X
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বাজেট বাস্তবায়নে স্বচ্ছতার কৌশল খুঁজছে সরকার

আপডেট : ১০ জুন ২০২১, ০৯:০০

প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নে সরকার অর্থবছরের শুরুতেই মনোযোগ দেবে বলে জানা গেছে। জোরদার করবে মনিটরিংও। এ ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা বজায়ে কিছু কৌশল নেবে অর্থ মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যেই সেই কৌশল খুঁজে বের করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে।

প্রতিটি ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার ওপরও জোর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। সম্প্রতি সরকারি কেনাকাটাসহ নানা প্রকল্পে অনিয়মের খবরে বিব্রত সরকার। আগামীতে এ ধরনের পরিস্থিতি এড়াতে এবার কৌশলী হবেন নীতিনির্ধারকরা। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, অর্থবছরের শুরুতেই রাজস্ব আদায়ে মনোযোগী হবে অর্থ বিভাগ। লক্ষ্যমাত্রা পূরণে সচেষ্ট থাকবে অর্থ মন্ত্রণালয়। সেক্ষেত্রে রাজস্ব কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঘন ঘন বৈঠক, মতবিনিময়, রাজস্ব আদায়ের অগ্রগতি ও সমস্যা জানার চেষ্টা করবে সংশ্লিষ্টরা। মানুষকে হয়রানি না করে রাজস্ব আদায়ে  ইতোমধ্যেই মৌখিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।  

নতুন অর্থবছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে করের মাধ্যমে আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা এবং এনবিআর বহির্ভূত কর নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬ হাজার কোটি টাকা। কর ছাড়া রাজস্ব প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ৪৩ হাজার কোটি টাকা। বৈদেশিক অনুদান থেকে সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ৩ হাজার ৪৯০ কোটি টাকা।

অর্থনীতিবিদরা মনে করছেন, করোনা পরিস্থিতিতে রাজস্ব আদায়ই বড় চ্যালেঞ্জ। বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী অবশ্য এই চ্যালেঞ্জকে উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, সবাই এক হয়ে সরকারকে সহযোগিতা করলে এ বাজেট বাস্তবায়ন মোটেও অসম্ভব নয়।

ঘাটতি পূরণ বড় চ্যালেঞ্জ

নতুন বাজেটে ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার ঘাটতি পূরণ একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এক্ষেত্রে বৈদেশিক অনুদান পাওয়ার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ঘাটতি পূরণে বৈদেশিক অনুদান পাওয়ার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে তিন হাজার ৪৯০ কোটি টাকা। এই অর্থপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে সরকারের উচ্চমহলও কাজ করবে বলে জানা গেছে।

বৈদেশিক অনুদান পাওয়ার ক্ষেত্রগুলোর সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগের মাধ্যমে সরকার সম্পর্ক উন্নয়নেও মনোযোগী হবে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। ঘাটতি মেটানো সম্ভব না হলে বিনিয়োগ বাড়ানো যাবে না বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। নতুন বছরের ঘাটতি রেকর্ড পরিমাণ। যা জিডিপির ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

ব্যবসায়ীরাই ভরসা

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রস্তাবিত নতুন বাজেটে গুরুত্বপূর্ণ আরেক চ্যালেঞ্জ কর্মসংস্থান। এর সমাধান না হলে সমাজে বড় বিপর্যয় নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সরকার মনে করে, মানুষের কাজের সুযোগ তৈরি হলে অস্থিরতা থাকবে না। এ ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের ওপরই নির্ভর করছে সরকার। সরকারি-বেসরকারি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে পারলে কাজের পথ সুগম হবে, নিশ্চিত হবে নতুন কর্মসংস্থান। এ জন্য এ বছর ব্যবসায়ীদের বিশাল সুযোগ দেওয়া হয়েছে। কমানো হয়েছে করপোরেট ট্যাক্সও। অর্থমন্ত্রীও ইঙ্গিত দিয়েছেন কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়ার। সব দিক বিবেচনা করে ব্যবসায়ীদেরকে খুশি রাখার চেষ্টা চলবে বছরজুড়েই।

যেকোনও মূল্যে টিকা

২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের অপর চ্যালেঞ্জ করোনার টিকা। যেকোনও মূল্যে টিকা পেতে হবে বাংলাদেশকে। এর জন্য সরকারকে মরিয়া হওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের। সরকারও টিকা উৎপাদনকারী দেশ এবং সেদেশের সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে নিয়মিত। নতুন বছরে তা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি দেশেও টিকা উৎপাদনের দিকে নজর দেবে সরকার। সে ক্ষেত্রে উৎপাদনকারী কোম্পানিকে যত সুযোগ দেওয়া সম্ভব সবই দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

স্বাস্থ্যখাতের গবেষণাতেও নজর দেবে সরকার। চলতি বছরের বাজেটে গবেষণা খাতের বরাদ্দ ব্যবহৃত না হওয়াটাকে বিব্রতকর হিসেবে দেখছে সরকার। করোনা মোকাবিলায় আগামী বছরের জন্য বরাদ্দ করা ১০ হাজার কোটি টাকার সুষ্ঠু ব্যবহারেওনজর রাখবে অর্থ মন্ত্রণালয়, যাতে স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন না ওঠে।

উল্লেখ্য, বিশ্বময় করোনা পরিস্থিতিতে ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটের আকার ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। এটি মোট জিডিপির ১৭ দশমিক ৪৭ শতাংশ। ২০২০-২১ অর্থবছরের তুলনায় যা ৩৫ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা বেশি।

নতুন বাজেটে গুরুত্ব দেওয়া খাতগুলোর মধ্যে স্বাস্থ্য, খাদ্য নিরাপত্তা ও সামাজিক নিরাপত্তা অন্যতম। কোভিড-১৯ মোকাবিলায় টিকাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে ১০ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল রাখা হয়েছে। ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাজেটের তুলনায় যা প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি।

নতুন বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি খাতে বরাদ্দ রাখা হচ্ছে ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা। নিম্ন আয়ের মানুষ জীবিকা নিয়ে চরম ভোগান্তিতে আছে। এসব বিবেচনায় এবার সামাজিক নিরাপত্তা খাতের বরাদ্দ গুরুত্ব পেয়েছে।

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে অর্থনৈতিক সঙ্কট কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছে সরকার। সে ক্ষেত্রে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে থাকা বিভিন্ন কর্মসূচির আওতায় সুবিধাভোগী জনগোষ্ঠীর প্রতি নজর রাখা হবে। এসব কর্মসূচিতে কোনও অনিয়ম সহ্য করা হবে না বলেও জানিয়েছে সরকার। এ জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে লিখিত নির্দেশনাও পাঠানো হবে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, বাজেট বাস্তবায়নের শুরুতেই সকল নাগরিকের জন্য করোনার টিকা প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম জানিয়েছেন, বাজেটের ঘাটতি মেটাতে সতর্ক থাকতে হবে। এটা সম্ভব না হলে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান দুটোই বাধাগ্রস্ত হবে।

বাজেট বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন, এ বাজেট বাস্তবায়নযোগ্য। কর্মসংস্থানের বিষয়টিও নিশ্চিত করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরাই কাজটি করবেন। বাজেট ঘাটতি পূরণও সমস্যা নয়।

/এফএ/

সম্পর্কিত

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েই চলেছে এলপিজির

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েই চলেছে এলপিজির

উচ্চশিক্ষায় কর বসানোর প্রস্তাব পুনর্বিবেচনা দরকার

উচ্চশিক্ষায় কর বসানোর প্রস্তাব পুনর্বিবেচনা দরকার

কর ব্যবস্থা সংস্কারের তাগিদ

কর ব্যবস্থা সংস্কারের তাগিদ

গ্রামীণ ব্যাংকের ৬৭ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি, একাধিক মামলা

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৭

গ্রামীণ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ৬৭ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকির তথ্য পেয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদফতর। এজন্য ব্যাংকিং ও নন-ব্যাংকিং সেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া ভ্যাটযোগ্য সেবা প্রদান করার পরও প্রতিষ্ঠানটি এখনো ভ্যাট নিবন্ধন গ্রহণ করেনি। এ কারণে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেছে রাজস্ব বিভাগের ভ্যাট গোয়েন্দারা।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) নিরীক্ষা, গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের (মূল্য সংযোজন কর) মহাপরিচালক ড. মইনুল খান এ তথ্য জানিয়েছেন।

ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদফতরের উপ-পরিচালক নাজমুন নাহার কায়সারের নেতৃত্বে একটি দল প্রতিষ্ঠানটির ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে। তদন্তকালে গ্রামীণ ব্যাংকের এসব অনিয়ম বের হয়।

রাজধানীর মিরপুরে অবস্থিত গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সেবার কোড এস ০৫৬-এর আওতায় ব্যাংকিং ও নন-ব্যাংকিং সেবা প্রদান করে আসছে। কিন্তু ভ্যাট আইন অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি এখনও নিবন্ধন গ্রহণ করেনি।

তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানটি তদন্ত মেয়াদে দেওয়া বিভিন্ন সেবা থেকে পাওয়া আয়ের বিপরীতে ৩৪ হাজার ৯১০ টাকা ভ্যাট পরিশোধ করেছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির প্রদেয় ভ্যাটের পরিমাণ ছিল ৩০ কোটি ৩৬ লাখ ৮৩ হাজার ৬০০ টাকা। এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ৩০ কোটি ৩৬ লাখ ৪৮ হাজার ৬৯০ টাকা উদঘাটন করা হয়। ভ্যাটযোগ্য সেবা হতে পাওয়া আয়ের বিপরীতে এ অপরিশোধিত ভ্যাটের ওপর ভ্যাট আইন অনুসারে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ২ শতাংশ হারে ১৩ কোটি ৯৯ লাখ ৯৫ হাজার ৭০৬ টাকা সুদ প্রযোজ্য হবে।

এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি তদন্ত মেয়াদে বিভিন্ন খরচের বিপরীতে উৎসে ভ্যাট বাবদ আট কোটি ৫৪ লাখ ২০ হাজার ৮১৯ টাকা ভ্যাট পরিশোধ করেছে। কিন্তু তদন্ত মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটির উৎসে কর্তন বাবদ প্রদেয় ভ্যাটের পরিমাণ ছিল ২৩ কোটি ৯৩ লাখ ১০ হাজার ৭৪ টাকা। এতে অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ১৫ কোটি ৩৮ লাখ ৮৯ হাজার ২৫৬ টাকা উদঘাটন করা হয়। এ অপরিশোধিত ভ্যাটের ওপর ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত মাসিক ২ শতাংশ হারে সাত কোটি ২৩ লাখ ২৬ হাজার ৯৭৭ টাকা সুদ প্রযোজ্য হবে।

এ মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটির সর্বমোট অপরিশোধিত ভ্যাটের পরিমাণ ৪৫ কাটি ৭৫ লাখ ৩৭ হাজার ৯৪৬ টাকা এবং সুদ বাবদ ২১ কোটি ২৩ লাখ ২২ হাজার ৬৮৩ টাকাসহ সর্বমোট ৬৬ কোটি ৯৮ লাখ ৬০ হাজার ৬২৯ টাকা ভ্যাট পরিহারের তথ্য উদঘাটিত হয়। এ টাকা সরকারি কোষাগারে রাজস্ব হিসেবে আদায়যোগ্য।

/জিএম/এমএস/

সম্পর্কিত

গুলশানের ফু ওয়াং বার এর ভ্যাট ফাঁকি ৪১ কোটি টাকা

গুলশানের ফু ওয়াং বার এর ভ্যাট ফাঁকি ৪১ কোটি টাকা

ফেসবুক-গুগলের ভ্যাটের তথ্য জানতে চায় এনবিআর

ফেসবুক-গুগলের ভ্যাটের তথ্য জানতে চায় এনবিআর

অনলাইনে ভ্যাট দিতে চায় ফেসবুক

অনলাইনে ভ্যাট দিতে চায় ফেসবুক

সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে প্রথম স্তরের সীমা বাড়তে পারে

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৯

সরকারের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জাতীয় সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগে আগের মতোই শতকরা হিসেবে ১১ দশমিক ৫২ হারে মুনাফা পাওয়া যাবে।

১৫ লাখ টাকার বেশি হলেই মুনাফার হার কমে যাবে। সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার কমানোর সিদ্ধান্তে বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় বইছে।

বিশেষ করে অবসরভোগী মধ্যবিত্তের আয়  কমে যাওয়া নিয়ে সরকারের সাবেক আমলারাও এ নিয়ে সমালোচনা করছেন।

এমন বাস্তবতায় বিনিয়োগের এই স্লাব বা স্তর ১৫ লাখ টাকা থেকে বেড়ে ২০ লাখ টাকা হতে পারে। পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশো’তে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, ‘সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের প্রথম স্তরের সীমা বাড়তে পারে। এটি রিভিউ হলে অযৌক্তিক হবে না। এই স্লাব বা স্তর ১৫ লাখ টাকা থেকে বেড়ে ২০ লাখ হলে যৌক্তিক হবে।’

অর্থাৎ, যদি মুনাফার হার ও স্তর রিভিউ হয়, তাহলে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগে আগের মতোই ১১ দশমিক ৫২%঳ হারে  মুনাফা পাওয়া যাবে।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান মনে করেন, প্রথম স্তর অন্তত ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো উচিত। তিনি বলেন, ‘পেনশন-ভোগী মধ্যবিত্ত ও বয়স্কা নারীদের সঞ্চয়পত্রের আয় দিয়েই চলতে হয়। এদের কথা মাথায় রেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। বিশেষ করে এই করোনাকালে এমন কী ধনী উদ্যোক্তাদের নানা রকমের প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। এ সময় এই ঝুঁকিপূর্ণ গোষ্ঠীর কথা বিশেষভাবে ভাবতে হবে। তাদের সঞ্চয়ের বিকল্প নির্ভরযোগ্য কোনও কর্মসূচি নেই বলেই এ কথা বলছি।’ তিনি উল্লেখ করেন, একেবারে প্রান্তিক গোষ্ঠীর জন্য ন্যূনতম সীমারেখা ১৫ লাখ টাকা যথেষ্ট নয়। এর পরিমাণ আরও বাড়ানো দরকার। পারলে দ্বিগুণ করা গেলে আরও  ভালো হয়।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) ভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের প্রজ্ঞাপনে সঞ্চয় কর্মসূচির স্তর করা হয়েছে তিনটি। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রথম স্তর ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এক রকম হার, আর  দ্বিতীয় স্তর ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আলাদা  হার এবং তৃতীয় স্তর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আরেক রকম হার করা হয়েছে।

অর্থাৎ, কেউ ৪০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র ক্রয় করলে তিনি নতুন নিয়মে প্রথম ১৫ লাখে  ১১.৭৬% হারে মুনাফা পাবেন, পরবর্তী ১৫ লাখে ১০.৭৫%  হারে মুনাফা পাবেন এবং এর পরবর্তী ১০ লাখে ৯.৭৫% হারে মুনাফা পাবেন।

সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে মুনাফার হার কমানোর ফলে বড় সঞ্চয়কারীদের অর্থাৎ মধ্যবিত্তের আয় কমে যাবে। প্রান্তিক বা ছোট সঞ্চয়কারীদের আয় অপরিবর্তিত থাকবে। কমবে প্রাতিষ্ঠানিক সঞ্চয়কারীদের আয়ও। এতে সার্বিকভাবে সুদ বাবদ সরকারের ব্যয় সাশ্রয় হবে।

এদিকে ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন,  মুদ্রা বাজারে যে অস্থিরতা ছিল সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর ফলে তাতে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরবে।

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

২০০ কোটি টাকা ঋণ পাবেন ক্ষুদ্র ও নারী উদ্যোক্তারা

২০০ কোটি টাকা ঋণ পাবেন ক্ষুদ্র ও নারী উদ্যোক্তারা

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

প্রতারণা ঠেকাতে ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা জারি

প্রতারণা ঠেকাতে ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা জারি

‘ব্যাংক পরিক্রমা’ বিশেষ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন

‘ব্যাংক পরিক্রমা’ বিশেষ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন

১৯ ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি এসএমই ফাউন্ডেশনের

২০০ কোটি টাকা ঋণ পাবেন ক্ষুদ্র ও নারী উদ্যোক্তারা

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৭

ক্ষুদ্র ও নারী-উদ্যোক্তাদের প্রণোদনার ঋণ বিতরণ সহজ করতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রতি আহবান জানিয়েছেন এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. মফিজুর রহমান। বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রামে নারী-উদ্যোক্তা-ব্যাংকার ম্যাচমেকিং সভায় এ আহবান জানান তিনি।

ড. মফিজুর রহমান আরও বলেন, গত অর্থবছরে এসএমই ফাউন্ডেশনের বিতরণকৃত ১০০ কোটি টাকার ৬৬.৭৫ শতাংশ পুরুষ উদ্যোক্তা এবং ৩৩.২৫ শতাংশ ঋণ নারী-উদ্যোক্তাদের মাঝে বিতরণ করা হয়। চলতি অর্থবছর ২০০ কোটি টাকা বিতরণে আরও বেশি নারী-উদ্যোক্তার অংশগ্রহণ চায় এসএমই ফাউন্ডেশন। এজন্য সারাদেশে নারী-উদ্যোক্তাদের ঋণের জন্য কাগজপত্র তৈরি, নিয়মকানুন সম্পর্কে জানানো, ব্যাংকারদের সঙ্গে ম্যাচমেকিংসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে।

৩১ ডিসেম্বরের মধ্যেই ২০০ কোটি টাকা বিতরণ শেষ করে সরকারের কাছে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত এসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য আরও অর্থ দাবি করার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’র প্রেসিডেন্ট ইন-চার্জ আবিদা মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন এসএমই ফাউন্ডেশনের মহাব্যবস্থাপক ফারজানা খান, বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক আরিফ হোসেন খান।

ড. মফিজুর রহমান আরও বলেন, গত অর্থবছরে মোট ঋণপ্রাপ্ত উদ্যোক্তার ৮৩.২৪ শতাংশ উদ্যোক্তাই ছিলেন ঢাকার বাইরের। চলতি অর্থবছরেও প্রণোদনার অর্থ পল্লী ও প্রান্তিক পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের কাছে পৌঁছাতে এরই মধ্যে ১৯টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সই করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন।

কোভিড পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতির পুনরুদ্ধার কার্যক্রম ত্বরান্বিত করা এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে সরকারের দ্বিতীয় দফার প্রণোদনার আওতায় মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি (সিএমএসএমই) উদ্যোক্তাদের মাঝে ২০২০-২১ অর্থবছরে ১০০ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করে এসএমই ফাউন্ডেশন। চলতি অর্থবছর আরও ২০০ কোটি টাকা এসএমই ফাউন্ডেশনের অনুকূলে বরাদ্দ দেয় অর্থ বিভাগ।

 

মহামারির কারণে গ্রামীণ ও প্রান্তিক পর্যায়ের ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে যে ক্যাটাগরির উদ্যোক্তাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে—

  • যারা সরকারের প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ঋণপ্রাপ্ত হননি।
  • অগ্রাধিকারভুক্ত এসএমই সাব-সেক্টর এবং ক্লাস্টারের উদ্যোক্তা।
  • নারী-উদ্যোক্তা।
  • নতুন উদ্যোক্তা, যারা এখনও ব্যাংক ঋণ পাননি।
  • পশ্চাৎপদ ও উপজাতীয় অঞ্চল, শারীরিকভাবে অক্ষম এবং তৃতীয় লিঙ্গের উদ্যোক্তা।

প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় উদ্যোক্তারা এক লাখ-৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবেন। ঋণের সুদের হার হবে ৪ শতাংশ। ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত জামানতবিহীন ঋণ দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ ২৪টি সমান মাসিক কিস্তিতে ঋণ পরিশোধ করা যাবে। ব্যাংকের চাহিদাকৃত ডকুমেন্টসহ ‘সম্পূর্ণ/পরিপূর্ণ ঋণ আবেদনপত্র’ ব্যাংকে দাখিলের দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঋণ মঞ্জুর করে গ্রাহকের অনুকূলে বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ নেবে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক। সাধারণভাবে একক ও যৌথ মালিকানাধীন উদ্যোগের অনুকূলে ঋণ দেওয়া হবে। তবে প্রান্তিক ক্ষুদ্র, বিশেষ করে নারী-উদ্যোক্তাদের ঋণের আওতায় আনতে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্ক ও ঐকমত্যের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ পাঁচজন উদ্যোক্তার অনুকূলে গ্রুপভিত্তিক ঋণ বিতরণ করা যাবে।

গত অর্থবছরের অভিজ্ঞতার আলোকে এসএমই ফাউন্ডেশন অংশিদার ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা করে উদ্যোক্তাদের জন্য সুবিধাজনক এক/একাধিক শাখায় ফোকাল কর্মকর্তা নির্ধারণ করবে। উদ্যোক্তারা ফোকাল কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। ফোকাল কর্মকর্তা এসএমই ফাউন্ডেশন, ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় ও শাখা এবং উদ্যোক্তাদের সঙ্গে সমন্বয় করবেন।

 

২০২১-২২ অর্থবছরে ২০০ কোটি টাকা ঋণ বিতরণের লক্ষ্যে যে ১৯টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে—

  • রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক
  • বেসিক ব্যাংক লিমিটেড
  • বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
  • ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড
  • ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড
  • ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড
  • ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড
  • মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড
  • এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
  • ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড
  • প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড
  • প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড
  • দ্য সিটি ব্যাংক লিমিটেড
  • সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড
  • ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
  • আইডিএলসি ফাইন্যান্স  লিমিটেড
  • আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেড
  • লংকাবাংলা ফাইন্যান্স লিমিটেড
/জিএম/এফএ/

সম্পর্কিত

সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে প্রথম স্তরের সীমা বাড়তে পারে

সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে প্রথম স্তরের সীমা বাড়তে পারে

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

প্রতারণা ঠেকাতে ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা জারি

প্রতারণা ঠেকাতে ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা জারি

‘ব্যাংক পরিক্রমা’ বিশেষ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন

‘ব্যাংক পরিক্রমা’ বিশেষ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন

ইপিবির সোর্সিং মেলা ১৮-২৪ অক্টোবর 

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:২২

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সপ্তাহব্যাপী ভার্চুয়াল সোর্সিং মেলার আয়োজন করেছে। আগামী ১৮ থেকে ২৪ অক্টোবর এই মেলা অনুষ্ঠিত হবে। করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বন্ধ আছে বাণিজ্যমেলার আয়োজন। তবে বাজার অনুসন্ধান কার্যক্রম চলমান রাখার স্বার্থে ইপিবি ভার্চুয়ালি এই মেলার আয়োজন করছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় ইপিবি।

ইপিবি জানিয়েছে- প্রস্তাবিত সোর্সিং মেলার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে সম্ভাব্য বিদেশি ক্রেতাদের সঙ্গে বাংলাদেশের বিক্রেতা বা এক্সিবিটরদের যোগসূত্র তৈরি করে দেওয়া। এই মেলায় ১৩টি খাতের পণ্য প্রক্ষেপণ করা হবে। 

বিজ্ঞপ্তিতে ইপিবি জানিয়েছে- মেলার ওয়েবপোর্টালে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের ভার্চুয়াল বুথ থাকবে। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের উৎপাদিত পণ্যের থ্রিডি ছবি প্রদর্শনের পাশাপাশি ডিজিটাল কন্টেন্ট প্রদর্শন করতে পারবে। ওয়েবপোর্টালের মাধ্যমে সম্ভাব্য ক্রেতা লাইভ ভিডিও ও অডিও চ্যাটের মাধ্যমে মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের (এক্সিবিটর) সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে এবং সভা করতে পারবেন।

মেলায় অংশগ্রহণকারী এক্সিবিটরদের জন্য ফি নির্ধারণ করা হয়েছে পঁচাশি হাজার টাকা। তবে ক্রেতা ও ভিজিটররা বিনামূল্যে অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে মেলায় ভিজিট করতে পারবেন।

প্রদর্শনী ওয়েব সাইটে ক্রেতা-বিক্রেতার ডাটাবেজ সংরক্ষিত থাকবে। এর মাধ্যমে বিদেশি ক্রেতা এবং স্থানীয় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান অধিকতর যোগাযোগের মাধ্যমে যথাক্রমে তাদের বিশ্বস্ত যোগান উৎস এবং সম্ভাব্য ক্রেতা অনুসন্ধানের মাধ্যমে নতুন বাজার সৃষ্টি করতে সক্ষম হবে।

/এসআই/এমআর/

সম্পর্কিত

গ্রামীণ ব্যাংকের ৬৭ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি, একাধিক মামলা

গ্রামীণ ব্যাংকের ৬৭ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি, একাধিক মামলা

সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে প্রথম স্তরের সীমা বাড়তে পারে

সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে প্রথম স্তরের সীমা বাড়তে পারে

২০০ কোটি টাকা ঋণ পাবেন ক্ষুদ্র ও নারী উদ্যোক্তারা

২০০ কোটি টাকা ঋণ পাবেন ক্ষুদ্র ও নারী উদ্যোক্তারা

ইউনিয়ন ব্যাংকের তিন কর্মকর্তা প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি গঠন

ইউনিয়ন ব্যাংকের তিন কর্মকর্তা প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি গঠন

ইউনিয়ন ব্যাংকের তিন কর্মকর্তা প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি গঠন

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৫২

ভল্টের ১৯ কোটি টাকা উধাওয়ের ঘটনায়  ইউনিয়ন ব্যাংকের গুলশান শাখার তিন কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া এই ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এই কমিটি বাংলাদেশ ব্যাংককে রিপোর্ট দেবে বলে জানিয়েছেন ব্যাংকটির ডিএমডি হাসান ইকবাল।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) গুলশানে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।

হাসান ইকবাল বলেন, ‘সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শক দলের উপস্থিতিতে ১৯ কোটি টাকা সমন্বয় করা হয়। মূলত ব্যাংকিং সময়ের পর একজন  ভিভিআইপি গ্রাহককে ওই টাকা দেওয়া হয়েছিল। এটা ব্যাংকিং নিয়মবহির্ভূত হলেও এমন ঘটনা নতুন নয়।’ গ্রাহক-ব্যাংক সম্পর্কের ভিত্তিতে বিভিন্ন ব্যাংকে এমন লেনদেন হয়ে থাকে বলে দাবি করেন তিনি।

 

/জিএম/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

পদত্যাগ করলেন সাউথ বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান

পদত্যাগ করলেন সাউথ বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান

তিন জেলায় প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন

তিন জেলায় প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন

বাজার থেকে টাকা তুলে নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক

বাজার থেকে টাকা তুলে নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক

আগামীকাল ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

আগামীকাল ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ

সম্পর্কিত

কমেছে বাজেট, গুরুত্ব গবেষণায়

কমেছে বাজেট, গুরুত্ব গবেষণায়

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েই চলেছে এলপিজির

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েই চলেছে এলপিজির

যাত্রা হলো শুরু

যাত্রা হলো শুরু

বুধবার পাস হচ্ছে নতুন অর্থবছরের বাজেট

বুধবার পাস হচ্ছে নতুন অর্থবছরের বাজেট

বিরতির পর সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু

বিরতির পর সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু

বাজেট আলোচনায় স্বাস্থ্যের সমালোচনা

বাজেট আলোচনায় স্বাস্থ্যের সমালোচনা

সর্বশেষ

অধিনায়কত্ব নিয়ে কী ভাবছেন বাংলাদেশের নতুন কোচ?

অধিনায়কত্ব নিয়ে কী ভাবছেন বাংলাদেশের নতুন কোচ?

তালেবান শাসনে বন্ধ আফগানিস্তানের ১৫০টি পত্রিকা

তালেবান শাসনে বন্ধ আফগানিস্তানের ১৫০টি পত্রিকা

সৌদি থেকে ফিরে খেজুর বাগান, বছরে বিক্রি কোটি টাকা 

সৌদি থেকে ফিরে খেজুর বাগান, বছরে বিক্রি কোটি টাকা 

উচ্ছেদ অভিযান ঘিরে রণক্ষেত্র আসাম, পুলিশের গুলিতে নিহত ২

উচ্ছেদ অভিযান ঘিরে রণক্ষেত্র আসাম, পুলিশের গুলিতে নিহত ২

ফকিরাপুলে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার ৪

ফকিরাপুলে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার ৪

বিয়ে বার্ষিকীতে স্ত্রীকে চাঁদের জমি উপহার

বিয়ে বার্ষিকীতে স্ত্রীকে চাঁদের জমি উপহার

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সং ‘লিভ দ্য গেম’ (ভিডিও)

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সং ‘লিভ দ্য গেম’ (ভিডিও)

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েই চলেছে এলপিজির

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েই চলেছে এলপিজির

উচ্চশিক্ষায় কর বসানোর প্রস্তাব পুনর্বিবেচনা দরকার

উচ্চশিক্ষায় কর বসানোর প্রস্তাব পুনর্বিবেচনা দরকার

কর ব্যবস্থা সংস্কারের তাগিদ

কর ব্যবস্থা সংস্কারের তাগিদ

© 2021 Bangla Tribune