X
বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

দেশের গণমাধ্যম সম্পূর্ণ স্বাধীন, একান্ত সাক্ষাৎকারে তথ্যমন্ত্রী

আপডেট : ১৩ মে ২০১৯, ২২:৩০





তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যম সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে কাজ করছে। মানুষ স্বাধীনভাবে মত প্রকাশ করছে। বাংলাদেশে গণমাধ্যম যে পরিমাণ স্বাধীনতা ভোগ করে পৃথিবীর অনেক দেশেই তা নেই। এ ক্ষেত্রে তিনি সিঙ্গাপুর ও চীনসহ বেশ কয়েকটি দেশকে উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন।
তথ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে গণমাধ্যম পুরোপুরি স্বাধীনভাবে কাজ করছে দাবি করে বলেন, তবে এ ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতার যে বিষয়টি আছে সেটা নিয়ে কাজ করার প্রয়োজন রয়েছে। তিনি বলেন, সংবাদ জগতের স্বাধীনতা যেমন প্রয়োজন সেইসঙ্গে দায়িত্বশীলতারও প্রয়োজন। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই— এটা অনেকটা শ্লোগানের মতো বক্তব্য।
গত বৃহস্পতিবার (৯ মে) নিজ মন্ত্রণালয়ে বাংলা ট্রিবিউনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে গণমাধ্যমের সার্বিক অবস্থাসহ সম্প্রচার আইন, গণমাধ্যমকর্মী আইন ইত্যাদি নানা বিষয়ে কথা বলেন।
প্রসঙ্গত, সোমবার (১৩ মে) বাংলা ট্রিবিউন পাঁচ বছর পূর্ণ করে ছয় বছরে পদার্পণ করলো।
সাংবাদিকদের ন্যায্য মজুরি নিশ্চিত করতে নবম ওয়েজবোর্ডের কাজ অনেক দূর এগিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে জানান হাছান মাহমুদ। বলেন, নবম ওয়েজবোর্ড কমিটির চেয়ারম্যান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন। তিনি যেদিন অসুস্থ হয়ে পড়েন সেদিনই এই কমিটির গুরুত্বপূর্ণ একটি বৈঠক ছিল। ফলে আর বৈঠকটি হয়নি। তবে আশার কথা হলো তিনি দ্রুতই দেশে ফিরবেন। তিনি ফিরে আসলে বৈঠক ডেকে নবম ওয়েজবোর্ডের বাকি কাজ সম্পূর্ণ করা হবে।
তথ্যমন্ত্রীর পাশাপাশি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করছেন ড. হাছান মাহমুদ। রাজনীতির পাশাপাশি তিনি একজন পরিবেশবিদ ও শিক্ষক।
বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে তথ্যমন্ত্রী বলেন, সাংবাদিকদের কল্যাণে সরকার ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এ লক্ষ্যে ‘গণমাধ্যমকর্মী আইন’ এবং ‘সম্প্রচার আইন’ চূড়ান্তের পথে। তিনি বলেন, নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন হলে এমনিতেই সাংবাদিকের অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। যেসব দিক ওয়েজবোর্ড কাভার করবে না সেগুলো এ দুটি আইনে অনেকটা কাভার হয়ে যাবে। এতে যেমন সাংবাদিকদের চাকরির সুরক্ষার দিকটি থাকবে, তেমনি থাকবে তাদের ন্যায্য দেনা-পাওনা নিশ্চিত করার বিষয়টিও।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে অনেক সাংবাদিক চাকরি হারিয়েছেন। তার অন্যতম বড় কারণ বিজ্ঞাপন বাইরে চলে যাওয়া। তাই তথ্য মন্ত্রণালয় শক্ত অবস্থান নিয়েছে যাতে বিজ্ঞাপন বাইরে চলে না যায়। আর সামাজিক গণমাধ্যম, ক্যাবল অপারেটর, ইউটিউব চ্যানেলসহ অন্যান্যভাবে যেসব বিজ্ঞাপন যাচ্ছে সেগুলোও নিয়ন্ত্রণে রাখবে সরকার। কেননা এসব বিজ্ঞাপনে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাচ্ছে।
বিজ্ঞাপন যাতে বাইরে না যায় সেজন্য ইতোমধ্যে নোটিশ দেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আগামী ১ জুলাই থেকে নির্দেশনা বাস্তবায়ন না হলে আইন প্রয়োগ করা হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সাংবাদিককল্যাণ ফান্ড, সাংবাদিকদের আবাসন সমস্যাসহ অন্যান্য ইস্যুতে তথ্য মন্ত্রণালয় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে। ‘গণমাধ্যমকর্মী আইন’ ও ‘সম্প্রচার আইন’ দুটি পাস হলে এ জগতে সবকিছু নিয়মনীতির মাধ্যমে পরিচালিত হবে। সম্প্রচার আইনের মাধ্যমে অনলাইন গণমাধ্যমও শৃঙ্খলার মাধ্যমে পরিচালনা হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তথ্যমন্ত্রী।
সাংবাদিকদের চাকরির অনিশ্চয়তাসংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, হঠাৎ করেই সাংবাদিকদের চাকরি থেকে ছাঁটাই করা সমীচীন নয়। যদি ছাঁটাই করতে হয়, সেটা নিয়মনীতির মাধ্যমে করতে হবে, আর ছাঁটাই করা হলে তা যথাযথভাবে করতে হবে এবং ছাঁটাইয়ের পর পাওনা বুঝিয়ে দিতে হবে। আর এ জন্য সার্বিকভাবে একটা নিয়মনীতির প্রয়োজন।
সাংবাদিকদের নিবন্ধনসংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, এটা হতে হবে সাংবাদিকদের যেসব সংগঠন আছে সেগুলোর মাধ্যমেই। কেননা, চিকিৎসকদের নিবন্ধন দেয় চিকিৎসকদের প্রতিষ্ঠান। আইনজীবীরাও নিবন্ধন পায় তাদেরই সংগঠন থেকে। কাজেই সাংবাদিকদের এই ব্যবস্থায় নিয়ে আসতে হলে সেটা করতে হবে এ-সংক্রান্ত সংগঠন বা প্রতিষ্ঠানগুলোকেই। তারা উদ্যোগ নিলে সরকার প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবে।
গণমাধ্যমের বিকাশসংক্রান্ত আরেক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ দেশে গণমাধ্যমের বিকাশে কোনও প্রতিবন্ধকতা নেই। ক্রমেই সংবাদপত্র, টেলিভিশন, অনলাইন সংবাদমাধ্যমের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে। তবে যে হারে বেড়েছে সেই হারে গুণগত বৃদ্ধি হয়নি। তবে গণমাধ্যমের বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে কিছু জটিলতা এবং অসুস্থ প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে। যেমন সবার আগে সংবাদ প্রচার করতে গিয়ে ভুল সংবাদও পরিবেশন করা হচ্ছে, যেটি সমাজে অস্থিরতা সৃষ্টি করে। পেশাদারিত্বেরও কিছু অভাব রয়েছে। তবে পেশাদারিত্ব ও দায়িত্বশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রেস ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ, প্রেস কাউন্সিল এবং নিমকোসহ সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারে।
সিনেমা শিল্পের উন্নয়নে সরকার একগুচ্ছ পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে জানান তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, সরকার সিনেমা হলগুলোর উন্নয়নে প্রকল্প গ্রহণ করছে। আর্ট ফিল্মের পাশাপাশি বাণিজ্যিক সিনেমাতেও অনুদান দেওয়ার আলোচনা চলছে। সিনেমা হল মালিকদের দাবির প্রেক্ষিতে সীমিত আকারে ভারতীয় সিনেমা আমদানির অনুমতির বিষয় নিয়ে আলোচনা চলছে। আশা করি, পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন হলে পরিস্থিতির উত্তরণ সম্ভব হবে।

/এইচআই/

সম্পর্কিত

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

কাকরাইলে গ্যারেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

কাকরাইলে গ্যারেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজধানীতে প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৬:৫৭

আইসিটি সচিব ও সচিবের পিএস পরিচয়ে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণার অভিযোগে চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (৪ আগস্ট) রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো‑ মোহাম্মদ ইদ্রিস খান (৫৮), মো. শাহাব উদ্দিন হাওলাদার (৪৩), মো. শহিদুল ইসলাম (৫৬), জাহিদ শিকদার (৩০)।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) পুলিশের ডিবি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ওয়ারী গোয়েন্দা বিভাগের উপ-কমিশনার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন।

তিনি বলেন, প্রতারক চক্রটি সংসদ ভবন সংলগ্ন এলাকায় বিভিন্ন ভবনের মালিকের কাছে নিজেদের কখনো আইসিটি সচিব, কখনো আইসিটি সচিবের পিএস, আবার কখনো জমির মালিক পরিচয় দিয়ে আকৃষ্ট করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা ছাড়াও সাভার ও গাজীপুরে বিভিন্ন ভবন মালিকদের বিল্ডিংয়ের ছাদে মোবাইলের টাওয়ার নির্মাণ, জমি ক্রয়-বিক্রয়ের কথা বলে ভুয়া বায়নানামা তৈরির মাধ্যমে আর্থিক প্রলোভনের ফাঁদে ফেলতো। প্রতারণা করে এখন পর্যন্ত শতাধিক লোকের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি।

গ্রেফতারকৃত প্রতারক চক্রের চার সদস্যের বিরুদ্ধে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানায় পুলিশের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

/আরটি/এমএস/

সম্পর্কিত

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা: অভিযুক্ত মালেককে আটক করল র‍্যাব

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা: অভিযুক্ত মালেককে আটক করল র‍্যাব

মানিকগঞ্জের ডিসি রিফাত ডিএমপির মতিঝিল গোয়েন্দা বিভাগের দায়িত্বে

মানিকগঞ্জের ডিসি রিফাত ডিএমপির মতিঝিল গোয়েন্দা বিভাগের দায়িত্বে

স্লিপার সেলের মাধ্যমে চলছিলো জঙ্গি কার্যক্রম: সিটিটিসি

স্লিপার সেলের মাধ্যমে চলছিলো জঙ্গি কার্যক্রম: সিটিটিসি

ডিএমপিতে তিন পুলিশ পরিদর্শক বদলি

ডিএমপিতে তিন পুলিশ পরিদর্শক বদলি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৬:৩৮

রাজধানীর ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের কর্মচারী আতিকুর রহমান খানকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ অভিভাবক ফোরাম। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ অভিভাবক ফোরামের চেয়ারম্যান ফাহিমউদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক মো. রোস্তম আলী যৌথ বিবৃতিতে এ দাবি জানান।  

বিবৃতিতে বলা হয়, অবৈধভাবে পদ সৃষ্টি করে ২০০৪ সালে আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের উপ-সহকারী প্রকৌশলী পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বিবৃতিতে দুর্নীতিগ্রস্ত আতিকুর রহমান খানের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে দ্রুত গ্রেফতার করার জন্য দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে জোর দাবি জানানো হয়। আতিক যাতে দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যও দাবি জানান ফোরামের চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক।

বিবৃতিতে ফোরামের চেয়ারম্যান ফাহিমউদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক মো. রোস্তম আলী বলেন, ‘দুর্নীতিগ্রস্ত তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী আতিকুর রহমান খান ২০০৪ সাল থেকে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির অবৈধ ভর্তি ও নিয়োগ বাণিজ্যের সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িত হয়ে শত শত কোটি টাকার সম্পদ গড়ে তুলেছেন। তার নামে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন ব্যাংকে ৯৭টি হিসাব রয়েছে এবং ২০০৭ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত এসব হিসাবে ১১০ কোটি টাকার লেনদেন রয়েছে। আতিক স্কুলটির সব ধরনের অনিয়ম, অবৈধ কর্মকাণ্ড ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত।’

বিবৃতিতে দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মচারী আতিকের পৃষ্ঠপোষক ও ওই স্কুলের দুর্নীতির সিন্ডিকেটের সদস্যদেরও আইনের আওতায় আনার দাবি জানান ফেরামের চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক। পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির গভর্নিং বডির সভাপতি ও অধ্যক্ষসহ সব সদস্যের সম্পদের হিসাব চাওয়ার জন্য দুদকের চেয়ারম্যানের কাছে দাবি জানান তারা।

প্রসঙ্গত, সামান্য বেতনের কর্মচারী হলেও আতিকুর রহমানের বিরুদ্ধে ব্যাংকে শতকোটি টাকা লেনদেনের বিষয়ে বাংলা ট্রিবিউনে ‘বেতন ৩০ হাজার, ব্যাংকে লেনদেন শত কোটি টাকা!’ শিরোনামে  সংবাদ প্রচারিত হয়। এই বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রণালয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। 

 

/এসএমএ/এমএএ/

সম্পর্কিত

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

এসএসসির ইংরেজি ভার্সনের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

এসএসসির ইংরেজি ভার্সনের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

জনজীবন স্বাভাবিক, সড়কে বেড়েছে মানুষের চাপ

জনজীবন স্বাভাবিক, সড়কে বেড়েছে মানুষের চাপ

ডিএসসিসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তানভীর আহমদ বরখাস্ত

ডিএসসিসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তানভীর আহমদ বরখাস্ত

নির্মাণশৈলীতে ভিন্নতা আনতে 'ভাস্কর্যে বিকৃতি'

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৬:৫৩

সোমবার (৩ আগস্ট) চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম্রকাননে ঘেরা সার্কিট হাউস সংলগ্ন বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়কের পূর্ব দিকে বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দিনের একটি ভাস্কর্য ও স্মৃতি ফলক উন্মোচন করা হয়। কিন্তু উদ্বোধনের পর ভাস্কর্য দেখে এলাকাবাসী ও সহযোদ্ধারা বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, ‘এ কোন মহিউদ্দিন? আমরা যাকে চিনতাম তার সঙ্গে এ ভাস্কর্যের কোনও মিল নেই।’

যোগাযোগ করা হলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের সাবেক সভাপতি ভাস্কর আমিরুল মোমিনিন জানান, তাকে দাড়িওয়ালা সাদাকালো একটি ছবি দেওয়া হয়েছিল। দাড়ি থাকায় সাদা ভাস্কর্য তৈরির ফলে বয়স্ক দেখাচ্ছে। উদ্বোধনের আগে এটা তাকে দেখানোর কথা থাকলেও নাকি দেখানো হয়নি।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের পৌরমেয়র বলছেন, ‘ভাস্করকে দেখানোর তো কারণ নেই। উনি নিজে জিনিসটি তৈরি করে জেলা প্রশাসনে পাঠিয়েছেন। তাকে আবার কেন দেখানো হবে?’

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের সঙ্গে যুদ্ধ করেছিলন মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আবদুস সামাদ। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ভাস্কর্যটা বিকৃত। ওর চেহারার সঙ্গে কোনও মিল নেই। যুদ্ধের সময় দাড়ি ছিল। কিন্তু সেটা এমন ছিল না। জেলাপ্রশাসকের কার্যালয়ে থাকা ফটোগ্যালারিতেও সেই ছবি দেওয়া আছে। সেটার সঙ্গেও মিল নেই। এটা তাড়াহুড়ো করে বানানো।’

আমিরুল মোমিনীন বলেন, ‘জেলা প্রশাসন থেকে দাড়িওয়ালা একটি ছবি দেওয়া হয়। ডিসি বলেছিলেন দাড়িওয়ালা ছবিটা আগে তেমন কেউ দেখেনি। এটা দিয়েই করতে চাই।’

ভাস্কর্যটা বানাতে কতদিন লাগলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তিন-চার মাস লেগেছে। এ কাজগুলো সাধারণত আমরা সিনিয়র শিক্ষকরা করি না। আমাদের সেরা ছাত্ররা করে আমাদের তত্ত্বাবধানে।’

তিনি আরও জানান, ‘বানানোর পরে কারেকশন থাকলে করা হবে বলার পরও হুট করে শুনি উদ্বোধন হয়ে গেছে। আর পুরোটা সাদা হওয়াতে একটু ঝামেলা হয়েছে। দাড়ি সাদা হলে বয়সও বেড়ে যায়। সাধারণ মানুষকে এসব বোঝানো কঠিন। দেখছি কী করা যায়। প্রয়োজন হলে নতুন করে গড়া হবে।’

ভাস্কর আমিরুলের কথার জবাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পৌরমেয়র নজরুল ইসলাম বলেন, ‘তিনি তৈরি করে পাঠিয়েছেন। এখন দায়িত্ব এড়িয়ে গেলে হবে? এমন যদি হতো, অন্য কেউ তৈরি করেছেন, আর তিনি বিশেষজ্ঞ হিসেবে মত দেবেন, তখন তাকে দেখানোর বিষয় ছিল। আমিও বলেছি, ভাস্কর্য দেখে বয়স্ক মনে হয়।’

বিষয়টি নজরে এসেছে উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ বলেন, ‘আগের প্রশাসক (যিনি কাজটি শুরু করেছিলেন) যে ছবিটা দিয়েছিলেন সেটা শহীদ হওয়ার আগের। তার সহকর্মীর কোনও এক বইতে ছবিটা আছে। উনি সেরকমই বানাতে বলেছিলেন। যাতে মৃত্যুর আগের চেহারা তুলে আনা যায়। কিন্তু যখন দেখলাম, মনে হলো বয়স্ক ছাপ এসে গেছে। উনিতো তরুণ ছিলেন। ঠিক ফুটে ওঠেনি। ২২-২৩ বছরের যুবকের চেহারা এমন হয় না।’

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

এক ভবনে কত হাসপাতাল?

এক ভবনে কত হাসপাতাল?

মডেলের বাড়িতে গোপন সিসিটিভি ক্যামেরা!

মডেলের বাড়িতে গোপন সিসিটিভি ক্যামেরা!

করের আওতার বাইরে ৮০ হাজার কোম্পানি: টিআইবি

করের আওতার বাইরে ৮০ হাজার কোম্পানি: টিআইবি

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে: মেয়র আতিক

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৬:২৬

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, সুস্থতার জন্য সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার মাধ্যমে এডিস মশা, ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধ করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সকালে রাজধানীর আশকোনা হাজী ক্যাম্প, দক্ষিণখান এলাকায় এডিস মশা, ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধের লক্ষ্যে মশক নিধনে চিরুনি অভিযান ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, সুস্থতার জন্য সুস্থ পরিবেশের কোন বিকল্প নাই, আর সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করতে হলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম সংক্রান্ত সামাজিক আন্দোলনে সমাজের সর্বস্তরের জনগণকে সম্পৃক্ত করতে হবে।

মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে "দশটায় ১০ মিনিট প্রতি শনিবার, নিজ নিজ বাসাবাড়ি করি পরিষ্কার" এই স্লোগানটিকে বাস্তবায়ন করতে হবে।

তিনি বলেন, ব্যক্তিগত, সরকারি কিংবা বেসরকারি যেকোনো ভবনেই এডিসের লার্ভার উপস্থিতি পাওয়া গেলে জরিমানাসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত রয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, নিজেদের বাসাবাড়িতে ফুলের টব, অব্যবহৃত টায়ার, ডাবের খোসা, চিপসের খোলা প্যাকেট, বিভিন্ন ধরনের খোলা পাত্র, ছাদ কিংবা অন্য কোথাও যাতে তিন দিনের বেশি পানি জমে না থাকে সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, নগরবাসীর জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৪৬টি নগর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বিনামূল্যে ডেঙ্গু জ্বরের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে বর্ধিত মহানগরীর নতুন ১৮টি ওয়ার্ডের সড়ক, অবকাঠামো এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণ ও উন্নয়নের জন্য প্রায় ৪ হাজার ২৬ কোটি টাকার প্রকল্প একনেকে অনুমোদিত হয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসন এবং দূষণ নিয়ন্ত্রণে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন কাজ করে যাচ্ছে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, অন্যান্য বছর সামান্য বৃষ্টিতেই ডিএনসিসির বিভিন্ন এলাকায় রাস্তাঘাট ডুবে যেতো, জলজটে নগরবাসীকে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হতো। কিন্তু এবার রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টিতেও নগরবাসীকে জলজট সমস্যায় ভুগতে হয়নি।

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা শেষে ডিএনসিসি মেয়র নগরবাসীর মাঝে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এডিস মশা, ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে বিভিন্ন ব্যানার ও ফেস্টুনে সুসজ্জিত খোলা ট্রাকে করে ডিএনসিসির ৭ নম্বর অঞ্চলের দক্ষিণখানসহ বিভিন্ন এলাকা সরেজমিনে পরিদর্শন করেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে জাতীয় সংসদের ঢাকা-১৮ আসনের সদস্য মোহাম্মদ হাবিব হাসান, ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জোবায়দুর রহমান এবং স্থানীয় কাউন্সিলরবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

/এসএস/এমএস/

সম্পর্কিত

২৮ মামলায় ৫ লাখ টাকা জরিমানা

২৮ মামলায় ৫ লাখ টাকা জরিমানা

৭৭৫ জন জনবল চেয়েছে ডিএনসিসির করোনা হাসপাতাল

৭৭৫ জন জনবল চেয়েছে ডিএনসিসির করোনা হাসপাতাল

১৭ মামলায় ৩ লাখ টাকা জরিমানা

১৭ মামলায় ৩ লাখ টাকা জরিমানা

রাজধানীর ৬৫% নির্মাণাধীন ভবনে এডিসের লার্ভা পাওয়া যায়: মেয়র আতিক

রাজধানীর ৬৫% নির্মাণাধীন ভবনে এডিসের লার্ভা পাওয়া যায়: মেয়র আতিক

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৬:০৮

দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গবেষণা ও উদ্ভাবন কার্যক্রম বাড়ানোর সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে এই কার্যক্রম নির্ধারণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন পদক্ষেপ নির্ধারণে ইউজিসি ভার্চুয়াল সভা এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিদ্ধান্তের বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ইউজিসি ৯ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে।

কমিটির আহ্বায়ক ও ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য অধ্যাপক সত্য প্রসাদ মজুমদার, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ভিনসেন্ট চ্যাং, ইউজিসি সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান, গবেষণা সহায়তা ও প্রকাশনা বিভাগের পরিচালক মো. কামাল হোসেন, আইএমসিটি বিভাগের পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মোহাম্মদ মাকছুদুর রহমান ভূঁইয়া, এসপিকিউএ বিভাগের উপ-পরিচালক বিষ্ণু মল্লিক যুক্ত ছিলেন।

সভায় ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে যুগোপযোগী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ইউজিসি প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবে। সরকারের চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সম্পর্কিত বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও পরিকল্পনা বাস্তবায়ন উদ্যোগের সঙ্গে সমন্বয় করবে।

অধ্যাপক সাজ্জাদ আরও বলেন, ‘জ্ঞান ও দক্ষতায় শিল্পক্ষেত্রে ভবিষ্যৎ চাহিদা পূরণে বিশ্ববিদ্যালয় ও শিল্প-প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে আন্তঃযোগাযোগ নির্ধারণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ইউজিসি ও এফবিসিসিআই সমন্বিত উদ্যোগ নেবে।

উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বিষয়ে আগামী ৯ থেকে ১১ ডিসেম্বর একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউজিসি।

 

/এসএমএ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

এসএসসির ইংরেজি ভার্সনের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

এসএসসির ইংরেজি ভার্সনের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী পালনের নির্দেশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী পালনের নির্দেশ

মুজিববর্ষেরই জাতীয়করণের ঘোষণা চান শিক্ষকরা

মুজিববর্ষেরই জাতীয়করণের ঘোষণা চান শিক্ষকরা

সর্বশেষ

ইরানে হামলা চালাতে প্রস্তুত ইসরায়েল: গান্তজ

ইরানে হামলা চালাতে প্রস্তুত ইসরায়েল: গান্তজ

রাজধানীতে প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

রাজধানীতে প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

১০ সহকর্মীকে ছাঁটাই করায় বিক্ষোভ তাদের

১০ সহকর্মীকে ছাঁটাই করায় বিক্ষোভ তাদের

লেবাননে বিমান হামলা শুরু করেছে ইসরায়েল

লেবাননে বিমান হামলা শুরু করেছে ইসরায়েল

বগুড়ায় আরও ১১ মৃত্যু

বগুড়ায় আরও ১১ মৃত্যু

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

মতিঝিল আইডিয়ালের আতিককে গ্রেফতারের দাবি

নির্মাণশৈলীতে ভিন্নতা আনতে 'ভাস্কর্যে বিকৃতি'

নির্মাণশৈলীতে ভিন্নতা আনতে 'ভাস্কর্যে বিকৃতি'

রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে শত্রু ভাবা ঠিক নয়: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে শত্রু ভাবা ঠিক নয়: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

বুস্টার ডোজ নিয়ে ডব্লিউএইচও’র আহ্বান উপেক্ষা ফ্রান্স ও জার্মানির

বুস্টার ডোজ নিয়ে ডব্লিউএইচও’র আহ্বান উপেক্ষা ফ্রান্স ও জার্মানির

রেসিপি : আলুর পাকোড়া

রেসিপি : আলুর পাকোড়া

সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে: মেয়র আতিক

সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে: মেয়র আতিক

কোনও অত্যাচারের পরিণতি ভালো হয় না: নওশাবা

কোনও অত্যাচারের পরিণতি ভালো হয় না: নওশাবা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

জনতা ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি পর্ব-৩ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই ডেঙ্গুর আশঙ্কাজনক রূপ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

টানা ডিউটিতে ‘ক্লান্ত’ পুলিশ

কাকরাইলে গ্যারেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

কাকরাইলে গ্যারেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

কাকরাইলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

কাকরাইলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

২৩ ভবন মালিককে সোয়া ২ লাখ টাকা জরিমানা

২৩ ভবন মালিককে সোয়া ২ লাখ টাকা জরিমানা

মাকে তাড়িয়ে দেওয়া সন্তানদের সতর্ক করলো পুলিশ

মাকে তাড়িয়ে দেওয়া সন্তানদের সতর্ক করলো পুলিশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী পালনের নির্দেশ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদত বার্ষিকী পালনের নির্দেশ

ব্যাংক এশিয়ার দুই কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ব্যাংক এশিয়ার দুই কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

পরীমণির বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

পরীমণির বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

© 2021 Bangla Tribune