X
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

ট্রাকচাপায় নিহত ৩, ট্রাফিক পুলিশ সদস্যকে দায়ী করছে স্থানীয়রা

আপডেট : ১২ জুলাই ২০২১, ১৮:৫২

বান্দরবা‌নের লামায় বালুভর্তি ট্রাক, মাহিন্দ্র জিপ ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। রবিবার (১১ জুলাই) দুপুর ১টার দিকে লামা-চকরিয়া সড়কের মিরিঞ্জা পাহাড়ের পশ্চিম লাইনঝিরি এলাকায় হওয়া এ দুর্ঘটনার জন্য ট্রা‌ফিক পু‌লি‌শের এটিএসআই (অ্যাসিস্ট্যান্ট টাউন সাব-ইন্সপেক্টর) আরজুর ভু‌লকে দায়ী করছেন স্থানীয়রা।

নিহতরা হ‌লেন- বান্দরবান আলীকদ‌মের চিনু দে (৩০) ও রুপসি দাশ (২২) এবং অপরজন চট্টগ্রা‌মের লোহাগাড়ার মোক্তার মিয়া (৫০)।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বান্দরবা‌নের আলীকদম থে‌কে এক‌টি মা‌হিন্দ্র জিপ যাত্রী নি‌য়ে লামার লাইনঝি‌রি এলাকায় আসে। সেখা‌নে পু‌লিশ ফাঁড়ির পু‌লি‌শের ভ‌য়ে চালক যাত্রী‌দের না‌মি‌য়ে খা‌লি গাড়ি‌ নিয়ে ফাঁড়ি পার হ‌য়ে ২০০ ফুট সাম‌নে গি‌য়ে যাত্রী‌দের তোলেন। খবর‌টি ট্রা‌ফিক পু‌লি‌শের এটিএসআই আরজু জান‌তে পে‌রে রাসেল নামের একজন থেকে তার ভাড়ায়চা‌লিত মোটরসাইকেল নি‌য়ে জিপটি তাড়া ক‌রে এক‌টি ঝুঁকিপূর্ণ বাঁকে গ‌তি‌রোধ ক‌রেন। প‌রে জিপ থে‌কে যাত্রী‌দের না‌মিয়ে রাস্তার পা‌শে দাঁড় ক‌রি‌য়ে চাল‌কের সঙ্গে তর্কে জড়ান। এ সময় বিপ‌রীত দিক থে‌কে এক‌টি বালুভর্তি ট্রাক পাহাড়ি ঢালু রাস্তা দি‌য়ে নামার সময় বাঁকটিতে এসে নিয়ন্ত্রণ হা‌রি‌য়ে জিপ-মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দিয়ে উল্টে যায়। এতে দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রী‌রা বালুর নি‌চে চাপা প‌ড়েন। ফ‌লে ঘটনাস্থ‌লেই তিনজন নিহত হন। জিপ-মোটরসাইকেলটি দুম‌ড়ে-মুচড়ে যায়।

এ বিষয়ে লামা উপ‌জেলা চেয়ারম‌্যান মোস্তফা জামাল ব‌লেন, ট্রা‌ফিক পু‌লিশ যেখা‌নে গাড়িটি দাঁড় ক‌রি‌য়ে‌ছেন, সে‌খানে গাড়ি দাঁড় করা‌নোর মতো কোনও জায়গা নেই।

তার প্রশ্ন, ট্রা‌ফিক পু‌লি‌শের এমন কী দরকার ছিল যে, মোটরসাইকেলে করে ৩-৪ কি‌লো‌মিটার তাড়া ক‌রে যাত্রী নি‌য়ে যাওয়া গা‌ড়ি‌টি ঝুঁকিপূর্ণ জায়গায় দাঁড় করা‌নোর? এ সময় তি‌নি দুর্ঘটনার জন‌্য ট্রা‌ফিক পু‌লি‌শ আরজু‌কেই পু‌রো দায়ী ক‌রেন এবং তার বি‌রুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব‌্যবস্থা নেওয়ার জন‌্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ‌কে অনু‌রোধ ক‌রেন।

লামা থানার সা‌র্কেল পুলিশ সুপার (এস‌পি) রেজওয়ানুল ইসলাম ব‌লেন, দুর্ঘটনার কারণ জানতে তদন্ত করা হ‌চ্ছে। এখ‌নও ট্রাকটির মা‌লিক বা চালক কাউকেই পাওয়া যায়‌নি। এমন এক‌টি বাঁকে ট্রাক‌টি কেন দ্রুতগ‌তি‌তে আস‌ছিলো বা গাড়ির ফিট‌নে‌সে কোনও সমস‌্যা ছিল‌ো কি-না তাও যাচাই করা হ‌বে। স‌ঠিক তদন্ত ছাড়া এখ‌নও কাউকে দোষারোপ করা যা‌চ্ছে না।

এ বিষ‌য়ে জানতে এটিএসআই আরজুর মোবাইল নম্বরে কল দিলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। মোটরসাইকেলের মা‌লিক মো. রাসেলের মোবাইল নম্বরটিও বন্ধ রয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ঘর পোড়ানোর মামলায় আ.লীগ নেতা কারাগারে

ঘর পোড়ানোর মামলায় আ.লীগ নেতা কারাগারে

মহাসড়কে ৫ লাখ টাকার কাঠসহ ট্রাক ফেলে গেলেন চালক

মহাসড়কে ৫ লাখ টাকার কাঠসহ ট্রাক ফেলে গেলেন চালক

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ছবি আঁকলো অর্ধশত শিশু-কিশোর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ছবি আঁকলো অর্ধশত শিশু-কিশোর

কুমিল্লা ওয়ার্ড ছাত্রদলের কমিটিতে মৃত ব্যক্তি-বিবাহিতরা

কুমিল্লা ওয়ার্ড ছাত্রদলের কমিটিতে মৃত ব্যক্তি-বিবাহিতরা

শিশুকে কুপিয়ে দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৩৫

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলায় আট বছরের শিশুকে দা দিয়ে কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করেছেন এক যুবক। মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) বিকালে উপজেলার ধুরাইল ইউনিয়নের পূর্ব ধুরাইল কুদালিয়া খালের পাড়ে ঘটনাটি ঘটে। হত্যাকারীকে পুলিশ আটক করেছে।

নিহত শিশুর নাম সুমন মিয়া (৮)। সুমন পূর্ব ধুরাইল গ্রামের জুয়েল মিয়ার ছোট ছেলে। সে স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণির ছাত্র ছিল। আটক যুবকের নাম শরীফ মিয়া (২৫)। সে একই এলাকার শাহজাহানের ছেলে।

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি দা-ও জব্দ করেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য  ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এলাকাবাসী ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, নিহত সুমন এবং তার সহপাঠী খালের পাড়ে  বিকালে খেলেতে যায়। এ সময় হঠাৎ হত্যাকারী শরীফ দৌড়ে এসে সুমনকে পানিতে ফেলে দেয়। পরে আবার পানি থেকে উচু স্থানে তুলে ফের দা দিয়ে কুপিয়ে শরীর থেকে মাথা আলাদা করে বাড়ি চলে যায়। সঙ্গে থাকা তার সহপাঠী জুনাইদ ভয়ে দৌড়ে বাড়ি চলে যায়। পরে এলাকাবাসী ঘটনা শুনলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে জানান। পরবর্তী সময়ে পুলিশ বাড়ি থেকে ব্যবহৃত দাসহ শরীফকে আটক করে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. ওয়ারিছ উদ্দিন সুমন বলেন, ‘আমি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। পরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় হত্যাকারীকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।’

হালুয়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহিনুজ্জামান বলেন, ‘পারিবারিক দ্বন্দ্ব থেকে এই হত্যাকাণ্ড হতে পারে। দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় হত্যাকারীকে আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হবে।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

‘ভাতা দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর জন্য নামাজ পড়ে দোয়া করমু’

‘ভাতা দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর জন্য নামাজ পড়ে দোয়া করমু’

মাটি কাটায় বাধা, কৃষককে তুলে নিয়ে পেটালেন চেয়ারম্যান

মাটি কাটায় বাধা, কৃষককে তুলে নিয়ে পেটালেন চেয়ারম্যান

‘নিবন্ধন-এসএমএসের ঝামেলা না থাকায় গণটিকায় খুশি’

‘নিবন্ধন-এসএমএসের ঝামেলা না থাকায় গণটিকায় খুশি’

পানিতে ডুবে প্রথম শ্রেণির ২ ছাত্রীর মৃত্যু

পানিতে ডুবে প্রথম শ্রেণির ২ ছাত্রীর মৃত্যু

উত্তপ্ত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, অভিযুক্ত শিক্ষকের অপসারণ দাবি

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:২১

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্তৃক ১৪ ছাত্রের চুল কাঁচি দিয়ে কেটে দেওয়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সকালে পরীক্ষা ও ক্লাস বর্জন করে একাডেমিক এবং প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেন শিক্ষার্থীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত ট্রেজারার আব্দুল লতিফ ক্যাম্পাসে এসে ছাত্রদের সুবিচারের আশ্বাস দেন এবং হলে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানান। এরপর শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করে প্রশাসনিক ভবনে গিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষকের অপসারণ চেয়ে একটি স্মারকলিপি দেন। এদিকে এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে বলে জানিয়েছেন ভিসি আব্দুল লতিফ।

ওই বিভাগের ছাত্র তানভীর ও জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২৫ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত হওয়া পরীক্ষার সময়সূচি নিয়ে ওই বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী প্রক্টর ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের সঙ্গে কয়েক জন শিক্ষার্থীর বাগ-বিতণ্ডা হয়। এ সময় ওই শিক্ষার্থীদের চুল কেটে নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষার হলে যেতে বলেন ওই শিক্ষক। পরদিন পরীক্ষার হলে প্রবেশের সময় ১৪ জন ছাত্র চুল কেটে না আসায় তাদের মাথার সামনের অংশের চুল কেটে দেন তিনি। অপমান সহ্য করতে না পেরে এ দিনের পরীক্ষা শেষে নাজমুল হোসেন তুহিন (২৫) ছাত্রাবাসে গিয়ে তার কক্ষের দরজা বন্ধ করে বেশ কিছু ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। বিষয়টি সহপাঠীরা টের পেয়ে দ্রুত তাকে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক তাকে এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

তারা আরও জানান, এ ঘটনার পর সোমবার দুপুরে শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদে পরীক্ষা বর্জন করে। পরে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করার জন্য বিসিক বাসস্ট্যান্ড এলাকার শাহজাদপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজে অবস্থিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাস-১-এর গেটে জড়ো হয়। এ সময় ওই শিক্ষক তাদের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে পরীক্ষার হলে যেতে বাধ্য করেন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সোহরাব আলী বলেন, ‘আমরা নাজমুলের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি। তার উন্নত চিকিৎসা চলছে। আশা করি সে ভালো হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসবে। এ ছাড়াও এই ঘটনার সঠিক ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।’

শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মনোয়ার হোসেন সুজন বলেন, ‘ওই শিক্ষার্থীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল।’

এ বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত ট্রেজারার আব্দুল লতিফ বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় আমি সেখানেই ছিলাম। পরে তাদের ডেকে নিয়ে এসে তাদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বসে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখার আহ্বান জানিয়ে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে তারা শান্ত হয়ে ফিরে যায়। তারা একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছে। আমরা তাদের স্মারকলিপির ওপর ভিত্তি করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করবো। এবং সেই তদন্ত কমিটির দেওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

আরও খবর: রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের বিরুদ্ধে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ

 
/এমএএ/

সম্পর্কিত

৩৬০০ কেজি সরকারি চাল বিক্রির সময় গ্রেফতার ২

৩৬০০ কেজি সরকারি চাল বিক্রির সময় গ্রেফতার ২

রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগ সহ-সভাপতিকে ছুরিকাঘাত

রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগ সহ-সভাপতিকে ছুরিকাঘাত

৫৭ ধারার মামলায় একজনের ১০ বছরের কারাদণ্ড

৫৭ ধারার মামলায় একজনের ১০ বছরের কারাদণ্ড

ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেলো কলেজ শিক্ষকের 

ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেলো কলেজ শিক্ষকের 

সাজিদুরের মৃত্যুর খবরে প্রাণ গেলো মেয়ে ও নাতনির

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৯

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার শ্রীকুটা গ্রামের সাজিদুর রহমানের মৃত্যুর খবর শুনে তার মেয়ে ও নাতনির মৃত্যু হয়েছে। একইদিন একই পরিবারের তিন জনের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) চুনারুঘাট উপজেলার ৭নং উবাহাটা ইউনিয়নের ওই গ্রামে পরপর ৩ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আজ সকালে ঢাকার পপুলার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় সাজিদুর রহমানের (আরজু মিয়া)। পিতার মৃত্যুর সংবাদ শুনে একইদিন দুপুরে চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মারা যান মেয়ে সুরাইয়া আক্তার। পরে মায়ের মৃত্যুর সংবাদ শুনে বিকাল ৪টার দিকে চুনারুঘাটের উত্তর বাজারের বাসায় মারা যান সুরাইয়া আক্তারের বড় মেয়ে সৈয়দা উলফাত।

মাগরিবের নামাজের পর তাদের তিন জনের জানাজা শ্রীকুটা হাফেজিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। পরে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এ বিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির লস্কর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান এবং তাদের আত্মার শান্তি কামনা করেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

৬ মাস পর কারামুক্ত ঝুমন দাশ

৬ মাস পর কারামুক্ত ঝুমন দাশ

আইফোন কিনতে জমানো টাকা কিডনি রোগীকে দিলেন চিকিৎসক 

আইফোন কিনতে জমানো টাকা কিডনি রোগীকে দিলেন চিকিৎসক 

বিনা খরচে এক ক্লিনিকে ১০০৩ শিশুর স্বাভাবিক প্রসব

বিনা খরচে এক ক্লিনিকে ১০০৩ শিশুর স্বাভাবিক প্রসব

বদলে যাচ্ছে মোংলা বন্দর, গতি ফিরছে বাণিজ্যে

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০১
শ্রমিক অসন্তোষ, দুই দিন পর পর ধর্মঘট, দিনের পর দিন জাহাজশূন্য পশুর চ্যানেল, কর্মহীন শ্রমিকের আত্মহত্যা—এসব ভয়ঙ্কর ঘটনা এখন অতীত। বর্তমানে সেই পশুর চ্যানেলে সারি সারি জাহাজ। সেখানে কাজ করছে অসংখ্য শ্রমিক। দেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর মোংলায় সর্বোচ্চ জাহাজ আগমনও রেকর্ড গড়েছে।

সংকট কাটিয়ে মৃতপ্রায় মোংলা বন্দরে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যে গতি ফিরেছে। বন্দরের সুবিধাদি বৃদ্ধির জন্য ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। এদিকে, পদ্মা সেতু ও খুলনা-মোংলা রেলসেতু এবং রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ কাজ দ্রুত এগিয়ে যাওয়ায় মোংলা বন্দরকেন্দ্রিক দেশের শিল্প-বাণিজ্যের সম্ভাবনার নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। ইতোমধ্যে এ বন্দরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠতে শুরু করেছে নতুন নতুন শিল্প-কলকারখানা। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেড়েছে। এতে কর্মচঞ্চল হয়ে উঠেছে গোটা বন্দর এলাকা।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের অর্থ ও হিসাব বিভাগের কর্মকর্তা মো. সিদ্দিকুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, সর্বশেষ ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে ২০১৯-২০ অর্থবছর পর্যন্ত মোংলা বন্দর ৪৯৭ কোটি ৩১ লাখ টাকা নীট মুনাফা অর্জন করেছে। এ সময় বন্দরে তিন হাজার ৭০০টি বাণিজ্যিক জাহাজ নোঙর করেছে।

তিনি আরও জানান, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে মোংলা বন্দর ৬৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা নীট মুনাফা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। এ বছর বন্দরে বাণিজ্যিক জাহাজ নোঙর করেছে ৪৮২টি। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৭৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা নীট মুনাফা অর্জন হয়েছে। এ বছর বন্দরে ৬২৩টি বাণিজ্যিক জাহাজ নোঙর করেছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১০৯ কোটি ৩৩ লাখ লাখ টাকা নীট মুনাফা অর্জন হয়েছে। এ বছর বন্দরে ৭৮০টি বাণিজ্যিক জাহাজ নোঙর করেছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১৩৩ কোটি টাকা নীট মুনাফা অর্জন হয়েছে। এ বছর বন্দরে ৯১২টি বাণিজ্যিক জাহাজ নোঙর করেছে। এ ছাড়া সর্বশেষ ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১১৭ কোটি টাকা নীট মুনাফা অর্জন হয়েছে। এই বছর বন্দরটিতে বাণিজ্যিক জাহাজ এসেছে ৯০৩টি।

মোংলা বন্দরে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যে গতি ফিরেছে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ২০০৯ সালের শুরুতেই দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সরকার বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করে। এ লক্ষ্যে মৃতপ্রায় মোংলা বন্দরকে কার্যক্ষম ও কর্মচঞ্চল করার লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। কর্মচাঞ্চল্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০০৯ সালের জুন থেকে এ বন্দরের মাধ্যমে গাড়ি আমদানি শুরু হয়। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট সংসদীয় স্থায়ী কমিটিসমূহের নির্দেশনা, বন্দর উপদেষ্টা কমিটি ও বন্দর ব্যবহারকারীদের সুপারিশ এবং নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে বন্দর ব্যবস্থাপনায় মোংলা বন্দর ধীরে ধীরে গতিশীলতা অর্জন করতে
থাকে।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে আমরা বন্দরের নাব্যতা সংকট কাটিয়ে উঠেছি। এখন বন্দরের হারবাড়িয়ায় ৯.৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভিড়তে পারছে। আগামী বছরের প্রথম থেকেই বন্দরের মূল জেটিতেও এসব জাহাজ ভিড়তে পারবে।

মোংলা বন্দরের প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. জহিরুল ইসলাম বলেন, বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০০৯ সালের জুন থেকে ২০২০ পর্যন্ত ১৮টি উন্নয়ন প্রকল্পসহ ৫০টির অধিক উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়েছে। বর্তমানে ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন ও তিনটি প্রকল্প অনুমোদনের প্রক্রিয়ায় আছে। মোংলা বন্দর ব্যবহারকারীদের দ্রুত ও দক্ষ সেবা প্রদানে যেসব উন্নয়ন কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে আছে—৭০টি কন্টেইনার ও কার্গো হ্যান্ডলিং যন্ত্রপাতি সংগ্রহ, ৮০ কিলোওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সৌর প্যানেল স্থাপন, তিনটি কার ইয়ার্ড নির্মাণ, ১০টি বিভিন্ন ধরনের সহায়ক জলযান ক্রয়, ৬২টি বিভিন্ন ধরনের লাইটেড বয়া, দুইটি রোটেটিং বিকন, ছয়টি জিআরপি লাইট টাওয়ার সংগ্রহ ও স্থাপন, একটি মোবাইল হারবার ক্রেন, একটি স্টাফিং-আনস্টাফিং শেড, একটি ওয়েব্রিজ মোবাইল স্ক্যানার সংগ্রহ। এ ছাড়া রুজভেল্ট জেটির বিভিন্ন অবকাঠামোর উন্নয়ন কাজও সম্পন্ন করা হয়েছে।

বন্দরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠছে নতুন নতুন শিল্প-কলকারখানা তিনি জানান, এদিকে বর্তমানে মোংলা বন্দরে ১০টি প্রকল্প চলমান রয়েছে। এসবের বাইরে বন্দরের অত্যাবশ্যকীয় যন্ত্রপাতি-সরঞ্জাম সংগ্রহ পশুর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং, সহায়ক জলযান সংগ্রহ, বর্জ্য নিঃসৃত তেল অপসারণ ব্যবস্থাপনা, বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ থেকে পিপিপি’র আওতায় মোংলা বন্দরের দুইটি অসম্পূর্ণ জেটির নির্মাণও কাজ শেষ করা হবে ২০২১ সালের মধ্যে। চলমান এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে আট হাজার কোটি টাকা।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পাট ও পাটজাত পণ্য বিদেশে রফতানির জন্য বন্দর সুবিধা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৫০ সালে খুলনার দাকোপ উপজেলার চালনাতে বন্দর প্রতিষ্ঠিত হয়। ওই বছরের ১ ডিসেম্বর দাফতরিকভাবে ‘চালনা বন্দর’ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ১০ দিন পর জয়মনিরগোল নামক স্থানে প্রথম বিদেশি জাহাজ ‘দ্য সিটি অব লিয়ন্স’ নোঙর করে। এর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে চালনা বন্দর। শুরুতে এ বন্দরের নাম ছিল ‘চালনা অ্যাংকোরেজ’। সর্বশেষ ১৯৮৭ সালের ৮ মার্চ ‘মোংলা পোর্ট অথরিটি’ নামে প্রতিষ্ঠা লাভ করে।
/এসএইচ/

সম্পর্কিত

নিজের বিয়ে ভাঙার দরখাস্ত নিয়ে থানায় স্কুলছাত্রী

নিজের বিয়ে ভাঙার দরখাস্ত নিয়ে থানায় স্কুলছাত্রী

বৈরী আবহাওয়ায় মোংলা বন্দরে পণ্য ওঠানামা ব্যাহত

বৈরী আবহাওয়ায় মোংলা বন্দরে পণ্য ওঠানামা ব্যাহত

মাস্ক ছাড়া টিকা কেন্দ্রে কাউন্সিলর, ছবি ভাইরাল

মাস্ক ছাড়া টিকা কেন্দ্রে কাউন্সিলর, ছবি ভাইরাল

ঘর পোড়ানোর মামলায় আ.লীগ নেতা কারাগারে

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪১

কুমিল্লার চান্দিনায় ঘর পোড়ানোর মামলায় মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জামাল উদ্দিনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) কুমিল্লা আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইফরানুল হক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

জামাল উদ্দিন কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের পানিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাড. শাহজালাল মিঞা শিপন জানান, ২০১৭ সালে জামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে পানিপাড়া গ্রামের সুলতান মিয়া নামের এক ব্যক্তির ঘরে অগ্নিসংযোগ করেন জামাল উদ্দিন সমর্থিত নেতাকর্মীরা। ওই ঘটনায় সুলতান মিয়ার স্ত্রী রাফিয়া বেগম বাদী হয়ে চান্দিনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি পিবিআই তদন্ত করে জামাল উদ্দিন ঘটনার সঙ্গে জড়িত উল্লেখ করে আদালতে প্রতিবেদন দেয়।

তিনি আরও জানান, এরপর আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। আজ আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

৬ মাস পর কারামুক্ত ঝুমন দাশ

৬ মাস পর কারামুক্ত ঝুমন দাশ

মহাসড়কে ৫ লাখ টাকার কাঠসহ ট্রাক ফেলে গেলেন চালক

মহাসড়কে ৫ লাখ টাকার কাঠসহ ট্রাক ফেলে গেলেন চালক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঘর পোড়ানোর মামলায় আ.লীগ নেতা কারাগারে

ঘর পোড়ানোর মামলায় আ.লীগ নেতা কারাগারে

মহাসড়কে ৫ লাখ টাকার কাঠসহ ট্রাক ফেলে গেলেন চালক

মহাসড়কে ৫ লাখ টাকার কাঠসহ ট্রাক ফেলে গেলেন চালক

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ছবি আঁকলো অর্ধশত শিশু-কিশোর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ছবি আঁকলো অর্ধশত শিশু-কিশোর

কুমিল্লা ওয়ার্ড ছাত্রদলের কমিটিতে মৃত ব্যক্তি-বিবাহিতরা

কুমিল্লা ওয়ার্ড ছাত্রদলের কমিটিতে মৃত ব্যক্তি-বিবাহিতরা

আন্তর্জাতিকভাবে দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আন্তর্জাতিকভাবে দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেলো কলেজ শিক্ষকের 

ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেলো কলেজ শিক্ষকের 

ক্রেন ছিঁড়ে পড়ে প্রাণ গেলো এইচএসসি পরীক্ষার্থীর

ক্রেন ছিঁড়ে পড়ে প্রাণ গেলো এইচএসসি পরীক্ষার্থীর

ফৌজদারহাটে পণ্যবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত

ফৌজদারহাটে পণ্যবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত

‘সড়কটি দিয়ে মেয়র-এমপিদের ভ্রমণ করানো হোক’

‘সড়কটি দিয়ে মেয়র-এমপিদের ভ্রমণ করানো হোক’

সর্বশেষ

শিশুকে কুপিয়ে দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন

শিশুকে কুপিয়ে দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন

বিমানের সৈয়দপুর-কক্সবাজার রুটে ফ্লাইট শুরু ৭ অক্টোবর

বিমানের সৈয়দপুর-কক্সবাজার রুটে ফ্লাইট শুরু ৭ অক্টোবর

বিসিবিতে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন

বিসিবিতে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন

উত্তপ্ত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, অভিযুক্ত শিক্ষকের অপসারণ দাবি

উত্তপ্ত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, অভিযুক্ত শিক্ষকের অপসারণ দাবি

‘সামাজিক মাধ্যমে জঙ্গিবাদসহ অপশক্তির পুনরুত্থান নিরাপত্তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ’

‘সামাজিক মাধ্যমে জঙ্গিবাদসহ অপশক্তির পুনরুত্থান নিরাপত্তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ’

© 2021 Bangla Tribune