X
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সৌদিতে যাওয়ার পর থেকে নানাভাবে নির্যাতন করেছে নিয়োগকর্তা

ছনি আহমেদ চৌধুরী, হবিগঞ্জ
০৬ এপ্রিল ২০২৪, ২৩:২২আপডেট : ০৬ এপ্রিল ২০২৪, ২৩:৪২

পরিবার ছেড়ে বিদেশে যাওয়া দেশের অধিকাংশ অভিবাসী নারী গৃহকর্মীই নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। দেশে ফেরার পর তাদের মুখে নির্যাতনের ভয়ংকর বর্ণনা শুনে আঁতকে ওঠে সবাই। নির্যাতিত যেসব নারী পালিয়ে দেশে ফিরে এসেছেন, তাদের শরীরেও নির্যাতনের ছাপ স্পষ্ট। দেশে ফিরে কেউ কেউ তাদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ নির্যাতনের বিষয়ে মুখ খুললেও অনেকেই সামাজিক কারণে মুখ বন্ধ রাখেন। সম্প্রতি সৌদি আরব থেকে নিয়োগকর্তার নির্যাতনে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে দেশে ফিরেছেন হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার রাবিয়া খাতুন (৩৮)। অমানুষিক নির্যাতনের শিকার হয়ে মানসিকভাবে অসুস্থ রাবিয়া দেশে ফেরার পর পরিবারকে খুঁজে পাওয়া দুস্কর হয়ে দাঁড়ায়। অবশেষে গণমাধ্যমকর্মী ও স্থানীয়দের সহায়তায় পরিবারের কাছে তাকে হস্তান্তর করেছে ব্র্যাক লার্নিং সেন্টার।

শনিবার (৬ এপ্রিল) বিকালে সৌদি ফেরত রাবিয়া খাতুনকে নিয়ে নবীগঞ্জ উপজেলার সদরাবাদ গ্রামে নিজ বাড়িতে ফেরে তার পরিবার। রাবিয়া নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের সদরাবাদ গ্রামের নবির হোসেনের মেয়ে ও কাজল উল্লাহর স্ত্রী।

পরিবার ও ব্র্যাক সূত্রে জানা যায়, পরিবারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে ২০২২ সালে রিক্রুটিং এজেন্সি দ্য ইফতি ওভারসিজের (আরএল-৮৯৪) মাধ্যমে সৌদি আরবে গৃহপরিচারিকার ভিসায় পাড়ি জমান রাবিয়া খাতুন। সেখানে যাওয়ার পর তার জীবনে নেমে আসে দুর্বিষহ নির্যাতন।

ব্র্যাক মাইগ্রেশন ওয়েলফেয়ার সেন্টারের ম্যানেজার মো. আল আমিন ও মেয়ে তাছলিমা আক্তারের সঙ্গে রাবিয়া খাতুন

প্রতিনিয়ত নিয়োগকর্তার নির্যাতনে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন রাবিয়া। বন্ধ হয়ে যায় পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ। বুধবার (৩ এপ্রিল) রাতে সৌদি আরব থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হয়ে দেশে ফেরেন রাবিয়া। রাতে বিমানবন্দরের বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান করছিলেন।

বৃহস্পতিবার সকালে তাকে ক্যানপিতে লক্ষ্যহীন চলাফেরা করতে দেখে এপিবিএন সদস্যরা তাদের অফিসে নিয়ে যান। তবে তার কাছে কারও মোবাইল নম্বর বা কোনও তথ্য না থাকায় পরিবার খুঁজে নিরাপদে হস্তান্তরের জন্য এপিবিএন সদস্যরা ঢাকার আশকোনার ব্র্যাক মাইগ্রেশন ওয়েলফেয়ার সেন্টারে পাঠায়।

রাবিয়ার পরিবারের সন্ধান পেতে ব্র্যাক মাইগ্রেশন ওয়েলফেয়ার সেন্টারের ম্যানেজার মো. আল আমিন নয়ন গণমাধ্যমকর্মীদের সহায়তা চান। পরে হবিগঞ্জের স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী, জনপ্রতিনিধি ও সচেতন কিছু যুবকের প্রচেষ্টায় রাবিয়া খাতুনের পরিবারের সন্ধান পাওয়া যায়। ব্র্যাক মাইগ্রেশন ওয়েলফেয়ার সেন্টারের ম্যানেজার মো. আল আমিন নয়নের সঙ্গে যোগাযোগ হয় রাবিয়ার পরিবারের। মায়ের সন্ধান পেয়ে শুক্রবার (৫ এপ্রিল) রাতেই রাবিয়া খাতুনের মেয়ে তাছলিমা আক্তার ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন। শনিবার (৬ এপ্রিল) সকালে ব্র্যাক মাইগ্রেশন ওয়েলফেয়ার সেন্টারের কর্মকর্তারা রাবিয়াকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেন। শনিবার বিকালে সৌদি ফেরত এই নারীকে নিয়ে নবীগঞ্জ উপজেলার সদরাবাদ গ্রামে নিজ বাড়িতে ফেরে পরিবার।

স্বামী ও কন্যার সঙ্গে রাডিবয়া খাতুন

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের রয়েছে আলাদা অভিবাসন কর্মসূচি। প্রতিষ্ঠানটি থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, ২০১৬ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত সাত বছরে ৭১৪ নারী শ্রমিকের লাশ এসেছে দেশে। যার মধ্যে ‘স্বাভাবিক’ মৃত্যুর সনদ লেখা লাশের সংখ্যা ২৬২। সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটেছে সৌদি আরব, জর্দান, লেবানন ও ওমানে। এই সময়ে মারা গিয়েছেন সৌদি আরবে ২০২ জন, জর্দানে ৯৬ জন, লেবাননে ৭৮ জন ও ওমানে ৫৮ জন। সালের হিসেবে ২০১৬ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যায় সবচেয়ে বেশিসংখ্যক মৃত্যু ঘটেছিল ২০১৯ সালে, ১৩৯ জন। এ ছাড়াও ২০১৬ সালে ৫২ জন, ২০১৭ সালে ৯৪, ২০১৮ সালে ১১০, ২০২০ সালে ৮০, ২০২১ সালে ১২২ এবং ২০২২ সালে ১১৭ জন। সবচেয়ে বেশি ৩৭ শতাংশ ছিল স্বাভাবিক মৃত্যু। এ ছাড়া মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত ১৯ শতাংশ, আত্মহত্যা ১৬, দুর্ঘটনা ১৫ এবং অন্যান্য কারণে ১৩ শতাংশ নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়। বছরে গড়ে তিন থেকে চার হাজার নারী ফিরতে বাধ্য হন। ১৯৯১ সাল থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত ১২ লাখ নারী শ্রমিক বিদেশে গেছেন। অতিরিক্ত কাজের চাপ, শারীরিক, মানসিক ও যৌন নির্যাতনের কারণে দেশে ফিরে আসেন তাদের অনেকেই। বিদেশে নির্যাতনের কারণে মারা যান অনেক নারী কর্মী। মৃত নারী শ্রমিকের পরিবারের সদস্যসহ অভিবাসন-বিশেষজ্ঞরা মৃত্যুর এই কারণ বা অধিকাংশ ক্ষেত্রে স্বাভাবিক মৃত্যুর বিষয়ে প্রশ্ন তুলছেন।

রাবিয়া খাতুনের স্বামী কাজল উল্লাহ বলেন, আমার স্ত্রী সৌদি আরব যাওয়ার পর মাঝে মধ্যে যোগাযোগ হয়েছিল। যাওয়ার পর থেকে তার ওপর নানাভাবে নির্যাতন করে নিয়োগকর্তা। বিগত ১ মাস ধরে তাকে ফোনে পাওয়া যাচ্ছিল না। আমরা খুব দুশ্চিন্তায় ছিলাম, শুক্রবার সন্ধ্যায় স্থানীয় সাংবাদিকদের মাধ্যমে খবর পাই দেশে এসেছে, ঢাকায় ব্র্যাক সেন্টারে আছে। পরে আমার মেয়ে ঢাকায় গিয়ে তাকে বাড়িতে নিয়ে এসেছে।

তিনি জানান, রাবিয়া প্রতিনিয়ত নির্যাতনের শিকার হয়ে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তার চিকিৎসা প্রয়োজন। কাজল উল্লাহ তার স্ত্রীর ওপর ঘটে যাওয়া অমানুষিক নির্যাতনের বিচার দাবি করে নারীদের প্রবাসে পাড়ি জমাতে সতর্ক হওয়ার অনুরোধ জানান।

ব্র্যাক মাইগ্রেশন ওয়েলফেয়ার সেন্টারের ম্যানেজার মো. আল আমিন নয়ন বলেন, রাবিয়া আমাদের বলেছেন তিনি সৌদিতে নিয়োগকর্তার নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। বর্তমানে তিনি মানসিকভাবে অসুস্থ। তাই তাকে একা বাড়ি পাঠাতে পারিনি। গণমাধ্যমকর্মীদের সহায়তায় তার পরিবারের সন্ধান পাই। পরে শনিবার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করি।

/আরআইজে/
সম্পর্কিত
অবশেষে আটকে থাকা কর্মীরা গেলেন মালয়েশিয়া
নারী কর্মীদের মাসিকজনিত ছুটি দেবে সিকিম হাইকোর্ট
ঝড়ের কারণে ফ্লাইট বাতিল, বিপাকে মালয়েশিয়াগামী কর্মীরা
সর্বশেষ খবর
রংপুর সিটির কাউন্সিলর শিপলুর বহিষ্কারাদেশ বহাল
রংপুর সিটির কাউন্সিলর শিপলুর বহিষ্কারাদেশ বহাল
‘প্রার্থীদের খুশি করতে’ সিল মারা ব্যালটের ছবি ফেসবুকে দেওয়ার হিড়িক
টাঙ্গাইলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন‘প্রার্থীদের খুশি করতে’ সিল মারা ব্যালটের ছবি ফেসবুকে দেওয়ার হিড়িক
ছয় ঘণ্টায় ৪.৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে সাতক্ষীরার একটি কেন্দ্রে
ছয় ঘণ্টায় ৪.৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে সাতক্ষীরার একটি কেন্দ্রে
আরিফের জোড়ায় আবাহনীকে হারিয়ে মোহামেডান রানার্সআপ
আরিফের জোড়ায় আবাহনীকে হারিয়ে মোহামেডান রানার্সআপ
সর্বাধিক পঠিত
আরেক পুলিশ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
আরেক পুলিশ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমানসহ ৪ জনের রিমান্ড নামঞ্জুর
ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমানসহ ৪ জনের রিমান্ড নামঞ্জুর
আ.লীগের ১১ এমপি খুন, বিদেশে প্রথম আনার
আ.লীগের ১১ এমপি খুন, বিদেশে প্রথম আনার
ব্যাংক বাড়ায় সুদ, টাকা যায় মানুষের পকেটে!
ব্যাংক বাড়ায় সুদ, টাকা যায় মানুষের পকেটে!
শান্তি সম্মেলনে বাইডেনের অনুপস্থিতিতে হাততালি দেবেন পুতিন: জেলেনস্কি
শান্তি সম্মেলনে বাইডেনের অনুপস্থিতিতে হাততালি দেবেন পুতিন: জেলেনস্কি