না বেড়ে কমলো ম্যাচ, বিসিএলে হতাশ এনামুল জুনিয়র

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:৫১, জানুয়ারি ২৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৫১, জানুয়ারি ২৮, ২০২০

ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত সাফল্য পেলেও হতাশা কম নয় এনামুল জুনিয়রেরসীমিত ওভারে বাংলাদেশ কিছুটা ধারাবাহিকতা দেখালেও বড় দৈর্ঘ্যের ক্রিকেটে সেটা করতে পারছে না। সর্বশেষ খেলা তিনটি টেস্টে বাংলাদেশের ফলই বলে দেয় অবস্থা কতটা ভয়াবহ।

বৃষ্টির আশীর্বাদ পেয়েও ঘরের মাঠে আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচ বাঁচাতে পারেনি বাংলাদেশ। ভারতের গিয়ে ইন্দোর ও কলকাতায় দুটি টেস্টে বিরক্তি জন্ম দিয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা! লাল বলের ক্রিকেটে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের না খেলার মানসিকতার কারণেই এমনটা হচ্ছে বলে করেন বিদগ্ধজনেরা। জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের বেশিরভাগকেই দেখা যায় নানা কারণ দেখিয়ে বড় দৈর্ঘ্যের ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে।

অভিজ্ঞ এনামুল হক জুনিয়র মনে করেন লাল বলের ক্রিকেটকেই গুরুত্ব দেওয়া উচিত। এই ফরম্যাটে ভালো করলেই অন্য ফরম্যাটে ভালো করা যায়।

একটা সময়ে বাংলাদেশ দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন এনামুল হক জুনিয়র। বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট সিরিজ জয়ের নায়কও তিনি। ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই টেস্টে টানা তিন ইনিংসে ১৮ (৬,৭, ৫) উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়ে সিরিজসেরা নির্বাচিত হন। বিসিবি উত্তরাঞ্চলের হয়ে বিসিএল খেলবেন তিনি। মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে প্রস্তুতিও। মিরপুরের একাডেমিতে অনুশীলন শেষে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন ৩৩ বছর বয়সী বাঁহাতি  স্পিনার। লম্বা সময়ের ক্রিকেটের গুরুত্ব বোঝাতে গিয়ে এনামুল জুনিয়র বলেছেন, ‘লাল বলের ক্রিকেটে শুরু হচ্ছে-এটা আমাদের ক্রিকেটের জন্য ভালো সংবাদ। এ বছর আমাদের লাল বলের অনেকগুলো ম্যাচ আছে। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচগুলোর আগে বিসিএল প্রস্তুতি নিতে দারুণ ভূমিকা রাখবে। আমি বিশ্বাস করি লাল বলে ভালো করলে, অন্য ফরম্যাটগুলোও ভালো করা সম্ভব। আপনি যদি অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইংল্যান্ডের দিকে তাকান, ওরা তিন ফরম্যাটেই ভালো খেলছে-কারণ ওরা টেস্ট ক্রিকেটে ভালো করছে।’

শক্তিশালী দল হয়ে উঠতে বড় দৈর্ঘ্যের ম্যাচ খেলার বিকল্প নেই। এতে ক্রিকেটারদের আগ্রহী করে তুলতে ক্রিকেটারদের সম্মিলিত দাবির মুখে ম্যাচ ফি বাড়ানো হয়েছে। এনামুল মনে করেন এখনই সঠিক সময় এই ফরম্যাটে নিজেদের পরিবর্তন আনার, ‘আমরা ওয়ানডে ক্রিকেটে ভালো, কারণ জন্ম থেকেই এই ফরম্যাটে আমরা খেলছি। এজন্য আমাদের ওয়ানডে ক্রিকেটটা ভালোভাবে গড়ে উঠেছে। আমি বলবো আমাদের খুব দেরি হয়নি, এখন থেকেই লাল বলের ওপর গুরুত্ব দিলে তিন ফরম্যাটে ভালো করা সম্ভব। বছরে ১২-১৪ টা ম্যাচ খেলতে পারলে এই ফরম্যাটে ভালো করা সম্ভব।’

বিসিএলে ডাবল লিগ পদ্ধতিতে প্রতিটি দল ৬টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ পেতো। প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের কারণে বিসিএল এবার সিঙ্গেল লিগ পদ্ধতির। এবারের পদ্ধতিতে ফাইনাল হলেও দুটি ম্যাচ কমে গেছে। বিষয়টিকে ভালোভাবে নিচ্ছেন না এনামুল, ‘৬ টা ম্যাচ হলে আমাদের খেলোয়াড়দের জন্য অনেক ভালো হতো। যেটা হয়নি সেটা নিয়ে চিন্তা করে লাভ নেই, এই তিনটি ম্যাচ যাতে আমরা খুব ভালো করে খেলতে পারি সেটাই মূল ব্যাপার। এখানে ভালো হলে ভবিষ্যৎ ক্রিকেটারদের জন্যই ভালো হবে।’

/আরআই/পিকে/

লাইভ

টপ