প্রথম হওয়া সেই শিক্ষার্থীর ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত

Send
রংপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৯:২৮, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৪, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ সেশনে স্নাতক প্রথম বর্ষের ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষায় প্রথম হওয়া শিক্ষার্থী মিশকাতুল জান্নাতের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শনিবার (৭ ডিসেম্বর) রাত সোয়া ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী পরিচালক আরিফুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষক ইমরানা বারীর ছোট বোন মিশকাতুল জান্নাত একটি ইউনিটে প্রথম হলেও অন্য দুই ইউনিটে ফেল করেন। গত ৬ ডিসেম্বর ‘এক ইউনিটে প্রথম, অন্য দুই ইউনিটে ফেল’ শিরোনামে বাংলা ট্রিবিউনে রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে ক্যাম্পাসে তোলপাড় শুরু হয়।
এদিকে, রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষকরা পুরো ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত এবং তদন্ত সাপেক্ষে বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। এই দাবিতে রবিবার (৮ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মানববন্ধন ও সমাবেশের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ড. তুহিন ওয়াদুদ শনিবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, মিশকাতুল জান্নাত ভর্তি পরীক্ষায় ‘বি’ ইউনিটে (সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ) মানবিক বিভাগ থেকে রেকর্ড মার্কস পেয়ে প্রথম হন। কিন্তু ‘এ’ ইউনিট এবং ‘এফ’ ইউনিটে ফেল করেন। এমনকি ‘বি’ ইউনিটে তিনি যে পরিমাণ মার্কস পেয়েছেন অন্যকোনও ইউনিটের কোনও শিফটে কেউ সে পরিমাণ মার্কস তুলতে পারেননি। মিশকাতুল জান্নাত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের ঘনিষ্ঠ এবং শিক্ষকের বোন হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে।
এ ঘটনা জানাজানি হলে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি-সম্পাদকসহ ৫০ জন শিক্ষক রেজিস্ট্রার বরাবর ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ রাখাসহ পুরো বিষয়টি তদন্ত ও দায়ীদের চিহ্নিত করে বিচার দাবি করে লিখিত অভিযোগ দেন। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বলে জনসংযোগ বিভাগ প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, গত ১৯ শে নভেম্বর সব ইউনিটের ফল প্রকাশ করে কর্তৃপক্ষ। এতে ‘বি’ ইউনিটের (সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ) মানবিক বিভাগ থেকে পরীক্ষায় অংশ নিয়ে মিশকাতুল জান্নাত এমসিকিউয়ে ৮০ এর মধ্যে ৬৭.২৫ পান; যা অন্য কোনও ইউনিটে আর কেউ পাননি। তার ‘বি’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার রোল নম্বর ২৪০২৭৮। অথচ ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় তৃতীয় শিফটে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে (রোল নম্বর ১৪১৭৫২) ফেল করেন মিশকাতুল। একইভাবে ‘এফ’ ইউনিটেও চতুর্থ শিফটে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে (রোল নম্বর ৬৪১৭৫১) ফেল করেন এই শিক্ষার্থী।
মিশকাতুল বগুড়ার ধুনট উপজেলার গোসাইাবাড়ী ইউনিয়নের এনামুল বারীর মেয়ে। তিনি এবার দ্বিতীয় মেয়াদে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুন...
এক ইউনিটে প্রথম, অন্য দুই ইউনিটে ফেল

 

/আইএ/

লাইভ

টপ