রিয়ালকে হারিয়েই কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যান সিটি

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১১:০৩, আগস্ট ০৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৩, আগস্ট ০৮, ২০২০

গ্যাব্রিয়েল জেসুস ও রহিম স্টার্লিংয়ের গোলে জিতেই শেষ আটে ম্যান সিটিচ্যাম্পিয়নস লিগে টিকে থাকতে হলে জয়ের বিকল্প নেই। এর সঙ্গে ছিল আবার কঠিন সমীকরণ। অথচ ম্যাচের শুরুর দিকে গোল খেয়ে পথটা আরও কঠিন করে তোলে রিয়াল মাদ্রিদ। বিপরীতে ঘরের মাঠের সুবিধা কাজে লাগিয়ে আরও ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে ম্যানচেস্টার সিটি। পরে রিয়াল ঘুরে দাঁড়িয়েছিল ঠিকই, কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। শুক্রবার রাতে শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগও তারা হেরেছে ২-১ গোলে। তাতে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-২ অগ্রগামিতায় কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে গেছে ম্যান সিটি।

যেকোনও স্কোরে ড্র করলেই কোয়ার্টার ফাইনাল- ম্যান সিটির সামনে ছিল সহজ সমীকরণ। যদিও জিতেই শেষ আট নিশ্চিত করেছে তারা। প্রথম লেগের মতো দ্বিতীয় লেগেও গোল পেয়েছেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। তার আগে জাল খুঁজে পান রাহিম স্টার্লিং। আর রিয়ালের ব্যবধান কমান করিম বেনজেমা।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর প্রথম লেগ ২-১ গোলে হেরেছিল রিয়াল। ফিরতি লেগ ম্যান সিটির মাঠে হওয়ায় আশার প্রদীপ নিভু নিভু আলোয় জ্বলছিল। এরপরও দলটি যখন রিয়াল এবং কোচ টানা তিনটি চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা জিনেদিন জিদান, তখন উপসংহারে পৌঁছানো যাচ্ছিল না। কিন্তু কার্ডসংক্রান্ত ঝামেলায় অধিনায়ক সের্হিয়ো রামোসের না থাকা যে বড্ড ভোগাবে, সেটা টের পাওয়া যাচ্ছিল স্পষ্ট।

মাঠেও পড়লো সেটির পূর্ণ ছাপ। রামোসবিহীন রিয়ালের রক্ষণের ভার ছিল যার ওপর, সেই রাফায়েল ভারানের শিশুসুলভ দুই ভুলে চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে ছিটকে পড়লো মাদ্রিদের ক্লাবটি। বিশ্বকাপ জয়ী ফরাসি ডিফেন্ডারের ভুলেই হয়েছে ম্যান সিটির দুটো গোল। ডাগআউট থেকে রামোস সারাক্ষণ সতীর্থদের উজ্জীবিত করার চেষ্টা করে গেলেও লাভ হয়নি।

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে শুরু থেকেই ছিল ম্যান সিটির দাপট। দেখে মনে হচ্ছিল তারাই বুঝি প্রথম লেগে পিছিয়ে আছে! প্রথম গোল পেতেও খুব বেশি অপেক্ষায় থাকতে হয়নি। নবম মিনিটে স্টার্লিংয়ের গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। বাঁ প্রান্ত থেকে জেসুস বল নিয়ে ভেতরে ঢোকার সময় ভারান সেভাবে চাপই প্রয়োগ করেননি, তাতে ফাঁকা হয়ে পড়া রক্ষণে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার পাস দেন স্টার্লিংকে। ডান পায়ের প্লেসিংয়ে ম্যান সিটি ক্যারিয়ারের ১০০তম গোলের দেখা পান এই ইংলিশ ফরোয়ার্ড।

হাল ছেড়ে দেয়নি রিয়াল। ফর্মের তুঙ্গে থাকা করিম বেনজেমা বেশ কয়েকবার কাঁপিয়ে দেন স্বাগতিকদের রক্ষণ। অবশেষে ফরাসি স্ট্রাইকার সফল ২৮তম মিনিটে। যখন রোদ্রিগোর ক্রস অনেকটা লাফিয়ে উঠে হেড করে বল জালে জড়ান তিনি। ১-১ গোলে সমতায় ফিরে আশা জেগে ওঠে রিয়ালের।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে পাল্টে যায় দৃশ্যপট। রিয়ালের পারফরম্যান্সের গ্রাফ কমতে থাকে, আর খেলায় নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুর্দান্ত হয়ে ওঠে ম্যান সিটি। এর সঙ্গে ভারানের আরও বড় ভুল যোগ হলে দ্বিতীয় গোলেও পেয়ে যায় ম্যানচেস্টারের ক্লাবটি। ফরাসি ডিফেন্ডার হেড করে বল দিতে চেয়েছিলেন গোলকিপার থিবো কোর্তোয়ার কাছে। কিন্তু ঠিকমতো দিতে না পারায় সুযোগসন্ধানী জেসুস পায়ের আলতো ছোঁয়ায় দুরূহ কোণ থেকে করেন অসাধারণ এক গোল।

বাকি সময়ে আর খেলায় ফিরতে পারেনি রিয়াল। ফলে টানা দ্বিতীয়বার শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিতে হয়েছে লা লিগা চ্যাম্পিয়নদের। ২০০৯-১০ মৌসুমের পর প্রথমবার এমন ঘটনার সাক্ষী হলো তারা। ২০১০-১১ থেকে ২০১৭-১৮, টানা আট মৌসুম অন্তত সেমিফাইনালে খেলেছে রিয়াল।

দারুণ পারফরম্যান্সে রিয়ালকে বিদায় করে দেওয়া ম্যান সিটির শেষ আটের প্রতিপক্ষ অলিম্পিক লিওঁ। তুলনামূলক সহজ প্রতিপক্ষ হলেও জুভেন্টাসকে বিদায় করে দেওয়া ফরাসি ক্লাবটিকে সমীহ করতেই হচ্ছে পেপ গার্দিওলার দলকে!

/কেআর/

লাইভ

টপ