মুন্নার দুই জার্সি বিক্রি ৫ লাখ ১০ হাজার টাকায়

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০২:৪২, মে ১০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:৫৭, মে ১০, ২০২০

প্রয়াত ফুটবল তারকা মুন্নাকরোনাভাইরাসে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে চেয়েছেন প্রয়াত ফুটবল তারকা মোনেম মুন্নার পরিবার। সেই চাওয়া থেকেই ১৯৮৯ সালে প্রেসিডেন্ট গোল্ডকাপ ফুটবলে বাংলাদেশ লাল দলের হয়ে খেলা ২ নম্বর জার্সিটি শনিবার রাতে নিলামে তোলা হয়। পূর্বঘোষণা ছাড়া হঠাৎ করেই এই জার্সির সঙ্গে নিলামে ওঠে আবাহনী লিমিটেডের হয়ে খেলা মুন্নার আরেকটি জার্সি! দুটি জার্সিই নিলামে বিক্রি হয়েছে। লাল দলের হয়ে খেলা জার্সিটি বিক্রি হয়েছে ৩ লাখ টাকা, আবাহনীর হয়ে খেলা ২ নম্বর জার্সিটি ২ লাখ ১০ হাজার টাকা। নিলাম পরিচালনা করেছে ‘অকশন ফর অ্যাকশন’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান।

নিলামের শুরুতে লাল দলের হয়ে গায়ে চাপানো জার্সিটির মূল্য নিয়ে আলোচনা চলতে থাকে। এরই এক ফাঁকে আবাহনীর জার্সিটির প্রসঙ্গ আসে। তাৎক্ষণিককভাবে এই্চএসবিসি ব্যাংকের সিইও মাহবুব উর রহমান তার প্রিয় দল আবাহনীর জার্সি কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। লাইভ অনুষ্ঠানে অন্য প্রান্তে প্রয়াত মুন্নার স্ত্রী ইয়াসমিন সুরভি তাতে সায় দেন। এছাড়া লাল দলের জার্সিটি কিনেছে কার্নিভাল ইন্টারনেট বাংলাদেশ নামে একটি প্রতিষ্ঠান।

দুটি জার্সি থেকে পাওয়া টাকা পুরো টাকাই করোনাদূর্গতের সাহায্যার্থে ব্যয় হবে। এই নিলাম প্রক্রিয়ায় এসে আড্ডায় মেতেছিলেন প্রয়াত মুন্নার সতীর্থ সাবেক তারকা ফুটবলার শেখ মো: আসলাম,সত্যজিৎ দাশ রুপু ও কায়সার হামিদ।

প্রয়াত তারকা ফুটবলার মোনেম মুন্নার স্ত্রী ইয়াসমিন সুরভি আগেই বলছিলেন, ‘আজ মুন্না বেঁচে থাকলে করোনাদুর্গতের জন্য আরও বেশি কাজ করতে পারতো।’ নিলামের অনুষ্ঠানেও সেই কথাই আবারও উচ্চারিত হয়েছে তার কণ্ঠে।

কিডনি জটিলতায় ভুগে ২০০৫ সালে  অকালপ্রয়াত মুন্নার খেলোয়াড়ি জীবনের আটটি জার্সি ও এক জোড়া বুট ইয়াসমিন সুরভির সংগ্রহে ছিল। সেখান থেকে এই দুটি জার্সি তুলে দিলেন নিলামে, যা এতদিন আঁকড়ে ছিলেন স্বামীর স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে।

এভাবে জার্সি বিক্রি করতে পেরে খুশি সুরভি। নিলামের অনুষ্ঠানে তিনি বলছিলেন, ‘হঠাৎ করে আমাকে একজন মেসেজ দিয়ে বললো করোনাভাইরাসের মধ্যে দেশের মানুষের জন্য কিছু একটা করা যায় কি না। সেই থেকে জার্সি নিলামের ওঠানোর সিদ্ধান্ত নিই।’ নিলামে প্রাপ্ত টাকা নারায়ণগঞ্জের বন্দরে মুন্না স্মৃতি সংসদের মাধ্যমে করোনাদুর্গতের সাহায্যে ব্যয় করা হবে।

সুরভি আগেই বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছিলেন, ‘সারাদেশেই মুন্নার সমর্থক আছে। তবে নারায়ণগঞ্জের বন্দরে তার নামে আছে স্মৃতি সংসদ। সেই ব্যানারে করোনাদুর্গত লোকজনদের সাহায্য করা হচ্ছে। আমি চাইবো নিলামের টাকা দিয়ে সেখানে আরও বড় আকারে কিছু করতে।’

 

 

/টিএ/পিকে/

লাইভ

টপ