X
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

‘ভয়াল ২১ আগস্ট’

গ্রেনেড হামলায় মুখ্য ভূমিকা ছিল তারেকের: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ২২ আগস্ট ২০২১, ০১:৫০

বিএনপির চেয়ারপারসন ও তার ছেলে তারেক রহমান ২১ আগস্টের নারকীয় গ্রেনেড হামলায় মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিল বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিএনপি-জামায়াত চার দলীয় জোট সরকারের মন্ত্রী এবং সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তাদের নিয়ে এ ভয়াবহ হামলার ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল বলেও তিনি জানান।

‘ভয়াল ২১ আগস্ট’ শীর্ষক এক সাক্ষাৎকারে এ সব কথা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাক্ষাৎকারটি শনিবার (২১ আগস্ট) রাতে বিটিভিতে প্রচার হয়।  

প্রধানমন্ত্রী ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনা তুলে ধরে বলেন, বালাদেশে বিএনপি সরকারের আমলে সন্ত্রাসের অভয়ারণ্য সৃষ্টি হয়েছিল। তখন জঙ্গিবাদ, বাংলাভাইদের সৃষ্টি, সন্ত্রাস, বোমা-হামলা এসব প্রতিনিয়ত চলছিল। এসব ঘটনা তো ২০০১ সালের অক্টোবর থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত চলতে থাকে। ২০০৪ সালে যখন সিলেটে হযরত শাহজালালের মাজারে গ্রেনেড হামলা হয়, সেখানে ৩-৪ জন লোক মারাও যায়। ব্রিটিশ হাইকমিশনারও আহত হন। গ্রেনেড হামলা করে তাকে আহত করে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার প্রতিবাদে আমরা ২১ আগস্ট মুক্তাঙ্গনে সমাবেশ করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু সরকার অনুমতি দেয়নি। যখন দেয়নি তখন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আওয়ামী লীগ অফিসের সামনেই করবো। প্রস্তুতিও নিয়েছিলাম। তখন ঠিক আগের দিন রাতে আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে করার পারমিশন দেয়। সেখানেই সমাবেশ করি। বক্তব্য রেখে আমি মাইকটাও হাত থেকে রাখতে পারিনি এরইমধ্যে বোমার আওয়াজ। সঙ্গে সঙ্গেই আমার নেতাকর্মীরা আমাকে ধরে বসিয়ে দেয়। হানিফ ভাইয়ের কথা আমি বলবো। সে ছিল। তাছাড়া মামুন ছিল। সে ছুটে আসে। সবাই ওখানে ছিল। সবাই ট্রাকের মধ্যে আমাকে ঘিরে রাখে। একটার পর একটা গ্রেনেড... প্রথমে তিনটা তারপর তিনটা, এভাবে প্রায় এক ডজনের কাছাকাছি গ্রেনেড তারা ছোড়ে। সত্যি কথা বলতে কি, তখন নিজের কথা ভাবার চেয়েও আমার চিন্তা ছিল এতগুলো মানুষ আমরা ট্রাকের ওপরে আর আশেপাশে আমার দলের নেতাকর্মীরা সবাই। সে সময় কার যে কী অবস্থা কিছুই বুঝতে পারছি না। যখন একটা পর্যায়ে গ্রেনেড হামলা থামলো। আমাকে ঘিরে রেখেছিল বিশেষ করে হানিফ ভাই- তখন ঢাকার মেয়র। সব স্প্লিন্টার তার মাথায় লাগে। ওই রক্ত আমার কাপড়ে চলে আসে। সবাই মনে করে আমি আহত। আমি বললাম আমার কিছু হয়নি, কিন্তু আমার চশমাটা হারিয়ে যায়। ওখান থেকে আমাকে গাড়িতে নিয়ে আসা হয়। গাড়িতে উঠতে যাবো, আমার সঙ্গে একজন সেনাকর্মকর্তা মাহবুব, আমার ড্রাইভার, ও গেটটা খুলে দাঁড়ায় ঠিক সে সময় গুলি একটা চলে আসে। মাহবুব গুলিবিদ্ধ হয়ে ওখানেই মারা যায়। সেময় পুলিশ ওখানে লাঠিচার্জ শুরু করে, টিয়ার গ্যাস মারে, সেটা আমি পরে জানতে পেরেছি। নিজের কথা ভাবিনি, আমি জানি মৃত্যু যে কোনও সময় আসতে পারে। সন্ত্রাসবিরোধী সভা, আর সেখানে আমরা সন্ত্রাসের স্বীকার হলাম। সাধারণত মিটিং করতে গেলে ঘেরাও করে রাখে, আসতে বাধা দেয়। সেদিন কোনও প্রস্তুতিও নেই। আমাদের পার্টির ভলান্টিয়ার যারা সব সময় আমাদের মিটিংয়ে তারা ছাদে চলে যায় সেদিন। কিন্তু কাউকে যেতে দেয়নি, পুলিশ বাধা দিয়েছে। অর্থাৎ আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে যে ব্যবস্থাটা নিতে চাইলাম সেটা নিতে দেয়নি। হয়তো আল্লাহ আমার জীবনটা বাঁচিয়ে রেখেছে কারণ এরকম কয়েকবারই তো আমি এ ধরনের হামলার শিকার হয়েছি। হয়তো আমার হাত দিয়ে বাংলাদেশের জনগণের কিছু কল্যাণ আসবে, সেজন্য বেঁচে গিয়েছি। তাছাড়া আর কী!

আওয়ামী লীগকে কেন নেতৃত্ব শূন্য করার ষড়যন্ত্র? এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংগঠনটি গড়ে তুলেছিলেন এবং এই সংগঠনের জন্য তিনি মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন। তিনি বুঝেছিলেন, এ দেশ স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত বাঙালির মুক্তি নাই। তিনি যখন স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন তাকে তখন গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হলো। অর্থাৎ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার একটা প্রচেষ্টা তো ছিলই। তার কারণ জাতির পিতার হাতে গড়া এই আওয়ামী লীগকে নিয়েই তিনি বাঙালিকে ঐক্যবব্ধ করেছেন, সুসংগঠিত করেছেন। প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন। মুক্তিযুদ্ধ করে বিজয় অর্জন করেছেন। যারা আমাদের স্বাধীনতা চায়নি, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানিদের দোসর ছিলো, যারা পকিস্তানের সরকারকে সমর্থন করেছে, পদলেহন করেছে তারা এদেশের স্বাধীনতাই চায়নি। আওয়ামী লীগের ওপর তাদের ক্ষোভ এ জন্যই যে আওয়ামী লীগই এদেশের স্বাধীনতা, আন্দোলনে সংগ্রামে ভূমিকা পালন করেছে। পাকিস্তান পরাজিত হয়, সে জন্যই এত ক্ষোভ।

হামলার পর তখনকার বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আচরণ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া কিন্তু তার একটি বক্তব্যে একটা ম্যাসেজ দেয়। সে যখন বক্তৃতা দিলো আওয়ামী লীগ এক শ বছরে ক্ষমতায় আসতে পারবে না। আর একবার এক বক্তৃতায় বললো, শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী তো দূরের কথা বিরোধীদলের নেতাও হতে পারবে না। এর মধ্য থেকেই তো বোঝা যায় তার উদ্দেশ্যটা কী ছিল। আর এর সঙ্গে যে ওই সরকারের সবাই জড়িত ছিল এটা স্পষ্ট। তার ক্যাবিনেটের মন্ত্রী সালাম, পিন্টু এর সঙ্গে জড়িত, তখন ডিজিএফআই, এনএসআই-এর কর্মকর্তা, পুলিশের কর্মকর্তারা- তাদের নিয়েই এ চক্রান্ত করা হয়। তারচেয়ে বড় কথা যে, তার ছেলে তারেক রহমান, সে তো দীর্ঘদিন এই ষড়যন্ত্র, এটাকে কার্যকর করা, ষড়যন্ত্র তৈরি করায় মুখ্য ভূমিকা পালন করেছে। খালেদা জিয়া নিশ্চয়ই তার পেছনে ছিল এবং তাকে সমর্থন দিয়েছে। আর একটা কথা বলে রাখি, এই ঘটনার আগে তারেক জিয়া কিন্তু ৫ নম্বর (ধানমণ্ডি) রোডে তার শ্বশুড়বাড়িতে অবস্থান করেছে অনেক দিন বা কয়েক মাস। আর ঠিক আগস্টের আগে সেই বাড়ি ছেড়ে চলে যায় ক্যান্টনমেন্টের ভেতর। তখন আমার কাছে একটা খবর ছিল যে, ও এই জায়গায় বসে বসে কিছু একটা পাকাচ্ছে। যেমন রমনার বটমূলে বোমা হামলা এবং উদীচীর মিটিংয়ে বোমা হামলা এবং এ রকম আরও অনেকগুলো বোমা হামলা, আওয়ামী লীগের নেতাদের ওপর হামলা- এ হামলাগুলো যে একে একে হচ্ছে ওই সময় কিন্তু তারেক জিয়া ওখানে। হাওয়া ভবন... সেখানে যত ধরনের দুর্নীতির আখড়া আর এ ধরনের যত চক্রান্ত সব সেখানে বসে করা- এটাই ছিল তার কাজ। গ্রেনেড হামলার পর একটা গ্রেনেড অবিস্ফরিত ছিল। একজন সেটা রেখে দিতে চেয়েছিলেন যে পরে মামলার কাজে লাগবে। কিন্তু খালেদা জিয়া শোনার সঙ্গে সঙ্গে ধমক দিয়েছে- না ওটা রাখা যাবে না। মানে যেন ধ্বংস করে দেওয়া হয়। সিটি করপোরেশনের গাড়ির পানি দিয়ে সব আলামত ধুয়ে ফেলা হয়। তারপর একটা তদন্ত কমিশন করলো। কমিশন রিপোর্ট দিলো কি- পাশের দেশ থেকে এসে এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

সে সময়কার সংসদে ঘটনা তুলে ধরতে বাধা দেওয়া প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দলের এতজন এমপি আহত। আইভি রহমান নিহত হয়েছেন। আরও অনেত নেতাকর্মী নিহত হয়েছেন। অনেক এমপি আহতাবস্থায় চিকিৎসাধীন। আমরা যারা ছিলাম কথা বলতে চেয়েছিলাম, কথা বলতে দেবে না পার্লামেন্টে। আলোচনাই করতে দেবে না। খালেদা জিয়াতো বলেই বসলো ওনাকে আবার কে মারতে যাবে। তার এবং তার নেতাদের বক্তব্য হচ্ছে উনিতো নিজেই ভ্যানিটি ব্যাগে করে গ্রেনেড নিয়ে গিয়েছিলেন। আমিতো ব্যাগ ছাড়াই মঞ্চে উঠেছি। তা হলে গ্রেনেডটা নিলাম কীভাবে। আর গ্রেনেড মারতে এতটা পারদর্শীই বা হলাম কীভাবে? আর এটা হলো আর্জেস গ্রেনেড। যেটা যুদ্ধক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এটা পাকিস্তান থেকেই আসা, যেটা তদন্তে পরে বের হয়েছে। কাজেই সবকিছুতেই যে তাদের সম্পৃক্ততা ছিল সেটা বোঝাই যায় এবং ওই দিন খালেদা জিয়া কোথায় ছিল? খালেদা জিয়া এবং তারেক জিয়া কিন্তু ঢাকায় ছিল না। একজন লক্ষীপুরে আরেকজন গোপালগঞ্জে। আর এই ধরনের জঘন্য কাজ- দিনের বেলায় একটি রাজনৈতিক দলের জনসভায় প্রকাশ্য হামলা আমার মনে হয় পৃথিবীতে আর হয়নি। রণক্ষেত্রে যা ব্যবহার করে তা তারা ব্যবহার করলো সাধারণ মানুষের ওপর, একটা দলের ওপর।

ওই দিন তাকে হত্যার মিশন সফল হলে বাংলাদেশের অবস্থা কী হতো জানতে চাওয়া হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সবাই এটা বিশ্বাস করে। কারণ ওই সময় খালেদা জিয়ার আমলেই যেভাবে সন্ত্রাসীদের মদদ দেওয়া হয়েছে। রাজশাহীতে প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে বাংলাভাই মিছিল করেছে। পুলিশ তাদের পাহাড়া দিচ্ছে। বিএনপি নেতারা মদদ দিচ্ছে। নাটোর, রাজশাহীর বিএনপির বহু নেতা প্রকাশ্যে এদের মদত দানকারী। পরে জঙ্গিবাদ যেভাবে বিস্তার লাভ করে কিবরিয়া সাহেবের জনসভায় গ্রেনেড হামলা করে তাঁকে হত্যা করা হলো; সুরঞ্জিত সেনের মিটিংয়ে বোমা হামলা হলো; সিলেটে কামরানের মিটিংয়ে আরেকবার বোমা, গ্রেনেড হামলা হলো- শুধু তাই নয় এভাবে সারা বাংলাদেশে চলছিল। ১৭ আগস্ট একটা দিনে সারা বাংলাদেশের পাঁচ শ’ জয়গায় বোমা হামলা হলো। আমাদের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৬৩টি জেলায় বোমা হামলা হয়েছে। ঢাকা সিটিতে ৩৫ জায়গায় বোমা হামলা হয়। সে সময় আমি টুঙ্গীপাড়ায়। ঠিক ১১টার দিকে আমি একটা ফোন পেলাম দিনাজপুর থেকে আমাদের এক কর্মী ফোন করেছে- আপা আমাদের এখানে বোমা হামলা হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে আরও কয়েকটা জেলা থেকে ফোন আসছিল। এমনকি গোপালগঞ্জ থেকেও ফোন আসছিল। সেখানেও বোমা হামলা হয়েছে। একথা শোনার পর সঙ্গে সঙ্গেই রওয়ানা হয়ে গেলাম।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনাদের একটা জিনিস আমি লক্ষ্য করতে বলি। একমাত্র মুন্সীগঞ্জে তখনও কিন্তু বোমা হামলাটা হয় নাই। আমার কিন্তু মুন্সীগঞ্জ থেকেই আসার কথা ছিল। আমি এসেছিলামও মুন্সীগঞ্জ দিয়ে। কিন্তু ওরা সময়টা হিসাব করতে পারে নাই। কারণ, আমার রওনা হওয়ার কথা টুঙ্গিপাড়া থেকে বিকাল ৩টার থেকে ৪টার দিকে এবং সেই হিসাবে আমার মুন্সীগঞ্জ পৌঁছাতে বিকেল ৫টা বা ৬টা বাজার কথা। কিন্তু আমি রওনা হয়ে গিয়েছি ১১টায়। ওই খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমি সাড়ে ১১টার মধ্যে রওনা হয়ে গিয়েছি। আমাকে অনেকে ফোনে মানা করেছে যে ঢাকার সব জায়গায় বোমা। কোথায় যে বোমা পড়বে ঠিক নাই। আপনি এই সময় মুভ করবেন না, আপনি থাকেন। আমি বলি এই সময় আমাকে ঢাকায় যেতেই হবে। আমাকে থাকতেই হবে ঢাকায়। কারণ, এতগুলো জেলা থেকে খবর আসছে একটার পর একটা ফোন আসছে। ঢাকায় না থাকলে তো আমি কিছু করতে পারবো না। আমি সরাসরি রওনা হয়ে চলে আসি। ওটাও যদি কেউ একটু চিন্তা করে যে সব জেলায় হলো ওখানে হলো না। কারণ, নিশ্চয়ই তাদের ওটা একটা প্ল্যান ছিল যে আমি যখন আসবো, তখন হবে, মারবে বা কিছু করবে। কারণ, আমার যে সময় ফেরি ধরার কথা ওটার একটা হিসাব তাদের ছিল। কিন্তু, আমি তার আগেই চলে এসেছি। নরমাল যেই রাস্তা দিয়ে আসি সেভাবে না এসে আমি সোজা বিডিআরের ভেতর দিয়ে ঢুকে সুধা সদনে ঢুকি।

শেখ হাসনা বলেন, বিএনপি আমলে তো তারা একটা সন্ত্রাসী দেশ করেই ফেলেছিল এবং এতে বহু লোক তালেবানের ট্রেনিং নিয়ে চলে যায় আফগানিস্তানে। সেই মুফতি হান্নান নিজেইতো ট্রেনিং নিয়ে এসেছে। তারপর এই তাজউদ্দিন, আরেকজন যে সেও তো ট্রেনিং নেওয়া। এরা তো সব বিএনপির লোক। তাজউদ্দিন তো বিএনপির খাস এবং গ্রেনেড হামলার পর ওই দিন রাত ১১টার সময় চার জনকে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সে তুলে দেয়। বিশেষ ব্যবস্থায় তারা চলে যায় এবং সেখানে কিন্তু ডালিম আর রশীদও ছিল।জাতির পিতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের হত্যার সঙ্গে যে জিয়াউর রহমান জড়িত এবং তার স্ত্রী যে তারই পদাঙ্ক অনুসরণ করে চলেছে এবং ছেলেকেও সেই একই পথে নামিয়েছে এটা তো স্পষ্ট।শুধু ২১ আগস্ট নয়, আপনাকে হত্যার জন্য ২০ থেকে ২২ বার হামলা করা হয়েছে। এই যে এতবার হামলা, এত আক্রোশ কেন আপনার ওপর? এরা কারা? জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি ১৯৮১ সালে বাংলাদেশে পা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যেখানেই গেছি সেখানে আমাকে বাধা দেওয়া হয়েছে। আমি যখন খুলনার থেকে রাজশাহী রওনা হলাম এত মানুষ! মানুষের ঢল সব জায়গায়। কারণ ১৫ আগস্টের পর মানুষ কিছু বলতে পারেনি। কিন্তু আমি আসার পরে মনে হলো মানুষের একটা জোয়ার চলে আসলো। আমাদের পথে পথে মিটিং করতে করতে এত সময় লাগলো যে রাত ১১টার দিকে আমি ঈশ্বরদীতে গিয়ে মিটিং করি। যে মিটিং আমার বিকালে করার কথা। নাটোরে ঢুকবো, নাটোরে আমার মিটিংয়ের মঞ্চ ভেঙে দিলো, আগুন দিয়ে পোড়ালো। আমাদের নেতাকর্মীদের ধান ক্ষেতে, এখানে সেখানে মেরে ফেলে রেখে দিলো। এটাতো আমি যখন আসছি ওই সময়েই। আমি মে মাসে এসেছি, এটা বোধ হয় জুন বা জুলাইয়ের ঘটনা। এইভাবে কিন্তু সব সময় তারা আমাকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছে।

তিনি বলেন, ১৫ আগস্টের পর আমাদের দেশে আসতে দেওয়া হয়নি। জিয়াউর রহমান রেহানার পাসপোর্টটা রিনিউ করতে দেয়নি। যেহেতু আমি দিল্লিতে ছিলাম সেখানে বাংলাদেশের হাইকমিশনার ছিলেন শামসুর রহমান সাহেব, সিএসপি অফিসার। আমাদের পাসপোর্টটা তিনি রিনিউ করে দিয়েছিলেন। আমরা যাতে দেশে আসতে না পারি সেই বাধা ছিল। তারপরে যখন আওয়ামী লীগ আমাকে সভাপতি নির্বাচিত করে তখন তো আমি সিদ্ধান্ত নেই চলে আসবোই। তারপর স্বাভাবিকভাবে ওই স্বাধীনতাবিরোধী গোষ্ঠী যে গোষ্ঠীটা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে, বুদ্ধিজীবী হত্যা করেছে, গণহত্যা করেছে, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে নিয়ে গেছে, মেয়েদের ওপর পাশবিক অত্যাচার করিয়েছে; এই শক্তিটাই তো জিয়ার আমলে মাথাচাড়া দিয়ে উঠলো।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের সংবিধানে যেমন জাতির পিতা যেটা উপহার দিলেন মাত্র ৯ মাসের মধ্যে। সেখানে আমাদের গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা-এগুলোতো আমাদের উল্লেখ করা ছিল। কারণ, তখন এসে গেছে মার্শাল ল। মার্শাল ল তো আর গণতন্ত্র না। কাজেই গণতন্ত্রও চলে গেলো, ধর্মনিরপেক্ষেতা, সমাজতন্ত্র সবই গেলে। অর্থনৈতিক মুক্তিটুক্তি সবই বাদ। এই যে পরিবর্তনটা এটা কাদের খাতিরে করা? ওই পরাজিত পাকিস্তানি শক্তি, তাদেরই তোষামোদি খোশামোদি, তাদেরই পদলেহনকারী; যারা আমাদের সংবিধানকে ক্ষতবিক্ষত করে বাংলাদেশের যে মূল আদর্শ, যে লক্ষ্য, যে গরিবের জন্য কাজ করা, দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো সেটাই তারা করতে চায়নি। বরং ক্ষমতায় গিয়ে ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে একটা এলিট শ্রেণি তৈরি করে তাদের দিয়ে দেশ চালানো বা তাদের নিয়ে ক্ষমতায় থাকা এবং আবার বাংলাদেশ ওই পাকিস্তানি একটা প্রদেশ হয়ে যাক সেটাই ছিল তাদের মানসিকতা।

তিনি বলেন, ‘জিয়াউর রহমান তো পাকিস্তানি আর্মিতে যোগদান করেছিল এবং তার বাপ মা’র কবরও কিন্তু পাকিস্তানে। তারা কিন্তু ইন্ডিয়া থেকে পাকিস্তানেই চলে এসেছিল। তারা কিন্তু বাংলাদেশে বিশ্বাস করতো না। জিয়াউর রহমান কোনোদিন তা বিশ্বাস করেনি, সেটা হলো বাস্তবতা। তার সঙ্গে যারা আমাদের স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি এবং যাদের যুদ্ধাপরাধী হিসেবে আমরা শাস্তি দিলাম। যাদের শাস্তি শুরু হয়েছিল জিয়াউর রহমান এসে বিচার বন্ধ করে দেয়। বিচার বন্ধ করে দিয়ে তাদের ক্ষমতায় বসায়। মন্ত্রী, উপদেষ্টা বানায়। সেই যুদ্ধাপরাধীরা, তাদেরই রাজত্ব হয়ে যায়, তারাই দেশ চালায়। যেই আদর্শ নিয়ে লাখো শহীদ রক্ত দিলো যে লক্ষ্য নিয়ে, সেটা তো সম্পূর্ণ অস্বীকার করলো।

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পুরো ইতিহাসইতো বিকৃত করা হয়ে গিয়েছিল। আমি আসার পরে স্বাভাবিকভাবে সেই বাস্তবতাটা তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। সেই আদর্শটাকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেছি। দেশকে অর্থনৈতিকভাবে উন্নত করে দেশ যেন মর্যাদাপূর্ণ একটা দেশ হয় সেই চেষ্টা করেছি। আর এদের প্রচেষ্টা কী ছিল, তারা মনে করতো বাংলাদেশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এটা যেন কোনোদিন আর মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে। অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে না পারে। বাংলাদেশ কোনোদিন যেন আর বিশ্ব দরবারে মর্যাদা না পায় বা স্বাধীনতা যেন অর্থবহ না হয়। এটাইতো আসল উদ্দেশ্য ছিল তাদের। এটাই তো তাদের মূল। সে জন্যই তাদের এই প্রচেষ্টা ছিল।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর থেকে তো বাংলাদেশ আজকে এগিয়ে গেছে। আমরা যদি মাত্র ১২ বছরের মধ্যে বাংলাদেশকে একটা উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করতে পারি তাহলে জাতির পিতা বেঁচে থাকতেন তো ৪০ বছর আগেই আমরা সেটা অর্জন করতে পারতাম। আমি এসে সেই আদর্শ নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু তারাতো সেটা চায়নি। তারা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস করে সেই তালেবান এবং সেই সময় কিন্তু একটা স্লোগান চলতো বাংলাদেশে আমি কোট করছি, ‘আমরা সবাই তালেবান বাংলা হবে আফগান’ আজকে আফগানিস্তানের অবস্থাটা দেখেই তারা দেখুক যে সেখানকার অবস্থাটা কী। সেটাই বাংলাদেশে করতে চেয়েছিল। যেটা হয়তো আমরা আছি বলে পারেনি। এটা আমাদের দেশের মানুষকেও আরও বুঝতে হবে। বিশেষ করে আমি বলবো, আমাদের তরুণ সমাজকে ইতিহাস এবং শিকড়ের সন্ধান করে তাদের সেই আদর্শ নিয়েই চলতে হবে, যেন এই লাখো শহীদের রক্ত বৃথা না যায়। আর এ দেশের মানুষের জন্য তো আমার মা-বাবা সবাই জীবন দিয়ে গেছেন। আমার বাবার তো জীবনে কোনও চাওয়া পাওয়া নেই। তিনি তো যা কিছু করেছেন এ দেশের মানুষের জন্যই করে গেছেন।

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, হ্যাঁ, বারবার আঘাত এসেছে। সেই ৮১ সালে আমি বাংলাদেশে নামার পর থেকেই আমার ওপর হামলা হচ্ছে। আর আল্লাহ আমাকে কীভাবে যেন বাঁচিয়ে দিচ্ছেন। হয়তো আল্লাহ সবার জন্য কিছু কাজ লিখে দেয়। হয়তো আমার ওপরে এই দায়িত্বটা আছে যে এই বাংলাদেশটাকে যেই মর্যাদাটা হারিয়ে গেছে সেই মর্যাদাটা ফিরিয়ে দেওয়া। আর এই গরিব দুঃখী মানুষের জন্য আমার আব্বা যে কাজ করতে চেয়েছিলেন সেটা যেন হয়। এটাই বোধ হয় আল্লাহর ইচ্ছা। আর সেটা যেন আমার হাত দিয়ে হয়। আল্লাহ সেটা চাচ্ছিলেন বলেই বারবার আমাকে হামলা থেকে বাঁচিয়েছেন এবং এই যে আমি যতটুকু সফলতা অর্জন করছি বা যতটুকু বাংলাদেশের জন্য করতে পারছি বা বাংলাদেশের গরিবের জন্য করতে পারছি এটাও আমি মনে করবো যে, একদিকে আমার দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, অপরদিকে বাংলাদেশের জনগণ এবং ওপরে আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের ইচ্ছায়। এটাই হলো বাস্তবতা। তা না হলে আমার তো এ দেশে থাকার কথা না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এখানে খুনিরা অবাধে চলছে। জিয়াউর রহমান তাদের পুরষ্কৃত করেছে। তাদের সংসদ সদস্য করা হয়েছে। তাদের সব রকমের বিদেশি দূতাবাসে চাকরি দিয়ে পুরষ্কৃত করা হয়েছে। সেই খুনিদের একজনকে প্রেসিডেন্সিয়াল ক্যান্ডিডেট করা হয়েছে। যেখানে এই রকম অবস্থা, রশীদকে খালেদা জিয়া এমপি বানালো। রশীদ এবং হুদাকে সংসদ সদস্য বানিয়ে নিয়ে আসলো। ফারুককে এরশাদ প্রেসিডেন্সিয়াল ক্যান্ডিডেট করলো। জিয়াউর রহমান তাদের বিভিন্ন দূতাবাসে, কূটনৈতিক মিশনে চাকরি দিয়ে পুরষ্কৃত করলো। সেই দেশে কীভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থাকে? এরা তো বাংলাদেশটাকেই জঙ্গি রাষ্ট্র করতে চেয়েছিল।

তিনি বলেন, যাই হোক আমি দেশবাসীকে এটা বলবো যে তাদের সচেতন থাকতে হবে। আমরা ওই আফগান হতে চাই না। বাংলাদেশ বাংলাদেশই হবে। বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। হ্যা, আল্লাহ যতদিন হায়াত দিয়েছে ততদিন বেঁচে থাকবো। মৃত্যু তো অবধারিত। ‘জন্মিলে মরিতে হবে অমর কে কোথা কবে? চিরস্থির কবে নীড় হায়রে জীবন নদে’। এটা তো কবি বলে গেছেন। আর সেটাই আমি মনে করি। একবার যখন জন্মেছি মরতে হবেই। আজকে মরি, কালকে মরি সবই আল্লাহর ইচ্ছা। আল্লাহ একদিন জীবন দিয়েছেন তিনি যেদিন ইচ্ছা জীবন তুলে নেবেন। কাজেই, এ নিয়ে আমার কোনও চিন্তা, দুশ্চিন্তা নাই। আমি একটাই চিন্তা করি, সকালে উঠে ভাবি, একটা দিন পেলাম। অন্তত দেশের মানুষের জন্য একটু কাজ করতে পারবো। ব্যাস, এইটুকুই।

তার ওপর বার বার হামলার পরও তিনি লক্ষ্য থেকে বিচ্যুত হননি এ সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা আমার আব্বার কাছ থেকে শিখেছি। মার কাছ থেকে শিখেছি। এই দেশের মানুষ ক্ষুধার্ত, তাদের ছিন্ন কাপড়, ঘর নাই, চিকিৎসা নাই, শিক্ষা নাই। আমি ৮১ সালে এসে সারা বাংলাদেশ যখন ঘুরেছি ওই একই দৃশ্য। ঠিক যেই দৃশ্য দেখে আমার বাবা এই দেশ স্বাধীন করেছিলেন। কিন্তু তাকে তো করতে দেওয়া হলো না। একটা যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশ গড়ে তুলে তিনি যখন দেশটাকে কেবল অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন সেই সময় কিন্তু ঘাতকের দল হত্যাটা করলো। কারণ, তারা দেখলো যে এই বাংলাদেশকে আর থামানো যাবে না। তাকে শেষ করে দিলো অর্থাৎ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে শেষ করতে পারলেই আটকানো যাবে। ঠিক সেটাই হলো। ২১টা বছর বাংলাদেশের মানুষের কী অবস্থাটা ছিল। কোনও পরিবর্তন তো হয়নি। তারপরে আমরা সরকারে আসার পর থেকে যখন কাজ করেছি আস্তে আস্তে সেই বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার জনগণের সেবক, আমরা ঠিক সেই সেবা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। দ্বিতীয় পর্যায়ে (ক্ষমতায়) এসে বাংলাদেশকে আমরা অর্থনৈতিকভাবে উন্নয়নশীল করতে পেরেছি এবং আজকে আমাদের লক্ষ্য দারিদ্র বিমোচন। মুজিববর্ষ আমরা উদযাপন করছি। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছি। আমার তো একটাই কথা যে একটা মানুষও গৃহহারা থাকবে না। এটা আমার মনের শক্তি, যেটা ছোটবেলার থেকে বাবা মায়ের কাছে শেক্ষা। আর আল্লাহর ওপর ভরসা রেখেছি সব সময়। বাংলাদেশের জনগণের কাছ থেকে যে ভালোবাসা আমি পেয়েছি বা তাদের যেই সমর্থনটা পেয়েছি। কারণ বাবা-মা, ভাই-বোন সব হারিয়ে যখন একা আসলাম, (৮১ সালে বাংলাদেশে ফেরার সময়) আমার ছোট দুটো বাচ্চাকে রেহানার কাছে দিয়ে আসলাম। একজন ১০ বছরের, একজন ৮ বছরের। তাদের তো মায়ের আদর থেকে বঞ্চিত করেছি। আমি আসলাম বাংলাদেশের জনগণের জন্য।

তিনি বলেন, আমি বলবো যে, আমার শক্তি বাংলাদেশের জনগণ। আমার সাহস আল্লাহ রাব্বুল আলামিন। আর শিক্ষা আমার বাবা মা’য়ের।

২১ আগস্ট যারা নিহত হয়েছিলেন তাদের পরিবারবর্গ বা যারা আহত হয়েছিলেন তাদের জন্য কী কী কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে জানতে চাওয়া হলে শেখ হাসিনা বলেন, প্রত্যেকের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা, যারা মারা গিয়েছে সেই পরিবারকে সাহায্য করা হয়েছে। ধন্যবাদ সেই সময় যারা এগিয়ে আসছেন, আমাদের ফান্ডে টাকা দিয়েছেন। আমরা আলাদা একটা অ্যাকাউন্ট করে সবাইকে সাহায্য করেছি। তাছাড়া সব চিকিৎসার জন্য দেশে বিদেশে পাঠিয়ে আমরা চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি। বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট থেকে আমি তাদের এখন পর্যন্ত চিকিৎসার জন্য টাকা দিয়ে যাচ্ছি। অনেক পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিচ্ছি। যারা মারা গেছে ঢাকা শহরে তাদের সবাইকে ফ্ল্যাট কিনে দিয়েছি। তাছাড়া, যারা নিজের দেশে আছে সে দেশে ঘরবাড়ি তৈরি করে দেওয়া, তাদের জীবন জীবিকার জন্য আর্থিক সহায়তা দেওয়া, ছেলে মেয়েদের পড়াশোনার ব্যবস্থা করাসহ সব রকম সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি। এর মধ্যে পরবর্তীতে যারা আহত ছিল অনেকেই মারা গেছেন। কিন্তু, তারপরও তাদের ছেলে মেয়েদের জন্য যা যা সহযোগিতা করার আমরা করে যাচ্ছি।

২১ অগস্টের বিয়োগান্তক দিনে দেশবাসীর উদ্দেশ্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশবাসীকে এটাই বলবো, আমি যতক্ষণ বেঁচে আছি দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যাব। কারণ, আমি তো দেশের মানুষের কাছে ওয়াদা দিয়েছি, এই বাংলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য যেভাবে আমার বাবা মা জীবন দিয়ে গেছেন। এ দেশের মানুষের জন্য আমি সেভাবে আমার জীবন দিতেও সব সময় প্রস্তুত। আমি মৃত্যুকে ভয় করি না। উপরে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন, তাকেই ভয় করি এবং তারই দোয়া আর জনগণের সমর্থন। জনগণের দোয়া নিয়েই আমি চলি। কাজেই আমার এই পথ চলায় আমার একটাই লক্ষ্য যে বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করে এই বাংলাদেশকে একটা উন্নত, সমৃদ্ধ, সুখী বাংলাদেশ করবো। কাজেই, এ ক্ষেত্রে দেশবাসীর সহযোগিতা চাই, দোয়া চাই এবং সবাই ভালো থাকেন, সুস্থ থাকেন সেটাই আমি চাই।

/ইএইচএস/এফএ/আইএ/এফএএন/

সম্পর্কিত

‘খালেদা জিয়ার অন্তরে সবসময়ই ছিল পেয়ারে পাকিস্তান’

‘খালেদা জিয়ার অন্তরে সবসময়ই ছিল পেয়ারে পাকিস্তান’

কুমিল্লা নামে বিভাগ হবে না: প্রধানমন্ত্রী  

কুমিল্লা নামে বিভাগ হবে না: প্রধানমন্ত্রী  

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২৩ অক্টোবরের ঘটনা।)

 

অতীতের বিরোধ ও সংঘাতময় পথের পরিবর্তে শান্তি ও সহযোগিতার নতুন ব্যবস্থা গড়ে তোলার প্রচেষ্টা চলছে। আমাদের সকলের উচিত এ প্রচেষ্টাকে সাফল্যমণ্ডিত করার জন্য আত্মনিয়োগ করা। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালের এই দিনে এ আহ্বান জানান।

তিনি ঘোষণা করেন, তার দেশ—এশিয়া তথা বিশ্বের স্থায়ী শান্তি এবং সমৃদ্ধির জন্য প্রতিটি ফলপ্রসূ পদক্ষেপকে অকুণ্ঠ সমর্থন জানিয়ে যাবে। জাপানে ছয় দিনব্যাপী রাষ্ট্রীয় সফরের এদিনে জাপান প্রেসক্লাবে আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজ সভায় ভাষণ প্রদানকালে বঙ্গবন্ধু এই ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, ‘বস্তুত এই জাতীয় ব্যবস্থা গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা অনুধাবন উৎসাহব্যাঞ্জক লক্ষণ। ইতোমধ্যে দেখা যাচ্ছে ভারত মহাসাগরকে পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত এলাকা ঘোষণায় পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। শান্তি, স্বাধীনতা ও নিরপেক্ষ অঞ্চলে পরিণত করার জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াকে নিরপেক্ষ করার প্রস্তাবের মধ্যে আমরা এর কিছু আভাস পাই। তবে এই জাতীয় পরিকল্পনা কার্যকর করার জন্য নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। যাতে এটা বাস্তব রূপে দেখা দেয়। এই জাতীয় প্রচেষ্টার প্রতি আমাদের অবশ্যই পূর্ণ সমর্থন দিতে হবে।’

দৈনিক বাংলা, ২৪ অক্টোবর ১৯৭৩

দিল্লিচুক্তি নিয়ে যা বললেন বঙ্গবন্ধু

উপমহাদেশে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়া ও উপমহাদেশে স্থায়ী শান্তি স্থাপন এবং সকল অমীমাংসিত বিরোধ নিষ্পত্তির মাধ্যমে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের চেষ্টা আমরা চালিয়ে যাচ্ছি। দিল্লিচুক্তি এই প্রচেষ্টারই ফল। আনন্দের সঙ্গে আমি জানাতে চাই যে, এই চুক্তি বাস্তবায়নের কাজ সন্তোষজনকভাবে এগিয়ে চলছে। এই চুক্তি কার্যকর করার ব্যাপারে আমাদের দিক থেকে চেষ্টার ত্রুটি হবে না। এ ব্যাপারে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কাছ থেকে যে সাহায্য আমরা পেয়েছি তা সত্যিই প্রশংসনীয়। দিল্লিচুক্তিতে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর মধ্যকার অমীমাংসিত আলোচনার মাধ্যমে নিষ্পত্তির একটা ব্যবস্থা রয়েছে। তাই এই চুক্তির পরিপন্থী যুক্তির সঙ্গে সামঞ্জস্যহীন যে কোনও কার্যক্রম সম্পর্কে স্বাভাবিকীকরণ প্রচেষ্টা এবং শান্তির অন্বেষণ ব্যাহত হতে বাধ্য।’

বঙ্গবন্ধু বিশ্বের সকল দেশ, বিশেষ করে এশিয়ার প্রতিবেশীদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলার ব্যাপারে বাংলাদেশের ঐকান্তিক আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন। পশ্চিম এশিয়ার বিস্ফোরণমুখী পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বঙ্গবন্ধু বলেন, আরবদের এলাকা দখলমুক্ত করে পশ্চিম এশিয়ার ন্যায়সঙ্গত সমাধান না পাওয়া পর্যন্ত এশিয়া তথা বিশ্বের শান্তি ফিরে আসবে না।

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রাম চলাকালের দুঃসময়ের দিনে জাপান সরকার এবং দেশটির জনগণ বাংলাদেশের জনগণের জন্য যা কিছু করেছেন তার জন্য জনসাধারণ, সরকার ও ব্যক্তিগতভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ডেইলি অবজারভার, ২৪ অক্টোবর ১৯৭৩

তোপের মুখে যুদ্ধবিরতি চুরমার

মধ্যপ্রাচ্যে বিরতি ঘোষণার পরও যুদ্ধ থামেনি। তোপের মুখে যুদ্ধবিরতি খান খান হয়ে গেছে। কামানের গর্জন আর যুদ্ধবিমানের বোমাবর্ষণে যুদ্ধবিরতি ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। দুটো রণাঙ্গনে প্রচণ্ড যুদ্ধ চলছে। মিসর-ইসরায়েল পরস্পরের বিরুদ্ধে অসংখ্যবার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগ এবং আত্মরক্ষার্থে আবার যুদ্ধ শুরুর কথা বলেছে।

ওদিকে ইসরায়েলের মুরুব্বি খ্যাত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিক্সন ইসরায়েলিদের বীরত্বে পুলক ও আনন্দ প্রকাশ করেন এবং দখল করা এলাকা ধরে রাখার পরামর্শ দেন। মধ্যপ্রাচ্য বার্তা সরবরাহ প্রতিষ্ঠান বলেছে, মিসরে ইসরায়েলিদের মধ্যে ঘোরতর যুদ্ধ শুরু হয়েছে। উভয়পক্ষ চলতি লড়াইয়ের সবচেয়ে মারাত্মক ও প্রচণ্ড যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে। শত শত ট্যাংক সাজোয়াঁ গাড়ি এবং অগণিত জঙ্গি বোমারু বিমান নিয়ে মিসরীয় বাহিনী সুয়েজ খাল এলাকায় শত্রুর ওপর আঘাত হানছে। সিরীয় ফ্রন্টে এদিন প্রচণ্ড আকাশযুদ্ধ হয়।

 

খুলনায় প্রথম ব্যাংক ডাকাতি

স্বাধীনতার পর খুলনায় এদিন প্রথম ব্যাংক ডাকাতি হয়। এদিন দুপুরে অগ্রণী ব্যাংকের দৌলতপুর শাখায় এ ডাকাতি হয়। ডাকাতরা ব্যাংক থেকে প্রায় ১ লাখ টাকা লুটে নিয়ে নিরাপদে সরে পড়ে। ৫ জন সশস্ত্র তরুণ সাবেক কমার্স ব্যাংক বর্তমানে অগ্রণী ব্যাংকের দৌলতপুর শাখা অফিসে ঢুকে প্রথমেই টেলিফোনের তার কেটে দেয়। তারপর প্রায় এক লাখ টাকা নিয়ে তারা সরে পড়ে। উল্লেখ্য, ব্যাংকটি খুলনা দৌলতপুর সড়কে অবস্থিত। একই ধরনের দুস্কৃতকারীরা চলতি মাসে দৌলতপুরে আরো তিনটি অপরাধ ঘটিয়েছে। তবে পুলিশ এসব অপরাধীদের ধরতে পারেনি।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:৫০

খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত হয়। পরে দলটির দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হয়।

 

প্রার্থী তালিকা

খুলনা বিভাগের মেহেরপুর জেলার সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নে মো. ইদ্রিস আলী, বুড়িপোতা ইউনিয়নে মো. শাহ্ জামান, গাংনী উপজেলার কাজীপুরে মো. রেজাউল হক, ষোলটাকায় মো. দেলবার হোসেন, ধানখোলায় মো. আব্দুর রাজ্জাক, রায়পুরে মো. গোলাম সাক লায়েন, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নে মো. আশরাফুজ্জামান, খাস মথুরাপুরে সর্দ্দার হাশিম উদ্দিন, ফিলিপনগরে এ কে এম ফজলুল হক, মরিচায় মো. শাহ্ আলমগীর, রামকৃষ্ণপুরে মো. সিরাজ মন্ডল, চিলমারিতে সৈয়দ আহম্মেদ, হোগলবাড়িয়ায় মো. সেলিম চৌধুরী, পিয়ারপুরে আবু ইউসুফ লালু, রিফাইতপুরে মো. জামিরুল ইসলাম, দৌলতপুরে মো. মহিউল ইসলাম, আদাবাড়িয়ায় মো. মকবুল হোসেন, বোয়ালিয়ায় মো. মহিউদ্দীন বিশ্বাস, খলিশাকুন্ডিতে সিরাজুল বিশ্বাস, আড়িয়ায় সাইদ আনছারী, চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার ভাংবাড়ীয়ায় মো. নাহিদ হাসনাত, হারদীতে মো. নুরুল ইসলাম, কুমারীতে মো. আবু সাইদ, বাড়াদীতে মো. আশাবুল হক, গাংনীতে মো. এমদাদুল হক, খাদিমপুরে মো. মোজাহিদুর রহমান জোয়ার্দ্দার, জেহালায় মো. হাসান উজ্জামান, বেলগাছিতে শ্রী সমীর কুমার দে, ডাউকীতে মো. তরিকুল ইসলাম, জামজামীতে মো. নজরুল ইসলাম, খাসকররায় মো. মোস্তাফিজুর রহমান, চিৎলাতে খোন্দকার আ. বাতেন, কালিদাশপুর মো. জয়নাল আবেদীন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার সাফদারপুরে মো. নওশের আলী, দোড়ায় মো. কাবিল উদ্দীন বিশ্বাস, কুশনায় মো. আব্দুল হান্নান, বলুহারে আ. মতিন, এলাঙ্গীতে মো. মিজানুর রহমান, কালিগঞ্জ উপজেলার সুন্দরপুর-দুর্গাপুর ইউনিয়নে ওহিদুল ইসলাম, জামারে মো. মোদাচ্ছের হোসেন, কোলায় মো. মনোয়ার হোসেন, নিয়ামতপুরে মো. রাজু আহাম্মেদ, শিমলা রোকনপুরে মো. নাছির উদ্দীন, ত্রিলোচনপুরে মো. নজরুল ইসলাম, রায়গ্রামে মো. আলী হোসেন, মালিয়াটে মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাস, রবাজারে আবুল কালাম আজাদ, কাষ্টভাংগাতে মো. আয়ুব হোসেন খান, রাখালগাছিতে মো. মহিদুল ইসলাম, যশোরের শার্শা উপজেলার ডিহিতে মো. আসাদুজ্জামান, লক্ষণপুরে মোছা. আনোয়ারা খাতুন, বাহাদুরপুরে মো. মিজানুর রহমান, পুটখালীতে মো. আ. গফফার সরদার, গোগাতে মো. আব্দুর রশিদ, কায়বাতে হাসান ফিরোজ আহমেদ, বাগআঁচড়াতে মো. ইলিয়াছ কবির (বকুল), উলশীতে মো. আয়নাল হক, শার্শায় কবির উদ্দীন আহম্মদ, নিজামপুরে মো. আব্দুল ওহাব, বাঘারপাড়া উপজেলার জহরপুরে মো. আসাদুজ্জামান, বন্দবিলাতে সনজীত কুমার বিশ্বাস, রায়পুরে মো. বিল্লাল হোসেন, নারিকেলবাড়ীয়ায় বাবলু কুমার সাহা, ধলগ্রামে মো. রবিউল ইসলাম, দোহাকুলাতে মো. ওয়াহিদুর রহমান/আবু মোতালেব, দরাজহাটে মো. জাকির হোসেন, বাসুয়াড়ীতে মো. আমিনুর সরদার, জামদিয়ায় শেখ আরিফুল ইসলাম তিব্বত, মনিরামপুর উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নে মো. হাফিজ উদ্দীন, কাশিমনগরে মো. তৌহিদুর রহমান, ভোজগাতীতে আছমা তুন্নাহার, ঢাকুরিয়ায় মো. এরশাদ আলী সরদার, হরিদাসকাটিতে বিপদ ভঞ্জন পাড়ে, মনিরামপুরে মো. এয়াকুব আলী, খেদাপাড়ায় মো. আব্দুল আলীম, ঝাঁপায় মো. সামছুল হক, মশ্বিমনগরে মো. আবুল হোসেন, চালুয়াহাটিতে মো. আবুল ইসলাম, শ্যামকুড়ে মো. আলমগীর হোসেন, খাঁনপুরে মো. আবুল কালাম আজাদ, দূর্বাডাঙ্গায় মো. মাযাহারুল আনোয়ার, কুলটিয়ায় শেখর চন্দ্র রায়, নেহালপুরে এম, এম, ফারুক হুসাইন, মনোহরপুরে মো. মশিয়ুর রহমান, মাগুরা জেলার মোহাম্মদপুর উপজেলার বাবুখালী ইউনিয়নে মীর মো. সাজ্জাদ আলী, বিনোদপুরে শিকদার মিজানুর রহমান, দীঘায় মো. খোকন মিয়া, রাজাপুরে মো. মিজানুর রহমান বিশ্বাস, বালিদিয়ায় মো. আবুল কালাম ফকির, মহম্মদপুরে রাবেয়া বেগম, পলাশবাড়ীয়ায় মো. আলা উদ্দীন মাহমুদ, নহাটাতে মো. আলী মিয়া, শালিখা উপজেলার ধনেশ্বরগাতীতে শ্রী বিমলেন্দু শিকদার, তালখড়িতে মো. সিরাজ উদ্দিন মন্ডল, আড়পাড়ায় মুন্সী আবু হানিফ, শতখালীতে মো. আনোয়ার হোসেন ঝন্টু, শালিখায় মো. বাবলু হোসেন, বুনাগাতীতে মো. বক্তিয়ার উদ্দিন, গঙ্গারামপুরে মো. আব্দুল হালিম মোল্লা, নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার বাবরা হাচলা ইউনিয়নে তারা মিয়া সরদার, পুরুলিয়ায় এস এম হারুনার রশীদ, হামিদপুরে পলি বেগম, সালামাবাদে শামীম আহম্মেদ, চাচুড়িতে মো. সিরাজুল ইসলাম হিরক, ইলায়াছাবাদে ফিরোজ মল্লিক, মাউলীতে রোজী হক, খাশিয়ালে মোসা. হালিমা বেগম, জয়নগরে মুন্সী আনোয়ার হোসেন, কলাবাড়িয়ায় তালুকদার রবিউল হাসান, বাঐসোনাতে শাহ মো. ফোরকান মোল্যা, পহরডাঙ্গায় নির্মল বিশ্বাস, খুলনা জেলার তেরখাদা উপজেলার আজগড়া ইউনিয়নে কৃষ্ণ মেনন রায়, বারাসাতে কে এম আলমগীর হোসেন, সাচিয়াদাহে মো. বুলবুল আহমেদ, তেরখাদায় এফ, এম অহিদুজ্জামান, ছাগলাদাহে আ. শুকুর শেখ, মধুপুরে মো. মোহসিন, রূপসা উপজেলার ঘাটভোটে সাধন অধিকারী চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

 

সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা উপজেলার কুলিয়ায় মো. আসাদুল ইসলাম, পারুলিয়ায় মো. সাইফুল ইসলাম, সখিপুরে শেখ ফারুক হোসেন, নওয়াপাড়ায় মো. আলমগীর হোসেন, দেবহাটায় আলী মোর্তজা মো. আনোয়ারুল হক, কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগরে শ্যামলী অধিকারী, বিষ্ণুপুরে শেখ রিয়াজ উদ্দীন, চাম্পাফুলে মো. মোজাম্মেল হক, দক্ষিণশ্রীপুরে গোবিন্দ চন্দ্র মন্ডল, কুশুলিয়ায় শেখ আবুল কাশেম মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, নলতায় মো. আবুল হোসেন, তারালীতে মো. এনামুল হোসেন, ভাড়াশিমলায় মো. আবুল হোসেন, মথুরেশপুরে ফিরোজ আহমেদ, ধলবাড়িয়ায় গাজী শওকাত হোসেন, রতনপুরে এম, আলীম আল রাজী, মৌতলায় মো. রুহুল আমিন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

 

বরিশাল বিভাগের বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার রায়হানপুরে মো. মইনুল ইসলাম, নাচনাপাড়ায় মো. ফরিদ মিয়া, চরদুয়ানীতে মো. আবদুর রহমান, পাথরঘাটায় মো. আলমগীর হোসেন, পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ উপজেলার মাধবখালীতে কাজী মো. মিজানুর রহমান, মির্জাগঞ্জে মো. মনিরুল হক, আমড়াগাছিয়ায় সুলতান আহমেদ, দেউলিসুবিদখালীতে মোহাম্মাদ আনোয়ার হোসেন খান, কাকড়াবুনিয়ায় মো. মাহাবুব আলম (স্বপন), মজিদবাড়ীয়ায় মো. গোলাম সরওয়ার কিচলু, ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলার অধ্যক্ষ নজরুল, নগর ইউনিয়নে মোহাম্মদ রুহুল আমিন হাওলাদার, ঢালচরে আবদুছ সালাম হাওরাদার, আবুবকরপুরে মো. সিরাজ জমদার, আব্দুল্লাহপুরে মোহাম্মদ আলে এমরান, ওসমানগঞ্জে আশরাফুল আলম, চর মানিকায় শফিউল্যাহ হাওলাদার, রসুলপুরে মো. জহিরুল ইসলাম পন্ডিত, চর কুকরীমুকরীতে আবুল হাসেম, বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউনিয়নে অমল মল্লিক, বামরাইলে মো. ইউছুব হাওলাদার, গুঠিয়ায় আবদুস সাত্তার মোল্লা, বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর ইউনিয়নে মুহাম্মদ আক্তার-উজ-জামান, বাটামারায় মো. সালাহ উদ্দিন, পিরোজপুর জেলার কাউখালী উপজেলার ছয়নারঘুনাথপুর ইউনিয়নে এইচ এম আর কে খোকন, চিড়াপাড়া পারসাতুরিয়া ইউনিয়নে মো. মাহমুদ খাঁন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

 

 

/ইএইচএস/এফএ/

সম্পর্কিত

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:০১

গত বছর ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে তিন কোটি ডোজ করোনার টিকা কিনতে চুক্তি করে সরকার। আগাম অর্থও পরিশোধ করে। চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুনের মধ্যে প্রতি মাসে ৫০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহের কথা থাকলেও প্রথম মাসে ৫০ লাখ ও ফেব্রুয়ারিতে ২০ লাখ টিকার পর রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। সাত মাস পর আবার রফতানির অনুমতি দেওয়ায় অক্টোবরে ১০ লাখ টিকা সরবরাহ করে সেরাম। আশা করা হচ্ছে আগামী মাসগুলোতেও বাকি টিকাও আসতে থাকবে। এ প্রেক্ষাপটে নতুন করে আর টিকা সংগ্রহের পরিকল্পনা নেই বাংলাদেশের।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘এই মুহূর্তে সেরামকে নতুন করে অর্ডার দেওয়ার কথা চিন্তা করা হচ্ছে না। আমাদের পাইপলাইনে যা আছে, তাতে জানুয়ারি পর্যন্ত সমস্যা হবে না।’

ভারতের কাছে টিকা সরবরাহের শিডিউল চাওয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আগামী মাসে আমরা তাদের চালান সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাবো—প্রতি মাসে ঠিক কতগুলো টিকা তারা দেবে।’

প্রতি মাসে একটি করে কনসাইনমেন্ট আসার কথা থাকলেও সেটা হয়নি। এখন আবার তা শুরু হয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, অন্যান্য দেশের সঙ্গেও তাদের প্রতিশ্রুতি দেওয়া আছে। আমরা মনে করি সেটাও তারা সরবরাহ করবে।

 

সিনোফার্মা থেকে সংগ্রহ

চীনের সিনোফার্মা থেকে সাড়ে সাত কোটি টিকা সংগ্রহ করছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে বাংলাদেশ এখন সন্তোষজনক পর্যায়ে রয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘আমাদের যদি আরও টিকা লাগে তবে সিনোফার্মার যথেষ্ট সক্ষমতা রয়েছে তা সরবরাহের। যদি আমাদের প্রয়োজন অনুভূত হয় তবে যে চুক্তি করা হয়েছে সেটির অধীনে খুব স্বল্পতম সময়ের ভেতরে আমরা সংগ্রহ করতে পারব।’

 

নতুন চুক্তি

গত চার-পাঁচ মাস আগেও কোভিড টিকার বাজার পুরোপুরি বিক্রেতাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। কিন্তু এখন আর তা নেই। কারণ এখন অনেক সরবরাহকারী বাজারে এসেছে। সক্ষমতাও বেড়েছে। এ কারণে নভেম্বরে দামের ওপর একটি প্রভাব দেখা যাবে বলে আশা করেন পররাষ্ট্র সচিব।

তিনি বলেন, ‘যে টিকা আমাদের আগামী ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে লাগবে, সেটার জন্য এখন চুক্তির দরকার নেই। আমরা কিছুদিন অপেক্ষা করবো।’

তিনি বলেন, ‘যদি তারা ঠিকমতো সরবরাহ করতে পারে, তা হলে নতুন করে আলোচনা হতে পারে। সেক্ষেত্রে দাম ও অন্যান্য শর্তের বিষয়ে পরিবর্তন আসার সম্ভাবনাই বেশি।’

উল্লেখ্য, গত মার্চে ভারতের সেরাম থেকে টিকার প্রাপ্যতা অনিয়মিত হওয়ার পরপরই বাংলাদেশ বিভিন্ন উৎস থেকে টিকা সংগ্রহের চেষ্টা করলে এগিয়ে আসে চীন। চীনের সিনোফার্মার কাছ থেকে প্রথমে দেড় কোটি ও পরে আরও ছয় কোটিসহ মোট সাড়ে সাত কোটি টিকা সংগ্রহের চুক্তি করেছে সরকার।

অন্যদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভ্যাক্স থেকে আরও ছয় কোটি টিকা পাওয়া যাবে বলে প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে। বাংলাদেশের ৭০ শতাংশ জনগণকে টিকার আওতায় আনার জন্য ২৬ কোটির বেশি টিকার প্রয়োজন হবে।

/এমএস/এফএ/

সম্পর্কিত

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সংস্কার করা সংসদ মেডিক্যাল সেন্টারের উদ্বোধন করলেন স্পিকার

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ২০:১১

জাতীয় সংসদ ভবনে সংস্কার করা সংসদ মেডিক্যাল সেন্টার ও এলডি হলের উদ্বোধন করেছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘মেডিক্যাল সেন্টারটি সংস্কারের ফলে উন্নত পরিবেশে চিকিৎসকরা আধুনিক চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবেন। একইসঙ্গে চিকিৎসকরা নির্বিঘ্নে কোভিড স্যাম্পল সংগ্রহ ও কোভিড ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম আরও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন।’

এর আগে সংস্কার করা মেডিক্যাল সেন্টার ও এলডি হল পরিদর্শন করেন স্পিকার।

অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, হুইপ ইকবালুর রহিম, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এবং পার্লামেন্ট মেম্বার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এ বি তাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রচনায় ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’ অবলম্বনে মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ নির্মিত চলচ্চিত্রটির স্পেশাল স্ক্রিনিং করা হয় সংসদ ভবনের এলডি হলে। চলচ্চিত্রটি নির্মাণে সহায়তা করেছে বিএমআইটি সল্যুশনস লিমিটেড এবং প্রোলেন্সার স্টুডিও। পরিচালনা করেছেন সোহেল মোহাম্মদ রানা।

সংসদ সচিবালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে ও চলচ্চিত্রটির পৃষ্ঠপোষক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্যবৃন্দ, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, সংসদ মেডিক্যাল সেন্টারের চিকিৎসক এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

সংঘাত নয়, সহযোগিতা ও শান্তি চাই: বঙ্গবন্ধু

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৫৪

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ২৩২ জন। এর আগে গত বছরের ১৫ এপ্রিল এর চেয়ে কম ২১৯ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিল অধিদফতর।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে দুই বা ততোধিক অঙ্কে রোগী শনাক্ত হয়েছেন তিন জেলায়। এর মধ্যে মহানগরসহ ঢাকা জেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১২১ জন, গাজীপুরে ১০ জন এবং রাজশাহীতে ১৩ জন। এক অঙ্কে রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩০ জেলায় এবং ৩১ জেলায় নতুন করে কেউ শনাক্ত হয়নি।

এক অঙ্কের রোগী শনাক্ত হয়েছে ঢাকা বিভাগের ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, শরীয়তপুর ও টাঙ্গাইল; ময়মনসিংহ বিভাগের ময়মনসিংহ, জামালপুর ও শেরপুর; চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, রাঙামটি, ফেনী, নোয়াখালী, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া; রাজশাহী বিভাগের নাটোর, পাবনা ও জয়পুরহাট; রংপুর বিভাগের রংপুর জেলা; খুলনা বিভাগের যশোর, ঝিনাইদহ, খুলনা ও সাতক্ষীরা; বরিশাল বিভাগের বরিশাল জেলা এবং সিলেট বিভাগের সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলায়।

আর ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ ও রাজবাড়ী; ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনা; চট্টগ্রাম বিভাগের বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, লক্ষ্মীপুর ও কুমিল্লা; রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ ও বগুড়া; রংপুর বিভাগের পঞ্চগড়, নীলফামারী, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর ও গাইবান্ধা; খুলনা বিভাগের বাগেরহাট, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মাগুরা, মেহেরপুর ও নড়াইল; বরিশাল বিভাগের পটুয়াখালী, ভোলা, পিরোজপুর, বরগুনা ও ঝালকাঠি এবং সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় কেউ শনাক্ত হয়নি।

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

৫৮ জেলায় করোনায় মৃত্যু নেই

৫৮ জেলায় করোনায় মৃত্যু নেই

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘খালেদা জিয়ার অন্তরে সবসময়ই ছিল পেয়ারে পাকিস্তান’

‘খালেদা জিয়ার অন্তরে সবসময়ই ছিল পেয়ারে পাকিস্তান’

কুমিল্লা নামে বিভাগ হবে না: প্রধানমন্ত্রী  

কুমিল্লা নামে বিভাগ হবে না: প্রধানমন্ত্রী  

‘ডিজিটাল ডিভাইস হবে সবচেয়ে বড় রফতানি পণ্য’

‘ডিজিটাল ডিভাইস হবে সবচেয়ে বড় রফতানি পণ্য’

কুমিল্লার ঘটনা দুঃখজনক, অপরাধীর বিচার হবে: প্রধানমন্ত্রী

কুমিল্লার ঘটনা দুঃখজনক, অপরাধীর বিচার হবে: প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী প্রদর্শনী কেন্দ্র উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী প্রদর্শনী কেন্দ্র উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সর্বশেষ

মুহিবুল্লাহ হত্যা: ‘কিলিং স্কোয়াড’ এর সদস্য গ্রেফতার

মুহিবুল্লাহ হত্যা: ‘কিলিং স্কোয়াড’ এর সদস্য গ্রেফতার

মার্কিন ড্রোন হামলায় আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা নিহত

মার্কিন ড্রোন হামলায় আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা নিহত

এখনও প্রণোদনার টাকা পাননি ৬৬ শতাংশ চিকিৎসক-নার্স

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজএখনও প্রণোদনার টাকা পাননি ৬৬ শতাংশ চিকিৎসক-নার্স

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাদ্রাসায় ‘ট্রেনিং সেন্টার’ করতে চেয়েছিল সন্ত্রাসীরা 

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাদ্রাসায় ‘ট্রেনিং সেন্টার’ করতে চেয়েছিল সন্ত্রাসীরা 

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে সুইডেন : রাষ্ট্রদূত

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে সুইডেন : রাষ্ট্রদূত

© 2021 Bangla Tribune