সবুজ-মেরুন জার্সি এখন থেকে এটিকে-মোহনবাগান

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:২৮, জানুয়ারি ১৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৩৬, জানুয়ারি ১৭, ২০২০

মিশে গেল আতলেতিকো ডি কলকাতা-মোহনবাগানঅনেকদিন থেকেই শোনা যাচ্ছিল, আতলেতিকো ডি কলকাতা আর মোহনবাগান এক হয়ে যাচ্ছে। সেটাই সত্যি হলো, মিশে গেল দুই ক্লাব। তার ফলে ইন্ডিয়ান সুপার লিগ (আইএসএল) খেলতে কোনও বাধা থাকলো না মোহনবাগানের। ভারতের ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগটি ছাড়াও সব ধরনের প্রতিযোগিতায় তারা নামবে এটিকে-মোহনবাগান নামে।

কলকাতার ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি কিনে নিয়েছে আতলেতিকো ডি কলকাতার মালিকানা প্রতিষ্ঠান আরপিএসজি গ্রুপ। মোহানবাগের ৮০ শতাংশ মালিকানা এখন তাদের, বাকি ২০ শতাংশ থাকলো মোহনবাগান ফুটবল ক্লাব প্রাইভেট লিমিটেডের হাতে। যদিও খেলোয়াড়রা নামবেন চিরচেনা সবুজ-মেরুন জার্সিতেই। জার্সিতেও থাকবে মোহনবাগানের লোগো। তবে খেলোয়াড় কেনা-বেচা থেকে শুরু করে ক্লাবের ব্যবস্থাপনার সবকিছুর সিদ্ধান্ত নেবে এটিকে।

বছরখানেক আগে শুরু হওয়া আলোচনার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এসেছে বৃহস্পতিবার। আইএসএলের দুবারের চ্যাম্পিয়ন এটিকে ও কলকাতার সবচেয়ে সফল ক্লাবের মিলে যাওয়া ভারতীয় ফুটবলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। চলতি আইএসএলে ১২ ম্যাচে ২১ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে এটিকে। অন্যদিকে ভারতের পেশাদার আই-লিগে শিরোপার সুবাস পাচ্ছে মোহনবাগান।

২০২০-২১ মৌসুমের ‍আইএসএলে যাত্রা শুরু হবে এটিকে-মোহনবাগানের। ক্লাবসচিব স্বপন সাধন বসুর দৃঢ় বিশ্বাস, নতুন চুক্তিতে স্বপ্ন পূরণ হয়েছে ভক্তদের, ‘ভক্তরাসবসময় জিজ্ঞেস করতেন, কবে আমরা আইএসএল খেলবো? এবার তাদের আশা পূরণ হচ্ছে।’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘নিজেদের ঐতিহ্য যেমন ধরে রাখতে চাই, তেমনি ফুটবলকেও এগিয়ে নিতে চাই। আমাদের বড় বিনিয়োগ দরকার ছিল। আর সেজন্য আমাদের কঠোর হতে হয়েছে। আরপিএসজি গ্রুপকে ধন্যবাদ।’

১৩০ বছরের পুরোনো ক্লাব মোহনবাগানের খ্যাতি বিশ্ব জুড়ে। কোনও কোনও ভক্তের আশঙ্কা, এমন একটি ক্লাবের মালিকানা একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের হাতে চলে গেলে অস্তিত্ব বিপন্ন হবে না তো? আরপিএসজি গ্রুপের চেয়ারম্যান সঞ্জীব গোয়েঙ্কা অবশ্য অভয় দিয়েছেন, ‘মোহনবাগানের ঐতিহ্য নষ্ট হয় এমন কিছু আমরা করব না।’

কলকাতার আরেক বিখ্যাত ক্লাব ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে আরপিএসজি’র যুক্ত হওয়ার গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। মোহনবাগানকে বেছে নেওয়া কেন? গোয়েঙ্কার ব্যাখ্যা, ‘দুই পক্ষই সমানভাবে এগিয়েছে বলে সম্ভব হয়েছে।’ চুক্তি মেয়াদ নিয়ে অবশ্য দুই পক্ষই চুপ। তবে এটিকের এক কর্মকর্তা ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘সারা জীবনের জন্য।’

দেখা যাক, কলকাতার দুই ক্লাবের একসঙ্গে পথচলা কতটা মধুর হয়!

/কেআর/এএআর/

লাইভ

টপ