X
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বন্দর থেকে আমদানি পণ্য ডেলিভারি নিতে চায় বিজিএমইএ

আপডেট : ২৬ এপ্রিল ২০২১, ১৮:০৩

সময় ও খরচ কমাতে আইসিডি থেকে না নিয়ে, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে আমদানি পণ্যের কন্টেইনার ডেলিভারি নিতে চায় বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)। গত ২০ এপ্রিল এনবিআরের চেয়ারম্যানকে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দিয়েছে বিজিএমইএ।

চিঠিতে আমদানি পণ্যবাহী কন্টেইনার বন্দরের ইয়ার্ড থেকে ডেলিভারির অব্যাহত রাখার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, আইসিডি থেকে ডেলিভারি নিলে ৬/৭ দিন অতিরিক্ত সময় লাগবে। এতে ব্যবসায়ীরা খরচ ও সময়- উভয় দিকেই ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, গত বছরের মতো এবারও সকল ধরনের আমদানি পণ্য বেসরকারি আইসিডিতে সরিয়ে নিলে চরম সংকট সৃষ্টি হবে বলে মনে করছেন তৈরি পোশাক শিল্প মালিকরা।

এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ'র সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, বন্দর থেকে আমদানি পণ্যের কন্টেইনার ডেলিভারি নিতে সময় লাগে মাত্র ২ দিন। আর আইসিডি থেকে ডেলিভারি নিতে লেগে যায় ৬ থেকে ৭ দিন। তাছাড়া আইসিডির মাশুল চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ে অনেক বেশি। এছাড়া অতিরিক্ত চার্জ প্রদান করে প্রাইভেট আইসিডি থেকে মালামাল খালাস করা বর্তমান সংকটময় মুহূর্তে সম্ভব নয়। তার মতে বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার জট নেই। ফলে আমদানি পণ্যের কন্টেইনার আইসিডিতে স্থানান্তরের কোনও যৌক্তিকতা নেই।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বন্দরের কন্টেইনার জট কমাতে ১৯টি বেসরকারি আইসিডির অনুমোদন দেয় সরকার। এসব আইসিডির ধারণক্ষমতা ৬৫ হাজার টিইইউ'স। খাদ্যপণ্যসহ ৩৮ ধরনের আমদানি পণ্য ডেলিভারি দেওয়া হয় আইসিডি থেকে। এছাড়া জাহাজীকরণের উদ্দেশ্যে শতভাগ রফতানি পণ্য কন্টেইনার ভর্তি করা হয় আইসিডি থেকে।

বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরোওয়ার্ডার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাফা) তথ্যমতে, বেসরকারি আইসিডি থেকে ডেলিভারি দিলে ২০ ফুট সাইজের একটি কন্টেইনারে অতিরিক্ত ৬ থেকে ৭ হাজার টাকা বেশি খরচ করতে হয় আমদানিকারককে। বেসরকারি আইসিডির চার্জ ১২ শতাংশ বৃদ্ধি হওয়ায় এমনিতে বাড়তি অর্থ গুনতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।

পোশাক শিল্পের অস্তিত্ব রক্ষার্থে সময়ক্ষেপণ রোধ ও অতিরিক্ত চার্জ প্রদান ব্যতীত আমদানিকৃত পণ্য চালান চট্টগ্রাম বন্দর থেকে সরাসরি খালাস অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ওই চিঠিতে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়।

/জিএম/এমআর/

সম্পর্কিত

প্রণোদনার ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ চায় বিজিএমইএ

প্রণোদনার ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ চায় বিজিএমইএ

পোশাক রফতানি বাড়াতে দূতাবাসের সহযোগিতা চায় বিজিএমইএ

পোশাক রফতানি বাড়াতে দূতাবাসের সহযোগিতা চায় বিজিএমইএ

মার্কিন ক্রেতাদের কাছে পোশাকের ন্যায্যমূল্য চায় বিজিএমইএ

মার্কিন ক্রেতাদের কাছে পোশাকের ন্যায্যমূল্য চায় বিজিএমইএ

পোষাক শ্রমিকদের টিকাদানের তথ্য জানতে চায় বিজিএমইএ

পোষাক শ্রমিকদের টিকাদানের তথ্য জানতে চায় বিজিএমইএ

পুঁজিবাজারের বিশেষ তহবিলের টাকা সুকুকে বিনিয়োগ করার নির্দেশ

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:০২

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উদ্দেশে তফসিলি ব্যাংকের গঠন করা বিশেষ তহবিলের টাকা নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে গ্রিন সুকুকে (শরিয়াহসম্মত বন্ড) বিনিয়োগ করার নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। নির্দেশনা অনুসারে, ২০২৮ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত বিনিয়োগের সুযোগ পাবে ব্যাংকগুলো।

সোমবার(২৭ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দিয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। দেশের সব তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। 

উল্লেখ্য, দেশের প্রথম গ্রিন সুকুকের সাবস্ক্রিপশন চলাকালে এই নির্দেশনা জারি হলো।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি বেক্সিমকো লিমিটেড এই সুকুক ইস্যু করছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিটি ৩ হাজার কোটি টাকা সংগ্রহ করবে, যা নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও পরিবেশবান্ধব শিল্পে বিনিয়োগ করা হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন অনুসারে, পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে গঠিত ২০০ কোটি টাকার তহবিলের সম্পূর্ণ অংশ (লভ্যতা অনুসারে) ন্যূনতম ৭০% সৌর বিদ্যুৎ, বায়ুশক্তি চালিত বিদ্যুৎ, জল বিদ্যুৎ, বায়োমাস ইত্যাদি নবায়নযোগ্য শক্তি প্রকল্পে বিনিয়োগের উদ্দেশে বেসরকারি উদ্যোক্তা কর্তৃক ইস্যুকৃত তালিকাভুক্ত বা সাবস্ক্রিপশন ক্লোজিং-এর তারিখ হতে এক বছরের মধ্যে তালিকাভুক্ত হবে এরূপ ১০০% অ্যাসেট ব্যাকড গ্রিন সুকুক-এ বিনিয়োগ করা যাবে।

কোনও ধরনের সুকুকে বিশেষ তহবিলের টাকা বিনিয়োগ করা যাবে, তার বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রজ্ঞাপন অনুসারে, Istisna Sukuk, Salam Sukuk ও Ijarah Sukuk এবং এই ৩ ধরনের সুকুকের সমন্বয়ে গঠিত হাইব্রিড সুকুকে এই অর্থ বিনিয়োগ করা যাবে।

সুকুকের তহবিল ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু শর্ত পরিপালন করতে হবে। পণ্য আমদানির ক্ষেত্রের ১০০% মার্জিনে ঋণপত্র (LC) খুলতে হবে, পণ্য ১২০ দিনের মধ্যে জাহাজীকরণ/সরবরাহ করার শর্ত থাকতে হবে, সমস্ত স্থানীয় ব্যয় ৬ মাসের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে এবং প্রকল্প উন্নয়নে সর্বোচ্চ ৮ মাস সময় বরাদ্দ থাকবে।

অন্যান্য শর্ত হচ্ছে- সুকুক-এর তহবিল Special Purpose Vehicle (SPV)-এর নামে খোলা ব্যাংক হিসাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

/জিএম/এমআর/

সম্পর্কিত

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

অভিযোগ করে ভোক্তারা পেয়েছেন প্রায় সোয়া কোটি টাকা

অভিযোগ করে ভোক্তারা পেয়েছেন প্রায় সোয়া কোটি টাকা

দেশজুড়ে গড়ে উঠেছে নেটওয়ার্ক

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:১৫

বাংলাদেশে এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয় ২০১৪ সালে। বর্তমানে  সেই এজেন্ট‌ ব্যাংকের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দেড় কোটির বেশি। ইসলামী ব্যাংকের মতো বড় ও বিশ্বস্ত বেসরকারি ব্যাংকের সেবা মিলছে এখন প্রত্যন্ত গ্রাম-গঞ্জে। এছাড়া রাস্তার ধারে, ফুটপাতে ও অলিতে-গলিতে মিলছে ব্যাংক এশিয়া ও ডাচ বাংলা ব্যাংকের সেবা। এর মধ্যে ইউনিয়ন পর্যায়েও বেশকিছু  ব্যাংকের শাখা রয়েছে। মাত্র সাত বছরের ব্যবধানে এজেন্ট শাখায় আমানত জমা হয়েছে ২০ হাজার কোটি টাকার বেশি। শুধু তাই নয়, গত এক বছরে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের ঋণের প্রবৃদ্ধি দাঁড়িয়েছে ৩৪২ শতাংশ। আর আমানত বেড়েছে ১০০ শতাংশ। এছাড়া এক বছরে প্রবাসী-আয় বেড়েছে ১৫৫ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে,  ব্যাংকগুলো এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়ে গেছে। আমানত রাখা, ঋণ বিতরণ ও প্রবাসী আয়  আনার পাশাপাশি তারা স্কুল ব্যাংকিং চালু করেছে। গ্রামগঞ্জে সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির ভাতাও বিতরণ করছে এজেন্টরা। সব মিলিয়ে এজেন্ট ব্যাংকিং চাঙা হওয়ার ফলে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ গ্রামীণ অর্থনীতিও চাঙা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গ্রাহকরা মোট আমানতের  ৩৩.৬৭ শতাংশই রেখেছে ইসলামী ব্যাংকে। এই ব্যাংকটির এজেন্টদের সংগৃহীত আমানতের পরিমাণ ৬ হাজার ৮৬১ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, গত এক বছরে নতুন করে ৫টি ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং সেবায় এসেছে। এর ফলে মোট ২৮টি ব্যাংক এই সেবা দিচ্ছে। সারা দেশের ১৭ হাজার ১৪৫টি এজেন্ট আউটলেটের মাধ্যমে অশিক্ষিত ও কম শিক্ষিত গ্রাম পর্যায়ের মানুষরাও এখন ব্যাংকের সেবা নিচ্ছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, শুধু এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমেই প্রায় সোয়া কোটি গ্রাহক লেনদেন করছেন।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষক ও অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা যেহেতু মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে, সে কারণে এজেন্ট শাখাগুলো মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘অন্যান্য ব্যাংকের মতো অগ্রণী ব্যাংকের এজেন্টরাও ভালো করছে। আমরা সেখান থেকে ভালো আমানত পাচ্ছি। অচিরেই ঋণ দেওয়া শুরু করবো।’

জানা গেছে, বিকাশ, রকেট, নগদসহ বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকের এজেন্টরা, এমনকি কোথাও কোথাও চাল ও ডাল ব্যবসায়ীরাও ব্যাংকগুলোর এজেন্ট নিয়ে ব্যাংকিং করছেন। অর্থাৎ, মুদি দোকানিদের হাতেও তুলে দেওয়া হয়েছে ব্যাংকের শত শত আউটলেট। এক্ষেত্রে বেশকিছু স্থানে গ্রাহকের অর্থ আত্মসাতের মতো ঘটনা ঘটেছে।

তবে ব্যতিক্রম ইসলামী ব্যাংকের আউটলেটগুলো। এই ব্যাংকটির এজেন্ট শাখা থেকে পরিপূর্ণ ও আদর্শ ব্যাংকের আদলে গ্রাহকদের সেবা দেওয়া হচ্ছে। এক কথায় গ্রাহকের অর্থের সুরক্ষার নিশ্চয়তা দিচ্ছে এই ব্যাংকের এজেন্টরা। গোপন পিন ও গ্রাহকের ফিঙ্গার না মেলা পর্যন্ত অ্যাকাউন্টের টাকা তোলা যায় না। ফলে এজেন্ট বা ব্যাংকের কোনও কর্মকর্তা ইচ্ছে করলেও গ্রাহকের অ্যাকাউন্টের টাকা তুলতে পারেন না।

অন্য ব্যাংকগুলোর চেয়ে ইসলামী ব্যাংকের আরেকটি বিষয়ে ব্যতিক্রম আছে। তা হলো, অন্য ব্যাংকের এজেন্ট আউটলেট চলে একজনের তত্ত্বাবধানে। সেখানে ইসলামী ব্যাংকের আউটলেটগুলোতে গড়ে ৫ থেকে ৬ জনের কর্মসংস্থান হয়েছে। কোথাও কোথাও সাত জন বা আট জন মিলে আউটলেট পরিচালনা করছেন। এর ফলে অন্তত সারা দেশে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে ১৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ মনিরুল মাওলা বলেন, ‘প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষজন যাতে ব্যাংকিং সেবা পেতে পারেন, সেজন্য বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট শাখা বিস্তৃত হয়েছে। এজেন্ট আউটলেট থেকে চেক ও কার্ড ছাড়াই লেনদেন করা যাচ্ছে।’ তিনি জানান, গ্রাহকরা ইসলামী ব্যাংকে টাকা জমা রাখতে স্বস্তিবোধ করেন। এছাড়া দীর্ঘদিনের আস্থা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাওয়ায় ডিপোজিট সংগ্রহের ক্ষেত্রে ইসলামী ব্যাংক সবার চেয়ে এগিয়ে রয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, সর্বস্তরের মানুষকে ব্যাংকিং সেবায় টানতে ২০১৪ সালের ১৭ জানুয়ারি দেশে চালু হয়েছিল নতুন ধাঁচের এই ব্যাংকিং সেবা, যার নাম এজেন্ট ব্যাংকিং। মাত্র সাড়ে সাত বছরে এই সেবার গ্রাহক বেড়ে বর্তমানে এক কোটি ২২ লাখ ৫ হাজার ৩৫৮ জনে পৌঁছেছে।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, কেউ বাড়ির পাশে সেবা পাওয়ায়, আবার কেউ সঞ্চয়ের জন্য এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে হিসাব খুলেছেন।  পাশাপাশি প্রবাসী আয় তথা রেমিট্যান্স আনার পরিমাণও বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের জুন মাসের শেষে এজেন্টদের মাধ্যমে প্রবাসী আয় এসেছিল ২৬ হাজার ৫৬০ কোটি টাকা, চলতি বছরের জুনে তা বেড়ে হয়েছে ৬৭ হাজার ৯৫৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ, গত এক বছরে প্রবাসী আয় বেড়েছে ১৫৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছরের জুন মাসের শেষে দেশব্যাপী পাড়া-মহল্লা ও হাটবাজারে ১৭ হাজার ১৪৫টির বেশি এজেন্ট রয়েছে। অর্থাৎ, এক বছরে আউটলেটের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৩৭ শতাংশ। গত বছরের জুনে আউটলেট ছিল ১২ হাজার ৪৪৯টি।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত নতুন এই ব্যাংকিং কার্যক্রমের মাধ্যমে সোয়া কোটি গ্রাহক হিসাব খুলেছেন। সেপ্টেম্বরের শেষে এই সংখ্যা দেড় কোটির কাছাকাছি পৌঁছে গেছে বলে জানান ব্যাংক কর্মকর্তারা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত জুনে নারীদের হিসাবের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫৬ লাখ ৭৫ হাজার ৩২৯, গত বছরের জুনে যা ছিল ৩৪ লাখ ১০ হাজার ২৭০টি। আবার চলতি বছরের জুন মাসের তথ্যানুযায়ী, মোট সোয়া কোটি হিসাবের মধ্যে গ্রামীণ হিসাবই এক কোটি ৫ লাখ ৩৯ হাজার ১৬৩টি। গত বছরের একই সময়ে এ সংখ্যা ছিল ৬৩ লাখ ৭৭ হাজার ৪৫৭। অর্থাৎ, এক বছরে  গ্রামীণ মানুষের হিসাব বেড়েছে ৬৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, গত এক বছরে আমানত বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। অর্থাৎ, গত বছরের জুনে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে আমানত ছিল ১০ হাজার ২২০ কোটি টাকা। এ বছরের জুনের শেষে এটি বেড়ে হয়েছে ২০ হাজার ৩৭৯ কোটি টাকা। এছাড়া জুন পর্যন্ত ঋণ বিতরণ হয়েছে ৩ হাজার ১৮৬ কোটি টাকা, গত বছরের জুনে যা ছিল ৭২০ কোটি টাকা।

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

ব্যাংকগুলোকে জাল নোট শনাক্তকারী যন্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ

ব্যাংকগুলোকে জাল নোট শনাক্তকারী যন্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৮

বেসরকারিভাবে চাল আমদানির জন্য বরাদ্দ পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর ঋণপত্র (লেটার অব ক্রেডিট-এলসি) খোলার সময় ৭ দিন বাড়িয়েছে সরকার। সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপণ জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপণে বলা হয়, বেসরকারিভাবে নন-বাসমতি সিদ্ধ ও আতপ চাল আমদানির জন্য বরাদ্দপ্রাপ্ত ২১টি প্রতিষ্ঠানের এলসির সময়সীমা চাল আমদানির স্বার্থে চিঠি দেওয়ার তারিখ থেকে ৭ দিন বাড়ানো হলো।

এলসি সম্পর্কিত তথ্য (পোর্ট অব এন্ট্রিসহ) তাৎক্ষণিকভাবে ই-মেইলে ([email protected]) জানাতে হবে।

 

 

 

/এসআই/আইএ/

সম্পর্কিত

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

ব্যাংকগুলোকে জাল নোট শনাক্তকারী যন্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ

ব্যাংকগুলোকে জাল নোট শনাক্তকারী যন্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ

প্রবাসীরা ২৩ দিনে পাঠালেন ১৩৯ কোটির বেশি ডলার

প্রবাসীরা ২৩ দিনে পাঠালেন ১৩৯ কোটির বেশি ডলার

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:০৬

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। আগামী ১ অক্টোবর দুবাইয়ে শুরু হতে যাচ্ছে ৬ মাসব্যাপী দুবাই এক্সপো। বাংলাদেশ এতে অংশ নেবে। বাণিজ্যমন্ত্রী  বাংলাদেশ প্যাভেলিয়নের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। এ জন্যই তিনি দুবাই যাচ্ছেন।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ। এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ‘দুবাই ২০২১ এক্সপোতে’ শুধু পণ্যই নয়, এ মেলায় অংশ গ্রহণের ফলে বিশ্ববাসীর কাছে ৫০ বছরের অর্জন তুলে ধরবে বাংলাদেশ।

সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘ছয় মাসব্যাপী এই ওয়ার্ল্ড এক্সপোতে বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের অর্জন, পণ্য, ধারণা উদ্ভাবন, জাতীয় ব্র্যান্ড, পর্যটন, ইতিহাস এবং  ব্যবসায়িক পরিবেশ প্রচারের মাধ্যমে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জল করার চেষ্টা করা হবে। অলিম্পিক গেমস, ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপের পরে তৃতীয় বৈশ্বিক ইভেন্ট হিসেবে ওয়ার্ল্ড এক্সপো মূলত বিভিন্ন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, অগ্রগতি, বাণিজ্য সম্ভাবনা ও সংস্কৃতি বিশ্ববাসীর সামনে উপস্থাপনের সুযোগ হবে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এক্সপো কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ ও বিশ্ব সম্প্রদায়ের জন্য দেশের ইমেজ বৃদ্ধিতে আগামী ৩ ডিসেম্বর ‘ইন্টারন্যাশনাল ডে অব পারসনস উইথ ডিজঅ্যাবিলিটিস’, ১৬ ডিসেম্বর ‘কান্ট্রি ডে’, ২১ ফেব্রুয়ারি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’, ৮ মার্চ ‘আন্তর্জাতিক নারী দিবস’, ১৭ মার্চ ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকীর’ অনুষ্ঠান এবং ২৬ মার্চ বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন উপলক্ষে বিশেষ আয়োজন থাকবে। দুবাই ২০২১ এক্সপো আয়োজনের মূল থিম কানেকটিং মাইন্ডস, ক্রিয়েটিং দি ফিউচার  এবং সাব থিম তিনটি অপারচুনিটি, মোবিলিটি এবং সাসটেইনেবিলিটি।’  

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নের এক্সিবিশন টাইটেল নির্ধারণ করা হয়েছে— ‘ইন্দোমিটেবল বাংলাদেশ: টুয়ার্ডস সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট’। বাংলাদেশের দ্বিতল বিশিষ্ট প্যাভিলিয়নের নিচ তলা প্রদর্শনীর জন্য এবং দ্বিতীয় তলা দাফতরিক,  সেমিনার ও বিজনেস টু বিজনেস সভার কাজে ব্যবহার করা হবে। এই এক্সপোর মাধ্যমে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, অগ্রগতি, সাফল্য এবং বাণিজ্য সম্ভাবনা যথাযথভাবে তুলে ধরা হবে। এজন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সঙ্গে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সমন্বয়  করবে। এ জন্য প্রযোজ্য পণ্য, অডিও-ভিজ্যুয়াল, ডকুমেন্টারি ইত্যাদি প্রদর্শন করা হবে।’

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ইটালির মিলানে সর্বশেষ ওয়ার্ল্ড এক্সপো অনুষ্ঠিত হয়েছিল। মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রথমবারের মতো ‘ওয়ার্ল্ড এক্সপো ২০২১’ এর আয়োজন করছে। কোভিডের কারণে এই এক্সপো আগামী ১ অক্টোবর শুরু হয়ে ২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত চলবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে।

এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাফিজুর রহমান, যুগ্ম সচিব আব্দুর রহিম খান এবং  মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

ব্যাংকগুলোকে জাল নোট শনাক্তকারী যন্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ

ব্যাংকগুলোকে জাল নোট শনাক্তকারী যন্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ

প্রবাসীরা ২৩ দিনে পাঠালেন ১৩৯ কোটির বেশি ডলার

প্রবাসীরা ২৩ দিনে পাঠালেন ১৩৯ কোটির বেশি ডলার

অভিযোগ করে ভোক্তারা পেয়েছেন প্রায় সোয়া কোটি টাকা

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:০১

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের প্রতিষ্ঠার পর দাফতরিকভাবে নিষ্পত্তিকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদায়কৃত জরিমানার ২৫ শতাংশ হিসেবে ৬ হাজার ৯২০ জন অভিযোগকারীকে ১ কোটি ২০ লাখ ২৯ হাজার ৫০২ টাকা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ভোক্তা স্বার্থ সুরক্ষায় নিয়োজিত সর্বোচ্চ ফোরাম জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ২৩তম সভায় এই তথ্য জানানো হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সূচনা বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট মহামারিকালে ভোক্তা স্বার্থ সুরক্ষা, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ, বাজারজাতকরণ ও দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখতে নিরলস কাজ করার জন্য জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের সকল স্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীকে ধন্যবাদ জানান এবং কাজের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন।

সভায় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ অনুযায়ী অধিদফতরের গৃহীত কার্যক্রমের প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এছাড়াও অধিদফতরের ২০২০-২০২১ অর্থবছরের কার্যাবলীর বিবরণ সম্বলিত বার্ষিক প্রতিবেদন, ২০২০-২০২১ অর্থবছরের এপ্রিল, মে ও জুন ২০২১ পর্যন্ত ১টি ত্রৈমাসিক হিসাব বিবরণী, জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ইমপ্রুভড নিউট্রিশনের মধ্যে সম্পাদিত সহযোগিতা চুক্তির মেয়াদ বর্ধিতকরণ ও নতুনভাবে সম্পাদনযোগ্য চুক্তির বিষয় এবং ক্যাব কর্তৃক ২০২১-২০২২ অর্থবছরের 'ভোক্তা অধিকার শক্তিশালীকরণ কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য আর্থিক অনুদান প্রদানের বিষয় অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হয়। 

সভায় জানানো হয় যে অধিদফতর প্রতিষ্ঠার পর থেকে ৩১ আগস্ট ২০২১ পর্যন্ত সময়ে ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে বাজার অভিযান পরিচালনা করে ১ লাখ ৭ হাজার ৩৮টি প্রতিষ্ঠানকে দণ্ডিত করে ৭৩ কোটি ৩৯ লাখ ১৩ হাজার ২৪২ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। একই সময়ে দাফতরিকভাবে প্রাপ্ত অভিযোগ নিষ্পত্তি করে ৭ হাজার ১০ টি প্রতিষ্ঠানকে ৪ কোটি ৮৮ লাখ ৬ হাজার ৮ টাকা জরিমানা করা হয়।

২৯ সদস্য বিশিষ্ট পরিষদের সভায় উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষ, বিশিষ্ট সমাজকর্মী ও বীমা ব্যক্তিত্ব জনাব শেখ কবির হোসেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদসহ আরও অনেকে। সভাটি সঞ্চালনা করেন পরিষদের সচিব ও জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা।

/এসও/এমআর/

সম্পর্কিত

পুঁজিবাজারের বিশেষ তহবিলের টাকা সুকুকে বিনিয়োগ করার নির্দেশ

পুঁজিবাজারের বিশেষ তহবিলের টাকা সুকুকে বিনিয়োগ করার নির্দেশ

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

ব্যাংক খাতের নেতৃত্ব দিচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দুবাই যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

সম্পর্কিত

প্রণোদনার ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ চায় বিজিএমইএ

প্রণোদনার ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ চায় বিজিএমইএ

পোশাক রফতানি বাড়াতে দূতাবাসের সহযোগিতা চায় বিজিএমইএ

পোশাক রফতানি বাড়াতে দূতাবাসের সহযোগিতা চায় বিজিএমইএ

মার্কিন ক্রেতাদের কাছে পোশাকের ন্যায্যমূল্য চায় বিজিএমইএ

মার্কিন ক্রেতাদের কাছে পোশাকের ন্যায্যমূল্য চায় বিজিএমইএ

পোষাক শ্রমিকদের টিকাদানের তথ্য জানতে চায় বিজিএমইএ

পোষাক শ্রমিকদের টিকাদানের তথ্য জানতে চায় বিজিএমইএ

ডিসেম্বর পর্যন্ত খেলাপি না করতে গভর্নরকে বিজিএমইএ’র অনুরোধ

ডিসেম্বর পর্যন্ত খেলাপি না করতে গভর্নরকে বিজিএমইএ’র অনুরোধ

ফরাসি চলচ্চিত্রের সংলাপে বিজিএমইএ’র আপত্তি, নেটফ্লিক্সকে চিঠি

ফরাসি চলচ্চিত্রের সংলাপে বিজিএমইএ’র আপত্তি, নেটফ্লিক্সকে চিঠি

কাঁচামাল দ্রুত পেতে ভারতীয় হাইকমিশনারকে চিঠি দিলো বিজিএমইএ

কাঁচামাল দ্রুত পেতে ভারতীয় হাইকমিশনারকে চিঠি দিলো বিজিএমইএ

করোনার টিকা ও কিট চেয়ে দুই রাষ্ট্রদূতকে বিজিএমইএ সভাপতির চিঠি

করোনার টিকা ও কিট চেয়ে দুই রাষ্ট্রদূতকে বিজিএমইএ সভাপতির চিঠি

সর্বশেষ

এইচএসসি পাসেই চাকরি, বেতন ২২ হাজার ৫০০ টাকা

এইচএসসি পাসেই চাকরি, বেতন ২২ হাজার ৫০০ টাকা

সেই চালককে মোটরসাইকেল উপহার দিতে চায় শামসুল হক ফাউন্ডেশন

সেই চালককে মোটরসাইকেল উপহার দিতে চায় শামসুল হক ফাউন্ডেশন

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: জয়

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: জয়

কন্যা দিবস আর কন্যাশিশু দিবসের বিভ্রান্তি

কন্যা দিবস আর কন্যাশিশু দিবসের বিভ্রান্তি

ভবন থেকে ইট পড়ে পথচারীর মৃত্যু

ভবন থেকে ইট পড়ে পথচারীর মৃত্যু

বারডেমের কেবিনে ঝুলছিলো রোগীর মরদেহ

বারডেমের কেবিনে ঝুলছিলো রোগীর মরদেহ

বেশি মুনাফা পেতে মানহীন চিকিৎসা সামগ্রী বিক্রয় করতো মুন্না

বেশি মুনাফা পেতে মানহীন চিকিৎসা সামগ্রী বিক্রয় করতো মুন্না

সচেতনতায় জলাতঙ্কের নিশ্চিত মৃত্যু প্রতিরোধ সম্ভব 

সচেতনতায় জলাতঙ্কের নিশ্চিত মৃত্যু প্রতিরোধ সম্ভব 

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

প্রণোদনার ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ চায় বিজিএমইএ

প্রণোদনার ঋণ ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ চায় বিজিএমইএ

পোশাক রফতানি বাড়াতে দূতাবাসের সহযোগিতা চায় বিজিএমইএ

পোশাক রফতানি বাড়াতে দূতাবাসের সহযোগিতা চায় বিজিএমইএ

মার্কিন ক্রেতাদের কাছে পোশাকের ন্যায্যমূল্য চায় বিজিএমইএ

মার্কিন ক্রেতাদের কাছে পোশাকের ন্যায্যমূল্য চায় বিজিএমইএ

পোষাক শ্রমিকদের টিকাদানের তথ্য জানতে চায় বিজিএমইএ

পোষাক শ্রমিকদের টিকাদানের তথ্য জানতে চায় বিজিএমইএ

ডিসেম্বর পর্যন্ত খেলাপি না করতে গভর্নরকে বিজিএমইএ’র অনুরোধ

ডিসেম্বর পর্যন্ত খেলাপি না করতে গভর্নরকে বিজিএমইএ’র অনুরোধ

© 2021 Bangla Tribune