X
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

পরীক্ষার ঘোষণায় ক্যাম্পাসে এসে ভোগান্তিতে হাজী দানেশের শিক্ষার্থীরা

আপডেট : ২৫ জুন ২০২১, ২১:১২

করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় দিনাজপুর সদর উপজেলায় ঘোষিত লকডাউনের মধ্যেই সশরীরে পরীক্ষা নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)। সেসময় শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে বিশেষ ব্যবস্থায় বাস চালু রাখার কথাও জানিয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদার। তবে সেই সিদ্ধান্তে টিকে থাকতে পারেনি প্রশাসন, গত ২১ জুন পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত পূর্ব ঘোষিত সকল পরীক্ষা স্থগিত করে দেওয়া হয়। আর এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসা ছয় হাজার শিক্ষার্থী। পরীক্ষা স্থগিত হলেও লকডাউনের কারণে বাড়িতেও ফিরতে পারছেন না তারা।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় অনেকেই মেস-বাসা ছেড়ে দিয়ে বাসায় চলে গিয়েছিলেন। পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ হওয়ার পর শিক্ষার্থীরা মাস চুক্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশে ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে দিনাজপুর শহরের বিভিন্ন মেসে উঠে যায়। আবাসিক হল খোলার সিদ্ধান্ত না হওয়ায় হলের শিক্ষার্থীদেরও মেসে উঠতে হয়। কিন্তু পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্তে এই খরচটা অযথাই হলো বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেক শিক্ষার্থী।

লকডাউনের কারণে দিনাজপুর শহর থেকে বিভিন্ন জেলায় সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। এ ছাড়াও সারাদেশের বিভিন্ন জেলা লকডাউনের আওতায় থাকায় বাড়ি ফেরা নিয়েও শঙ্কা তৈরি হয়েছে শিক্ষার্থীদের।

পরীক্ষা দিতে আসা ১৭ ব্যাচের ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী আবদুর রহমান বলেন, পরীক্ষা রুটিন দেখে নোয়াখালী থেকে এসেছিলাম। পরীক্ষার প্রস্তুতিও নিচ্ছিলাম। হঠাৎ পরীক্ষার দুইদিন আগে শুনলাম পরীক্ষা স্থগিত। এখন দিনাজপুর শহর লকডাউন ঘোষিত হওয়ায় বাড়ি ফেরার জন্য বাস-ট্রেন সব বন্ধ। বাড়িতে বাবা-মা চিন্তা করছে, আবার মেসে থেকে শুধু খরচা বাড়ছে। এজন্য প্রশাসনের কাছে আমার আকুল আবেদন থাকবে অন্তত ঢাকা পর্যন্ত যেন আমাদের যাওয়ার কোনও ব্যবস্থা করে দেয়'।

১৮তম ব্যাচের কৃষি অনুষদের শিক্ষার্থী জারীন শ্যাইমা শ্যামা জানান, 'পরীক্ষা হবে নিশ্চিত হয়েই আমরা ক্যাম্পাসে এসেছি। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ঘোষণা দিয়েছিলো লকডাউনেও পরীক্ষা হবে। কিন্তু এখন পরিস্থিতি পুরো উল্টো পরিস্থিতি। আমরা না পারছি বাড়ি ফিরতে না পারছি এখানে থাকতে। এই ভোগান্তির দায় কে নেবে'।

শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আসলে পরিস্থিতি বিবেচনায় আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখন শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করবো তারা যেন দ্রুত বাড়ি ফিরে যায়। আর শিক্ষার্থীরা যেন সেশনজটে না পড়ে সেজন্য আমরা অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তাভাবনা করছি।

অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার জন্য ইতিমধ্যে একটি কমিটি করে দেওয়া হয়েছে জানিয়ে উপাচার্য বলেন, কৃষি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. রওশন আরাকে আহ্বায়ক এবং ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসাইন সরকারকে সদস্য সচিব করে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও অন্যান্য অনুষদের ডিনরা এই কমিটির সদস্য হিসেবে রয়েছেন। তারা অনলাইনে পরীক্ষা কিভাবে নেওয়া যায় এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে রিপোর্ট জমা দিবে। তার আলোকেই আমরা অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিবো।

তবে লকডাউনে ক্যাম্পাসে আটকে থাকা শিক্ষার্থীদের বাসায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন সেবা ব্যবহার করা হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে রুটিন উপাচার্য বলেন, 'এটা সম্ভব নয়। লকডাউন চললেও স্বল্প মাত্রায় কিছু যানবাহন চলছে। শিক্ষার্থীরা চাইলে ভেঙে ভেঙে এসব যানবাহনে করে বাড়ি ফিরতে পারে'।

/ইউএস/

সম্পর্কিত

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্তদের ক্রেডিট ফি নেবে না হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়

বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্তদের ক্রেডিট ফি নেবে না হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় শিক্ষার্থীদের অনুদান দেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় শিক্ষার্থীদের অনুদান দেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

টেক্সিবিশন ইনোভেশন চ্যালেঞ্জে দ্বিতীয় রানার আপ হাবিপ্রবি’র টিম

টেক্সিবিশন ইনোভেশন চ্যালেঞ্জে দ্বিতীয় রানার আপ হাবিপ্রবি’র টিম

১৫ মাসের কাজ ৬৫ মাসেও হয়নি শেষ 

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:০০

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সম্প্রসারণকাজ ১৫ মাসে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ৬৫ মাসেও হয়নি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নীরব ভূমিকা ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাজে অবহেলার কারণে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল দফতর সূত্রে জানা যায়, ১৩ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৬ সালের ৩১ মে হলের সম্প্রসারণকাজ শুরু হয়। কাজ পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্টার লাইট সার্ভিস লিমিটেড। ১৫ মাসের মধ্যে কাজ শেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়কে বুঝিয়ে দেওয়ার কথা ছিল। এরপর কয়েক দফায় কাজ শেষের মেয়াদ বাড়ানো হয়। কিন্তু ৬৫ মাস চলে গেলেও শেষ হয়নি কাজ।

সম্প্রসারিত ভবনের নির্মাণকাজ ঘুরে দেখা যায়, ভবনের ভেতর ও বাইরে পলেস্তারার কাজ শেষ করে টাইলসের কাজ শুরু হয়েছে। তবে গোসলখানা, টয়লেট, পানির লাইন, বৈদ্যুতিক সংযোগ, দরজা-জানালা লাগানোসহ প্রায় অধিকাংশ কাজ এখনও বাকি। 

প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি জানায়, বারবার তাগাদা দেওয়ার পরও ঠিকাদার দায়সারাভাবে ৫-৬ জন শ্রমিক দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে কাজ শেষ হতে দেরি হচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের গাফিলতির কারণে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার, পাহাড় কাটা, বিভিন্ন দফায় মেয়াদ বাড়ানোসহ নানা অভিযোগের পর ৬৫ মাসেও কাজ শেষ করতে পারেনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ফলে মাসের পর মাস ভাড়া বাসা কিংবা মেসে থাকতে হচ্ছে তাদের।

১৩ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৬ সালের ৩১ মে হলের সম্প্রসারণকাজ শুরু হয়

হল সম্প্রসারণকাজ নিয়ে স্টার লাইট সার্ভিস লিমিটেডের ঠিকাদার আমির হোসেন মিলন বলেন, ‘আমাদের এই প্রকল্পের মাত্র ১০ শতাংশ কাজ বাকি। ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের বর্ধিত মেয়াদ থাকলেও নভেম্বরের মধ্যেই কাজ হস্তান্তরের চেষ্টা করবো। তবে প্রশাসন চাইলে সামনের মাস থেকেও দুটি ফ্লোর ব্যবহার করতে পারবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী এসএম শহিদুল হাসান বলেন, ‘এবার বঙ্গবন্ধু হলের বর্ধিতাংশের কাজ খুব দ্রুত হবে। আশা করি, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দুই মাসের মধ্যে হলটি হস্তান্তর করতে পারবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের বলেন, ‘আমরা এ ব্যপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং ইউজিসির সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলেছে, প্রয়োজনে নতুন ঠিকাদার দিয়ে কাজ দ্রুত শেষ করার জন্য। বঙ্গবন্ধু হলের প্রকল্পের বর্ধিত মেয়াদ যেহেতু ডিসেম্বর পর্যন্ত আছে, সেহেতু কাজ সেভাবে চলছে। আশা করছি, নির্দিষ্ট মেয়াদেই তা শেষ হবে।’

/এএম/

সম্পর্কিত

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

ঢাবি সাংবাদিক সমিতির ৩৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

ঢাবি সাংবাদিক সমিতির ৩৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ‘হতাশার দেয়াল’ আর থাকছে না 

হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ‘হতাশার দেয়াল’ আর থাকছে না 

চবিতে দুই শিক্ষার্থীকে হেনস্তার অভিযোগ

চবিতে দুই শিক্ষার্থীকে হেনস্তার অভিযোগ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৫২

‘সরাসরি উপাচার্যের কাছে যাওয়া’, ‘আন্দোলন’ ও ফেসবুকে লেখালেখি করাসহ নানা অভিযোগে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ। নোটিশপ্রাপ্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ সেশন এবং ওই বিভাগটির চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থী।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিভাগপ্রধান সহযোগী অধ্যাপক মুহাম্মদ সোহরাব উদ্দীন স্বাক্ষরিত নোটিশটি দিয়ে আগামী সাত দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলেছেন। বিভাগীয় একাডেমিক কমিটির সভায় এই নোটিশের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে এতে উল্লেখ করা হয়।

নোটিশে বলা হয়, আপনারা গত ১ সেপ্টেম্বর ও এর পরবর্তী সময়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এবং শিক্ষকদের নিয়ে নানা ধরনের কটূক্তি ও বিব্রতকর মন্তব্য করেছেন। এমনকি শিক্ষকদের সঙ্গে আপনাদের একাডেমিক যোগাযোগের ভাষা উন্মুক্তভাবে উপস্থাপন এবং স্ক্রিনশট শেয়ার করে বিরূপ মন্তব্য করেছেন। এটি শিক্ষার্থীরা করতে পারে কি-না এ বিষয়ে জবাব চাওয়া হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, বিভাগের শিক্ষকরা অবশ্যই শিক্ষার চলমান অচলাবস্থা নিয়ে উদ্বিগ্ন। একইসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিভাগ একাডেমিক বিষয়ে তৎপর। তবে ছাত্রদের এসব আচরণে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ মর্মাহত। তাছাড়া বিভাগের একাডেমিক বিষয়ে ছাত্র-উপদেষ্টা ও বিভাগীয় প্রধানের সঙ্গে আলোচনা ছাড়া বিভাগের বিরুদ্ধে আন্দোলনে অংশগ্রহণ ও সরাসরি উপাচার্যের কাছে গেছেন- যার মাধ্যমে আপনারা বিভাগীয় শৃঙ্খলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চতুর্থ ব্যাচের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে যেহেতু পরীক্ষা নেওয়ার ক্ষমতা বিভাগের হাতে নেই, তাই পরীক্ষার দাবিতে সরাসরি উপাচার্য স্যারের কাছে গিয়েছিলাম। এ নিয়ে ফেসবুকে আমরা লেখালেখি করি। কিন্তু পরবর্তী সময়ে বিভাগের কারণ দর্শানোর এমন নোটিশে আমরা শঙ্কিত ও হতবাক।’

প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রধান মুহাম্মদ সোহরাব উদ্দীন বলেন, ‘ছাত্রদের দাবি দাওয়া ছাত্ররা করবেই। এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু কোনও শিক্ষককে বিব্রত করা যায় না। আর কোনও বিষয়ে বিভাগে আলোচনা না করে সরাসরি উপাচার্যের কাছে গেলে বিভাগে শৃঙ্খলা থাকে না। এসব কারণেই তাদেরকে নোটিশটি দেওয়া হয়েছে। ওই ব্যাচের ক্লাস প্রতিনিধিকে আমি জানিয়েছি। তাদেরকে ওইভাবে জবাব দিতে হবে না। যেহেতু তাদের পরীক্ষা চলছে, পরীক্ষা শেষে আমরা তাদের সঙ্গে বসবো এবং উদ্ভূত বিষয়গুলো আলোচনা করে  সমাধান করবো।’

উল্লেখ্য, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ দীর্ঘদিন ধরেই সেশনজটে বিপর্যস্ত। কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়া চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলেও প্রায় পাঁচ বছরে মাত্র চার সেমিস্টার শেষ করতে পেরেছে। আজ থেকে ব্যাচটির পঞ্চম সেমিস্টারের পরীক্ষা শুরু হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে দেশসেরা খুবির ফার্মিনেফ

তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে দেশসেরা খুবির ফার্মিনেফ

ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ

ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ

টিকা নিশ্চিত হলেই খুলবে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

টিকা নিশ্চিত হলেই খুলবে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় শিক্ষার্থীদের অনুদান দেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় শিক্ষার্থীদের অনুদান দেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাবি সাংবাদিক সমিতির ৩৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:১৯

প্রতিষ্ঠার ৩৬তম বর্ষ পূর্ণ করে ৩৭তম বর্ষে পা রেখেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) সাংবাদিক সমিতি। আজ রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে সমিতির কার্যালয়ে ৩৬ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কেটে ও র‌্যালির মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

তিনি বলেন, কেউ যখন কোনও বিষয়ে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করে, তখন তার মস্তিষ্ক নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়েই সবকিছু বিচার করে। তাই আমাদের উচিৎ এটি (নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি) পরিহার করা। আমাদের সবসময় ইতবাচক, পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গি লালন করে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া উচিৎ।

ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমেও যে কোনও বিষয়কে সুন্দর করে তোলা যায় উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, আমাদের সকলের লক্ষ্য এক অভিন্ন। আমাদের লক্ষ্য হলো সুন্দর ও কল্যাণের উন্নয়ন ঘটানো। যদি তাই হয় তাহলে আমাদের ইতিবাচকতার প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে। 
 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সদস্যরা শিক্ষার্থী এবং সাংবাদিক হিসেবে ‘দ্বৈত ভূমিকা’ পালন করে বলে মনে করেন ড. মো. আখতারুজ্জামান। তিনি বলেন, এই দুটি ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করতে গিয়ে তারা সবসময় বস্তুনিষ্ঠাতার প্রতি গুরুত্ব দেয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হওয়ায় তাদের মাঝে পেশাদারিত্বের মনোভাব শক্তিশালী অবস্থানে থাকে। সমিতির সকল সদস্যকে পেশাদারিত্ব মনোভাব ও ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল উন্নয়ন এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে সত্য তুলে ধরার আহ্বান জানাচ্ছি।

সভাপতির বক্তব্যে মেহেদী হাসান বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রেখে কাজ করে যাচ্ছে। সামনের দিনগুলোতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের জবাবদিহিতা নিশ্চিত, শিক্ষার্থীদের অধিকার নিশ্চিতসহ সুন্দর মানবিক ক্যাম্পাস বিনির্মাণের জন্য আমাদের কাজ অব্যাহত থাকবে।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য ও বাসসের সিনিয়র রিপোর্টার খায়রুজ্জামান কামাল, সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুল কবিরসহ সমিতির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, 'তথ্যে তারুণ্যে নিত্য সত্যে’ এ স্লোগান ধারণ করে ১৩ জন ক্যাম্পাস প্রতিনিধিকে নিয়ে ১৯৮৫ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর যাত্রা শুরু করে সংগঠনটি।

/ইউএস/

সম্পর্কিত

১৫ মাসের কাজ ৬৫ মাসেও হয়নি শেষ 

১৫ মাসের কাজ ৬৫ মাসেও হয়নি শেষ 

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ‘হতাশার দেয়াল’ আর থাকছে না 

হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ‘হতাশার দেয়াল’ আর থাকছে না 

চবিতে দুই শিক্ষার্থীকে হেনস্তার অভিযোগ

চবিতে দুই শিক্ষার্থীকে হেনস্তার অভিযোগ

হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ‘হতাশার দেয়াল’ আর থাকছে না 

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০৯

প্রতিষ্ঠার ২২ বছর পার করেছে উত্তরের জেলা দিনাজপুরে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)। দীর্ঘ সময় ধরে শিক্ষার্থীদের ফলাফল ঝুলিয়ে দেওয়া হয় ক্যাম্পাসের ভবনের একটি দেয়ালে। যেই দেয়ালকে শিক্ষার্থীরা নামকরণ করেছেন ‘হতাশার দেয়াল’ নামে। ডিজিটাল এই যুগে দেয়ালে ফলাফল প্রকাশের এ রীতি পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে আসছিল সাধারণ শিক্ষার্থীরা। অবশেষে সেই দাবি মেনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে সেমিস্টার ফাইনালের ফলাফল প্রকাশ করা শুরু করেছে হাবিপ্রবি প্রশাসন। কৃষি ও সোশ্যাল সায়েন্স অ্যান্ড হিউম্যানিটিস অনুষদের রেজাল্টের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে ফলাফল প্রকাশ শুরু হয় বলে নিশ্চিত করেন হাবিপ্রবির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক ড. মো. সাইফুর রহমান। আর এর মাধ্যমে বিলুপ্ত হতে যাচ্ছে শিক্ষার্থীদের কথিত সেই ‘হতাশার দেয়াল’।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. সাইফুর রহমান জানান, 'উপাচার্য মহোদয়ের সম্মতি ও সার্বিক দিকনির্দেশনার ফলে কাজটি দ্রুত সময়ের মাঝে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে। আমি তাকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে ফলাফল প্রকাশ করার কারণে শিক্ষার্থীরা এখন দেশের যে কোনও প্রান্ত থেকে নিজেদের ফলাফল জানতে পারবেন, এমনকি প্রয়োজনে নিজের ফলাফল ডাউনলোড করতে পারবে। সর্বোপরি এটি একটি সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত যার সুবিধা শিক্ষার্থীরা সব সময় পেতে থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘পুরাতন রূপালী ব্যাংকের’ ভবন নামে পরিচিত ভবনটির দেয়ালে (হতাশার দেয়াল) ফলাফল ঝোলানোটা  দৃষ্টিকটু ছিল স্বীকার করে এই অধ্যাপক আরও বলেন, এখন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট ও কন্ট্রোলার সেকসনের নোটিশ বোর্ডে এসেও শিক্ষার্থীরা নিজেদের ফলাফল দেখতে পারবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে ফলাফল প্রকাশের ব্যাপারে হাবিপ্রবির আইটি সেলের কো-অর্ডিনেটর সহযোগী অধ্যাপক মো. মেহেদী ইসলাম বলেন, 'উপাচার্য মহোদয়ের সহযোগিতার কারণে আইটি সেলের সিদ্ধান্ত গ্রহণের দীর্ঘসূত্রিতার অবসান হয়েছে। আমি হাবিপ্রবির আইটি সেলের পক্ষ থেকে উপাচার্য মহোদয়কে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। পাশাপাশি সিএসই অনুষদের সম্মানিত ডিন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক শাখা ও আইটি সেলে যারা দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

এছাড়া সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডায়েরি অ্যাপটি প্লে-স্টোরে আপলোড করা হবে বলেও জানান আইটি সেলের কো-অর্ডিনেটর। তিনি বলেন, কিছু জটিলতা থাকায় সাময়িক সময়ের জন্য অ্যাপটি প্লে -স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানান তিনি।

/ইউএস/

সম্পর্কিত

বৃত্তিপ্রাপ্তদের দিতে হবে না ক্রেডিট ফি  

বৃত্তিপ্রাপ্তদের দিতে হবে না ক্রেডিট ফি  

প্রতি সেমিস্টারে ৫ হাজার টাকা গুনতে হয় হাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের 

প্রতি সেমিস্টারে ৫ হাজার টাকা গুনতে হয় হাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের 

হাবিপ্রবির স্থগিত পরীক্ষা কাল বুধবার থেকে অনলাইনে শুরু

হাবিপ্রবির স্থগিত পরীক্ষা কাল বুধবার থেকে অনলাইনে শুরু

ঈদে হাজী দানেশের বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা

ঈদে হাজী দানেশের বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা

চবিতে দুই শিক্ষার্থীকে হেনস্তার অভিযোগ

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:০৭

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) প্রথম বর্ষের চার ছাত্রের বিরুদ্ধে যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের দুই ছাত্রীকে হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাসায় ফেরার পথে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে ওই দুই ছাত্রী হেনস্তার শিকার হন বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগীদের একজন তৃতীয় বর্ষ ও অন্যজন চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় অভিযুক্ত চার জন হলেন– আরবি বিভাগের জুনায়েদ, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের রুবেল এবং দর্শন বিভাগের ইমন ও রাজু।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া বলেন, ‘ক্যাম্পাস পর্যবেক্ষণের সময় আমাদের গাড়ি কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে গেলে দুই ছাত্রী আমাদের গাড়ি থামিয়ে তাদের হেনস্তা করার কথা বলেন। আমাদের দেখে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। তবে তাদের মধ্যে একজন ধরা পড়ে। তার মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। আগামী রবিবার সবার সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে আমরা ব্যবস্থা নেবো।’

ভুক্তভোগী এক ছাত্রী বলেন, ‘বাসায় ফেরার পথে কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে চার জন ছেলে আমাদের পথ আটকে হেনস্তা করে। পরিচয় জানার পরেও তারা আমাদের উত্ত্যক্ত করতে থাকে। সে সময় প্রক্টরের গাড়ি দেখে তারা পালিয়ে যায়। তবে প্রক্টর স্যার একজনকে আটক করেন। আগামী রবিবার আমরা লিখিত অভিযোগ দেবো।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

পরীক্ষার ফলাফল ভালো না হওয়ায় হাত কাটলেন চবি ছাত্র

পরীক্ষার ফলাফল ভালো না হওয়ায় হাত কাটলেন চবি ছাত্র

পদযাত্রায় যেতে বাধ্য করার অভিযোগে চবির ৩ শিক্ষার্থীকে শোকজ

পদযাত্রায় যেতে বাধ্য করার অভিযোগে চবির ৩ শিক্ষার্থীকে শোকজ

মওকুফ হলেও দিতে হচ্ছে হল-পরিবহন ফি, ক্ষুব্ধ চবি শিক্ষার্থীরা

মওকুফ হলেও দিতে হচ্ছে হল-পরিবহন ফি, ক্ষুব্ধ চবি শিক্ষার্থীরা

টিকা নিশ্চিত করেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হবে: উপাচার্য

টিকা নিশ্চিত করেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হবে: উপাচার্য

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

কুবিতে একসঙ্গে ৪০ শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্তদের ক্রেডিট ফি নেবে না হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়

বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্তদের ক্রেডিট ফি নেবে না হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় শিক্ষার্থীদের অনুদান দেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

গবেষণায় শিক্ষার্থীদের অনুদান দেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

টেক্সিবিশন ইনোভেশন চ্যালেঞ্জে দ্বিতীয় রানার আপ হাবিপ্রবি’র টিম

টেক্সিবিশন ইনোভেশন চ্যালেঞ্জে দ্বিতীয় রানার আপ হাবিপ্রবি’র টিম

আজ থেকে ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র সংগ্রহ শুরু

আজ থেকে ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র সংগ্রহ শুরু

জবিতে ৭ অক্টোবর থেকে সশরীরে পরীক্ষা 

জবিতে ৭ অক্টোবর থেকে সশরীরে পরীক্ষা 

শিক্ষার্থীদের টিকা না দিয়েই শুরু হচ্ছে ৭ কলেজের পরীক্ষা

শিক্ষার্থীদের টিকা না দিয়েই শুরু হচ্ছে ৭ কলেজের পরীক্ষা

বিশ্ববিদ্যালয় খুলে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবি

বিশ্ববিদ্যালয় খুলে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবি

১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাবির হল সংস্কারের নির্দেশ

১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাবির হল সংস্কারের নির্দেশ

বিশ্ববিদ্যালয় খুলে না দিলে উন্মুক্ত জায়গায় ক্লাস

বিশ্ববিদ্যালয় খুলে না দিলে উন্মুক্ত জায়গায় ক্লাস

সর্বশেষ

জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে ১৩ পদে ৫৪ জনের চাকরি

জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে ১৩ পদে ৫৪ জনের চাকরি

এহসান এমডি রাগীবের প্রতারণা খতিয়ে দেখছে সিআইডি 

এহসান এমডি রাগীবের প্রতারণা খতিয়ে দেখছে সিআইডি 

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

বৃষ্টিতে ভোটকেন্দ্রের চাল দিয়ে পড়ছে পানি 

বৃষ্টিতে ভোটকেন্দ্রের চাল দিয়ে পড়ছে পানি 

© 2021 Bangla Tribune