X
শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

পাটুরিয়ায় মানুষের ঢল, বাড়ি ফিরতে স্বাস্থ্যবিধির উপেক্ষা 

আপডেট : ২০ জুলাই ২০২১, ১৬:২৮

পাটুরিয়া ঘাটে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীর ঢল নেমেছে। মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সকাল থেকে দেশের দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার অন্যতম প্রবেশদ্বার পাটুরিয়া ফেরিঘাটে যাত্রীদের অতিরিক্ত চাপ শুরু হয়। মাত্রারিক্ত চাপের কারণে ফেরি ও লঞ্চঘাটে যাত্রীদের গিজগিজে অবস্থান দেখা যায়, যেন তিল ধারণের ঠাঁই নেই। তিন-চার কিলোমিটার পায়ে হেঁটেও যাত্রীরা ঘাটে এসেছেন। তবে বাড়ি ফেরার এই যাত্রায় স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনও বালাই দেখা যায়নি। এতে সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করতে বলে আশঙ্কা সংশ্লিষ্টদের।

এদিকে অতিরিক্ত যানবাহনের কারণে ঘাট এলাকা থেকে নবগ্রাম পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার দীর্ঘ সারির সৃষ্টি হয়েছে। পারের অপেক্ষায় রয়েছে কয়েকশ’ ছোটগাড়ি। যাত্রী ও যানবাহন পারাপারে হিমশিম খেতে হচ্ছে ঘাট কর্তৃপক্ষকে। ফেরিঘাটে আসা কয়েকজন যাত্রী জানান, তিন কিলোমিটার পায়ে হেঁটে ফেরিঘাটে এসেছেন। এত দুর্ভোগের মধ্যেও প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করবেন এটাই তাদের প্রশান্তি।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম (ভারপ্রাপ্ত) মো. জিল্লুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, রাত পোহালেই ঈদ। এ কারণে মঙ্গলবার চাপ বেশি। তবে নৌ রুটে সব ফেরি সচল থাকায় যাত্রী ও যানবাহন পারাপারে তেমন সমস্যা হচ্ছে না। সকাল থেকেই পাটুরিয়া ঘাটে ঈদে ঘরমুখো মানুষের অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি হয়েছে। রাজধানীসহ আশপাশের তৈরি পোশাক কারখানাগুলো ছুটি দেওয়ায় এই চাপ সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান তিনি। 
 
ফেরিতে করে নদী পার হতে তিন কিলোমিটার হেঁটে ঘাটে এসে জড়ো হন যাত্রীরা ফেরি সেক্টরের ওই কর্মকর্তা আরও জানান, স্বাভাবিক সময়ে এ নৌ রুটে তিন হাজার যানবাহন পারাপার হয়। গতকাল এর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ১১ হাজারে দাঁড়িয়েছে। একই চিত্র লঞ্চঘাটের।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, মহাসড়ক ও ঘাট এলাকায় পুলিশ যানবাহন ও যাত্রীদের সিরিয়াল ধরে পার করতে কাজ করছে। তবে ফেরি ঘাটে ভড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীরা হুমড়ি খেয়ে পড়ায় গাড়ি পারাপারে সমস্যা হচ্ছে।

শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফিরোজ কবির বলেন, যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। মহাসড়ক ও ঘাট এলাকায় সিরিয়াল ধরে যাত্রী ও যানবাহন পারাপারে পুলিশ কঠোর অবস্থানে আছে বলে জানান তিনি। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

ভবনের ফুটেজ সংগ্রহকালে চিত্র সাংবাদিকের ওপর হামলা

ভবনের ফুটেজ সংগ্রহকালে চিত্র সাংবাদিকের ওপর হামলা

ভাঙনে পদ্মার পেটে জমি-বসতঘর

ভাঙনে পদ্মার পেটে জমি-বসতঘর

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ১০১ বার পানিতে চুবানোয় মৃত্যু

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ১০১ বার পানিতে চুবানোয় মৃত্যু

ঈদে বিক্রি না হওয়া ‘কালো মানিক’কে নিয়ে বিপাকে খামারি

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ০১:৩৬

কোরবানির পশুর হাটে ৩৭ মণ ওজনের ‘কালো মানিক’কে বিক্রি করতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাড়া গ্রামের খামারি জাকির হোসেন সুমন।

ঢাকার উত্তরা ও আজিমপুর কোরবানির হাটে নিয়েও বিক্রি করতে না পেরে ‘কালো মানিক’কে ফিরিয়ে আনতে হয়েছে নিজ বাড়িতে। বাজারে সর্বোচ্চ সাড়ে ১১ লাখ টাকার দাম উঠেছিল। কিন্তু মালিক সুমনের চাহিদা ছিল ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকার মতো।

এর আগের বছর কোরবানি ঈদে ‘লাল মানিক’ নামের আরেকটি গরু বিক্রি করেছিলেন ১৩ লাখ টাকায়। ওই সময়ে ‘কালো মানিক’র দাম উঠেছিল ১১ লাখ টাকা।

খামারি জাকির হোসেন সুমন বলেন, ‘আল্লাহ-ই ভালো জানেন, কালো মানিক আমার হাতে আর কতদিন খাবার খাবে। বিক্রি করতে পারিনি তাতে কী হয়েছে? নসিবে যা আছে তাই হবে। প্রতিদিন কালো মানিকের পেছনে খাওয়া বাবদ এক হাজার থেকে ১২০০ টাকা লাগে। ওর পেছনে একজন শ্রমিক আছে, যার মাসিক বেতন দিতে হয় ১২ হাজার টাকা।’

তিনি বলেন, ‘ভালো দাম পেলে বিক্রি করব, না পেলে খামারে রেখে দিব। মাস খানেক যাওয়ার পর আরও পাঁচ-ছয়টা ষাঁড় গরু কিনে কালো মানিকের সঙ্গে লালন-পালন করতে শুরু করব। মাছ চাষের পাশাপাশি শখ করে গরু লালন-পালন করি। শখের বসেই গত পাঁচ বছর আগে ৬৫ হাজার টাকার বিনিময়ে কালো মানিককে কিনে এনে খামারে লালন-পালন করি। বর্তমানে কালো মানিকের ওজন ৩৭ মণ।’

এ খামারি আরও বলেন, ‘বর্তমানে মাংস ওজনে বিক্রি করলেও কালো মানিকের দাম ৯ লাখ টাকার ওপরে রয়েছে। তবে মাংসের জন্য এই গরু কখনও বিক্রি করবো না। শখের বশে যদি কোনও ব্যক্তি ভালোবেসে বেশি দামে কিনে নেয়, তাহলে তার কাছেই বিক্রি করবো।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

প্রেমিকের পরিকল্পনায় স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

প্রেমিকের পরিকল্পনায় স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

গৃহহীনদের এত ঘর দেয়নি কোনও সরকার: তথ্য প্রতিমন্ত্রী 

গৃহহীনদের এত ঘর দেয়নি কোনও সরকার: তথ্য প্রতিমন্ত্রী 

করোনার প্রতি লাশে ৩০০ টাকা করে নিতেন হাসপাতাল কর্মকর্তা! 

করোনার প্রতি লাশে ৩০০ টাকা করে নিতেন হাসপাতাল কর্মকর্তা! 

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৮ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৮ মৃত্যু

অটোরিকশা থেকে চাঁদা আদায় নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৩

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ০১:২২

কুড়িগ্রামের রাজীবপুরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও সিএনজি থেকে চাঁদা আদায়কে কেন্দ্র করে শ্রমিকদের দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১৩ জন আহত হয়েছেন।

শুক্রবার (৩০ জুলাই) দুপুরে উপজেলার বটতলা এলাকায় রৌমারী-রাজীবপুর-ঢাকা মহাসড়কে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রাজীবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাহারুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শ্রমিক সংগঠন সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে সিএনজি-অটোরিকশা শ্রমিকদের একটি পক্ষ শ্রমিক সংগঠনের নামে চালকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে আসছিল। চলমান লকডাউনে সড়কে যাত্রী কমে যাওয়ায় চালকদের একটি অংশ চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এ নিয়ে উভয় পক্ষের দ্বন্দ্বে গত ২৮ জুলাই হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। সেই সঙ্গে চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানানো চালকরা রাজীবপুর থানায় অভিযোগ দেয়। এরই জেরে শুক্রবার দুপুরে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

হামলায় আহত অটোবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা সমবায় কল্যাণ সমিতির সভাপতি শহীদ মিয়া বলেন, ‘চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানানোর কারণে শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকরা চালকদের ওপর হামলা চালায়। এতে আমার সংগঠনের অন্তত পাঁচ জন গুরুতর আহত হয়।’

চাঁদা আদায় বন্ধের দাবি জানিয়ে এই শ্রমিকনেতা বলেন, ‘সরকার ও প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানাই, চাঁদাবাজি যেন বন্ধ করা হয়। চাঁদাবাজি বন্ধ না হলে নিঃস্ব হয়ে পড়বে অটোচালকরা।’

লকডাউনে চাঁদা আদায় উচিত নয় জানিয়ে প্রতিপক্ষ সংগঠন সিএনজি-অটোরিকশা-টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবুল হোসেন বলেন, ‘লকডাউনে চাঁদা আদায়ের পক্ষে আমি নই। শ্রমিকদের নিষেধ করা হয়েছিল। কিন্তু কিছু শ্রমিক নির্দেশনা অমান্য করে চাঁদা আদায় করতে গেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এরপর থেকে চাঁদা আদায় করা হবে না।’

আবুল হোসেন আরও বলেন, ‘সংঘর্ষে আমার সংগঠনের অন্তত আট জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে গুরুতর আহত তিন জনকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

ওসি মোজাহারুল ইসলাম বলেন, ‘এখনও কোনও পক্ষ এ ঘটনায় অভিযোগ দেয়নি। তবে সংঘর্ষের ঘটনায় চার জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শ্রমিক সংগঠনের চাঁদা আদায় বন্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন, ‘চাঁদা আর আদায় করতে পারবে না, কখনও পারবে না।’

/এএম/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলায় ও রাস্তায় ঘোরাঘুরি করায় আটক ৪৪

ফুটবল খেলায় ও রাস্তায় ঘোরাঘুরি করায় আটক ৪৪

গাইবান্ধায় কাভার্ডভ্যান-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৪

গাইবান্ধায় কাভার্ডভ্যান-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৪

রংপুর মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

রংপুর মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেল দুই বন্ধুর

গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেল দুই বন্ধুর

ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন করায় বাবার জরিমানা

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ০১:৩০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেয়েছে ষষ্ঠ শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রী। শুক্রবার (৩০ জুলাই) দুপুরে ইউএনও রুমানা আক্তার উপজেলার মোগড়া ইউনিয়নের নয়াদিল গ্রামের বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হয়ে ১৩ বছর বয়সী ওই ছাত্রীর বিয়ে বন্ধ করে দেন। 

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ছাত্রীর বাবাকে বাল্যবিয়ের আয়োজন করায় দুই হাজার টাকা জরিমানা এবং আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে মেয়েকে বিয়ে দেবে না মর্মে মুচলেকা আদায় করেন।

এ সময় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য (মেম্বার) সহিদ মিয়া, নারী ইউপি সদস্য সাফিয়া খাতুন ও এলাকার অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

ইউএনও রুমানা আক্তার জানান, ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে শুক্রবার দুপুরে বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে সজীব মিয়ার (২৩) বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। লকডাউনের কারণে গোপনীয়ভাবে বিয়ের আয়োজন করা হয়।

তিনি আরও বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি জানতে পেরে দুপুরে বরপক্ষ আসার আগেই বাড়িতে উপস্থিত হয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দিই। মেয়ের বাবা বাল্যবিয়ের আয়োজনের কথা স্বীকার করায় তাকে দুই হাজার টাকা জরিমানা এবং আগামী পাঁচ বছর পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দেবে না মর্মে মুচলেকা আদায় করা হয়।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলায় ও রাস্তায় ঘোরাঘুরি করায় আটক ৪৪

ফুটবল খেলায় ও রাস্তায় ঘোরাঘুরি করায় আটক ৪৪

বিনামূল্যে অক্সিজেন পৌঁছে দেবে ছাত্রলীগ

বিনামূল্যে অক্সিজেন পৌঁছে দেবে ছাত্রলীগ

সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী হাসপাতালে

সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী হাসপাতালে

খুলনায় বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ১০৮ কোটি টাকার মাছ

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ০০:৩৯

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ ও পূর্ণিমার জোয়ারের প্রভাবে তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে বৃহত্তর খুলনার নিম্নাঞ্চল পানিতে ডুবে গেছে। এতে এখানকার মৎস্য ঘেরগুলোতে ১০৮ কোটি টাকার মাছের ক্ষতি হয়েছে। ২০০ হেক্টর আমন বীজতলা নষ্ট হয়েছে। অনেক ঘর-বাড়ি ও সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে।

খুলনা বিভাগীয় মৎস্য অধিদফতরের সহকারী পরিচালক রাজ কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘টানা বৃষ্টিতে খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরার অনেক মৎস্য ঘের তলিয়ে গেছে। এতে ১০৮ কোটি টাকার মাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

খুলনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল আলম জানান, জোয়ারের প্রভাবে এ অঞ্চলের নদ-নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে দেড় থেকে দুই ফুট বেড়েছে।

খুলনা কৃষি অধিদফতরের উপ-পরিচালক হাফিজুর রহমান জানান, বৃষ্টির পানিতে ২০০ হেক্টর জমির আমন বীজতলা ডুবে আছে।

বাগেরহাট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এ এস এম রাসেল বলেন, ‘বৃষ্টির পানিতে ভেসে গেছে ১৭ হাজার ঘের ও পুকুরের মাছ। এতে চাষিদের ক্ষতি হয়েছে প্রায় ১১ কোটি টাকা।’

পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবাল মন্টু বলেন, ‘টানা তিন দিনের ভারী বর্ষণে পাইকগাছার জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে চিংড়ির ঘের, রাস্তাঘাট, আমন বীজতলা ও ফসলি জমি। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক কাঁচা ঘরবাড়ি। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। তিন দিনের ভারী বর্ষণের ফলে পৌরসভাসহ ১০টি ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকা তলিয়ে গেছে।’

পাইকগাছা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শিয়াবুদ্দিন ফিরোজ বুলু বলেন, ‘বৃষ্টির পানিতে ভেসে একাকার হয়েছে চিংড়ির ঘের। বেশিরভাগ আমন বীজতলা পানিতে তলিয়ে রয়েছে। অনেক রাস্তাঘাটও তলিয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। ভারী বর্ষণে রাড়–লী মালো পাড়ার কয়েকটি কাঁচা ঘর কপোতাক্ষ নদের গর্ভে চলে যায়। এখানে চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে অনেকগুলো পরিবার। এরা অনেকটাই নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে। টানা তিন দিনের ভারী বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

এক সপ্তাহে ভারত থেকে এলো ৬০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন

এক সপ্তাহে ভারত থেকে এলো ৬০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন

কোয়ারেন্টিন ছাড়া ৩ ভারতফেরতকে রাখায় শেল্টার হোমে ভাঙচুর

কোয়ারেন্টিন ছাড়া ৩ ভারতফেরতকে রাখায় শেল্টার হোমে ভাঙচুর

সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর করোনায় আক্রান্ত

সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর করোনায় আক্রান্ত

বাগেরহাটে ভেসে গেছে ১১ কোটি টাকার মাছ

বাগেরহাটে ভেসে গেছে ১১ কোটি টাকার মাছ

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ০০:২১

নারায়ণগঞ্জে হেফাজতে ইসলামের হরতালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নাশকতা ও সহিংসতা চালানোর ঘটনায় করা মামলার আসামি আবজাল হোসেনকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১১। 

শুক্রবার (৩০ জুলাই) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার নিমাইকাশারী এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আবজাল ওই এলাকার লাল মিয়ার ছেলে। বিকালে র‍্যাব-১১ এর উপ-পরিচালক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মাহমুদুল হাসান প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‍্যাব জানায়, গত ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের ডাকা দেশব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মৌচাক, সানারপাড়, শিমরাইল এবং চিটাগাং রোড এলাকায় ব্যাপক সহিংসতা, গাড়ি ভাঙচুর, নাশকতা সৃষ্টি ও অগ্নিসংযোগ ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় র‌্যাব ও পুলিশ বাদী হয়ে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ছয়টি মামলা করে। গ্রেফতারকৃত আবজাল হোসেন এর মধ্যে এক মামলার অন্যতম এজাহারনামীয় আসামি।

 

/এএম/

সম্পর্কিত

ভবনের ফুটেজ সংগ্রহকালে চিত্র সাংবাদিকের ওপর হামলা

ভবনের ফুটেজ সংগ্রহকালে চিত্র সাংবাদিকের ওপর হামলা

ভাঙনে পদ্মার পেটে জমি-বসতঘর

ভাঙনে পদ্মার পেটে জমি-বসতঘর

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ১০১ বার পানিতে চুবানোয় মৃত্যু

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ১০১ বার পানিতে চুবানোয় মৃত্যু

সর্বশেষ

রুশ সমর্থিত আসাদ বাহিনীর ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় সিরিয়ায় নিহত ১৮

রুশ সমর্থিত আসাদ বাহিনীর ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় সিরিয়ায় নিহত ১৮

৫ আগস্টের আগে কারখানায় যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক নয়: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

৫ আগস্টের আগে কারখানায় যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক নয়: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

ঈদে বিক্রি না হওয়া ‘কালো মানিক’কে নিয়ে বিপাকে খামারি

ঈদে বিক্রি না হওয়া ‘কালো মানিক’কে নিয়ে বিপাকে খামারি

অটোরিকশা থেকে চাঁদা আদায় নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৩

অটোরিকশা থেকে চাঁদা আদায় নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৩

ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন করায় বাবার জরিমানা

ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন করায় বাবার জরিমানা

ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছে তুরস্ক

ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছে তুরস্ক

খুলনায় বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ১০৮ কোটি টাকার মাছ

খুলনায় বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ১০৮ কোটি টাকার মাছ

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

করোনা রোগীর চাপ ঢাকা মেডিক্যালে

করোনা রোগীর চাপ ঢাকা মেডিক্যালে

প্রতি শনিবার ১০ মিনিট সময় চান মেয়র আতিক

প্রতি শনিবার ১০ মিনিট সময় চান মেয়র আতিক

করোনায় প্রথম র‌্যাবের নারী সদস্যের মৃত্যু, মহাপরিচালকের শোক

করোনায় প্রথম র‌্যাবের নারী সদস্যের মৃত্যু, মহাপরিচালকের শোক

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব রটানোর অভিযোগে একজন গ্রেফতার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব রটানোর অভিযোগে একজন গ্রেফতার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

হেফাজতের হরতালে সহিংসতা মামলার আসামি গ্রেফতার

ভবনের ফুটেজ সংগ্রহকালে চিত্র সাংবাদিকের ওপর হামলা

ভবনের ফুটেজ সংগ্রহকালে চিত্র সাংবাদিকের ওপর হামলা

ভাঙনে পদ্মার পেটে জমি-বসতঘর

ভাঙনে পদ্মার পেটে জমি-বসতঘর

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ১০১ বার পানিতে চুবানোয় মৃত্যু

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ১০১ বার পানিতে চুবানোয় মৃত্যু

সৈয়দ আশরাফের ম্যুরাল ভাঙচুরকারী গ্রেফতার

সৈয়দ আশরাফের ম্যুরাল ভাঙচুরকারী গ্রেফতার

জমির ভাগ নিয়ে ছেলেদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় বাবার মৃত্যু

জমির ভাগ নিয়ে ছেলেদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় বাবার মৃত্যু

গৃহহীনদের এত ঘর দেয়নি কোনও সরকার: তথ্য প্রতিমন্ত্রী 

গৃহহীনদের এত ঘর দেয়নি কোনও সরকার: তথ্য প্রতিমন্ত্রী 

আড়াইহাজারে কবরস্থানে বোমাসদৃশ ৬ বস্তু ঘিরে রেখেছে পুলিশ

আড়াইহাজারে কবরস্থানে বোমাসদৃশ ৬ বস্তু ঘিরে রেখেছে পুলিশ

© 2021 Bangla Tribune