ইসির প্রস্তাব গণতান্ত্রিক চেতনার পরিপন্থী: সাইফুল হক

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:১৫, জুলাই ০৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:১০, জুলাই ০৫, ২০২০

আরপিও সংশোধনে নির্বাচন কমিশনের উদ্যোগ ও প্রস্তাব সংবিধানের মৌলিক গণতান্ত্রিক চেতনার পরিপন্থী,  অগণতান্ত্রিক ও স্বেচ্ছাচারী বলে অভিযোগ করেছেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক। তিনি দাবি করেন, রাজনৈতিক দলগুলোর মতামত ও পরামর্শের ভিত্তিতে কমিটিতে ৩৩ শতাংশ নারী সদস্যের অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করতে প্রয়োজনে ৫ থেকে ১০ বছরের নতুন সময়সীমা নির্ধারণ করতে হবে।

রবিবার (৫ জুলাই) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সংহতি মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে সাইফুল হক বলেন, ‘করোনা দুর্যোগের মধ্যে নির্বাচন কমিশনের রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন আইন সংশোধনের উদ্যোগ দায়িত্বহীন, অবিবেচনাপ্রসূত ও উদ্দেশ্যমূলক। এই উদ্যোগ অগণতান্ত্রিক ও সংবিধান পরিপন্থী। মহামারি দুর্যোগের অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে আরপিও সংশোধনের উদ্যোগ অবিলম্বে স্থগিত করুন। দলের কমিটিতে শতকরা ৩৩ ভাগ নারী সদস্যদের বাধ্যবাধকতা বাতিল করা যাবে না।’

সাইফুল হক উল্লেখ করেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের নৈতিক জোর ও গ্রহণযোগ্য না থাকায় রাজনৈতিক দলের কমিটিতে ৩৩ শতাংশ নারী সদস্য রাখার বিধান থেকে তারা এখন সরে আসতে চাইছে। তিনি বলেন, ‘নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর ব্যর্থতার কারণে এই বিধান থেকে সরে আসা যাবে না।’

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশন প্রস্তাবিত ‘রাজনৈতিক দলগুলোর নিবন্ধন আইন ২০২০’ সম্পর্কে বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাত দফা মতামত ও প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়। বলা হয়, ইসি সরকার ও সরকারি দলকে খুশি করতে আরপিও সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির প্রস্তাব হচ্ছে, নারীদের ৩৩% নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় কমিটির জন্য ৫ (পাঁচ) বছর আর নিম্নস্তরের কমিটির জন্য ১০ (দশ) বছর সময়সীমা বেঁধে দিয়ে এ সংক্রান্ত বিধান সংশোধন করা প্রয়োজন। এছাড়া, ইসির নতুন প্রস্তাবনায় সবকিছুতে বাংলা শব্দের প্রবর্তন করতে যেয়ে এমন সব শব্দের প্রস্তাব করা হয়েছে যা গ্রহণযোগ্য নয়, অনেক শব্দ সহজে উচ্চারণও করা যাবে না, বলে মনে করে দলটি।

সাইফুল হকের পার্টির পক্ষ থেকে প্রস্তাব করা হয়েছে, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সরাসরি ও খোলামেলা আলোচনা না করে আইন সংশোধনের কোনও সুযোগ নেই। জরুরি মনে করলে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে বা অনলাইনে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে পর্যায়ক্রমে নির্বাচন কমিশন সংলাপ বা পরামর্শ সভার আয়োজন করতে পারে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পার্টির রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য বহ্নিশিখা জামালী, আকবর খান, আবু হাসান টিপু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাশিদা বেগম, মোফাজ্জল হোসেন মোশতাক, ঢাকা মহানগর নেতা জোনায়েদ হোসেন প্রমুখ।

 

/এসটিএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ