লিবিয়ায় জিম্মিচক্রকে ১০ লাখ টাকা পাঠিয়েও লাভ হয়নি

Send
জহিরুল ইসলাম খান, মাদারীপুর
প্রকাশিত : ১৩:১৩, মে ৩১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫৬, মে ৩১, ২০২০

লিবিয়ায় নিহত শাহিনের পরিবারলিবিয়া হয়ে ইতালি যাওয়ার পথে জিম্মিকারী দালালচক্রের হাতে বন্দি হন মাদারীপুরের শাহিন মাতুব্বর (২৬)। এরপর কয়েক দফায় দেশে ফোন করে জিম্মিকারীরা মুক্তিপণ চেয়ে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। ঋণ করে টাকা পাঠিয়ে ছেলেকে বাঁচাতে না পেরে দিশেহারা এখন তার পরিবার।

শনিবার (৩০ মে) রাজৈর উপজেলার ইশিবপুর ইউনিয়নে শাহিনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় ঘরের বারান্দায় শোকে বিলাপ করছেন মা রোমেচা বেগম। বলছেন, ‘১০ লাখ টাকা সুদে এনে দালালদের পাঠিয়েছি। এরপরও আশা ছিল ছেলে মুক্তি পেয়ে ইতালি যাবে। ছেলে নেই এখন কীভাবে এই সুদের টাকা শোধ হবে।’

পাশেই বসে কাঁদছেন ভ্যানচালক বাবা কালাম মাতুব্বর। তিনি বলেন, ‘রাজৈরের পাঠানকান্দি এলাকার লিবিয়া প্রবাসী আমির হোসেন এবং দেশে তার ভাই নূর হোসেনের মাধ্যমে সাত মাস আগে ছেলেকে লিবিয়ায় পাঠাই। এরপর থেকে তাদের কাছে মোবাইলে শাহিনকে নির্যাতন করা হচ্ছে বলে লিবিয়া থেকে কল দেয় একাধিক ব্যক্তি। এতে বাধ্য হয়ে সুদে টাকা এনে দুই দফা ১০ লাখ টাকা দালালদের নির্দেশনা মতো দিতে হয়। তবুও শেষ রক্ষা হলো না।’

নিহত শাহিন মাতুব্বরস্থানীয়রা জানান, পঞ্চাশোর্ধ কালাম মাতুব্বর ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। তার নিজের কোন জমিও নেই। তার চারটি ছেলে। বড় ছেলে আয় করে সংসারের হাল ধরবে এই আশায় ছিল সবাই। এই পরিবারটি এখন বলতে গেলে পথে বসে গেছে।

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, ‘বৈদেশিক ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় থেকে মাদারীপুরের ১১ জন নিহত ও তিন জন আহতের ব্যাপারে তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া হামলার মুখে পড়া মাদারীপুরের একজন সেখানে সুস্থ অবস্থায় আছে। জেলায় দালালচক্রের বিরুদ্ধে যাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কঠোর হয় সেই ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে লিবিয়ার বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় তাদের মৃত্যু হওয়ায় লাশও ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আছে অনিশ্চয়তা।’

আরও পড়ুন: 

‘লিবিয়া হত্যাকাণ্ডের পেছনে থাকা বাংলাদেশিদেরও শাস্তি দিতে হবে’ 

লিবিয়ায় মানব পাচারকারীদের হাতে ২৬ বাংলাদেশি নিহত

লিবিয়ায় হতভাগ্য বাংলাদেশিদের তালিকায় মাদারীপুরের ১৬ জন

/এনএস/এমএমজে/

লাইভ

টপ