X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

পাকিস্তান সফর বাতিল করলো ইংল্যান্ড

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:০৪

পাকিস্তান ক্রিকেটের জন্য আরও দুঃসংবাদ। না খেলেই পাকিস্তান ছেড়েছে নিউজিল্যান্ড দল। তাতে শঙ্কা জন্মেছিল ইংল্যান্ড দলের সফর ঘিরে। সেই শঙ্কাই বাস্তবে রূপ নিলো। অক্টোবরের পাকিস্তান সফর বাতিল করেছে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)। আজ (সোমবার) এক বিবৃতিতে আনুষ্ঠানিক এই ঘোষণা দিয়েছে ইংলিশ ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

শুধু পুরুষ ক্রিকেট দল, ইংলিশ মেয়েদেরও যাওয়ার কথা ছিল পাকিস্তান সফরে। ছেলেদের মতো মেয়েদের সফরও বাতিল করেছে ইসিবি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে পাকিস্তানে গিয়ে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার কথা ছিল ইংল্যান্ড দলের। রাওয়ালপিন্ডিতে ম্যাচ দুটির সূচি ছিল ১৩ ও ১৪ অক্টোবর। কিন্তু ইসিবির ঘোষণায় সিরিজের ইতি ঘটলো। নিউজিল্যান্ড দলের সফর বাতিল করার পরই শঙ্কা জন্মে, ইংল্যান্ডও হয়তো পাকিস্তানে যাবে না। শেষ পর্যন্ত তা-ই হলো।

নিরাপত্তা হুমকিতে রাওয়ালপিন্ডির প্রথম ওয়ানডের ঠিক আগমুহূর্তে সফর বাতিল করে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি)। কিউইদের সঙ্গে যে সিকিউরিটি সার্ভিস যুক্ত, ইসিবিও তাদের সঙ্গে কাজ করে। তারপরও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খানের প্রত্যাশা ছিল ইংল্যান্ড সফরে আসবে।

ইংলিশ ছেলেদের দুটি টি-টোয়েন্টি, আর মেয়েদের তিনটি ওয়ানডে খেলার কথা ছিল পাকিস্তানে। সিরিজ দুটি বাতিল করে ইসিবির বিবৃতি, ‘অক্টোবরের সফর থেকে দুই দলকে (ছেলে ও মেয়ে) প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।’ কারণ হিসেবে ‘ওই অঞ্চলে নিরাপত্তা শঙ্কা বাড়ার’ বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। তাছাড়া কোভিড পরিস্থিতিতে লম্বা সময় খেলোয়াড়দের জৈব সুরক্ষা বলয়ে রাখাটাও ঠিক হবে কিনা, সেই বিষয়টিও তারা আমলে নিয়েছে।

ইসিবি বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘এই বছরের শুরুর দিকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে অক্টোবরে দুটি ম্যাচ খেলার কথা ছিল পাকিস্তানে। একই সঙ্গে মেয়েদের একটা স্বল্প সফর যোগ করা হয়েছিল। ইসিবি বোর্ড এই সপ্তাহান্তে ইংল্যান্ড মেয়েদের ও ছেলেদের ম্যাচগুলো নিয়ে আলোচনা করেছে। এবং আমরা নিশ্চিত করছি, অক্টোবরের সফর থেকে দুটো দলকেই প্রত্যাহার করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।’

পাকিস্তান ক্রিকেটের জন্য এই সফর বাতিল কতটা ধাক্কার, বুঝতে পারছে ইসিবি, ‘আমরা জানি এই সিদ্ধান্ত পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের জন্য হতাশার। গত দুই গ্রীষ্মে ইংলিশ ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডে তাদের সমর্থন শক্তিশালী বন্ধুত্বের জায়গা তৈরি করেছে। আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’

দীর্ঘ ১৬ বছর পর আবারও পাকিস্তান সফরে যাওয়ার সূচি ছিল ইংল্যান্ড দলের। কিন্তু নিরাপত্তা শঙ্কায় নিউজিল্যান্ডের পর ইংল্যান্ড সিরিজও বাতিল হলো। বলার অপেক্ষা রাখে না, ভালো নেই পাকিস্তানের ক্রিকেট!

/কেআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২১:২৪

ইচ্ছার আকাশে কল্পনার রঙ ছিটিয়ে রঙিন স্বপ্ন বুনলেও বাস্তবটা বড্ড নির্মম! আশা আর প্রাপ্তিতে বিস্তর ফারাক। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এক যন্ত্রণার নাম বাংলাদেশের কাছে। ওয়ানডে ফরম্যাটে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি কিংবা বিশ্বকাপে পায়ের নিচের মাটি শক্ত করলেও সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে পারফরম্যান্স যেন ‘সংক্ষিপ্ত’ হয়ে আসে খেলোয়াড়দের। তবে ক্রীড়াঙ্গনে অতীত নিয়ে কে পড়ে থাকতে চায়! ওমানে উড়ে যাওয়ার আগে মাহমুদউল্লাহও বলে গেছেন কথাটা। অতীতের ভুল ‘শুধরে’ কতটা সাফল্য ধরা দেয়, আরেকটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অভিযান দিয়ে প্রমাণের পালা বাংলাদেশের।

সেই প্রমাণের শুরুটা হচ্ছে আগামীকালই (রবিবার)। র‌্যাঙ্কিংয়ের হিসাব-নিকাশে এবারও প্রাথমিক পর্বে নামতে হচ্ছে মাহমুদউল্লাহদের। শুরুতেই প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড। বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে ক্রিকেট বিশ্লেষক ও বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা একটা হিসাব কষে নিয়েছেন— প্রাথমিক পর্বে নিশ্চিতভাবেই পেরিয়ে যাবে! এরপর সুপার-১২ রাউন্ডে কতদূর যেতে পারবে, এ নিয়েই চলছে গবেষণা। যদিও প্রাথমিক পর্বে, বিশেষ করে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে কঠিন চ্যালেঞ্জই হয়তো অপেক্ষা করছে। মুখোমুখি লড়াইয়ের গ্রাফ দেখলে তো বাংলাদেশ পিছিয়েই আছে!

ক্রিকেট ঐতিহ্য-ইতিহাসে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে। কিন্তু শুধু টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের পরিসংখ্যানে এলে এগিয়ে স্কটিশরা। দুই দলের একবারই দেখা হয়েছিল। ২০১২ সালের একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি জিতেছিল স্কটল্যান্ড। সেবার আয়ারল্যান্ড-নেদারল্যান্ডস সফরে গিয়েছিল মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বে। আয়ারল্যান্ডে খেলে নেদারল্যান্ডস পৌঁছে স্বাগতিকদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে স্কটল্যান্ডের সঙ্গে একটি টি-টোয়েন্টি খেলেছিল লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। হেগের ম্যাচটি ৩৪ রানে হেরেছিল বাংলাদেশ। স্কটল্যান্ডের ৭ উইকেটে করা ১৬২ রানের জবাবে ১৮ ওভারে ১২৮ রানে গুটিয়ে যায় মুশফিকরা।

হেগের ওই ম্যাচের তিন সদস্য আছেন এবারের বিশ্বকাপের দলে। কোনও অঘটন না ঘটলে ওই তিনজন- মাহমুদউল্লাহ, মুশফিক ও সাকিব আল হাসান খেলবেন আগামীকালের ম্যাচে। ৯ বছর আগের ওই ম্যাচে সাকিব খেলেছিলেন সর্বোচ্চ ৩১ রানের ইনিংস। ২৯ বলের ইনিংস সাজিয়েছিলেন ১ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায়। মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহ দুজনই করেছিলেন ৯ রান।

যদিও ক্রিকেটে একটা কথা আছে- পরিসংখ্যান সবসময় সত্যি কথা বলে না! হেগের ম্যাচটির পর কেটে গেছে অনেকটা সময়। সময়ের পালা বদলে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ এখন নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করেছে। জিম্বাবুয়ের পর ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিতে গিয়েছে বিশ্বমঞ্চে। তাই আত্মবিশ্বাসে ভরপুর থাকার কথা মাহমুদউল্লাহদের।

আবার আশঙ্কাও আছে! আইসিসির বিশ্ব আসরের আগে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে থাকে ওয়ার্ম-আপ ম্যাচ। ওমান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ খেলেছে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ। হেরেছে দুটিতেই। হার-জিত যদিও বড় বিষয় নয়, নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ার ব্যাপারটাই এখানে মুখ্য। মুশফিক-লিটনরা সেই কাজটাও করতে পারেননি। শ্রীলঙ্কা ও আয়ার‌ল্যান্ডের কাছে বাজেভাবে হেরে ব্যাটিং-বোলিংয়ের পাশে এঁকে দিয়েছে প্রশ্নবোধক চিহ্ন!

সে যা-ই হোক, মূল লড়াইয়ে অন্যরকম বাংলাদেশেকেই দেখার আশা। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে পাওয়া গিয়েছিল যেমন। তাহলেই আত্মবিশ্বাসের হাওয়ায় উজ্জীবিত দলের ছবি ফুটে উঠবে স্পষ্ট হয়ে!

/কেআর/

সম্পর্কিত

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:৩৯

বিশ্বকাপের আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচে হেরেছে বাংলাদেশ। যার একটি আবার আয়ারল্যান্ডের কাছে। অথচ এই আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে জয় তুলে নিয়েছে স্কটল্যান্ড। আইরিশদের উড়িয়ে দেওয়ার পর স্কটিশ কোচ বাংলাদেশকে পাত্তা না দেওয়া সাহস দেখাতেই পারেন। সেটিই করলেন স্কটিশ কোচ শেন বার্জার।

আগামীকাল (রবিবার) পর্দা উঠবে ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের। প্রথম দিনেই বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড। তাদের গ্রুপে আরও আছে স্বাগতিক ওমান ও পাপুয়া নিউগিনি (পিএনজি)। প্রথম রাউন্ডে ‘বি’ গ্রুপে সন্দেহাতীতভাবে বাংলাদেশকে ফেভারিট মানা হচ্ছে। যদিও স্কটল্যান্ডের কোচ বার্জার তা মনে করেন না।

বাংলাদেশ ম্যাচের আগের দিন একরকম হুমকিই দিয়ে রাখলেন স্কটিশ এই কোচ। অবশ্য এমন আত্মবিশ্বাসী হওয়ার কারণও আছে। টি-টোয়েন্টিতে স্কটল্যান্ডের সঙ্গে একবারের মুখোমুখিতে হেরেছিল বাংলাদেশ। সেই জয় হয়তো স্কটিশ কোচকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলছে, ‘আমরা জানি, নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে আমরা সব দলকেই বিপাকে ফেলতে পারবো, এটা সহজ হিসাব। সংক্ষিপ্ততম সংস্করণ সব দলকেই কাছাকাছি নিয়ে আসে। আমরা জানি, আমাদের সামর্থ্য আছে। যদি নিজেদের সেরাটা দিতে পারি, যেকোনও দলকে হারাতে পারি আমরা। হোক সেটা বাংলাদেশ, ওমান কিংবা পাপুয়া নিউগিনি।’

বাংলাদেশকে বাকি দুই প্রতিপক্ষের চেয়ে এগিয়ে রাখতে নারাজ বার্জার। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘প্রথম রাউন্ডের ম্যাচগুলোয় বাংলাদেশকে আমরা পিএনজি বা ওমানের চেয়ে ওপরে কোথাও দেখি না। আমরা জানি, সব দলই আমাদের বিপক্ষে জিততে তেড়ে আসবে। তবে আমরা তাদের সবার জন্যই সবচেয়ে বড় ম্যাচ হবো, আমরা প্রস্তুত।’

গত এক মাসের প্রস্তুতিতেই স্কটিশ কোচ নিজেদের এগিয়ে রাখছেন, ‘বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের মতো মানসম্পন্ন দলের বিপক্ষে লড়াইয়ের আগে আমাদের দুর্দান্ত মোমেন্টাম দিয়েছে নেদারল্যান্ডস, নামিবিয়ার বিপক্ষে জয়গুলো। চাপটার সঙ্গে পরিচিত হয়েছি আমরা, জয়ের অভ্যাস গড়েছি। ভুলও করেছি, তবে গত এক মাসে সত্যিই ভালো ক্রিকেট খেলেছি আমরা।’

/আরআই/কেআর/

সম্পর্কিত

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

আবাহনীর দাবি, ভিডিও আম্পায়ার ভয়ে সিদ্ধান্ত দিতে পারেননি

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩৫

এক গোলে পিছিয়ে ছিল আবাহনী লিমিটেড। ম্যাচে ফেরার দারুণ সুযোগ পেয়েও পারেনি। বল জালে জড়ালেও আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্তে গোল পায়নি। শেষ পর্যন্ত ক্লাব কাপ হকিতে ৩-০ গোলে মেরিনার ইয়াংসের কাছে হেরে ট্রফি হারাতে হয়েছে আবাহনীকে। আম্পায়ারের গোল না দেওয়ার ওই সিদ্ধান্ত কিছুতেই মানতে পারছে না ঢাকার্ ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। ম্যাচশেষে বাজে আম্পারিং নিয়ে হা-পিত্যেশ করতে দেখা গেছে আকাশী-নীল জার্সিধারীদের।

আজ (শনিবার) মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় কোয়ার্টারে মেরিনার্স এগিয়ে যায়। ২০ মিনিটে মিলন হোসেনের পাসে সোহানুর রহমান জোরালা হিটে লক্ষ্যভেদ করেন।

তৃতীয় কোয়ার্টারে আবাহনীর ‘গোল বাতিল’ নিয়ে ম্যাচ প্রায় ২০ মিনিট খেলা বন্ধ ছিল। ৫২ মিনিটে ভারতীয় ফরোয়ার্ড বেলিগামা বাহরানের হিট পোস্টে গেলেও আম্পায়ার গোলের বাঁশি দেননি। ভিডিও প্রযুক্তি দেখে আম্পায়াররা আগের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন।

আম্পায়ারের এই সিদ্ধান্তে আবাহনীর উপদেষ্টা কোচ মাহবুব হারুনের বেশ আপত্তি। ম্যাচ শেষে বিষণ্ন মনে বলেছেন, ‘দুঃখজনক বিষয়, ভিডিও আম্পায়ার ভয়ে সিদ্ধান্ত দিতে পারেননি। ২০ মিনিট সময় নিয়েছেন। আম্পায়ার লাকিও গোল দিতে ভয় পাচ্ছিল। ওই সিদ্ধান্তে গোল হলে ম্যাচের মোড় ঘুরে যেত। তখন হয়তো ম্যাচের ফল অন্যরকম হতে পারতো।’

তবে এই ম্যাচে আবাহনী জেতার মতো খেলতে পারেনি, তা স্বীকার করে নিয়ে আবাহনীর এই সাবেক তারকা খেলোয়াড়, ‘আমার টিম খেলতে পারেনি মোটেও। মেরিনার্স জেতার মতোই খেলেছে। মেরিনার্সের বিদেশি চারজনই খুব ভালো। সেই তুলনায় আমাদের বিদেশি মোটেও মানে ভালো না। আমার দেশি খেলোয়াড় খেললে এমন খেলতো না।’

মেরিনার্স কোচ মামুনুর রশীদ চ্যাম্পিয়ন হয়ে খুশি, ‘আমাদের যে গেমপ্লান ছিল, সেটা হলো এখানে প্রথম দুই কোয়ার্টারে গোল খাবো না। আবাহনীর ফিটনেস সমস্যা ছিল। আমাদের পুরোপুরি ফিটনেস ছিল। আমরা জানি যে ৬০ মিনিট এক টেম্পোতে খেলতে পারবো। শেষ দিকে কাউন্টার অ্যাটাক ভিত্তিতে খেলেছি। সফল হয়েছি। তবে আবাহনীর গোল বাতিলের সিদ্ধান্তটা সঠিক ছিল।’

/টিএ/কেআর/

সম্পর্কিত

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বঙ্গবন্ধু জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটন

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১৩

মুজিববর্ষে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু জাতীয় ক্রিকেট লিগের ‘টাইটেল স্পন্সর’ হয়েছে ওয়ালটন গ্রুপ। এ নিয়ে টানা ১১বারের মতো জাতীয় লিগের টাইটেল স্পন্সর হলো ওয়ালটন। টুর্নামেন্টের অফিসিয়াল নাম ‘বঙ্গবন্ধু জাতীয় ক্রিকেট লিগ স্পন্সরড বাই ওয়ালটন।’

ক্রিকেট দীর্ঘ সংস্করণে দেশের প্রধানতম ঘরোয়া টুর্নামেন্ট জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) পর্দা উঠবে আগামীকাল (রবিবার)।

জাতীয় ক্রিকেট লিগে দুই স্তরে অংশ নিচ্ছে সাতটি বিভাগীয় দল ও ঢাকা মেট্রো। প্রথম স্তরে রয়েছে খুলনা, সিলেট, ঢাকা ও রংপুর বিভাগ। দ্বিতীয় স্তরে রয়েছে রাজশাহী, চট্টগ্রাম, ঢাকা মেট্রো ও বরিশাল বিভাগ।

এবারও যথারীতি ডাবল লিগ পদ্ধতিতে প্রতিটি দল নিজেদের স্তরের অন্য তিন দলের মুখোমুখি হবে। দ্বিতীয় স্তরের চ্যাম্পিয়ন দল আগামী মৌসুমে প্রথম স্তরে উত্তীর্ণ হবে। আর প্রথম স্তরের পয়েন্ট তালিকায় তলানিতে থাকা দল দ্বিতীয় স্তরে নেমে যাবে। চারটি ভেন্যুতে একযোগে শুরু হবে জাতীয় লিগের খেলা।

 

/আরআই/কেআর/

সম্পর্কিত

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

ওমানে বিশ্বকাপে নামছে বাংলাদেশ, দেশে বসে থাকছেন না মুমিনুল-শান্তরাও

ওমানে বিশ্বকাপে নামছে বাংলাদেশ, দেশে বসে থাকছেন না মুমিনুল-শান্তরাও

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪২

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে দাঁড়িয়ে সাকিব আল হাসান। কুড়ি ওভারের বিশ্ব আসরে ১০ উইকেট নিতে পারলেই বিশ্বকাপে শীর্ষ উইকেট শিকারি হয়ে যাবেন বাঁহাতি স্পিনার। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ৩৪ ম্যাচ খেলে সর্বোচ্চ উইকেট পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদির। তার উইকেট সংখ্যা ৩৯। সাত নম্বরে থাকা সাকিবের এখন ৩০ উইকেট।

বিশ্বমঞ্চে ১০ উইকেট নেওয়ার কাজ খানিকটা কঠিনই। তবে পুরনো পরিসংখ্যান সাকিবকে উদ্দীপ্ত করতেই পারে! ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সাকিব পেয়েছিলেন ১০ উইকেট। ২০১৪ সালে ঘরের মাঠের বিশ্বকাপে বাঁহাতি স্পিনার পেয়েছিলেন ৮ উইকেট। পরপর দুই আসরে সাকিবের এমন বোলিং পারফরম্যান্স আশা জাগাচ্ছে, এবারই হয়তো কুড়ি ওভারের বিশ্ব আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির আসনে বসে পড়বেন সাকিব।

অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারের জন্য কাজটা কিছুটা সহজ আরও একটি কারণে। কেননা সাকিবের ওপরে থাকা ছয়জনের কেউই আর বিশ্বকাপ খেলছেন না। অন্যদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বীরা আছেন বেশ নিচের দিকে। কাছাকাছি আছেন ক্যারিবিয়ান দুই ক্রিকেটার ডোয়াইন ব্রাভো ও স্যামুয়েল বদ্রি। ব্রাভো ২৫ উইকেট নিয়ে ৯ নম্বরে আর বদ্রি ২৪ উইকেট নিয়ে আছেন ১০ নম্বরে।

২০০৭ সাল থেকে শুরু করে টি-টোয়েন্টির সব বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছেন সাকিব। সব মিলিয়ে ২৫ ম্যাচে ৬.৬৪ ইকোনমি ও ১৯.৫৩ গড়ে সাকিবের উইকেট সংখ্যা ৩০। তার সমান ৩০ উইকেট আছে দক্ষিণ আফ্রিকার ডেল স্টেইন ও দক্ষিণ আফ্রিকার স্টুয়ার্ট ব্রডের। সর্বশেষ ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলা ইংলিশ পেসার ২৬ ম্যাচে ৩০ উইকেট নিয়ে আট নম্বরে আছেন। অন্যদিকে ২৩ ম্যাচে ৩০ উইকেট নিয়ে ছয় নম্বরে স্টেইন।

বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের তালিকার প্রথম তিনটি জায়গার দুটিই পাকিস্তানের দুই স্পিনার আফ্রিদি ও সাঈদ আজমলের দখলে। ২০০৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নায়ক আফ্রিদি ৩৪ ম্যাচে পেয়েছেন ৩৯ উইকেট। সাবেক লঙ্কান পেসার লাসিথ মালিঙ্গা ৩১ ম্যাচে ৩৮ উইকেট নিয়ে আছেন দুই নম্বরে। ২৩ ম্যাচে ৩৬ উইকেট শিকার করা আজমল আছেন তিন নম্বরে। শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ ও পাকিস্তানের ওমর গুল সমান ৩৫ উইকেট নিয়েছেন। কিন্তু ম্যাচ সংখ্যা কম থাকায় এগিয়ে ম্যাথুজ।

/আরআই/কেআর/

সম্পর্কিত

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

এই স্কটল্যান্ডের কাছে কিন্তু হেরেছে বাংলাদেশ!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

ওমান-পাপুয়া নিউগিনি যা, বাংলাদেশও তাই!

সর্বশেষসর্বাধিক
© 2021 Bangla Tribune