X
রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২
১৯ আষাঢ় ১৪২৯

সয়াবিনের দামে বিক্রি হচ্ছে পাম অয়েল

আপডেট : ২৬ মে ২০২২, ১৫:২৮

বাজারে সয়াবিনের দামে বিক্রি হচ্ছে পাম অয়েল। বাজার ঘুরে কোথাও পাম তেলের দেখা পাওয়া যায় না। খোলা বা প্যাকেটজাত সবই সয়াবিনের নামে ও দামে বিক্রি হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে পরামর্শ করে ভোজ্যতেল পরিশোধনকারী মিল কর্তৃপক্ষ সয়াবিন তেল ও পাম তেলের পৃথক দর নির্ধারণ করে দিলেও এর কার্যকারিতা নেই। বাজারে যা আছে তার সবই সয়াবিন তেল হিসেবে বিক্রি হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে- পাম তেলের তুলনায় সয়াবিন তেলের দাম লিটারে বেশি ২৬ টাকা। অতিরিক্ত এই মুনাফা লুটতেই ব্যবসায়ীরা পাম সুপার বা পাম তেলকে সয়াবিনের নামে ও দামে বিক্রি করছে। সয়াবিন ও পাম তেলের মধ্যে পার্থক্য করার সুবিধা নে বলে সাধারণ ক্রেতাদেরকেও তা মানতে হচ্ছে। ২৬ টাকা বেশি দিয়ে সয়াবিন মনে করে পাম তেল কিনে নিয়ে যাচ্ছেন তারা। 

দেশে সয়াবিন তেল মূলত আমদানি নির্ভর নিত্যপণ্য। দেশের ব্যবসায়ীরা মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া থেকে পাম অয়েল আমদানি করেন। আমদানি করা এসব পাম তেল রিফাইন করে বাজারে সয়াবিন তেল নামে বিক্রি করেন। কিন্তু ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের পরোক্ষ প্রভাব এবং ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ায় এবার পাম অয়েল উৎপাদন কম হওয়ায় তারা রফতানি কমিয়ে দিয়েছে, ফলে বাংলাদেশের বাজারে এর প্রভাব পড়ছে।

এর বাইরেও খোলা পাম অয়েল বাজারে বিক্রি হচ্ছে সব সময়। যা ড্রামে করে সরবরাহ করা হয়। শীতের দিনে এই তেল জমাট বাঁধে, ফলে ওই মৌসুমে ক্রেতারা বুঝতে পারে এটি পাম তেল বা পাম অয়েল। কিন্তু গরমের দিনে পাম তেল জমাট বাধে না, ফলে বোঝার উপায় নে কোনটি সয়াবিন আর কোনটি পাম সুপার বা পাম তেল বা পাম অয়েল। ব্যবসায়ীরা এই সুযোগটাই নেয়।

গত ৫ মে সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরকার নির্ধারিত প্রতিলিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম প্রতি লিটার ১৯৮ টাকা, খোলা সয়াবিন তেলের দাম ১৮০ টাকা এবং পাম সুপার বা পাম অয়েল বা পাম তেল ১৭২ টাকা। কিন্তু বাজারে কোথাও খুঁজে পাম তেলের অস্তিত্ব মেলে না। প্যাকেট বা খোলা সবই সয়াবিন তেল হিসেবে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন দাবি করেন, প্রতিবেশী দেশের কলকাতায়ও এখন খুচরা বাজারে সয়াবিন তেলের লিটার ১৮০ রুপি বা তারও বেশি। সেই তুলনায় আমাদের দেশে দাম এখনও কম। কিন্তু বাজারে আসলেই তেলের মজুত এখন খুব একটা নেই। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালিয়ে ব্যবসায়ীদের মনে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিচ্ছেন বলেও দাবি তার।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, দোকানের থরে থরে সাজানো সয়াবিনের বোতল আবারও দেখা যাচ্ছে। কোম্পানিগুলো সয়াবিন তেলের সরবরাহ স্বাভাবিক করেছে। এছাড়া অতি মুনাফার আশায় যারা তেল মজুত করেছিলেন, অভিযানের পর তারাও বাজারে ছেড়েছেন সেসব তেল। ফলে বাজারে সয়াবিনের সরবরাহ স্বাভাবিক আছে। বোতলজাত সয়াবিনের দামও সরকার নির্ধারিত দরের বিক্রি হচ্ছে। তবে খোলা তেলে ঝামেলা রয়েই যাচ্ছে। বাজারে খোলা সয়াবিনও ১৯৮ টাকা লিটার দরেই বিক্রি হতে দেখা গেছে। আর পাম তেল তো উধাও।

জানতে চাইলে রাজধানীর কাওরান বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী আরাফাত ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী ইকবাল হোসেন জানিয়েছেন, পাম তেল আসলে আমরা আনি না। বিক্রিও করি না।  আমরা সব সময় সয়াবিন তেলই বিক্রি করছি। সরকার কর্তৃক দামে পার্থক্য থাকলেও কেনও বোতলজাত তেলের দামে খোলা সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে- জানতে চাইলে তিনি জানান, সরকার লিটারে দর নির্ধারণ করলেও আমরা খোলা তেলটা কেজিতে বিক্রি করছি। কেজিতে তেলের পরিমাণ তো লিটারের চেয়ে বেশি থাকে।  তাই বাড়তি দাম যুক্ত করে ১৯৮ টাকা দরেই বিক্রি করছি।  

ঈদের আগে থেকে ঈদের পরে বেশ কিছুদিন পাইকারি খুচরা দোকানে ২ লিটার বা ৫ লিটারের বোতল দেখা যেতো না। তবে এখন তা স্বাভাবিক। দোকানে এক লিটার, দুই লিটার বা পাঁচ লিটারের বিভিন্ন কোম্পানির বোতলজাত তেলই পাওয়া যাচ্ছে। সয়াবিন তেলের পাঁচ লিটারের ক্যান সরকার নির্ধারিত ৯৮৫ টাকা দরেই বিক্রি হতে দেখা গেছে। এমন পরিস্থিতিতে বাজারে সয়াবিন তেল অতিরিক্ত দামে বিক্রি ঠেকাতে যৌথ অভিযানে নামছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা জানিয়েছেন, এখন আর তেল মজুতের অভিযোগ সঠিক নয়। আমরা তেল মজুত করিনি। কোম্পানিগুলোই তেলের সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছিল বিধায় বাজারে সংকট সৃষ্টি হয়েছিলো। এখন আর সেই সংকট নাই। তাই বাজারে ভোজ্যতেল নিয়ে অস্থিরতাও নাই।

এ বিষয়ে সিটি গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক বিশ্বজিৎ সাহা জানিয়েছেন, তারা আগের মতোই প্রতিদিন নির্দিষ্ট পরিমাণ তেল সরবরাহ করছেন। পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা রমজান সামনে রেখে সয়াবিন মজুত করেছিলেন। এখন আর সেই সংকট নাই। বাজারে তেলের সরবরাহ স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, বাজারে ভোজ্যতেলের সরবরাহ স্বাভাবিক। সয়াবিনের দামে পাম অয়েল বিক্রি হলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলবো।

/এমআর/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ঢাকায় আরও চারটি বড় বাজার করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর 
ঢাকায় আরও চারটি বড় বাজার করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর 
এনামুলের ব্যাটে আশার আলো দেখছেন ডমিঙ্গো
এনামুলের ব্যাটে আশার আলো দেখছেন ডমিঙ্গো
কর্মকর্তাদের ভিসা ছাড়াই ব্রাজিল যাওয়ার চুক্তির খসড়া অনুমোদন
কর্মকর্তাদের ভিসা ছাড়াই ব্রাজিল যাওয়ার চুক্তির খসড়া অনুমোদন
ঘের থেকে উঠছে গ্যাস, চলছে রান্না
ঘের থেকে উঠছে গ্যাস, চলছে রান্না
এ বিভাগের সর্বশেষ
সয়াবিন তেলের দাম কমলো
সয়াবিন তেলের দাম কমলো
সয়াবিন তেলের দাম কমবে: বাণিজ্য সচিব
সয়াবিন তেলের দাম কমবে: বাণিজ্য সচিব
বেড়েছে চালসহ কয়েকটি পণ্যের দাম
বেড়েছে চালসহ কয়েকটি পণ্যের দাম
ভোজ্যতেলের দাম কমানোর দাবি ক্যাবের
ভোজ্যতেলের দাম কমানোর দাবি ক্যাবের
ফের বাড়লো সয়াবিন তেলের দাম, প্রতি লিটার ২০৫ টাকা
ফের বাড়লো সয়াবিন তেলের দাম, প্রতি লিটার ২০৫ টাকা