাইন ২৩ হাজার প্যাক, এন্টিবায়োটিক ১ হাজার ৩৪০ বোতল, গবাদিপশুর টিকা এফএমডি ৩ হাজার ৪০০ বোতল, তড়কা ৫৮ হাজার, পিপিআর ৩২ হাজার এবং হাঁসমুরগির টিকা ১১ লাখ ১০ হাজার করে বিসিআরডিভি ও আরডিভি, ডাকপ্লেগ ১২ লাখ ৭০ হাজার ও ফাইল কলেরা ১১ লাখ।

রংপুর বিভাগে গো-খাদ্য দানাদার ৬৬১ টন, কৃমিনাশক ট্যাবলেট ২১ হাজার ৯০০ পিস, এন্টিডাইরিয়াল ও স্যালাইন ১০ হাজার ২০০ প্যাক, এন্টিবায়োটিক ১ হাজার ৫৪২ বোতল, গবাদিপশুর টিকা এফএমডি ২ হাজার ৫৫৯ বোতল, তড়কা ১ লাখ ৫০০, পিপিআর ৬৯ হাজার, বাদলা ১৪ হাজার ২০০, গলাফুলা ১৬ হাজার, গোটপক্স ১০ হাজার এবং হাঁসমুরগির টিকা বিসিআরডিভি ৫ লাখ ৮৪ হাজার, আরডিভি ৫ লাখ ৪৪ হাজার, ডাকপ্লেগ ৩ লাখ ১৮ হাজার ও ফাইল কলেরা ১ লাখ ৫৭ হাজার ৫০০।

ময়মনসিংহে গো-খাদ্য দানাদার ১ হাজার টন, কৃমিনাশক ট্যাবলেট ৭১ হাজার পিস, এন্টিডাইরিয়াল ও স্যালাইন ৩১ হাজার প্যাক, এন্টিবায়োটিক ১ হাজার ৮০০ বোতল, গবাদিপশুর টিকা এফএমডি ২ হাজার ৭০০ বোতল, তড়কা ৫০ হাজার, পিপিআর ২০ হাজার এবং হাঁসমুরগির টিকা ১০ লাখ করে বিসিআরডিভি ও আরডিভি, ডাকপ্লেগ ২০ লাখ ও ফাইল কলেরা ১০ লাখ।

সিলেট বিভাগে গো-খাদ্য দানাদার ২ হাজার ৩০৫ টন, কৃমিনাশক ট্যাবলেট ২১ হাজার ৫৫০ পিস, এন্টিডাইরিয়াল ও স্যালাইন ২৬ হাজার ৫৪০ প্যাক, এন্টিবায়োটিক ৩ হাজার ১৯৫ বোতল, গবাদিপশুর টিকা এফএমডি ১৩ হাজার ৮৫০ বোতল, তড়কা ৬৪ হাজার ৮০০, পিপিআর ৯৩ হাজার, বাদলা ৪ হাজার ১০০, গলাফুলা ৮ হাজার ৯০০, গোটপক্স ৭ হাজার ৮০০ এবং হাঁসমুরগির টিকা ১১ লাখ ৯২ হাজার করে বিসিআরডিভি ও আরডিভি, ডাকপ্লেগ ৭ লাখ ৭৬ হাজার ও ফাইল কলেরা ৩ লাখ ৯৬ হাজার।

রাজশাহী বিভাগে গো-খাদ্য দানাদার ৮১০ টন, কৃমিনাশক ট্যাবলেট ৪৮ হাজার পিস, এন্টিডাইরিয়াল ও স্যালাইন ৩৯ হাজার প্যাক, এন্টিবায়োটিক ৩৮০ বোতল, গবাদিপশুর টিকা এফএমডি ৮৫০ বোতল, তড়কা ২৫ হাজার, পিপিআর ২৭ হাজার ৫০০, বাদলা ১৪ হাজার ৫০০, গলাফুলা ৩ হাজার ৫০০, গোটপক্স ১৪ হাজার এবং হাঁসমুরগির টিকা বিসিআরডিভি ১ লাখ ৩৭ হাজার, আরডিভি ১ লাখ ৩৫ হাজার, ডাকপ্লেগ ৩৩ হাজার ও ফাইল কলেরা ২৭ হাজার ৫০০।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বুধবার (২৯ জুন) প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, স্থানীয় দফতরগুলো থেকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এবং পুনর্বাসনের জন্য চাহিদার সারসংক্ষেপ পাঠিয়েছে। তার ওপর ভিত্তি করে সরকারি বরাদ্দের জন্য একটি চাহিদাপত্র প্রস্তুত করা হয়েছে। বরাদ্দ পেলে তা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সরবরাহ করা হবে।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রাণিসম্পদ খাতের পুনর্বাসনের কার্যক্রম তাৎক্ষণিকভাবেই শুরু করা হয় উল্লেখ করে অধিদফতর থেকে জানানো হয়, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্থানীয় সরকার, প্রশাসন, স্থানীয় প্রাণিসম্পদ দফতরগুলো বন্যার্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি নিরুপণের পাশাপাশি পুনর্বাসনের লক্ষ্যে কাজ করছেন তারা।

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে সম্ভাব্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- স্থানীয় প্রতি হাটে ভেটেরিনারি মেডিক্যাল টিমের কার্যক্রম, বন্যাদুর্গত এলাকায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ওষুধ বিতরণ, টিকা সরবরাহ, গো-খাদ্য সরবরাহ ইত্যাদি। এ ছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক-খামারিদের অন্যান্য সহযোগিতার জন্য স্থানীয় প্রাণিসম্পদ দফতরগুলোতে যোগাযোগ রাখতে বলা হয়েছে।

কবে নাগাদ বরাদ্দ আসতে পারে, জানতে চাইলে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক বলেন, সম্ভাব্য কর্মসূচিগুলো নিয়ে কাজ করছি আমরা। শিগগিরই কোনও সিদ্ধান্ত আসতে পারে। তারপরে বলা যাবে- ঠিক কখন পুনর্বাসনের আর্থিক কার্যক্রম শুরু করা যাবে।

এর আগে মঙ্গলবার (২৮ জুন) প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের এক প্রতিবেদনের সার-সংক্ষেপে বলা হয়, ঢাকা বিভাগের ১টি জেলার ১০টি উপজেলায় ২৫৮টি খামার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৮৯ কোটি ৬২ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। সিলেটের ৪ জেলার ৩৪টি উপজেলায় ৫ হাজার ৫৯০টি খামার ক্ষতির মুখে পড়েছে। ক্ষতির পরিমাণ ১২০ কোটি ৮৯ লাখ ৫৯ হাজার ৩৫০ টাকা।

ময়মনসিংহের ৩ জেলার ২১ উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত খামারের সংখ্যা ৫৮৬টি, আর্থিক ক্ষতি ১৬ কোটি ৪১ লাখ ১৩ হাজার ২০০ টাকা। রাজশাহীর ২ জেলার ৮টি উপজেলায় ১৩৫টি খামার ক্ষতিগ্রস্ত, ক্ষতি হয়েছে ৯১ লাখ ৩৪ হাজার ১০০ টাকা। আর রংপুরের ৫টি জেলার ২২টি উপজেলায় ক্ষতির পরিমাণ ২৯ লাখ ৪৯ হাজার ৫০০ টাকা।

/ইউএস/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
নবদম্পতিকে নিয়ে যাচ্ছিল পরিবার
উত্তরায় ক্রেন থেকে গার্ডার পড়ে নিহত ৪নবদম্পতিকে নিয়ে যাচ্ছিল পরিবার
খায়রুন নাহারের লাশ উদ্ধার: জামিন মেলেনি মামুনের
খায়রুন নাহারের লাশ উদ্ধার: জামিন মেলেনি মামুনের
‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’
‘২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার’
ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ
ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ
এ বিভাগের সর্বশেষ
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের আর্থিক অনুদান দিলেন ঢাবির সাবেক শিক্ষার্থীরা
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের আর্থিক অনুদান দিলেন ঢাবির সাবেক শিক্ষার্থীরা
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২ হাজার পরিবারকে পুনর্বাসন করছে মাস্তুল ফাউন্ডেশন
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২ হাজার পরিবারকে পুনর্বাসন করছে মাস্তুল ফাউন্ডেশন
বন্যায় ১৮ জেলায় ক্ষতি প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকা
বন্যায় ১৮ জেলায় ক্ষতি প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকা
‘নিরাপদ মাছ সবার কাছে পৌঁছানো সরকারের লক্ষ্য’
মাছে-ভাতে বাঙালির ঐতিহ্য আমরা ফিরিয়ে আনতে চাই:
একদিনের বেতনের টাকা বন্যার্তদের দিলো নৌবাহিনী
একদিনের বেতনের টাকা বন্যার্তদের দিলো নৌবাহিনী