মনস্তাত্ত্বিক হারটা মেনে নিয়েছে বাংলাদেশ

Send
গাজী আশরাফ হোসেন লিপু
প্রকাশিত : ২১:৩০, সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৩০, সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৯

b864348ad21960689dc99b330483ec5f-5d73b665db05dআফগানিস্তান দলের সঙ্গে আমাদের এমন করুণ পরিণতি হবে কেউ কি ভেবেছিল? এই দলটি আমাদের সঙ্গে লড়াই করবে এবং আমাদের অনায়াসে জিততে দেবে না, এমন ধারণাই মনে মনে পোষণ করেছে বেশির ভাগ ক্রিকেট অনুরাগী। কিন্তু বাস্তবতা সম্পূর্ণ ভিন্ন হলো; প্রতিটি ইনিংসেই প্রত্যেক বিভাগে আমরা পরাস্ত হয়েছি, দুই একটি সেশন হয়তো আমাদের পক্ষে ছিল।

এই সদ্য টেস্ট খেলতে আসা দেশের কাছে কী এমন আছে, যা আমাদের মাঝে নেই। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট অবকাঠামোতে আমরা এগিয়ে, দেশে ও বিদেশে টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতায় আমরা অনেক সামনে রয়েছি। গত ১৫ বছর ধরে ভালো মানের ক্রিকেট কোচ, ফিজিও ও ট্রেইনার আমাদের দলের সঙ্গে কাজ করছে। অনুশীলন করার দারুণ একটা পরিবেশও আছে, তাহলে আমাদের কেন এই অসহায় আত্মসমর্পণ!

টি-টোয়েন্টি বা একদিনের ম্যাচে বোঝা যায় না, স্কিলের দিক থেকে টেস্ট ম্যাচের জন্য দলটা কতখানি এগিয়ে, দলের খেলোয়াড়দের টেম্পারমেন্টেরেই বা কী অবস্থা। সেই পরীক্ষায় আফগানরা তাদের মনের সাহস, কমিটমেন্ট, টেম্পারমেন্ট ও স্কিলের যে পরীক্ষা দিলো ব্যাট ও বল হাতে তা ছিল প্রশংসনীয়। পাঁচ দিনের ম্যাচে যদি পাঁচ দিনই কেউ আধিপত্য করতে পারে, তবে তা আপনাকে স্বীকার করে নেওয়াই উত্তম।

ম্যাচের পঞ্চম দিনে বৃষ্টি আশীর্বাদ হয়ে এলে আমরা হারের লজ্জা থেকে হয়তো বাঁচতে পারি, তবে এই ম্যাচে আমাদের মনস্তাত্ত্বিক পরাজয় ঘটেছে।

আফগানদের তিনজন খেলোয়াড় আছেন, যারা প্রথমবারের মতো টেস্ট খেলতে নেমেছেন এবং তিনজনই মুখিয়ে ছিলেন যখনই সুযোগ আসবে, তাদের সেরাটা দেওয়ার জন্য। অথচ আমাদের দ্বিতীয় ইনিংসে এক অদ্ভুত জিনিশ দেখলাম, যেখানে একজন নিয়মিত অর্ডারের ব্যাটসম্যান নামবেন দলকে রক্ষা করার জন্য সেখানে ব্যাটিং অর্ডারে বিশাল রদবদল করে মনে হলো উল্টো দলই রক্ষা করছে ব্যাটসম্যানদের। দল যখন এধরনের পরিস্থিতিতে নিজের ব্যাটসম্যানের ওপর আস্থা হারায়, তখন তার প্রভাব নিশ্চয়ই ওইসব ব্যাটসম্যানদের ওপরও পড়ে।

আফগানদের বোলিং অনেক ইম্প্রেসিভ লাগার মূল কারণ তারা আমাদের চেয়ে অনেক ভালো লাইন ও লেন্থে বল করেছে, হাতে গোনা কিছু বলে তারা বাড়তি টার্ন পেয়েছে। পক্ষান্তরে, সীমিত টার্নের বলেই তারা অধিক সফল ছিল এবং রশিদ খানের সঙ্গে জহির খানের গুগলি ব্যাটসম্যানরা অধিকাংশই ভালোভাবে রিড করতে পারেনি। এলবিডাব্লিউ এর পরিমাণই বলে দেয় কতখানি অ্যাকুরেটলি আফগানরা বল করেছে।

সাদমানের ব্যাটিং টেকনিক ও আত্মবিশ্বাসটা প্রশংসনীয় ছিল। সাকিব লুজ বল ছাড়ছেন না, তবে তার ব্যাটিংয়ের ন্যাচার বলে যে কোনও সময় বিপদ ডেকে আনতে পারেন।

বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে কাল সারাদিন লড়াই করা প্রায় অসম্ভব, একমাত্র বৃষ্টিই ত্রাণকর্তা হিসাবে আমাদের মুখ রক্ষা করতে পারে।

/এফএইচএম/

লাইভ

টপ