X
সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪
১০ আষাঢ় ১৪৩১

আলো ছড়াচ্ছে বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ কর্নার

হেদায়েৎ হোসেন, খুলনা
২১ আগস্ট ২০২৩, ০৮:০১আপডেট : ২১ আগস্ট ২০২৩, ০৮:০১

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) সেন্ট্রাল লাইব্রেরিতে ২০১৩ সালে স্থাপিত হয় বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ কর্নার। এখানে রয়েছে এক হাজার ৭০০টি বই। ২০১৮ সালে ক্যাম্পাসে স্থাপন করা হয় বঙ্গবন্ধু স্কয়ার। যেখানে ধাতব বস্তু দিয়ে তৈরি হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল। ২০২১ সালে স্থাপন করা হয় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বঙ্গবন্ধু কর্নার। সেখানে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ২৭৭টি ছবি ও ৮৮টি বই। রয়েছে হাতে আঁকা বঙ্গবন্ধুর তিনটি দৃষ্টিনন্দন ছবি। ফলে শিক্ষার্থীদের মাঝে আলো ছড়াচ্ছে বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ কর্নার।

কুয়েটের সেন্ট্রাল লাইব্রেরিয়ান মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘২০১৩ সালের ১ সেপ্টেম্বর কুয়েটের লাইব্রেরিতে স্থাপিত হয় বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ কর্নার। তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এর উদ্বোধন করেন। এক হাজার ৭০০টি বই এখানে রয়েছে। শিক্ষার্থীরা লেখাপড়ার পাশাপাশি এসব বই পড়ে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানতে পারেন। বলা চলে এটি জ্ঞানের বাতিঘর।’

ধাতব বস্তু দিয়ে তৈরি হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের ১৫ ডিসেম্বর স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সেন্টারে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বঙ্গবন্ধু কর্নারের উদ্বোধন করা হয়। কর্নারের প্রবেশপথে স্থাপন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ও মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ‘জনকের ডাকে জাতির মুক্তি’ শিরোনামে মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশকে পৃথক তিনটি মেটাল ওয়ার্ক। করিডোরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির সঙ্গে জীবন ও রাষ্ট্র পরিচালনায় বিভিন্ন উপদেশ তুলে ধরা হয়েছে এবং হাতে আঁকা বঙ্গবন্ধুর তিনটি ছবি রয়েছে। কেন্দ্রের মধ্যে ছোট একটি লাইব্রেরিও রয়েছে। এখানে মোট ২৭৭টি আলোকচিত্রে বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জন্ম থেকে মৃত্যু, বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ও ব্যক্তি জীবন, রাষ্ট্র পরিচালনার সব পর্যায়ের ফটো বায়োগ্রাফি দিয়ে কেন্দ্রটি সাজানো হয়েছে। এ ছাড়া সাল অনুযায়ী বঙ্গবন্ধুর জীবন বৃত্তান্ত ছবির নিচে সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু কর্নারে রয়েছে দুর্লভ সব আলোকচিত্র। সেখানে সাদাকালো ফ্রেমে আলো-ছায়ার মাঝে তুলে ধরা হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। আলোকচিত্রে ফুটে উঠেছে বঙ্গবন্ধুর জন্ম, কৈশর, কলেজ জীবন, ৫৪-এর নির্বাচন থেকে শুরু করে আন্দোলন-সংগ্রাম, দেশ গঠন এবং ঘাতকের বুলেটে রক্তাক্ত আলোকচিত্রসমূহ। এ ছাড়া সেখানে স্থান পেয়েছে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রসহ এই সংক্রান্ত বিভিন্ন দুর্লভ দলিল। রয়েছে দেশি-বিদেশি পত্রিকায় মুক্তিযুদ্ধ সময়কার প্রকাশিত সংবাদের ছবি ও আলোকচিত্র। আরও রয়েছে বঙ্গবন্ধুর হাতে লেখা বেশ কিছু চিঠি, মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু বিষয়ক বিভিন্ন বই। এখানে আলোকচিত্র ও শিল্পীর কারুকাজে তুলে ধরা হয়েছে বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতার ইতিহাস। বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতার আলোকচিত্র এবং ইতিহাসের দুর্লভ দলিল সমৃদ্ধ এই বঙ্গবন্ধু কর্নারটি খুলনার মধ্যে অন্যতম; যা প্রায় এক বছর কাজ করার পর ১৫ ডিসেম্বর উদ্বোধনের মাধ্যমে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর জন্ম থেকে মৃত্যু, বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ও ব্যক্তি জীবন, রাষ্ট্র পরিচালনার সব পর্যায়ের ফটো বায়োগ্রাফি দিয়ে কেন্দ্রটি সাজানো হয়েছে

বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জান্নাতুল হীরা বলেন, ‘পড়াশোনার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও বিভিন্ন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের তথ্য বই পড়ে জানা যায়। বঙ্গবন্ধুকে জানতে গভীরভাবে বুঝতে প্রত্যেকটি বই সহায়ক। তথ্য সংগ্রহের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।’

একই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সৈয়দা ফারিহা রহমান বলেন, ‘সাধারণত কোনও কর্নারে একসঙ্গে এত ছবি দেখতে পাওয়া যায় না। সাজানো-গোছানো পরিবেশ দেখে ভালো লাগছে। এটি তথ্যনির্ভর কর্নার।’

আরেক শিক্ষার্থী সাজবির রহমান বলেন, ‘ইতিহাস জানার জন্য পর্যাপ্ত বই আছে এখানে। বঙ্গবন্ধুর কর্মমুখর দিনগুলো ও জীবনী বুঝতে আলোকচিত্র রয়েছে। ক্যাম্পাসের এই জায়গাটি সবার প্রিয়।’

এখানে রয়েছে এক হাজার ৭০০টি বই

কুয়েট স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সেন্টারের পরিচালক প্রফেসর ড. মো. আব্দুল মতিন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি দেশ বিদেশ থেকে আগত বিভিন্ন অতিথিদের মুগ্ধ করে। প্রতিদিন বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এটা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকে। ফলে আশপাশের লোকজন স্বপরিবারে এসে এগুলো উপভোগ করার সুযোগ পান।’

স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সেন্টারের উপপরিচালক মো. হেলাল ফকির বলেন, ‘২০১৮ সালের ২ আগস্ট খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু স্কয়ারের উদ্বোধন করা হয়। অডিটোরিয়াম ভবনের সামনে ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু স্কয়ারের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর। এর স্থপতি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাস্কর্য ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক মো. শেখ সাদী ভূঁইয়া। এই ভাস্কর্যের নির্মাণশৈলী সবাইকে বিমোহিত করে।’

/এসএন/
সম্পর্কিত
জাতীয় সংসদ ভবনে ‘মুজিব ও স্বাধীনতা’র উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
শেখ হাসিনা রাজনীতির জাদুকর: ওবায়দুল কাদের
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বাংলা একাডেমির শতাধিক বই
সর্বশেষ খবর
সাবিনাদের লেবাননে পাঠিয়ে ঝুঁকি নিতে চাইছে না বাফুফে
সাবিনাদের লেবাননে পাঠিয়ে ঝুঁকি নিতে চাইছে না বাফুফে
হিজবুল্লাহর সঙ্গে যুদ্ধে ইসরায়েলকে কী সহযোগিতা করবে যুক্তরাষ্ট্র
যা বললেন মার্কিন সেনাপ্রধানহিজবুল্লাহর সঙ্গে যুদ্ধে ইসরায়েলকে কী সহযোগিতা করবে যুক্তরাষ্ট্র
সাবেক প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে পিস্তল উঁচি‌য়ে হুম‌কির অভিযোগ, থানায় জি‌ডি
সাবেক প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে পিস্তল উঁচি‌য়ে হুম‌কির অভিযোগ, থানায় জি‌ডি
অগ্রণী ব্যাংকের সাবেক সিবিএ নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা
অগ্রণী ব্যাংকের সাবেক সিবিএ নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা
সর্বাধিক পঠিত
ওসিকে ধাক্কা দিয়ে চাকরি হারালেন সেই এএসআই
ওসিকে ধাক্কা দিয়ে চাকরি হারালেন সেই এএসআই
আঠাবিহীন কাঁঠাল চাষে চমক, তিন মাসেই ফল, দেবে বারো মাস
আঠাবিহীন কাঁঠাল চাষে চমক, তিন মাসেই ফল, দেবে বারো মাস
‘কক্সবাজারে সেনানিবাস না থাকলে দখল করে নিতো আরাকান আর্মি’
‘কক্সবাজারে সেনানিবাস না থাকলে দখল করে নিতো আরাকান আর্মি’
৭৭ বছর পর ট্রেন যাবে কলকাতায়, রাজশাহীতে উচ্ছ্বাস
৭৭ বছর পর ট্রেন যাবে কলকাতায়, রাজশাহীতে উচ্ছ্বাস
‘জল্লাদ’ শাহজাহান মারা গেছেন
‘জল্লাদ’ শাহজাহান মারা গেছেন