X
বুধবার, ২২ মে ২০২৪
৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

‘সুড়ঙ্গ’ পাইরেসি নিয়ে ‘প্রিয়তমা’ নির্মাতার বয়ান এবং...

সুধাময় সরকার
২৭ জুলাই ২০২৩, ১৬:৫৭আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২৩, ১২:৩২

রায়হান রাফীর সিনেমা ‘সুড়ঙ্গ’ চুরি হয়ে গেছে! এ নিয়ে গত ক’দিন ধরে চলছে বেজায় হট্টগোল। পক্ষে-বিপক্ষে নানা মত। যদিও টিম ‘সুড়ঙ্গ’র আক্ষেপ এমন বিপদের দিনে প্রতিবাদ জানিয়ে কেউ পাশে দাঁড়ালো না, উল্টো নাকি কেউ কেউ বিষয়টিকে সেলিব্রেট করছে!

এমন পরিস্থিতিতে পুরো সিনেমাটি কে বা কারা বা কিভাবে পাইরেসি করেছে, গত তিন দিনেও সেটি উদঘাটন হয়নি। উল্টো বৃহস্পতিবার (২৭ জুলাই) বেলা ৩টায় ‘সুড়ঙ্গ’ সংশ্লিষ্টরা আনুষ্ঠানিকভাবে ডিবি অফিসে যাওয়ার কথা থাকলেও বেলা আড়াইটা নাগাদ সেটিও বাতিল করেন। সব মিলিয়ে অনেকেই মতামত দিচ্ছেন এমন, একটি সিনেমা চুরি হয়ে গেলে সেটি খবরে বা সোশ্যাল হ্যান্ডেলে মাইকিং করার চেয়ে যত দ্রুত সম্ভব উদ্ধার করাই মূল কাজ। অভিযোগ, ‘সুড়ঙ্গ’ টিম পাইরেসির গল্পটা সবাইকে বলেছে কিন্তু সমাধান করার জন্য কার্যকর কোনও উদ্যোগ নেয়নি।

অনেকটা সেই কথারই প্রতিধ্বনি মিললো ঈদে মুক্তি পাওয়া আরেক আলোচিত ছবি ‘প্রিয়তমা’র নির্মাতা হিমেল আশরাফের কণ্ঠে। তিনি স্পষ্ট ভাষায় বললেন, ‘‘প্রিয়তমা’ পাইরেসি হলে সেটা আমাদের ব্যর্থতা, সেটার জন্য কাউকে দোষী করা কাপুরুষতা।’’

হিমেল বিষয়টিকে আরেকটু ব্যাখ্যা করেন এভাবে, ‘সিনেমা পাইরেসি অনেকটা নিজের বউ অন্যের সাথে ভেগে যাওয়ার মতো। নিজের বউ অন্যের সাথে ভেগে গেলে আমি কী করবো? ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেবো? পাড়া-প্রতিবেশী বা আত্মীয়-স্বজন কেন সেটি স্ট্যাটাস দিলো না বা প্রতিবাদ করলো না, সেটা নিয়ে অভিযোগ করবো? নাকি আইনের আশ্রয় নেব? নাকি যার সাথে বউ ভাগলো তাকে খুঁজবো, নাকি কেন ভাগলো, আমার কতটুকু ভুল ছিল, বউয়ের কতটুকু দোষ ছিল তা যাচাই-বাছাই করবো?’

হিমেল আশরাফ দুষ্টুমির ছলে এটুকুও বলতে ছাড়লেন না, ‘তবে কেউ যদি বউ চলে গেলে খুশি হয় তাহলে আলাদা কথা!’

অন্যকে দোষ দেয়ার আগে নিজের দিকে তাকানো উচিত বলেও মনে করেন এই নির্মাতা। বলেন, ‘আমাকে অনেকেই ইনবক্স করছেন পাইরেসি নিয়ে কেন আমি প্রতিবাদ করছি না। তাদের জবাবে বলছি, কিছু কিছু বিপদে প্রকাশ্যে প্রতিবাদ বা সহমর্মিতা কোনটাই জানাতে হয় না। পারলে উপকার করতে হয় অথবা চুপ থাকতে হয়। সব রোগের এক ওষুধ না। এটা জানতে হবে।’

এদিকে ঈদে মুক্তির পর থেকে ‘সুড়ঙ্গ’ ছবিটিকে ঘিরে গত প্রায় ৫ সপ্তাহ ধরে যা যা ঘটলো, কিংবা সামনেও যা কিছু ঘটার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে; সেটি সম্ভবত ঢালিউড ইতিহাসে আরেকবার ঘটেনি। ফলে অন্ধকার ‘সুড়ঙ্গ’ পেরিয়ে আলো নয়, দেখা মিলছে কেবল ষড়যন্ত্রের রেখা!

তা না হলে, ‘পাইরেসি’ শব্দটি যে ইন্ডাস্ট্রিতে মুছেই গিয়েছিল, সেটি কেমন করে হাজির হলো আলাদীনের দৈত্যের মতো ‘সুড়ঙ্গ’ বেয়ে! বিষয়টি সত্যিই অবিশ্বাস্য বলে মনে করছেন চলচ্চিত্র বিশ্লেষকরা। এবং এটাও প্রমাণের অপেক্ষায়, পুরো ছবিটি দেশের যে কোনও একটি প্রেক্ষাগৃহে পরিকল্পিতভাবে দর্শকশূন্য হলে চালিয়ে ভিডিও ক্যামেরায় শুট করা হয়েছে। এমন পরিকল্পিত পাইরেসি, এই দেশে আর একটিও হয়েছে বলে কোনও তথ্য নেই চলচ্চিত্রজনদের কাছে।

এ নিয়ে নির্মাতা রায়হান রাফীর কণ্ঠে ক্ষোভ, অভিমান ও দেখে নেওয়ার মৃদু সংলাপ। বললেন, ‘এই পাইরেসি কারা করেছে, তা আমরা আইডেনটিফাই করছি। এটা বাংলাদেশ থেকেই হচ্ছে। আমাদের সাথে আইনি সংস্থাগুলোও কাজ করছে। এই ভিডিওগুলো যারা অনলাইনে ছড়িয়েছে; ফেসবুক, ইউটিউব, টেলিগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ, বিভিন্ন সাইটে আপলোড করেছে কিংবা শেয়ার করেছে- তাদের সবার বিরুদ্ধে লিগ্যাল অ্যাকশন নেয়া হচ্ছে।’

নির্মাতা রায়হান রাফী আর নায়িকা তমা মির্জার যৌথ অভিমান-বিবৃতি, এমন একটি ছবি এভাবে চুরি হয়ে গেলো, অথচ তেমন কেউ কোনও প্রতিবাদ জানালো না। উল্টো নাকি বিষয়টি সেলিব্রেট করেছে কেউ কেউ! তবে তারা কারা, সেটি মুখফুটে আর বলেননি। রাফীর ভাষায়, ‘যে কোনও ইস্যু নিয়ে কত লেখালেখি হয়, ভিডিও কনটেন্ট হয়, প্রতিবাদ হয়। অথচ এই বিষয়ে (পাইরেসি) অনেকেই নিশ্চুপ! অনেককেই দেখছি আমাদের সিনেমা পাইরেসি হয়ে যাওয়াকে সেলিব্রেট করতে। কিন্তু তারা জানে না, যারা সত্যিকারের সিনেমাপ্রেমী, তারা পাইরেসির সিনেমা দেখছে না। হলে গিয়েই দেখছে।’

এদিকে রাফীর এই অভিজ্ঞতা কিংবা বক্তব্যটিকে অনেকটা আর্তচিৎকারের মতো করেই হৃদয়ে নিয়েছেন দেশের আরেক পরিচিত নির্মাতা তথা বাংলাদেশ পুলিশের এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের কর্মকর্তা সানী সানোয়ার। তিনি বলেন, ‘‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমা শুধু পাইরেসির কবলেই নয়, সাইবার বোলিং-এর কবলেও বেশ ভুগেছে। এদেশের দর্শক একই সাথে একাধিক সিনেমা ধারণ করার ক্ষমতা রাখলেও কট্টর শ্রেণির কাদা ছোঁড়াছুড়িতে কেউ কম পোড়েনি। ষড়যন্ত্রমূলক হোক, আর পেশাদার পাইরেটস দ্বারাই হোক ‘সুড়ঙ্গ’-এর পাইরেসির আইনগত সমাধান হোক- এটা সবার কাম্য। ‘সুড়ঙ্গ’ টিমকে সর্বোচ্চ আইনগত সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।’’

‘মিশন এক্সট্রিম’ ও ‘ব্ল্যাক ওয়ার’ নির্মাতা আরও বলেন, ‘যে সিনেমা মুক্তি দেয় সে-ই জানে এই জ্বালা কেমন জ্বালা। অতীতে এ জ্বালায় পুড়ে পুড়ে অঙ্গার হয়েছে এমন কাউকে পরবর্তীতে দেখিনি অন্যের আগুন নেভাতে এগিয়ে এসেছেন, দু’লাইন লিখেছেন। শুধু নিজের যন্ত্রণার সময়ই সবাই ছটফট আর হাহাকার করে। কিন্তু, কাউকে পাশে পায় না। এটাই একটি অনগ্রসর ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অনুন্নতির অন্যতম কারণ।’ 

মুক্তির পর সরাসরি পাইরেসি, তা কিন্তু নয়। অন্ধকার টানেলটি খুঁড়তে ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার মাসুদের মতোই বেশ পরিকল্পনামাফিক এগিয়েছে নিশো-রাফী বিরোধীরা। যেমন পাইরেসির আগেই সিনেমার বিশেষ অংশ ফেসবুকে ফাঁস হলো, অশ্লীলতার অভিযোগ উঠলো, মাল্টিপ্লেক্সে টিকিট সেল নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলো। এছাড়াও আফরান নিশোর বক্তব্য নিয়ে একটি অংশের তুমুল নিন্দার ঝড় মোকাবেলা করতে হয়েছে নির্মাতা রায়হান রাফী তথা পুরো টিমকে। 

এরমধ্যেও দেশে টানা চার সপ্তাহ হাউজফুল সার্টিফিকেট নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সফরে গেছে ‘সুড়ঙ্গ’। যদিও সেখানকার হল রিপোর্ট মোটেই সন্তোষজনক নয়। 

/এমএম/
সম্পর্কিত
জোড়া ছবি নিয়ে ফিরছেন নিশো
জোড়া ছবি নিয়ে ফিরছেন নিশো
আচমকা এলো দেড় মিনিটের উসকানিমূলক ‘তুফান’!
আচমকা এলো দেড় মিনিটের উসকানিমূলক ‘তুফান’!
আমরা সবাই ফেরেশতা, বাস করি বেহেশতে: রায়হান রাফী
আমরা সবাই ফেরেশতা, বাস করি বেহেশতে: রায়হান রাফী
সেন্সর বোর্ডের সিদ্ধান্ত, রাফীর সিনেমাটি প্রদর্শনের অযোগ্য!
সেন্সর বোর্ডের সিদ্ধান্ত, রাফীর সিনেমাটি প্রদর্শনের অযোগ্য!
বিনোদন বিভাগের সর্বশেষ
কান সৈকতে জয়ার প্রশংসায় টলিউডের মুমতাজ
কান সৈকতে জয়ার প্রশংসায় টলিউডের মুমতাজ
‘ভুল বোঝাবুঝি’তে শেষ কাশ্যপ-মনোজের সম্পর্ক!
‘ভুল বোঝাবুঝি’তে শেষ কাশ্যপ-মনোজের সম্পর্ক!
কানের লালগালিচায় অলিম্পিকের মশাল
কান উৎসব ২০২৪কানের লালগালিচায় অলিম্পিকের মশাল
চেনা রূপে মাহি, অন্তর্জালে তুললেন ঝড়!
চেনা রূপে মাহি, অন্তর্জালে তুললেন ঝড়!
কান মাতিয়ে বাংলাদেশে আসছে এই ছবি
কান মাতিয়ে বাংলাদেশে আসছে এই ছবি