X
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২
১৫ আষাঢ় ১৪২৯
বৃহত্তর ঐক্য নাকি বাম ঐক্য

সাত দলীয় মঞ্চকে কেন্দ্র করে বামজোটে অস্থিরতা, ভাঙনের শঙ্কা

আপডেট : ১০ মে ২০২২, ০২:১৭

প্রগতিশীল ঘরানার সাতটি রাজনৈতিক দলের ঐক্যবদ্ধ ‘মঞ্চ’ গড়ে তোলার প্রক্রিয়াকে সামনে রেখে বাম গণতান্ত্রিক জোটে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ‘বৃহত্তর নাকি কেবল বাম দলগুলোর ঐক্য’ ইস্যুতে বিরোধিতা ও আলোচনা অব্যাহত থাকলেও গত মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে আলোচনায় নতুন গতি এসেছে।

গত ২৮ এপ্রিল সাতটি রাজনৈতিক দল ‘সরকারের পদত্যাগের মধ্য দিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে ঐকমত্য পোষণ করে ‘রাজনৈতিক মঞ্চ’ গড়ে তোলার বিষয়ে একমত পোষণ করে। সোমবার (৯ মে) বাম জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে ওই মঞ্চের বিষয়ে আলোচনা ওঠে এবং দীর্ঘসময় বিতর্ক করেন জোটের নেতারা।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন—এমন কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ও গণসংহতি আন্দোলন বাম জোটের শরিক হয়েও ফের ‘নতুন রাজনৈতিক মঞ্চ’ গড়ে তোলার কী প্রয়োজনীয়তা—তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। জোটের শরিক সিপিবি ও বাসদের নেতারা মনে করেন, বাম জোটকেই আন্দোলনে সক্রিয় করা উচিত।

সিপিবি ও বাসদের দুই গুরুত্বপূর্ণ নেতা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, বাম জোট তার শরিকদের কাছে পরিষ্কার অবস্থান জানতে চেয়েছে। অন্য কোনও জোটে যুক্ত না হয়ে বাম জোটকেই এগিয়ে নেওয়ার পক্ষে মত দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ও গণসংহতি আন্দোলন কেন বাম জোটে থেকে অন্য জোটে যাবে, সেটিও পরিষ্কার করতে বলা হয়েছে।

জোটের অন্যতম একটি শরিক দলের নেতা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, মঙ্গলবার সাত দলের একটি বৈঠক আছে। আমরা বলেছি, সেই বৈঠকের পর তারা যেন সিদ্ধান্ত জানায় কোন জোটে যাবে বা থাকবে। আর সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে, সাত দলের রাজনৈতিক মঞ্চটি হচ্ছে এবং তারা সেখানেই কনটিনিউ করবে। তবে ওই মঞ্চ কোনও কিছু করার ক্ষমতা রাখবে বলে মনে হয় না।’

জবাবে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক ও গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি জোটকে জানিয়েছেন, সাত দলীয় রাজনৈতিক ঐকমত্যের উদ্যোগটি বিকল্প কোনও জোট নয়।

বৈঠক সূত্র দাবি করে, সাইফুল হক ও জোনায়েদ সাকি সাত দলীয় রাজনৈতিক উদ্যোগটিকে জোট হিসেবে বিবেচনা করছেন না। তারা সাত দলীয় মঞ্চের উদ্যোগটিকে বাম জোটের বিকল্প হিসেবেও দেখছেন না। তারা জোটকে জানিয়েছেন, ভোটাধিকার, অবাধ নির্বাচন ও সর্বোপরি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে বৃহত্তর ঐক্যের অংশ হিসেবে সাত দলীয় মঞ্চের উদ্যোগের সঙ্গে রয়েছেন। বিশেষত, বিএনপি, ইসলামি ও দক্ষিণপন্থী দলগুলোর বাইরে বাম ও প্রগতিশীল ঘরানার রাজনৈতিক দলগুলোর একটি ঐক্যবদ্ধ প্ল্যাটফরম, যেখানে বাম জোটের শরিক দলগুলোও যোগ দিতে পারে।

বামজোটের একটি সমাবেশ (ফাইল ফটো)

বাম জোটের সূত্র জানায়, বৈঠকে সাইফুল হক, জোনায়েদ সাকি প্রায় ঘণ্টাখানেক আলোচনা করেছেন। আলোচনায় শরিক দলগুলোর নেতারা বিতর্কে লিপ্ত হয়েছেন।

সূত্রের দাবি, বাম জোটে দীর্ঘদিন ধরে ‘বৃহত্তর ঐক্য নাকি বাম ঐক্য’ এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে মতবিরোধ আছে। গণসংহতি আন্দোলন বৃহত্তর ঐক্যের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

সাত দলের রাজনৈতিক মঞ্চ গড়ে তোলার প্রক্রিয়া নিয়ে বাম জোটে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘বাম জোটে প্রশ্ন আছে। কেননা, দীর্ঘদিন ধরেই বাম ঐক্য না বৃহত্তর রাজনৈতিক ঐক্য—এ নিয়ে মতপার্থক্য আছে। এসব প্রশ্ন নিয়ে আমরা আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি।’

বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে সাইফুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘জোটের বৈঠকে সমগ্র বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের সাত দলীয় যে উদ্যোগ, সেটি বাম জোট বা অন্য জোটের প্যারালাল জোট না। কারও সঙ্গে দরকষাকষি করার কোনও উদ্যোগ নয়। জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করে বৃহত্তর আন্দোলনের একটি উদ্যোগ।’

এ প্রসঙ্গে জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে গণসংহতি আন্দোলন বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার উদ্যোগ নিচ্ছে। ভোটাধিকার এবং দেশে গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে জনগণের বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার জন্য যারা ঐক্যবদ্ধ হবে, তারা সবাই মিলে দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করছি। সেই চেষ্টা অব্যাহত আছে। ভোটারবিহীন সরকারের পতন, সংবিধান সংশোধনের লক্ষ্যে এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে বাম জোটের সমন্বয়ক অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আজকে বাম জোটের বৈঠকে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক ও গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি দুজনেই—তারা যে সাত দলীয় রাজনৈতিক মঞ্চে যাচ্ছে, মঞ্চ গড়ার ক্ষেত্রে তাদের ভূমিকা, এসব নিয়ে আলোচনা হয়েছে। জোটের বেশিরভাগ দল তাদের ভূমিকা সঠিক মনে করে না। সেক্ষেত্রে কথা হয়েছে, একটা জোট করা যাবে। হয় বাম জোট, নয় সাত দলীয় মঞ্চ। একইসঙ্গে তো দুটো জোট কেউ করতে পারে না। কারণ, আমাদের মধ্যে রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিগত পার্থক্য আছে।’

অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার বলেন, ‘মঙ্গলবার সাত দলের বৈঠক আছে। সেই বৈঠকের পর আমরা আবারও জোটের বৈঠকে বসবো। তাদের কথা শুনবো। তারপর ফায়সালা করবো। এ ব্যাপারে রাজনৈতিক কথা কাটাকাটি হোক, তা চাচ্ছি না। রাজনৈতিক দলের ভাঙাগড়া নিয়ে মানুষের মধ্যে অনাস্থা রয়েছে, এটা আরও বাড়বে। আমরা ধৈর্য ধরে আগাতে চাই। তবে তারা এটা বলেছে যে যারা সরকারবিরোধী দল আছে, যারা দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চায়, তারা সবাই যেন ঐক্যবদ্ধভাবে মঞ্চে আসে।’

সাত দলের বৈঠক (ফাইল ফটো) কাল সাত দলের বৈঠক

গত ২৮ এপ্রিল রাজধানীর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত বৈঠকের পর আগামীকাল মঙ্গলবার (১০ মে) আবারও বৈঠকে মিলিত হচ্ছেন সাত দলের শীর্ষ নেতারা। এতে জেএসডি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, নাগরিক ঐক্য, গণ অধিকার পরিষদ, ভাসানী অনুসারী পরিষদ, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন ও গণসংহতি আন্দোলনের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

রাজধানীর হাতিরপুলে গণসংহতি আন্দোলনের কার্যালয়ে বৈঠকটি শুরু হবে। এ বৈঠকে রাজনৈতিক মঞ্চের দাবি ও মূল লক্ষ্যগুলো নিয়ে আবারও আলোচনা হবে। পাশাপাশি কী ধরনের কর্মসূচি সামনে রেখে মঞ্চটি তৎপর হবে, তা নিয়েও আলোচনা হতে পারে। তবে এখনই মঞ্চের কোনও নেতা এ প্রসঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।

১৭ মে বাম জোটের ঘেরাও কর্মসূচি

সয়াবিন তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ, সারা দেশে সয়াবিন তেল নিয়ে নৈরাজ্য বন্ধ ও ব্যর্থ বাণিজ্যমন্ত্রীর অপসারণের দাবি জানিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। এ দাবিতে আগামী ১৭ মে সকাল ১১টায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে জোট। সোমবার সিপিবির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক ও ইউনাইটেট কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুস সাত্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় উপস্থিত ছিলেন—সিপিবি সভাপতি শাহ্ আলম, বাসদের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশিদ ফিরোজ, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, বাসদের (মার্কসবাদী) সমন্বয়ক মাসুদ রানা, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির (মার্কসবাদী) সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা রুবেল সিকদার।

আরও পড়ুন:

৭ দলের বৈঠক, নতুন ‘রাজনৈতিক মঞ্চ’ গড়ে তোলার প্রক্রিয়া শুরু

৭ দলের ঐক্যে ইতিবাচক বিএনপি

/এপিএইচ/এমওএফ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
খেলাটা ফেয়ার হতে হবে: টুকু
খেলাটা ফেয়ার হতে হবে: টুকু
বাসা ভাড়া নেওয়ার কথা বলে বৃদ্ধাকে হত্যা
বাসা ভাড়া নেওয়ার কথা বলে বৃদ্ধাকে হত্যা
শাহবাগে ট্রাকচাপায় যুবক নিহত
শাহবাগে ট্রাকচাপায় যুবক নিহত
সাবিলাকে নিয়ে অপূর্বর ‘আবারও অঘটন’
সাবিলাকে নিয়ে অপূর্বর ‘আবারও অঘটন’
এ বিভাগের সর্বশেষ
সাংবাদিকদের নতুন সংগঠন, প্রধান উপদেষ্টা জি এম কাদের
সাংবাদিকদের নতুন সংগঠন, প্রধান উপদেষ্টা জি এম কাদের
‘নির্বাচন কমিশনের মূল্যবান সময় নষ্ট করতে চায় না বাসদ’
‘নির্বাচন কমিশনের মূল্যবান সময় নষ্ট করতে চায় না বাসদ’
নির্বাচন কমিশনের সংলাপে যাবে না বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি
নির্বাচন কমিশনের সংলাপে যাবে না বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি
জাহানারা ইমামের মৃত্যুবার্ষিকীতে বাসদের শ্রদ্ধা
জাহানারা ইমামের মৃত্যুবার্ষিকীতে বাসদের শ্রদ্ধা
কৃষকরা দেশের চালিকাশক্তি: সাকি
কৃষক-মজুর সংহতির নতুন কমিটিকৃষকরা দেশের চালিকাশক্তি: সাকি