৫৯ বছর বয়সে চলে গেলেন ডিন জোন্স

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:০২, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২০, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

ডিন জোন্স (১৯৬১-২০২০)। ছবি: আইসিসি ওয়েবসাইটখেলোয়াড়ি জীবনের ব্যাটিং সৌন্দর্য তো আছেই, তবে এখনকার ক্রিকেটের দর্শকেরা মুগ্ধ হয়েছেন তার কণ্ঠস্বরে। মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে তার ধারাভাষ্য কিংবা ম্যাচ নিয়ে তার বিশ্লেষণে মিশে থাকতো অন্যরকম ভালোলাগা। সেই কণ্ঠস্বর আর শোনা যাবে না, মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে একনাগাড়ে কথা বলতেও দেখা যাবে না ডিন জোন্সকে। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান মাত্র ৫৯ বছর বয়সে চলে গেছেন না ফেরার দেশে। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে আজ (বৃহস্পতিবার) মুম্বাইয়ে মারা গেছেন তিনি।

আইপিএলের মূল ব্রডকাস্টার স্টার স্পোর্টসের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন জোন্স। সেই কাজেই তার মুম্বাইতে আসা। আজও তিনি ব্রডকাস্টের সেটআপে ছিলেন, শারীরিক কোনও অসুবিধা ছিল না। কিন্তু বিকেলের দিকে হঠাৎই হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে পৃথিবী ছেড়ে গেছেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান।

তার ‍মৃত্যতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে স্টার স্পোর্টসের মালিকানা প্রতিষ্ঠান স্টার ইন্ডিয়া, ‘খুবই দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, ডিন জোন্স পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন তিনি। তার পরিবারের প্রতি আমরা গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি এবং কঠিন এই সময়ে তাদের পাশে আছি।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর, স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় নাস্তা শেষে আইপিএলের আজকের ম্যাচের ব্রিফিং সেশনে অংশ নিয়েছিলেন জোন্স। এরপর দক্ষিণ মুম্বাইয়ের যে হোটেলে তিনি উঠেছিলেন, সেখানে কয়েকজন সহকর্মীর সঙ্গে করিডোরে ব্যাট-বল নিয়ে মেতে উঠেছিলেন খেলোয়াড়ি জীবন শেষে ধারাভাষ্যকার হিসেবে নাম কুড়ানো এই অস্ট্রেলিয়ান। খেলতে খেলতে আচমকা মেঝেতে পড়ে যান জোন্স। এরপর দ্রুত হরকিষানদাস হাসপাতালে নেওয়া হলেও বাঁচানো যায়নি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, হাসপাতালে আনার আগেই মারা গেছেন জোন্স।

জোন্স আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কাটিয়েছেন ১০ বছর। শুরুটা ১৯৮৪ সালের জানুয়ারিতে, পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে দিয়ে। ওই বছরই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট আঙিনায় তার পা রাখা। ৫২ টেস্টে ৪৬.৫৫ গড়ে করেছেন ৩ হাজার ৬৩১ রান। ১১ সেঞ্চুরির পাশাপাশি হাফসেঞ্চুরি ১৪টি। আর ওয়ানডেতে খেলেছেন ১৬৪ ম্যাচ। ৪৪.৬১ গড়ে ৭ সেঞ্চুরি ও ৪৬ হাফসেঞ্চুরিতে নামের পাশে যোগ করেছেন ৬ হাজার ৬৮ রান।

প্যাড-গ্ল্যাভস তুলে রাখলেও ২২ গজকে বিদায় জানাননি জোন্স। ধারাভাষ্যকে পেশা হিসেবে নিয়ে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ছিলেন ক্রিকেটের সঙ্গে।

/কেআর/

লাইভ

টপ