গম উদ্ধারের ঘটনায় দুদকের মামলা, চেয়ারম্যান-মেম্বারকে কোর্টে চালান

Send
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৬:১০, আগস্ট ০৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৬:১৩, আগস্ট ০৭, ২০২০

চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন

নাটোর সদর উপজেলার ছাতনী ইউপির মাঝদিঘা পূর্বপাড়া গ্রাম থেকে কাবিখার ১শ’ বস্তা গম উদ্ধারের ঘটনায় মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ মামলার দুই আসামি চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন ও মহিলা মেম্বার শাহনাজকে কোর্টে চালান দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর পর মামলা শেষে আসামিদের কোর্টে চালান দেওয়া হয়। আদালত তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

দুদক রাজশাহী কার্যালয়ের উপ পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম ও সদর থানার এসআই মোস্তফা কামাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সদর থানার এসআই মোস্তফা কামাল জানান, বুধবার বিকেলে গম জব্দ করার পর সরকারি খাদ্য অবৈধভাবে মজুতের অভিযোগে তিনি বাদী হয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি( জিডি) করেন। অভিযোগে স্থানীয় চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন ও মহিলা মেম্বর শাহনাজকে অভিযুক্ত করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে যাবতীয় নথি রাজশাহী দুদক অফিসে পাঠানো হয়।

দুদক রাজশাহী কার্যালয়ের উপ পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম জানান, জিডির অভিযোগের ভিত্তিতে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়, রাজশাহীর সহকারী পরিচালক মো. নাজমুল হোসাইন বাদী হয়ে ওই চেয়ারম্যান এবং মেম্বারকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এরপর ওই দুই আসামিকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার বাদীকেই মামলার তদন্তভার দেওয়া হয়েছে দাবি করে তিনি আরও বলেন, দ্রুতই তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।

সংরক্ষিত নারী আসনের অভিযুক্ত সদস্য শাহনাজ বেগম।

প্রসঙ্গত বুধবার বিকেল চারটার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ছাতনী ইউনিয়নের মাঝদিঘা গ্রামে অভিযান চালায় গোয়েন্দা ও সদর থানা পুলিশ। এক পর্যায়ে মাঝদিঘা পূর্বপাড়ার এক পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে কাবিখার ৫০ কেজির ১শ’ বস্তা গম জব্দ করে পলিশ। পরে জানা যায়, ওই বাড়ির মালিক কোরবান। তিনি স্থানীয় চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেনের নাতি জামাই।

পরে চেয়ারম্যান তোফাজ্জল ও  ১,২,৩ সংরক্ষিত আসনের ইউপি মেম্বর শাহনাজ থানায় উপস্থিত হয়ে জানান, শাহনাজের নামে কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচির আওতায় ওই গম উত্তোলন করা হয়।

চেয়ারম্যান দাবি করেন, গমগুলো খারাপ হওয়ায় শ্রমিকরা নিতে চায়নি। তাই টাকা পরিশোধ করে গবাদি পশুর খাদ্য হিসেবে তিনি গমগুলো কিনেছেন।

তবে স্থানীয়দের দাবি, দুই মাস আগে ওই মেম্বর ও চেয়ারম্যান একটি খাল খননের কাজ করেছেন। খালটি প্রায় ১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের হলেও এটি শ্রমিকদের দিয়ে নয় ভেকু দিয়ে কাটা হয়েছে। পরে কয়েকজন শ্রমিক দিয়ে খুঁটিনাটি কাজ করা হয়।

/টিএন/

লাইভ

টপ