X
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২
১৭ আশ্বিন ১৪২৯

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

বরিশাল প্রতিনিধি
২২ জুলাই ২০২১, ২৩:৪২আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ০১:৩৫

ঈদের আমেজ পুরোপুরি শেষ না হলেও শুক্রবার (২৩ জুলাই) থেকে শুরু হওয়া লকডাউনের কারণে চাকরিজীবীদের ফিরতে হচ্ছে কর্মস্থলে। এতে ঈদের পরদিন অর্থাৎ লকডাউনের আগেরদিন বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) বরিশালের নৌঘাটগুলোতে ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে। রাত ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে বরিশাল নৌ বন্দর থেকে ১১টি লঞ্চ ঢাকার উদ্দেশে ছেড়েছে।

এসব লঞ্চের ম্যানেজাররা জানিয়েছেন, ভিআইপি কেবিন থেকে শুরু করে সিঙ্গেল, ডাবল, ডিলাক্স এবং সোফা পর্যন্ত আগেভাগে বুকিং হয়ে গেছে। এ জন্য টিকিটবিহীন যাত্রীদের বিভিন্ন স্থানে ছোটাছুটি করতে হয়েছে। কিছু কেবিনের টিকিট কালোবাজার থেকেও ক্রয় করেছেন যাত্রীরা। কালোবাজারে ডাবল কেবিনের টিকিট বিক্রি হয়েছে সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার এবং সিঙ্গেল কেবিনের টিকিট বিক্রি হয়েছে ২ থেকে আড়াই হাজার টাকায়।

ডেকের যাত্রীরা জানালেন, আগামীকাল শুক্রবার থেকে ১৪ দিনের জন্য লকডাউন শুরু হচ্ছে। এবারের লকডাউন কঠোর হবে উল্লেখ করে আগে আগে ঢাকায় ফিরছেন বলে জানান। সড়কে ঝুঁকি বেশি হওয়ায় কষ্ট হলেও লঞ্চে যাচ্ছেন তারা।

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

যাত্রী জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আসলে সড়কপথে দুর্ঘটনা বেড়েই চলছে। তাই বাসে যাই না। আমি বহু বছর ধরে বরিশাল-ঢাকায় চলাচল করি। কিন্তু এর মধ্যে দুই-একবারের বেশি বাসে চড়িনি। তাছাড়া লঞ্চে যাতায়াত অনেক আরমাদায়ক। খাবার থেকে শুরু করে টয়লেটসহ সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু যাত্রীদের ভিড় থাকায় কিছুটা অস্বস্তি লাগছে। এর মূল কারণ হলো লকডাউন। স্বাস্থ্যবিধির কোনও বালাই নেই। এত মানুষ এতে লঞ্চ কর্তৃপক্ষেরও করার কিছু নেই।’

কীর্তনখোলা-২ লঞ্চের কেবিনের যাত্রী জেমস লিটন বিশ্বাস বলেন, ‘লকডাউনের কারণে লঞ্চগুলোতে ভিড় থাকবে এটাই স্বাভাবিক। এ কারণে লঞ্চ ছাড়ার নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই কেবিনে উঠে পড়েছি।’ ডেক থেকে শুরু করে কেবিনের সামনের বারান্দা এবং কিছু লঞ্চের ছাদেও যাত্রী বহন করতে দেখেছেন তিনি।

কেবিন পেতে কোনও দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে- জবাবে তিনি হাসি দিয়ে বলেন, ‘সাধারণ যাত্রীদের জন্য এটা নতুন কিছু নয়। ঈদের দিন পর্যন্ত কেবিনের জন্য বিভিন্ন স্থানে গিয়েও পাওয়া যায়নি। এক বন্ধুকে অনুরোধ করার পর কেবিন পেয়েছি।’ না পেলে কী করতেন- লিটন জানালেন, ‘তাহলে কালো বাজার রয়েছে আমাদের জন্য। সেখানে অনায়াসেই কেবিন পাওয়া যায়।’

অ্যাডভেঞ্চার-১ লঞ্চের কেবিন যাত্রী ইয়াছির আরাফাত বলেন, ‘লঞ্চের ডেকে স্বাস্থ্যবিধির কোনও বালাই ছিল না। তবে আমি যে লঞ্চে উঠেছি, সেখানকার কেবিনের সামনে যাত্রী কম রয়েছে। তবে নিচ থেকে ও তিনতলা পর্যন্ত ডেকে ছিল উপচে পড়া ভিড়। লঞ্চের ছাদে গিয়ে আমি হতবাক হয়ে যাই। দুর্ঘটনা পরের কথা। যেভাবে করোনা আমাদের আক্রমণ করছে, সেখানে ছাদেও সামান্য জায়গা নেই। এ জন্য আমি লঞ্চের স্টাফদের বিষয়টি দেখার জন্য বললে তারা নীরব ভূমিকা পালন করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘লঞ্চের ভিড় হওয়ার কারণে আগেভাগে ছাড়তে পারে আশঙ্কায় বিকাল ৫টায় এসে লঞ্চের কেবিনে পরিবার নিয়ে উঠি। কিন্তু লঞ্চ ছেড়েছে রাত ৮টায়। ডেকের যাত্রীরাও জানতেন লঞ্চ নির্ধারিত সময়ের আগেই ছাড়বেন। এ কারণে আমার আগে ডেকের যাত্রী আসে লঞ্চে।’

সুরভী-৯ লঞ্চের যাত্রী রিয়াজ হোসেন বলেন, ‘সুরভী-৮ ও সুরভী-৯ লঞ্চের কেবিন বয় ও স্টাফদের মধ্যে মারামারি বাধে। পরে সরভী-৮ এর সঙ্গে সুরভী-৯ কে বেঁধে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয় লঞ্চ দুইটি। এ দুই লঞ্চের ডেক ছিল যাত্রীতে কানায় কানায় পরিপূর্ণ।’

লঞ্চঘাটে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়

এ বিষয়ে সুরভী লঞ্চের পরিচালক রেজিন উল কবির বলেন, ‘লঞ্চের কেবিন বয় ও স্টাফদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে সমাধান করে দিলে লঞ্চ দুইটি ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।’ সুরভী-৮ এর সঙ্গে সুরভী-৯ লঞ্চ বেঁধে যাত্রা করার কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান, সুরভী-৯ লঞ্চের একটি পাখায় সমস্যা হয়েছে। এ কারণে পেছনের দিকে যাওয়ার জন্য বেঁধে দেওয়া হয়। এরপর বাঁধন খুলে দেওয়া হলে সুরভী-৯ লঞ্চ নিজের মেশিন চালিয়ে ঢাকার উদ্দেশে চলে যায়।

সুন্দরবন লঞ্চের কাউন্টার ম্যানেজার জাকির হোসেন বলেন, ‘লকডাউনের বিষয়টি সবাই জানে, এ কারণে আগেভাগে সব কেবিন শেষ হয়ে যায়। তবে কিছু কেবিন রাখা হয় ভিভিআইপিদের জন্য। ছাড়ার আগ মুহূর্তে তাও ছেড়ে দেওয়া হয়।’

কীর্তনখোলা-২ লঞ্চের সহকারী মহাব্যবস্থাপক বেল্লাল হোসেন বলেন, ‘প্রতি বছর মতো এবারও আগে এলে আগে পাবেন ভিত্তিতে সাধারণ যাত্রীদের কেবিন দিয়েছি। একই নিয়ম অপর লঞ্চগুলো করলে সাধারণ যাত্রীদের কেবিন পেতে কোনও দুর্ভোগ পোহাতে হবে না। এ জন্য সব মালিকদের এক প্লাটফর্মে আসতে হবে।’

লঞ্চ মালিক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, ‘যাত্রীদের কাছে লঞ্চ স্টাফরা ছিলেন অসহায়। এ জন্য ঈদের তিন দিন পর থেকে লকডাউন শুরু করলে এ অবস্থার সৃষ্টি হতো না। তারপরও আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করেছি, যাত্রীদের চাপে কোনও ধরনের হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।’

বরিশালে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) যুগ্ম পরিচালক (বন্দর ও পরিবহন) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আপনারাও লঞ্চঘাটে ছিলেন, নিজের চোখেই দেখেছেন। যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, এতে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মানানো কোনোভাবেই সম্ভব হয়নি। তবে শতভাগ মাস্ক পরিধানে আমরা কঠোর ছিলাম এবং তা বাস্তবায়নও করেছি।’

/এফআর/
সম্পর্কিত
প্রথমবার লকডাউন চীনের বাণিজ্যিক শহর সাংহাই
প্রথমবার লকডাউন চীনের বাণিজ্যিক শহর সাংহাই
প্রথমবারের মতো লকডাউনে কিরিবাতি
প্রথমবারের মতো লকডাউনে কিরিবাতি
একজনের ওমিক্রন শনাক্তের পর পুরো বিল্ডিং লকডাউন
একজনের ওমিক্রন শনাক্তের পর পুরো বিল্ডিং লকডাউন
নির্দেশনা মেনে চললে লকডাউন প্রয়োজন হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
নির্দেশনা মেনে চললে লকডাউন প্রয়োজন হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
পুলিশ সদস্যের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় ১০ বছরের কারাদণ্ড
পুলিশ সদস্যের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় ১০ বছরের কারাদণ্ড
ড্রাগন ফল খাওয়ার ১০ উপকারিতা
ড্রাগন ফল খাওয়ার ১০ উপকারিতা
ব্রিটে‌নে নিত্যপণ্যের বাজা‌রে আগুন, বিপাকে বাংলা‌দেশিরা
ব্রিটে‌নে নিত্যপণ্যের বাজা‌রে আগুন, বিপাকে বাংলা‌দেশিরা
এ বিভাগের সর্বশেষ
নির্দেশনা মেনে চললে লকডাউন প্রয়োজন হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
নির্দেশনা মেনে চললে লকডাউন প্রয়োজন হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
করোনার মুখে খাওয়ার ওষুধ টিকার বিকল্প নয়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
করোনার মুখে খাওয়ার ওষুধ টিকার বিকল্প নয়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
ইয়াস ও লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত ১৬ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা
ইয়াস ও লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত ১৬ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা
৩৩ দিনে লোকসান ৬০ কোটি, চাকরি গেলো ৫ হাজার কর্মচারীর
৩৩ দিনে লোকসান ৬০ কোটি, চাকরি গেলো ৫ হাজার কর্মচারীর
রাজশাহী থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল শুরু
রাজশাহী থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল শুরু