X
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

লকডাউন কি করোনাভাইরাসের বিস্তার কম করতে সহায়তা করে?

আপডেট : ২০ এপ্রিল ২০২১, ২৩:৫০

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে দেশে দেশে লকডাউন দেওয়া হয়েছে। লকডাউন শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে রোগের বিস্তারকে ধীর করার উপায় হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। এটি একটি অস্থায়ী ব্যবস্থা, যা রোগের বিস্তারকে ধীর করতে এবং বিজ্ঞানীদের এই রোগের বিস্তার সম্পর্কে নজর রাখতে, রোগ সম্পর্কে আরও জানার জন্য এবং চিকিত্সা বিকাশের জন্য সময় দিয়ে সহায়তা করে।

যখন আমাদের চিকিত্সা ব্যবস্থা ঝুঁকিতে পড়ে, চিকিত্সার সংস্থানগুলোর অভাব হয়, অসুস্থতা এবং মৃত্যুহার রোধ করা প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে, তখন লকডাউন অপরিহার্য হয়ে ওঠে। হতে পারে লকডাউন শতভাগ কার্যকর সমাধান নয়। তবে বিভিন্ন সার্ভেতে দেখা যায় যে, করোনাভাইরাস সংক্রমণকে হ্রাস করতে এটি ব্যাপক সাহায্য করে।

কোভিড-১৯ মহামারির প্রাথমিক পর্যায়ে, কয়েক মিলিয়ন কেস প্রতিরোধে এবং হাজারো মানুষকে বাঁচানো লকডাউনের সিদ্ধান্তের কারণেই সফল হয়েছে। যারা লকডাউন সফলভাবে পালন করতে সক্ষম হয়েছেন, তারা উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশ  থেকে বেশি উপকৃত হয়েছে। এজন্যই বিশ্বজুড়ে দেশগুলো করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে লকডাউনের দিকে ঝুঁকছে।

কোভিড -১৯ এর সংস্পর্শে যাওয়ার ঝুঁকি দূর করতে লকডাউন শতভাগ কার্যকর হতে পারে না। কারণ মানুষকে বাজারে যেতে হয়, অভাবী লোকদের জীবিকার তাগিদে বের হতে হয়। সমালোচকরা লকডাউনের সীমাবদ্ধতা এগুলোকে বলতে পারেন। তবে এর অর্থ এই নয় যে লকডাউন নিরর্থক। ভ্যাকসিন যেমন শতভাগ কার্যকর নয়, তেমনি লকডাউনও একমাত্র সমাধান নয়। তবে জনস্বাস্থ্যের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  

যেহেতু করোনাভাইরাস হাঁচি–কাশি এবং অ্যারোসোল দ্বারা ছড়িয়ে পড়ে, তাই এটি একজনের থেকে অন্য ব্যক্তিতে সংক্রমণ হয় দ্রুত। পরিবেশে ভাইরাস এড়ানোর জন্য শারীরিক দূরত্বের কথা বলা থাকলেও এটিই যথেষ্ট  নয়। আমরা জানি যে অ্যারোসোল আরও অনেক বেশি দূর যেতে পারে। তাই কৌশল হিসেবে সামাজিক দূরত্ব সহায়ক, তবে অন্যান্য নির্দেশনা যেমন মাস্ক পরাও জরুরি। ভাইরাস আছে এমন পরিবেশে আপনি যত বেশি সময় কাটাচ্ছেন, আপনার আক্রান্ত  হওয়ার সম্ভাবনা তত বাড়ছে। যেমন আপনি যদি মাস্ক পরা থাকেন, তাহলে এটি ৫০ শতাংশ কার্যকর হবে যদি আপনি ১৫ মিনিটের জন্য একটি পরিবেশে থাকেন। কিন্তু আপনি যদি এক ঘন্টা একই পরিবেশে থাকেন, সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনার এক্সপোজারের সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।

ইসরায়েল ও অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশগুলো কিন্তু লকডাউন কঠোরভাবে পালন করে তুলনামূলক অন্যান্য দেশ থেকে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা কমিয়েছে। স্থানীয় স্পাইকগুলোকে দমন করতে লকডাউন সাহায্য করেছে। তাদের টেস্টিং এবং ট্রেসিংয়ের মজবুত সিস্টেম রয়েছে এবং তাদের নাগরিকদের কাছ থেকেও সহযোগিতা পাওয়া গেছে অনেক। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মতো রাজ্যে, যেখানে তাদের মাথাপিছু সবচেয়ে কম সংখ্যক হাসপাতাল এবং আইসিইউ বেড রয়েছে, তারাও শুধুমাত্র কঠোর লকডাউনের মাধ্যমে পরিস্থিতি অনেকটাই সামলে নিতে পেরেছে।

যদি কোনও ভাইরাস আরও সংক্রমণযোগ্য হিসাবে রূপান্তরিত হয়, তবে এর আগে যে ব্যবস্থাগুলো শুরু হতে পারে তা আমাদের দেশে পর্যাপ্ত ছিল না। এমনকি জনস্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে সংক্রমণ ঠেকাতে যেসব নির্দেশনা যেমন মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব, হাত ধোয়ার অভ্যাস যদি কঠোরভাবে পালন করা যেত তাহলে হয়ত কিছুটা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা যেত। অর্থনৈতিক চাপ অনেক পরামর্শ দেওয়ার চেয়ে আগেই বিধিনিষেধ শিথিল করতে বাধ্য করেছে আমাদের।

যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশগুলোর পথ অনুসরণ করে বেশি আক্রান্ত ও সংক্রমণযুক্ত অঞ্চলে সীমিত লকডাউন (কম হিসেবে ৩ দিন) ঘোষণা করা যেতে পারে। যে সমস্ত কৌশল ব্যবহার করে আমরা নিরাপদে থাকতে পারি এবং একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারি এবং সুস্থ থাকতে পারি এবং আমাদের নিজেদের ও সন্তানদের মানসিক চাপের সাথে মোকাবিলা করতে পারি তার জন্য আমাদের সবারই সক্রিয় অংশগ্রহণ করা জরুরি।

/এনএ/

সম্পর্কিত

রোজা রাখলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে?

রোজা রাখলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে?

টিকার দ্বিতীয় ডোজের পর কি সামাজিকীকরণ নিরাপদ?

টিকার দ্বিতীয় ডোজের পর কি সামাজিকীকরণ নিরাপদ?

কলার মোচার যত গুণ

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:২০

বাঙালি রসনায় বৈচিত্র্যের অভাব নেই। আর এ তালিকায় আছে কলার মোচা। শুধু অনন্য স্বাদ নয়, এর আছে দারুণ কিছু স্বাস্থ্য উপকারও। দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশেই কলার মোচা জনপ্রিয় একটি খাবার। ইংরেজিতে বলে ব্যানানা ফ্লাওয়ার তথা কলার ফুল। এতে আছে ফসফরাস, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম।

 

ডায়েটারি ফাইবার

দ্রবণীয় ও অদ্রবণীয় দুই ধরনের ফাইবার সমৃদ্ধ এটি। দ্রবণীয় ফাইবার পানিতে মিশে এক ধরনের জেল তৈরি করে যা আমাদের হজমের পথ দিয়ে সহজে যেতে পারে। যাদের আইবিএস (ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম) সমস্যা আছে তাদের দ্রবণীয় ফাইবার খেতে হয় বেশি। ডায়েটে নিয়মিত এই কলার মোচা রাখলে তারা বেশ উপকার পাবেন। আবার এতে থাকা অদ্রবণীয় ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমাধানও করতে পারে।

 

ডায়াবেটিসেও উপকার

ডায়াবেটিসের সঙ্গে খাবারের পরীক্ষায় বাদ যায়নি কলার ফুল। সায়েন্স অব ফুড অ্যান্ড অ্যাগ্রিকালচার জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে এটি রক্তে চিনির পরিমাণ কমায়। কলার মোচায় থাকা ফেনোলিক অ্যাসিড ও অন্যান্য বায়োঅ্যাকটিভ পদার্থের কারণেই এমন উপকার পাওয়া যাচ্ছে। ইঁদুরের ওপর গবেষণাতেও প্রমাণ হয়েছে বিষয়টি।

 

পিএমএস লক্ষণ

প্রি-মেনস্ট্রল এর লক্ষণগুলো কমাতেও খেতে পারেন কলার মোচা। পিএমএস সিম্পটমের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- পেট ফাঁপা, হজমে সমস্যা, মুড সুইং ও বিষণ্নতা।

 

অ্যান্টি-ডিপ্রেশেন্ট

কলার মোচায় থাকা ম্যাগনেসিয়াম প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ডিপ্রেশেন্টের কাজ করে।

 

ক্যান্সার, হৃদরোগ ও নিউরাল ডিজঅর্ডার

কলার মোচায় থাকা ফেনোলিক অ্যাসিড, ট্যানিন, ফ্লেভানয়েড ও নানা ধরনের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরের ফ্রি-র‌্যাডিকেল ধ্বংস করে। এতে ক্যান্সার প্রতিরোধের পাশাপাশি হৃৎপিণ্ডও থাকে ঝুঁকিমুক্ত। পাশাপাশি আলঝেইমার্স ও পারকিনসনসের মতো রোগের আশঙ্কাও কমে।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৪৪

ফ্যাশনপ্রেমীরা এখন ঝুঁকছেন ট্রেন্ডি ফ্যাশনের দিকে। আইকনিক ফ্যাশন গ্যারেজ তা দিচ্ছে পোশাকের ক্যানভাসে। ট্রেন্ডি, ক্যাজুয়াল, এক্সোটিক, ভাইব্রেন্ট, স্ট্রিট ও এলিগ্যান্ট রেডি টু ওয়্যার নতুন উইমেন কালেকশন এবারও আইকনিকের ঘরে। স্টোরে তাই চলতি ফ্যাশনের সবই থাকছে রঙ এবং প্যাটার্ন ভিন্নতায়। তবে এবার থাকছে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। এফ কমার্স উদ্যোক্তা ও ডিজাইনারদের নিয়ে চালু করতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম ‘এম গার্লস’। ইন্টার‌অ্যাকটিভ এই সোশ্যাল মিডিয়া গ্রুপে থাকবে ১০০ নারী উদ্যোক্তার সর্বশেষ ফ্যাশন ট্রেন্ডের সঙ্গে যোগসূত্র তৈরির প্রয়াস।

আইকনিকের উদ্যোক্তা তাসলিমা মলি জানান, ‘ট্র্যাডিশনাল ও পাশ্চাত্য পোশাকে নিজেদের অভিজাত লুকটাকে তুলে ধরতে উজ্জ্বল রঙের পোশাকের নতুন সংগ্রহ প্রতিমাসেই থাকছে আইকনিক ফ্যাশন গ্যারেজ-এ। মূলত পণ্যের ডিজিটাল উপস্থাপনা, প্রতি মাসে ফটোশ্যুট- এসব করা হবে।

নতুন নারী উদ্যোক্তাদের পণ্য নিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারে বিপণনের সুবিধাও থাকবে। উল্লেখ্য, আগামী ১ ও ২ অক্টোবর থেকে আইকনিক ফ্যাশন গ্যারেজ-এর যমুনা ফিউচার পার্ক স্টোরে চালু হবে এই আয়োজনের প্রথম কার্যক্রম। ডিজাইনার শোকেসিং, বিক্রির পাশাপাশি থাকবে বিউটি টিপস, স্টাইল গাইডলাইনসহ ফ্যাশন সংশ্লিষ্ট আয়োজন।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

কলার মোচার যত গুণ

কলার মোচার যত গুণ

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০০

একটি প্রাণবন্ত হাসিখুশি ত্বক আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়। তবে প্রায়ই অযত্নের কারণে ত্বক হারিয়ে ফেলে সজীবতা। ব্যস্ত জীবন থেকে কিছুটা সময় বের করে ত্বকের যত্ন নিতে গেলে নিচের কাজগুলো আপনাকে করতেই হবে।

 

ত্বক পরিষ্কার রাখুন

সঠিক পিএইচ-যুক্ত সাবান দিয়ে ত্বক প্রতিদিন পরিষ্কার করুন ও ত্বকে ময়েশ্চরাইজার ব্যবহার করুন। এতে ত্বক যথেষ্ট পুষ্টি পাবে এবং স্বাভাবিক আর্দ্রতা ও তৈলাক্ততা বজায় থাকবে। ত্বক থাকবে কোমল ও সুস্থ।

 

পরিমিত ও পুষ্টিকর খাবার

বলা হয়, আপনি যা খাবেন, সেটারই ছাপ দেখা যাবে ত্বকে। অর্থাৎ যতবেশি পুষ্টিকর খাবার খাবেন ত্বকও তত উজ্জ্বলতা ছড়াবে। দৈনন্দিন রুটিনে ফল এবং শাকসবজি বেশি রাখুন। ত্বকের স্বার্থে হলেও এড়িয়ে চলুন তেলজাতীয় খাবার।

 

পর্যাপ্ত পানি

ত্বকের সুস্থতার জন্য ত্বকের কোষে পানি থাকা চাই। আর এ জন্য পানি পানের বিকল্প নেই। পর্যাপ্ত পানি আমাদের শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করে। যা ত্বকেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। এতে ব্রণ বা ত্বকে সংক্রমণও কম হয়।

 

হাসিখুশি থাকুন

আমাদের মানসিক অবস্থা সরাসরি শরীরের ওপর প্রভাব ফেলে। স্বাভাবিক হাসি ত্বকের রক্তচলাচল বাড়ায়। এতে ত্বক আরও বেশি অক্সিজেন ও পুষ্টি পায়। তাই ত্বকের সৌন্দর্যে হাসুন কারণে-অকারণে।

 

হালকা ব্যায়াম না করলেই নয়

যখন আমরা নড়াচড়া একটু বেশি করি তখন আমাদের শরীরে এনডোরফিন হরমোন উৎপন্ন হয় বেশি। এটি সুখের অনুভূতি দেয়। যার ছাপ পড়ে ত্বকেও। ত্বকের যত্ন নিতে চাইলে তাই হালকা ব্যায়াম চালিয়ে যান।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

কলার মোচার যত গুণ

কলার মোচার যত গুণ

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০১

উপমহাদেশের কিছু রেসিপিতে নারিকেল তেল না হলে চলেই না। আমাদের দেশেও অনেক অঞ্চলে নারিকেলের মালাইকারির কদর অনেক। যদি নিজেই নারিকেল থেকে তেলটা বের করে নিতে পারেন, তবে তো কথাই নেই। আর রান্নায় যেহেতু চুলে মাখার তেল ব্যবহার করা যাচ্ছে না, তাই নিরাপত্তার খাতিরে নিজেই বানিয়ে ফেলুন।

 

যেভাবে বানাবেন নারিকেল তেল

  • নারিকেল কোরানো ঝামেলার কাজ মনে হলে আছে বিকল্প। দুভাগ করা নারিকেলটাকে ওভেনে মিনিট পাঁচেক মাইক্রোওয়েভ করুন। এতে খোল থেকে নারিকেল আলাদা করাটা সহজ হয়ে যাবে।
  • নারিকেলগুলোকে ছোট টুকরো করে কাটুন। তারপর সামান্য পানি মিশিয়ে কয়েক ব্যাচে ব্লেন্ড করুন। প্রতিবারে অন্তত ২ মিনিট করে ব্লেন্ড করুন। এতে নারিকেল দুধ তৈরি হবে।
  • পাল্পটা ছেঁকে তরল অংশটুকু একটি পাত্রে নিন। অল্প আঁচে জ্বাল দিতে থাকুন।
  • কিছুক্ষণ পর তরলের মধ্যে নারিকেলগুলো দলা পাকানো শুরু করবে। এটা স্বাভাবিক। ধীরে ধীরে আরও দলা পাকিয়ে আসবে। অল্প আঁচে জ্বলতে থাকুক চুলা।
  • এক পর্যায়ে দেখবেন নারিকেল থেকে তেল আলাদা হতে শুরু করেছে। প্রায় এক ঘণ্টা পর সম্পূর্ণ তেলটাই আলাদা হবে। এরপর চুলা বন্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হওয়ার পর সহজেই তেলটা ছেঁকে নিতে পারবেন।

 

নারিকেল তেলের স্বাস্থ্য উপকার

পরিমিত মাত্রায় নারিকেল তেল খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। শরীরে ভালো কোলেস্টেরলও বাড়ায় এটি। নারিকেল তেল হজমেও সহায়ক। আবার মুখগহ্বরের যত্নে নারিকেল মাউথওয়াশের কাজও করে।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

কলার মোচার যত গুণ

কলার মোচার যত গুণ

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:১৭

আসছে মটরশুঁটির মৌসুম। শীতের শস্য হিসেবে এর তুলনাই হয় না। আছে ভিটামিন এ, বি, সি, ই ও জিংক। ডায়াবেটিসসহ আরও অনেক রোগের জন্যই এটি উপকারী। এসব কারণে মৌসুম এলে মটরশুঁটি চলেও বেশ। আর সেটার সুযোগ নেয় অসাধুরা। তাই কারও কাছ থেকে বেশি পরিমাণে কেনার আগে কিংবা কেনার পর খাওয়ার আগে পরীক্ষা করে দেখে নিন, চকচকে সবুজ রঙটা প্রাকৃতিক নাকি রাসায়নিক?

 

যেভাবে পরীক্ষা করবেন

একটি স্বচ্ছ গ্লাসে পরিষ্কার পানি নিন। তাতে কিছু মটরশুঁটি রাখুন। অনেক নকল রঙ সঙ্গে সঙ্গে ঘষলেই কিন্তু বের হবে না। তাই অপেক্ষা করুন অন্তত আধা ঘণ্টা। রঙ নকল হলে দেখবেন পানি সবুজাভ হয়ে গেছে। আসল মটরশুঁটি হলে এমনটা কখনই হবে না।মটর

/এফএ/

সম্পর্কিত

কলার মোচার যত গুণ

কলার মোচার যত গুণ

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ‘এম গার্লস’

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

রোজা রাখলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে?

রোজা রাখলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে?

টিকার দ্বিতীয় ডোজের পর কি সামাজিকীকরণ নিরাপদ?

টিকার দ্বিতীয় ডোজের পর কি সামাজিকীকরণ নিরাপদ?

সর্বশেষ

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের হাতে অপহৃত ৩ জনকে উদ্ধার

রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের হাতে অপহৃত ৩ জনকে উদ্ধার

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

নকল কসমেটিক-ভেজাল খাদ্য উৎপাদন: ১৫ লাখ টাকা জরিমানা  

দেশের অগ্রগতি নষ্ট করতে চাইলে দাঁতভাঙা জবাব: ওবায়দুল কাদের

দেশের অগ্রগতি নষ্ট করতে চাইলে দাঁতভাঙা জবাব: ওবায়দুল কাদের

© 2021 Bangla Tribune