X
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

নেই করোনার ভয়, বেপরোয়া মানুষ

আপডেট : ১০ মে ২০২১, ১৪:১৬

গত বছর ঈদুল ফিতরের সময় গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও ঈদুল আজহাতে নিষেধাজ্ঞা শিথিল হয়। এরপরই বাড়ি ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠে সবাই। আর এবছর ঈদযাত্রা যেন ভয়াবহ হয়ে দাঁড়িয়েছে। একদিকে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে দেশে, আরেকদিকে মানুষ বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। নির্দেশনা, কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েও ঘরে রাখা যাচ্ছে লোকজনকে। বৃহস্পতিবার থেকে মানুষ ছুটছে স্বজনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে।

গত বছরও কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ ছিল

গত বছরও ঈদুল আজহার ছুটিতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মস্থলে থাকাতে বলা হয়েছিল। ২০২০ সালে ১৩ জুলাই মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ৩১ জুলাই বা ১ আগস্ট ঈদুল আজহা পালিত হবে। তবে যেদিনই পালিত হোক, ঈদের আগের দিন, ঈদের দিন ও ঈদের পরের দিন এই তিন দিন সরকারি ছুটি থাকবে। কিন্তু তারপরও মামুষকে থামানো যায়নি। এবছরও সর্বশেষ জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে বলা আছে কর্মস্থল ত্যাগ করা যাবে না। কিন্তু ইতোমধ্যে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ঢাকা ছেড়েছে লাখো মানুষ।

গত বছর করোনা প্রকোপ এত ছিল না

এবছর ১৯ এপ্রিল করোনায় দেশে ১১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এটি দেশে এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। আর নতুন রোগী শনাক্ত হয় ৪ হাজার ২৭১ জন। গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা শনাক্তের কথা জানায় সরকার। গত বছরের মে মাসের মাঝামাঝি থেকে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত শনাক্তের হার ২০ শতাংশের ওপরে ছিল। এরপর থেকে শনাক্তের হার কমতে শুরু করে। করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউয়ের এই সময়ে সবচেয়ে সংকটময় অবস্থায় আছে বাংলাদেশ।

গত বছর ২ জুলাই একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত হয়। এদিন শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ১৯ জন। এবছর ১৯ এপ্রিলে একদিনেনতুন রোগী শনাক্ত হয় ৪ হাজার ২৭১ জন।

এত মানুষ কোথায় যায়?

সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত ২৯ মার্চ বিধিনিষেধসহ ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। এর মধ্যে ঘরের বাইরে গেলে মাস্কের ব্যবহার অন্যতম। কিন্তু সংক্রমণ আশঙ্কাজনকভাবে বাড়তে থাকলেও জনগণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে এখনও উদাসীনতা দেখা গেছে। এরপর কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে চলাচল সীমিত করা হয়, অফিসসহ নানা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হয়। যদিও পরবর্তীতে শপিং মল থেকে শুরু করে শহরের মধ্যে গণপরিবহন চলাচল খুলে দেওয়া হয়। এখনও আন্তঃজেলা বাস বন্ধ আছে। তারপরও মানুষ ছুটছে। শনিবার ফেরি আটকানোর ঘোষণা এলেও ঘাটে ১১ হাজার মানুষ জড়ো হয়ে ফেরি চালাতে বাধ্য করে। রবিবারও হাজার হাজার মানুষ ফেরি পার হয়ে ফরিদপুর-মাদারীপুর-ঝিনাইদাসহ বিভিন্ন জেলায় রওনা হয়।

জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে হলে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই। এই সময়ে বাড়ি যাওয়ার জন্য ফেরিতে যে গাদাগাদি হয়ে মানুষ পার হতে দেখা গেল তা আগামী ১৪ দিন পরে ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনবে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হয়েছে মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। নিষেধাজ্ঞা দিলে নিম্নবিত্তের দুর্দশার কথা বলা হয়। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা শিথিল করলে সবাই মার্কেটে ভিড় করলেন। মানুষের ভেতর বেপরোয়া ভাব চলে এসেছে যা বিপদ বাড়াবে।

প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

করোনার সংক্রমণ রোধে ঈদে বাড়ি যাওয়া থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন,  ‘প্রত্যেকে যার যার অবস্থানে থেকে ঈদ করুন। একটা ঈদ বাড়িতে না করলে কী হয়। তিনি সবাইকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানান। সবাইকে বলবো, নিজ নিজ অবস্থানে থেকে ঈদ করুন। কেননা বাড়ি যাওয়ার পথে কে ভাইরাস বহন করছেন, কে করছেন না, তা আমরা কেউ জানি না। কাজেই বাড়ি যাওয়ার পথে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই বলবো, বাড়ি যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। কেননা যাওয়ার পথে আপনি ভাইরাস বহন করে নিয়ে যেতে পারেন আপনার পরিবারের কাছে।’

 

আরও পড়ুন:

পাহারা গলে শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রীর ঢল!

চাপ বাড়ছে পাটুরিয়ায়, ৪ ফেরিতে মানুষ ও অ্যাম্বুলেন্স পারাপার

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানবাহনের বাড়তি চাপ

 

/এসটি/

সম্পর্কিত

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি,  যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি, যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

কোভিশিল্ডের টিকা মজুত আছে ১ লাখ ২৬ হাজার ডোজ

কোভিশিল্ডের টিকা মজুত আছে ১ লাখ ২৬ হাজার ডোজ

করোনা সংক্রমণ বাড়ায় হিলিতে ৭ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ জারি

করোনা সংক্রমণ বাড়ায় হিলিতে ৭ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ জারি

চট্টগ্রামে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন, রোগী নিখোঁজ

চট্টগ্রামে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন, রোগী নিখোঁজ

আবারও ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ছাড়ালো ৩ হাজার 

আবারও ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ছাড়ালো ৩ হাজার 

বাগেরহাটে করোনা শনাক্তের হার ৪৪ শতাংশ

বাগেরহাটে করোনা শনাক্তের হার ৪৪ শতাংশ

রামেক হাসপাতালে আরও ১২ জনের মৃত্যু

রামেক হাসপাতালে আরও ১২ জনের মৃত্যু

খুলনায় করোনা হাসপাতালে আরও ৪ মৃত্যু, পরিস্থিতি মোকাবিলায় হচ্ছে দ্বিতীয় ইউনিট

খুলনায় করোনা হাসপাতালে আরও ৪ মৃত্যু, পরিস্থিতি মোকাবিলায় হচ্ছে দ্বিতীয় ইউনিট

চট্টগ্রামে একদিনে শনাক্ত ৬৭ থেকে বেড়ে ২২৫

চট্টগ্রামে একদিনে শনাক্ত ৬৭ থেকে বেড়ে ২২৫

করোনা রোগী সামলাতে সামেক হাসপাতালে আরও ১০০ বেড

করোনা রোগী সামলাতে সামেক হাসপাতালে আরও ১০০ বেড

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

লকডাউনেও সাতক্ষীরায় শনাক্তের হার ৬৪ শতাংশ, মৃত্যু ৪ জনের

লকডাউনেও সাতক্ষীরায় শনাক্তের হার ৬৪ শতাংশ, মৃত্যু ৪ জনের

সর্বশেষ

ইউ‌কে-বাংলা প্রেসক্লাবের সভা অনুষ্ঠিত

ইউ‌কে-বাংলা প্রেসক্লাবের সভা অনুষ্ঠিত

উত্তর প্রদেশে হামলার শিকার বয়স্ক মুসলিম, কাটা হলো দাড়ি

উত্তর প্রদেশে হামলার শিকার বয়স্ক মুসলিম, কাটা হলো দাড়ি

আবার এসেছে আশার ‘আষাঢ়’

আবার এসেছে আশার ‘আষাঢ়’

মিসরে মুসলিম ব্রাদারহুডের ১২ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল

মিসরে মুসলিম ব্রাদারহুডের ১২ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল

মেসি গোল পেলেও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা

মেসি গোল পেলেও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত কানাডার সেই হামলাকারী

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত কানাডার সেই হামলাকারী

গোল মিসের মহড়ায় পয়েন্ট হারালো স্পেন

গোল মিসের মহড়ায় পয়েন্ট হারালো স্পেন

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি,  যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি, যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

অবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’

পরীমণিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টাঅবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

বায়ু শক্তিকে উদযাপনের দিন আজ

অপার সম্ভাবনায় গুরুত্ব কমবায়ু শক্তিকে উদযাপনের দিন আজ

স্পর্শকাতর সিদ্ধান্তের মুখে ইসরায়েলের নতুন সরকার

স্পর্শকাতর সিদ্ধান্তের মুখে ইসরায়েলের নতুন সরকার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

কোভিশিল্ডের টিকা মজুত আছে ১ লাখ ২৬ হাজার ডোজ

কোভিশিল্ডের টিকা মজুত আছে ১ লাখ ২৬ হাজার ডোজ

আবারও ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ছাড়ালো ৩ হাজার 

আবারও ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ছাড়ালো ৩ হাজার 

ঢাকায় পৌঁছেছে চীনের টিকা

ঢাকায় পৌঁছেছে চীনের টিকা

২৪ ঘণ্টায় ৪৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩৬

২৪ ঘণ্টায় ৪৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩৬

২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৪ শতাংশের বেশি

২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৪ শতাংশের বেশি

দীর্ঘায়িত হচ্ছে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষা, বাড়ছে শঙ্কা ও প্রশ্ন

দীর্ঘায়িত হচ্ছে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষা, বাড়ছে শঙ্কা ও প্রশ্ন

করোনায় মৃত্যু ১৩ হাজার ছাড়ালো

করোনায় মৃত্যু ১৩ হাজার ছাড়ালো

শুক্রবার থেকে রাজশাহীগামী ট্রেন চলাচল বন্ধ

শুক্রবার থেকে রাজশাহীগামী ট্রেন চলাচল বন্ধ

টিকা মজুত আছে এক লাখ ৩৯ হাজার

টিকা মজুত আছে এক লাখ ৩৯ হাজার

© 2021 Bangla Tribune