X
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

লিবিয়ায় ক্ষমতা হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত পাল্টালো স্বঘোষিত সরকার

আপডেট : ০৭ এপ্রিল ২০১৬, ১১:৪৩
image

লিবিয়ায় স্বঘোষিত সরকারকে সরানোর জন্য কাজ করছে জাতিসংঘ লিবিয়ায় জাতিসংঘ সমর্থিত প্রেসিডেন্সি কাউন্সিলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঘোষণা দেওয়ার পর আবারও অবস্থান পাল্টিয়েছে ত্রিপোলিভিত্তিক সরকার। ক্ষমতা হস্তান্তর না করতে বুধবার এক বিবৃতিতে মন্ত্রীদের আহ্বান জানিয়েছেন ত্রিপোলিভিত্তিক স্বঘোষিত প্রধানমন্ত্রী খলিফা ঘেইল।
বুধবার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছিল, ত্রিপোলি সরকার জাতিসংঘ-সমর্থিত প্রেসিডেন্সি কাউন্সিলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে যাচ্ছে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। স্বঘোষিত ন্যাশনাল সালভেশন সরকার তাদের বিবৃতিতে বলেছে যে,রক্তপাত এড়াতে এবং দেশের বৃহত্তর স্বার্থে তারা তাদের মন্ত্রিসভা বিলুপ্ত করছে।
এর পর এক বিবৃতিতে ক্ষমতা না ছাড়ার প্রত্যয় জানান খলিফা ঘেইল। এক বিবৃতিতে মন্ত্রীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন-‘জনস্বার্থের কথা মাথায় রেখে আপনাদের অনুরোধ করছি আইন মোতাবেক কাজ চালিয়ে যেতে।’ কেউ নতুন সরকারের সঙ্গে কাজ করলে তাকে বিচারের মুখোমুখি করারও হুমকি দিয়েছেন তিনি।
হঠাৎ করে ত্রিপোলি সরকারের সিদ্ধান্ত পাল্টালো কেন সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে তাদের মধ্যে বিভাজনের আভাস মিলেছে।


জাতিসংঘ সমর্থিত লিবিয়ান ঐক্য সরকারের সমর্থকেরা

২০১৪ সালে মিলিশিয়া বাহিনীর সাথে এক সংঘর্ষের পর লিবিয়ার নির্বাচিত সরকার ত্রিপোলি থেকে দেশের পূর্বাঞ্চলে পালিয়ে যায়। এরপর থেকে ইসলামপন্থী ন্যাশনাল সালভেশন সরকার সেখানকার নিয়ন্ত্রণ নেয়,যদিও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কখনোই তাদের স্বীকৃতি দেয়নি।
গত সপ্তাহেই জাতিসংঘ সমর্থিত সরকারের প্রধানমন্ত্রী ফায়েজ আল সিরাজ ত্রিপোলিতে পৌঁছান। এরপর থেকে তারা ত্রিপোলির একটি নৌঘাঁটিতে অবস্থান করছেন। তবে লিবিয়ার উত্তর পূর্বাঞ্চলের তবরুক অঞ্চলে এখনও একটি স্বঘোষিত সরকার রয়ে গেছে। তারাও জাতিসংঘ সমর্থিত ঐক্য সরকারকে মেনে নেয়নি।
সিরাজসহ নয় সদস্যের একটি কাউন্সিল এই সরকার পরিচালনা করবে। লিবিয়ায় এখনো একাধিক সরকার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য,চার বছর আগে ন্যাটো সমর্থিত এক বিদ্রোহের মধ্য দিয়ে লিবিয়ার নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর থেকে দেশটিতে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। বেশ কয়েকটি সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যে তৈরি হওয়া সংঘাত রূপ নেয় গৃহযুদ্ধে। লিবিয়া সংকট সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নানা পদক্ষেপও উল্লেখযোগ্য কোনও ইতিবাচক ফল বয়ে আনতে পারেনি। সংঘাত রয়েই গেছে। জাতিসংঘ সমর্থিত ঐকমত্যের সরকারকে প্রাথমিকভাবে প্রত্যাখ্যান করে দেশটির পার্লামেন্ট। চলমান অস্থিরতা নিরসনে জাতিসংঘের উদ্যোগে বিবাদমান পক্ষগুলোর মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে গত ডিসেম্বরে নতুন ওই সরকার গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। সূত্র: আল জাজিরা

/এফইউ/

সম্পর্কিত

ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত ১৪০ ফিলিস্তিনি

ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত ১৪০ ফিলিস্তিনি

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

কৃত্রিমভাবে বৃষ্টি ঝরাচ্ছে দুবাই

কৃত্রিমভাবে বৃষ্টি ঝরাচ্ছে দুবাই

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৯:২২

চীনকে মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার ভারত সফরে আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে ভারতে ব্লিনকেনের এসফরটি হবে প্রথম। বুধবার তিনি ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রামনিয়াম জয়শঙ্করের সঙ্গে বৈঠক করবেন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

২৬ থেকে ২৯ জুলাই ভারতে অবস্থান করবেন ব্লিনকেন। এরপর তিনি কুয়েত সফরে যাবেন।

এশিয়া ও এশিয়ার বাইরে চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব মোকাবিলায় মার্কিন উদ্যোগে সহযোগিতাকারী দেশ হিসেবে ভারতকে বিবেচনা করে ওয়াশিংটন। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই সফরে তার এজেন্ডা হবে ইন্দো-প্রশান্তীয় অঞ্চলে সক্রিয়তা, দ্বিপক্ষীয় আঞ্চলিক নিরাপত্তা স্বার্থ, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও জলবায়ু সংকট মোকাবিলা। এছাড়া করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলাও থাকবে এজেন্ডায়া।

খবরে বলা হয়েছে, তথাকথিত কোয়াডের স্বশীরের একটি সম্মেলন আয়োজন নিয়ে আলোচনা করবেন ব্লিনকেন। চীনের প্রভাব মোকাবিলায় ভারত, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র কোয়াড গ্রুপে একত্রিত হয়েছে।

কূটনীতিকরা বলছেন, এই বৈঠকটি সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের সময় অনুষ্ঠিত হতে পারে। চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের পাল্টা আঞ্চলিক অবকাঠামো গড়ে তোলার উপায় নিয়ে আলোচনার সম্ভাবনা রয়েছে।

শুক্রবার ব্লিনকেন বলেছেন, করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারত একটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ। এখন তারা অভ্যন্তরীণ সংকটে আছে। কিন্তু একবার উৎপাদন পূর্ণ গতি পেয়ে গেলে বিশ্বকে তারা আবার টিকা দিতে শুরু করবে। যা বড় পার্থক্য গড়ে দেবে।

/এএ/

সম্পর্কিত

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

প্রবল বর্ষণে মহারাষ্ট্রে মৃত বেড়ে ১১০

প্রবল বর্ষণে মহারাষ্ট্রে মৃত বেড়ে ১১০

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

বৌদ্ধ অধ্যুষিত তিব্বতে চীনের প্রেসিডেন্ট!

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৮:৪২

ফ্রান্স সরকারের করোনাভাইরাস মহামারি বিষয়ক শীর্ষ উপদেষ্টা শুক্রবার সতর্ক করে বলেছেন, এই বছরের শীতে ভাইরাসটির নতুন ভ্যারিয়েন্টের আত্মপ্রকাশ হতে পারে। বিএফএম নিউজ চ্যানেলকে ফরাসি সরকারের বৈজ্ঞানিক কাউন্সিলের প্রধান জ্যেন-ফ্রান্সোয়েস দেলফ্রেইজি এই সতর্কতার কথা জানিয়েছেন।

ফরাসী বিশেষজ্ঞ বলেন, শীতের সময় হয়ত আমরা আরেকটি ভ্যারিয়েন্ট দেখতে পাব।

ফ্রান্সে নতুন করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। এই সংক্রমণের জন্য অতি সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টকে দায়ী করা হচ্ছে।

তিনি জানান, নতুন ভ্যারিয়েন্টের প্রভাব সম্পর্কে কোনও পূর্বানুমান করতে পারছেন না বা এটি আরও বিপজ্জনক হবে কিনা তাও জানাননি। শুধু বলেছেন, এটির চরিত্র বদলের ক্ষমতা প্রায় সীমিত থাকবে।

ফরাসী সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ফ্রান্সের জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সামাজিক দূরত্ব ও মাস্ক পরার জন্য। তিনি বলেছেন, মহামারি পূর্ব স্বাভাবিকতায় ফিরতে ২০২২ বা ২০২৩ সাল লাগতে পারে।

দেলফ্রেইজি বলেন, আগামী কয়েক বছরের বড় চ্যালেঞ্জ হলো কীভাবে আমরা সহাবস্থান করব দুটি বিশ্বের মধ্যে: টিকা নেওয়া দেশগুলো এবং যেসব দেশে টিকা পুরোপুরি দেওয়া হয়নি।

করোনার চতুর্থ ঢেউ নিয়ন্ত্রণে রাখতে ফরাসী সরকার ‘হেলথ পাস’ ব্যবস্থা চালু করেছে। জনসমাগমস্থলে প্রবেশের ক্ষেত্রে টিকা নেওয়ার বা করোনা নেগেটিভ হওয়ার প্রমাণ দেখাতে হবে।

বুধবার থেকে চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহ, যাদুঘর, সুইমিং পুল ও ক্রীড়াক্ষেত্রে হেলথ পাস বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় অনেকেই সমালোচনা করছেন। সমালোচকরা বলছেন, এতে করে টিকা না নেওয়া মানুষদের স্বাধীনতা খর্ব করা হচ্ছে। সূত্র: এনডিটিভি

/এএ/

সম্পর্কিত

ক্ষমা চাইলেন সেই জার্মান সাংবাদিক

ক্ষমা চাইলেন সেই জার্মান সাংবাদিক

জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় মুখ্য হিট অফিসার নিয়োগ

জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় মুখ্য হিট অফিসার নিয়োগ

করোনারোধী পোশাক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে বড় অংকের জরিমানা

করোনারোধী পোশাক বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে বড় অংকের জরিমানা

১ মাস ‘ইন্টারনেট বিচ্ছিন্ন’ থাকার পরীক্ষা চালালো রাশিয়া

১ মাস ‘ইন্টারনেট বিচ্ছিন্ন’ থাকার পরীক্ষা চালালো রাশিয়া

ব্রিটে‌নে জা‌লিয়া‌তির দা‌য়ে বাংলা‌দেশি সমকামীর কার‌াদণ্ড

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৮:০৩

ব্রিটেনে জালিয়াতি করে বসবাসের চেষ্টার দায়ে সাইফুল আ‌লম (৩৮) না‌মের এক বাংলা‌দেশি নাগ‌রিক‌কে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির একটি আদালত। গত সপ্তা‌হে সাইফুল‌কে হাল ক্রাউন কো‌র্টে হা‌জির করা হ‌য়।

আদাল‌তের উদ্ধৃতি দি‌য়ে ব্রিটে‌নের হাল লাইভ ওপেরা নিউজসহ সংবাদপত্রগু‌লো জানায়, আদ‌াল‌তে মিথ‌্যা তথ‌্য উপস্থাপন ও জাল প‌রিচয়পত্র রাখার দু‌টি অভিযোগে এই দণ্ড দেওয়া হয়েছে তাকে।   

আদ‌ালত‌কে সাইফুল জানান, তাকে বাংলা‌দে‌শে ফেরত পাঠা‌নো হ‌লে যাবজ্জীবন কারাদ‌ণ্ড দেওয়া হতে পারে। এই শঙ্কা থেকে তি‌নি প্রতারণা ও জা‌লিয়া‌তির আশ্রয় নি‌য়ে‌ছি‌লেন। সাইফুল আরও ব‌লেন, জাল ন‌থিপত্র কেনার সিদ্বান্তটি তার ভুল ছিল। এ জন‌্য তিন‌ি গভীর অনু‌শোচনা কর‌ছেন‌।

সাইফুল ২০০৪ সা‌লে এক বছ‌রের ভিসায় ব্রিটে‌নে আসেন। তার আইনজী‌বী ব‌্যারিস্টার জু‌লিয়া বাগস আদালত‌কে জানান, সাইফুল একজন সমকামী। তাই তি‌নি সামা‌জিক কুসংস্কার ও সহিংসতায় ভ‌য় পে‌য়ে‌ছি‌লেন।

ব্রিটে‌নে গত এক দশ‌কে বিপুল সংখ‌্যক মানুষ নি‌জে‌দে‌র সমকামী দাবি ও দে‌শে ফেরা সম্ভব নয়  উল্লেখ ক‌রে বসবাসের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন। এদের ম‌ধ্যে ভারতীয়, বাংলা‌দেশি ও পা‌কিস্তানিরাও র‌য়ে‌ছেন। শুরু‌তে ব্রিটে‌নের হোম অফিস ও আদালত সহানুভু‌তিশীল হ‌য়ে ভিসা দি‌লেও একপর্যা‌য়ে প্রতারণার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে।  এরপর থেকে এমন আবেদন অনুমোদনের ক্ষেত্রে কড়াক‌ড়ি আরোপ করা হয়।

ইউকে বাংলা প্রেসক্লা‌বের কার্যনির্বাহী সদস‌্য সাংবা‌দিক মাহবুব সু‌য়েদ শ‌নিবার বাংলা ট্রিবিউনকে ব‌লেন, শুরু‌তে প্রচুর মানুষ নি‌জে‌দের সমকামী দাবি ক‌রে ব্রিটে‌নে অভিবাসন সু‌বিধা নি‌য়ে‌ছেন। অনেকে গে বা লেস‌বিয়া‌নের অধিকারে ব্রিটে‌নে বসবা‌সের সু‌যোগ পে‌য়ে দেশ থে‌কে স্বামী বা স্ত্রী এনেছেন। অনেকে নতুন ক‌রে বি‌য়ে ক‌রে‌ছেন‌। এসব কার‌ণে প‌রে সরকার এ ব‌্যাপা‌রে কড়াক‌ড়ি আরোপ ক‌রে।

উল্লেখ‌্য, ব্রিটেনে শুধু ২০১৯ সা‌লে বাংলা‌দেশসহ যেসব দে‌শে সমলি‌ঙ্গের সম্পর্ক বা বি‌য়ে বৈধ নয়, সেসব দে‌শের কমপ‌ক্ষে ৩ হাজার ১০০ জনের গে, লেস‌বিয়না, বাই সেক্সুয়াল ও ট্রান্সসেক্সুয়াল দাবি ক‌রে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে।  আর ২০১৬ থে‌কে ২০১৯ পর্যন্ত কমপ‌ক্ষে ১ হাজার ১৯৭ জন পা‌কিস্তানি ও ৬৪০ জন এল‌জি‌বি‌টি দাবি‌দা‌রের আবেদন প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে বলে হোম অফিসের পরিসংখ্যানে জানা গেছে।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

ব্রিটেনে কয়েক লাখ শ্রমিক আইসোলেশনে, খাদ্যে ঘাটতির আশঙ্কা

ব্রিটেনে কয়েক লাখ শ্রমিক আইসোলেশনে, খাদ্যে ঘাটতির আশঙ্কা

ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে বাদ লিভারপুল

ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে বাদ লিভারপুল

বাংলাদেশের বন্ধু সায়মন ড্রিং মারা গেছেন

বাংলাদেশের বন্ধু সায়মন ড্রিং মারা গেছেন

সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য বাংলাদেশি পরিবারকে দায়, সেই প্রধান শিক্ষিকার পদত্যাগ

সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য বাংলাদেশি পরিবারকে দায়, সেই প্রধান শিক্ষিকার পদত্যাগ

বৃহস্পতির ‘চাঁদে’ রকেট পাঠাবে নাসা

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৬:৪৫

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা বৃহস্পতি গ্রহের চাঁদ ইউরোপাতে এলন মাস্ক-এর স্পেস এক্স-এর রকেট পাঠানোর জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। ইউরোপাতে বরফের নিচে তরল পানি রয়েছে কিনা তা জানতে বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধানের জন্য এই রকেট পাঠানো হবে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ এখবর জানিয়েছে।

ইউরোপা ক্লিপার মিশনের চুক্তি অনুসারে রকেটি ২০২৪ সালের অক্টোবরে উৎক্ষেপণ করা হবে। চুক্তিটির অর্থমূল্য ১৭ কোটি ৮০ লাখ ডলার। এই মিশনে ব্যবহার করা হবে স্পেস এক্সের তৈরি ফ্যালকন হেভি রকেট। শুক্রবার নাসা এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানিয়েছে।

বৃহস্পতি গ্রহের এই চাঁদ পৃথিবী থেকে ৬৩০ মিলিয়ন কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ধারণা করা হচ্ছে, সেখানে পৌঁছাতে পাঁচ বছরের বেশি সময় লাগবে।

নাসা’র শীর্ষ বৈজ্ঞানিক উদ্যোগের একটি ইউরোপা। বরফের আস্তরণের নিচে বিপুল পরিমাণে লবন পানি রয়েছে বলে ধারণা করা হয়। ইউরোপা ক্লিপার মহাকাশ যানটি উপগ্রহটির উচ্চ রেজ্যুলেশনের ছবি তুলবে যাতে করে চাঁদটির গঠন ও ভূতাত্ত্বিক ক্রিয়া সম্পর্কে জানা যাবে। এছাড়া এটি হ্রদসহ সমুদ্রের গভীরতা ও লবণাক্ততা জানার চেষ্টা করবে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক স্পেস এক্স নাসার পছন্দের ঠিকাদারে পরিণত হয়েছে। আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে কার্গো ও ক্রুদের পরিবহন করার কাজে কোম্পানিটির সঙ্গে একাধিক চুক্তি করেছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টের শেষকৃত্যেও গুলির শব্দ

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টের শেষকৃত্যেও গুলির শব্দ

যুক্তরাষ্ট্রে বিমানযাত্রীর লাগেজে ১৫টি দৈত্যকার শামুক

যুক্তরাষ্ট্রে বিমানযাত্রীর লাগেজে ১৫টি দৈত্যকার শামুক

বিরল রোগে আক্রান্ত সিআইএ-এর শতাধিক কর্মকর্তা!

বিরল রোগে আক্রান্ত সিআইএ-এর শতাধিক কর্মকর্তা!

ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত ১৪০ ফিলিস্তিনি

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০৭:৩৫
image

দখলকৃত পশ্চিমতীরে ইসরায়েলের অবৈধ বসতি স্থাপন প্রতিরোধ করতে গিয়ে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছে ফিলিস্তিনিরা। বেইতা গ্রামে এই বিক্ষোভে ১৪০ জনেরও ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। শুক্রবারের এই ঘটনায় ইসরায়েলের দুই সেনা সদস্য সামান্য আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে সামরিক বাহিনী। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

অবৈধ চেকপোস্ট স্থাপনের প্রতিবাদে শুক্রবার বেইতা গ্রামে জড়ো হয় হাজার হাজার ফিলিস্তিনি। অবৈধ বসতি সম্প্রসারণের প্রতিবাদে ওই এলাকায় নিয়মিত বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নাবলুসের দক্ষিণে জিভাত এভিয়েতার চেকপোস্টের কাছে একটি দাঙ্গা কয়েক ঘন্টা স্থায়ী হয়েছে। শত শত ফিলিস্তিনি সেনা সদস্যদের লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করলে তা প্রতিহত করা হয় বলে দাবি ইসরায়েলের।

ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, সংঘর্ষে অন্তত ১৪৬ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৯ জন গুলিবিদ্ধ, ৩৪ জন রাবার বুলেটে আর ৮৭ জন টিয়ার গ্যাসে আক্রান্ত হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের পর থেকে পশ্চিমতীর দখর করে রেখেছে ইসরায়েল। ওই এলাকায় বর্তমানে ৪ লাখ ৭৫ হাজার ইহুদি অবৈধভাবে বসবাস করে আসছে।

/জেজে/

সম্পর্কিত

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

কৃত্রিমভাবে বৃষ্টি ঝরাচ্ছে দুবাই

কৃত্রিমভাবে বৃষ্টি ঝরাচ্ছে দুবাই

সর্বশেষ

জরিমানা ও ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ডে যা বললো প্রিমিয়ার সিমেন্ট

জরিমানা ও ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ডে যা বললো প্রিমিয়ার সিমেন্ট

ট্রলারডুবির ১৮ ঘণ্টা পর ১৬ জেলে জীবিত উদ্ধার

ট্রলারডুবির ১৮ ঘণ্টা পর ১৬ জেলে জীবিত উদ্ধার

কৃষকের ঘর থেকে জাতীয় দল, কেমন চলছে শরিফুলের দিনকাল

কৃষকের ঘর থেকে জাতীয় দল, কেমন চলছে শরিফুলের দিনকাল

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে রশিতে বেঁধে পেটানোর অভিযোগ

যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে রশিতে বেঁধে পেটানোর অভিযোগ

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

প্রতিদ্বন্দ্বী ইসরায়েলের, খেলতে না চাওয়ায় শাস্তি

প্রতিদ্বন্দ্বী ইসরায়েলের, খেলতে না চাওয়ায় শাস্তি

শরীরে ক্যামেরা নিয়ে চলবে চট্টগ্রামের ৪ থানার পুলিশ

শরীরে ক্যামেরা নিয়ে চলবে চট্টগ্রামের ৪ থানার পুলিশ

এক ক্যাটাগরিতে তিন রেকর্ড চীনের, ভারতের প্রথম পদক

এক ক্যাটাগরিতে তিন রেকর্ড চীনের, ভারতের প্রথম পদক

নিখোঁজের দুই দিন পর পর্যটকের লাশ উদ্ধার

নিখোঁজের দুই দিন পর পর্যটকের লাশ উদ্ধার

‘পিলারের সঙ্গে ফেরির ধাক্কা অস্বাভাবিক কিছু নয়’

‘পিলারের সঙ্গে ফেরির ধাক্কা অস্বাভাবিক কিছু নয়’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত ১৪০ ফিলিস্তিনি

ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত ১৪০ ফিলিস্তিনি

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

কৃত্রিমভাবে বৃষ্টি ঝরাচ্ছে দুবাই

কৃত্রিমভাবে বৃষ্টি ঝরাচ্ছে দুবাই

বাগদাদে ব্যস্ত মার্কেটে বোমা হামলায় নিহত ২৫

বাগদাদে ব্যস্ত মার্কেটে বোমা হামলায় নিহত ২৫

স্পাইওয়্যার রফতানি শুধু বৈধ ব্যবহারের জন্য: ইসরায়েল

স্পাইওয়্যার রফতানি শুধু বৈধ ব্যবহারের জন্য: ইসরায়েল

তালেবানের উচিত আফগানিস্তানে দখলদারিত্ব বন্ধ করা: এরদোয়ান

তালেবানের উচিত আফগানিস্তানে দখলদারিত্ব বন্ধ করা: এরদোয়ান

তেল উৎপাদন নিয়ে সৌদি-আমিরাত বিরোধের অবসান

তেল উৎপাদন নিয়ে সৌদি-আমিরাত বিরোধের অবসান

ইসরায়েলি বাহিনীতে বাড়ছে মুসলিম সেনাদের সংখ্যা

ইসরায়েলি বাহিনীতে বাড়ছে মুসলিম সেনাদের সংখ্যা

সীমিত পরিসরে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু

সীমিত পরিসরে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু

© 2021 Bangla Tribune