X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

নাইজেরিয়ায় নৌকাডুবিতে শতাধিক মানুষের মৃত্যুর আশঙ্কা

আপডেট : ২৭ মে ২০২১, ২০:৩৪
image

অতিরিক্ত বোঝাই একটি নৌকা ডুবে যাওয়ায় নাইজেরিয়ার উত্তরাঞ্চলে শতাধিক মানুষ নিখোঁজ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তাদের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার ১৮০ যাত্রী নিয়ে কেব্বি প্রদেশে নৌকাটি ডুবে যায় বলে জানিয়েছে দেশটির সরকারি কর্তৃপক্ষ। মার্কিন সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

নাইজার প্রাদেশিক সরকারের মুখপাত্র ম্যারি নোয়েল-বার্জে জানান, স্থানীয় সময় বুধবার ভোরে নাইজার প্রদেশ থেকে নৌকাটি কেব্বি প্রদেশের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার পর নাইজার নদীতে ডুবে যায়। এখন পর্যন্ত চার জনের মরদেহ এবং প্রায় ২০ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া উদ্ধার তৎপরতা এখনও চলছে।

নৌকার যাত্রীদের বেশিরভাগই কেব্বি প্রদেশের বাসিন্দা। তারা ব্যবসায়ী বলে জানান মুখপাত্র নোয়েল-বার্জে। কর্তৃপক্ষ বলছে, অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণেই নৌকাটি ডুবে যায়।

/জেজে/

সম্পর্কিত

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা, বড় সাফল্য বলছে ফ্রান্স

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা করেছে ফ্রান্স

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

ভারতে নৌকাডুবির পর তল্লাশি অভিযানে সেনাবাহিনী

আসামে নৌকাডুবি: উদ্ধার তৎপরতায় সেনাবাহিনী

গিনিতে অভ্যুত্থান চেষ্টা: সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের দাবি

গিনিতে ক্ষমতা দখলের দাবি সেনাদের

উচ্চতা কমছে বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা জাতির

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৩৮

বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা জাতির দেশ নেদারল্যান্ডস। কিন্ত গত কয়েক দশকে ডাচদের উচ্চতা কমছে। গবেষকরা বলছেন, ১৯৮০ সালে জন্ম নেওয়া ডাচদের চেয়ে ২০০১ সালে জন্ম নেওয়া ডাচরা গড়ে ১ সেন্টিমিটার খাটো হচ্ছে। একই সময়ে মেয়েদের ক্ষেত্রে ১.৪ সেন্টিমিটার কম। এই গবেষণার জন্য নেদারল্যান্ডসের ১৯ থেকে ৬০ বছর বয়সী ৭ লাখ ১৯ হাজার ব্যক্তির তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়।

নেদারল্যান্ডসের পরিসংখ্যান দপ্তরের তথ্যমতে, নাগরিকদের গড় উচ্চতা গত শতাব্দীতে পর্যাক্রমে বাড়লেও ১৯৮০ সালের দিকে তা বন্ধ হয়ে যায়। মূলত ২০০০ হাজার সালের পর থেকে ডাচদের গড় উচ্চতা কমতে শুরু করে।

উচ্চতা কমার পেছনে অভিবাসন ও অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসকে দায়ী করা হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেও এমনটা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইম্পেরিয়াল কলেজের গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট হেলথের প্রধান অধ্যাপক মাজিদ বলেছেন, ডাচদের উচ্চতা সত্যিই কমছে কি না, তা নিশ্চিত হতে আরও কয়েক বছর লেগে যাবে। তিনি বলেন, সত্যই যদি ডাচরা খাটো হতে থাকে, তাহলে এর প্রধান কারণ পুষ্টি

তবে উচ্চতা কমার বিষয়টি সামনে আসলেও, এখনও বিশ্বের উঁচু জাতির তালিকায় ডাচদের নামই রয়েছে। 

 

/এলকে/

সম্পর্কিত

পশ্চিম ইউরোপে নজিরবিহীন বন্যা, মৃত্যু বেড়ে ১৭০

পশ্চিম ইউরোপে নজিরবিহীন বন্যা, মৃত্যু বেড়ে ১৭০

নেদারল্যান্ডসের প্রখ্যাত সাংবাদিককে গুলি, অবস্থা সংকটাপন্ন

নেদারল্যান্ডসের প্রখ্যাত সাংবাদিককে গুলি, অবস্থা সংকটাপন্ন

রানওয়ে ছেড়ে ভবনে ধাক্কা খেলো এফ-১৬ যুদ্ধবিমান

রানওয়ে ছেড়ে ভবনে ধাক্কা খেলো এফ-১৬ যুদ্ধবিমান

১৬ কোটি টাকা ভাতা নিতে অস্বীকৃতি ডাচ রাজকুমারীর

১৬ কোটি টাকা ভাতা নিতে অস্বীকৃতি ডাচ রাজকুমারীর

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১৫

তালেবান নেতা মৌলভী মোহাম্মদ শেবানি সরকারিভাবে কান্দাহারের নৈতিকতা পুলিশের দায়িত্বে রয়েছেন। এটিই তালেবানের সবচেয়ে শক্তিশালী ঘাঁটি ও জন্মস্থান। তিনিই হলেন প্রদেশটির পুণ্যের প্রচার ও পাপ দমন কার্যালয়ের প্রধান। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি সংস্থার বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেছেন।

তালেবান নারীবিষয়ক মন্ত্রণালয় বিলুপ্ত করে এই পাপ-পুণ্য মন্ত্রণালয় গড়ে তুলেছে। এই মন্ত্রণালয় তাদের আগের শাসনামলে কঠোর ধর্মীয় বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের দায়িত্বে ছিল। ফলে অনেকেই তালেবানের সেই সময়কার শাসন ফিরে আসার আশঙ্কা করছেন।

শেবানি জানান, তালেবান পুলিশবাহিনী, মসজিদ ও মাদ্রাসার সঙ্গে তাদের নেটওয়ার্ক রয়েছে। এছাড়া তাদের অভিযান পরিচালনার নির্দিষ্ট বিধি আছে, যা ইতোমধ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। তিনি বলেন, আগের সময়ের সঙ্গে এখনকার পার্থক্য হলো আগে আমাদের নীতিবিষয়ক কোনও নির্দিষ্ট বই ছিল না। তখন কোনও লিখিত নীতি ছাড়াই মুজাহিদিনরা কাজ করেছেন।

তিনি আশ্বাস দিয়েছেন, তার বাহিনীর সদস্যরা আইন মানতে মানুষকে উৎসাহিত করবে, সহিংসতা নয়।

শেবানি বলেন, অনেকে মনে করে আমরা চরমপন্থী। কিন্তু আমরা তা নই। ইসলাম হলো আধুনিকতার ধর্ম, কিন্তু খুব বেশি বা কম না, সঠিকমাত্রায়। মিডিয়াগুলো আমাদের সম্পর্কে নেতিবাচক খবর প্রকাশ করছে। তাদেরকে সত্য জানতে দিন।

তার কথায়, শুরুতে আমরা নীতির বিষয়ে মানুষকে অবগত করতে চাই। অনেক ছোট বিষয় রয়েছে যেগুলো নিয়ে আমরা কিছু বলছি না। কারণ আমরা চাই না মানুষ আতঙ্কে থাকুক।

/এএ/

সম্পর্কিত

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

মেয়েদের স্কুলে যেতে না দেওয়ায় পাল্টা বার্তা দিলো শিশুরা

মেয়েদের স্কুলে যেতে না দেওয়ায় পাল্টা বার্তা দিলো শিশুরা

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৩৩

আফগানিস্তান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে পাকিস্তানকে চড়া মূল্য দিতে হয়েছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম আরটি-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে সমর্থন দেওয়া ছিল পাকিস্তানের জন্য একটি বড় ধরনের ভুল সিদ্ধান্ত। এ জন্য আমাদের চড়া মূল্য দিতে হয়েছে।‌‌’

২০২১ সালের ১৫ আগস্ট প্রায় বিনা বাধায় কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বিমানভর্তি অর্থ নিয়ে দেশ ছেড়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে পালিয়ে যান তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী আশরাফ গণি। এর কিছু দিনের মাথায় দীর্ঘ ২০ বছর পর আফগানিস্তান থেকে নিজ দেশের সেনাদের ফিরিয়ে নেয় যুক্তরাষ্ট্র।

অভিযোগ রয়েছে, তালেবানের এমন উত্থানে সহায়তা দিয়েছে পাকিস্তান। সম্প্রতি মার্কিন সিনেটেও দেশটির ব্যাপারে এমন অভিযোগ উঠে। এ প্রসঙ্গে ইমরান খান বলেন, ‘আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের পরাজয়ের দায় পাকিস্তানের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এটি অত্যন্ত পীড়াদায়ক। একজন পাকিস্তানি হিসেবে মার্কিন সিনেটরদের বক্তব্য আমার ভালো লাগেনি। আমি গভীরভাবে মর্মাহত।’

ইমরান খান বলেন, আফগানিস্তান ইস্যুতে তার দেশ যুক্তরাষ্ট্রকে দুই দফায় সহায়তা করেছে। প্রথমে আশির দশকে, যখন তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন আফগানিস্তানে আগ্রাসন চালিয়েছিল। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধে সোভিয়েতবিরোধী লড়াইয়ের জন্য মুজাহিদিনদের প্রশিক্ষণ দেয় পাকিস্তান।

২০০১ সালে আফগানিস্তানে মার্কিন অভিযানের সময় পাকিস্তানের ক্ষমতায় ছিলেন জেনারেল পারভেজ মোশাররফ। সদ্য ক্ষমতা দখল করা ওই সেনা শাসকের জন্য মার্কিন সমর্থন অপরিহার্য ছিল। আফগানিস্তানে অভিযান সফল করতে যুক্তরাষ্ট্রেরও ইসলামাবাদকে প্রয়োজন ছিল।

ইমরান খান বলেন, ‘সবচেয়ে বড় মুশকিলটা বাধে এখানেই। যে মুজাহিদিনদের আইএসআই প্রশিক্ষণ দিয়েছিল, একটা সময়ে এসে তাদেরই ফের একই আইএসআই-এর তরফ থেকে বলা হলো, যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধের মানে হচ্ছে সন্ত্রাসবাদ। মুজাহিদিনরা তখন ইসলামাবাদ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়। তারা পাকিস্তানকেও যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগী হিসেবে বিবেচনা করতে আরম্ভ করে। এখানে আমেরিকাকে সহায়তা করতে গিয়ে পাকিস্তান নিজে বিপদে পড়েছে। এর জন্য ইসলামাবাদকে এখনও ভুগতে হচ্ছে।‌‌’

/এমপি/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

মেয়েদের স্কুলে যেতে না দেওয়ায় পাল্টা বার্তা দিলো শিশুরা

মেয়েদের স্কুলে যেতে না দেওয়ায় পাল্টা বার্তা দিলো শিশুরা

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের স্কুলে যেতে না দেওয়ায় পাল্টা বার্তা দিলো শিশুরা

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪২

আফগানিস্তানে অন্তর্বর্তী সরকারের পক্ষ থেকে শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর)  শুধু ছেলে ও পুরুষদের শ্রেণিকক্ষে ফেরার নির্দেশ দেওয়া হয়। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর)  ছেলেরা স্কুলে গেলেও ছেলে- মেয়ে নির্বিশেষে প্রতিবাদ জানিয়েছে মেয়েদের স্কুলে যেতে অনুমতি না দেওয়ায়। কেউ কেউ নানা বার্তা লিখে টুইটারে পোস্ট করেছে। যদিও এক তালেবান মুখপাত্র বলেছেন, শিগগিরই মেয়েদের স্কুল চালুর পরিকল্পনা রয়েছে। তবে আফগানরা তালেবানের ১৯৯০ দশকের কঠোর শাসন ফিরে আসার আশঙ্কা করছেন। ওই সময় মেয়েদের স্কুলে পড়া নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।

. শনিবার আবারও অন্ধকার যুগের শুরু হলো আফগানিস্তানে। স্কুল খুললো বটে, কিন্তু তা কেবল ছেলেদের জন্য।

এবিপি নিউজের সাংবাদিক লিখেছেন, এটাই তালেবানদের আসল রূপ। শিক্ষামন্ত্রী স্কুল খুলে ছেলেদের আসার আহ্বান জানালেও তার ওই বার্তায় মেয়েশিশুরা কবে ক্লাসে ফিরতে পারবে, তার কোনও ইঙ্গিত ছিল না।

. ডেইলি আউটলুক-আফগানিস্তানের প্রধান সম্পাদক মোহাম্মদ সাখি রেজায়ি টুইটারে লিখেছেন, ‘শিক্ষা মেয়েশিশুর মৌলিক মানবাধিকার। যদি নতুন তালেবান আন্তর্জাতিক চুক্তি ও সনদ মানে, তাহলে তারা অবশ্যই মেয়েশিশুদের স্কুলে ফিরিয়ে আনবে।’

শনিবার স্কুলে যেতে না পারা মেয়েশিশু প্ল্যাকার্ড হাতে প্রশ্ন ছুড়ে দেয়— ঠিক কী কারণে আমি স্কুলে যেতে পারবো না। এক ভাই তার বোনের স্কুলে না যেতে পারার কারণে নিজে স্কুল না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি আপলোড করে সে জানিয়ে দেয়, আমার বোনের স্কুলে যাওয়ার অনুমতি না মিললে আমি স্কুলে যাবো না।

. ইউনিসেফ প্রধান হেনরিয়েটা ফোর মনে করেন, মেয়েদের অবশ্যই বাদ দেওয়া উচিত না। কোনও বিলম্ব ছাড়া বয়স্কসহ সব মেয়ের শিক্ষাগ্রহণ পুনরায় শুরু করা গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য আফগানিস্তানে নারী শিক্ষকদের শিক্ষাদান আমাদের জারি রাখতে হবে।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে তালেবানকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার পর আফগানিস্তানের শিক্ষাক্ষেত্রে নারীরা অনেক এগিয়ে গিয়েছিল। তবে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা দখলের পর তালেবানরা বলেছিল যে, শরিয়া আইনের আওতায় নারীরা পড়াশোনা এবং কাজ করার অনুমতি পাবে। কিন্তু কর্মজীবী নারীদের নিরাপত্তার অবস্থার উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত ঘরে থাকতে বলা হয়। শনিবার স্কুলে যাওয়াও রোধ করা হলো।

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৩৭

তালেবান আফগানিস্তানে শুধু ছেলে ও পুরুষদের স্কুলে ফিরতে বলেছে এবং মেয়েদের বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ও মেয়েদের স্কুলে ফেরার প্রতি সমর্থন জানিয়ে অনেক ছেলে স্কুলে ফিরছে না। রবিবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

দশম শ্রেণির ১৮ বছর বয়সের রহুল্লাহ নামের এক ছাত্র বলে, নারীরা আমাদের সমাজের অর্ধেক জনগোষ্ঠী। মেয়েদের জন্য স্কুল খুলে দেওয়ার আগ পর্যন্ত আমি ক্লাসে যাবো না।

কাবুলের একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক নাজিফে জানান, পুনরায় স্কুল চালুর জন্য তারা কিছু পরিবর্তন এনেছেন। তিনি বলেন, মেয়েরা সকালে এবং ছেলে দুপুরে ক্লাস করবে। পুরুষ শিক্ষকরা ছেলেদের এবং মেয়েদের পড়াবেন নারী শিক্ষকরা।

শনিবার প্রাথমিক স্কুলের অনেক মেয়ে শিক্ষার্থী স্কুলে গেছে। তবে মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়ুয়া মেয়েরা এখনও জানে না তাদের জন্য স্কুল খোলা হবে কিনা।

মেয়েদের মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়ানো শিক্ষক হাদিস রিজায়ি বলেন, মেয়েদের মন ভেঙে গেছে এবং পড়াশোনা পুনরায় শুরুর জন্য তারা সরকারের ঘোষণার অপেক্ষায় আছে।

একটি স্কুলের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ রেজা বলেন, মেয়েদের শিক্ষা হলো একটি প্রজন্মকে সঠিক পথে নিয়ে আসা। ছেলেদের শিক্ষা হয়তো পরিবারকে সহযোগিতা করে, কিন্তু মেয়েদের শিক্ষা পুরো সমাজকে প্রভাবিত করে। আমরা বিষয়টি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি, যাতে মেয়েরা স্কুলে ফিরতে এবং নিজেদের পড়াশোনা সম্পূর্ণ করতে পারে।

জাতিসংঘ জানিয়েছে, আফগানিস্তানে মেয়েদের শিক্ষা নিয়ে তারা গভীর উদ্বিগ্ন। জাতিসংঘ শিশু তহবিল বা ইউনিসেফ বলেছে, সব বয়সী মেয়েদের জন্য আর দেরি না করে পুনরায় শিক্ষা শুরু করার সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ।

/এএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

মানুষকে আতঙ্কে রাখতে চাই না: তালেবানের নৈতিকতা পুলিশ প্রধান

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

যুক্তরাষ্ট্রের পাশে থাকতে গিয়ে চড়া মূল্য দিয়েছে পাকিস্তান: ইমরান খান

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা, বড় সাফল্য বলছে ফ্রান্স

গ্রেটার সাহারায় আইএস প্রধানকে হত্যা করেছে ফ্রান্স

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

জেনারেল সিসির আমন্ত্রণে মিসরে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

ভারতে নৌকাডুবির পর তল্লাশি অভিযানে সেনাবাহিনী

আসামে নৌকাডুবি: উদ্ধার তৎপরতায় সেনাবাহিনী

গিনিতে অভ্যুত্থান চেষ্টা: সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের দাবি

গিনিতে ক্ষমতা দখলের দাবি সেনাদের

গিনির রাজধানীতে প্রচণ্ড গোলাগুলি

গিনির রাজধানীতে প্রচণ্ড গোলাগুলি

হাজার হাজার বিদ্রোহীকে হত্যার দাবি ইথিওপিয়ার

হাজার হাজার বিদ্রোহীকে হত্যার দাবি ইথিওপিয়ার

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত, এযাবৎকালের সবচেয়ে বেশি পরিবর্তিত

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত, এযাবৎকালের সবচেয়ে বেশি পরিবর্তিত

মরক্কোর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করলো আলজেরিয়া

মরক্কোর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করলো আলজেরিয়া

নিজেকে জ্যান্ত কবর দিতে বললেন যাজক, তারপর?

নিজেকে জ্যান্ত কবর দিতে বললেন যাজক, তারপর?

আটলান্টিকে নৌকাডুবি, ৫২ জন নিখোঁজ

আটলান্টিকে নৌকাডুবি, ৫২ জন নিখোঁজ

সর্বশেষ

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

৫৯টি আইপি টিভি বন্ধ করলো বিটিআরসি

৫৯টি আইপি টিভি বন্ধ করলো বিটিআরসি

গেঞ্জিতে লেখার সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

গেঞ্জিতে লেখার সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

গ্রামীণফোনে স্নাতক পাসে চাকরি

গ্রামীণফোনে স্নাতক পাসে চাকরি

দুর্গোৎসবে বিপ্লব সাহার গানের চমক

দুর্গোৎসবে বিপ্লব সাহার গানের চমক

© 2021 Bangla Tribune