ক্ষমতায় এলে সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করবেন করবিন

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০০:২৭, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:০৯, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৯

যুক্তরাজ্যের বিরোধী দলীয় নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, আসন্ন নির্বাচনে জয়ী হয়ে লেবার পার্টি ক্ষমতায় গেলে সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করে দেওয়া হবে। ইয়েমেনে রিয়াদের আগ্রাসনের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে এই ঘোষণা দেন তিনি। 

২০১৬ সালে এক গণভোটে ব্রেক্সিটের পক্ষে রায় দেয় যুক্তরাজ্যের ভোটাররা। ব্রেক্সিট পরবর্তীকালে ইইউ’র সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সম্পর্কের শর্ত নির্দিষ্ট করে কয়েক দফায় তৈরি হয় ব্রেক্সিট চুক্তি। তবে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট এসব চুক্তি অনুমোদন করেনি। ফলে আগামী ১২ ডিসেম্বর দেশটিতে অনুষ্ঠিত হবে নতুন সাধারণ নির্বাচন। এই নির্বাচনে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন। সম্প্রতি নির্বাচনকে সামনে রেখে লেবার পার্টির ইশতেহার ঘোষণা করা হয়েছে। এতে করবিন ব্রিটেনকে জনকল্যাণমূলক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দেন।

রবিবার করবিন ঘোষণা দিয়েছেন, ‘লেবার পার্টি ক্ষমতায় গেলে ইয়েমেনে হামলা চালানোর জন্য সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধের পাশাপাশি সেখানে চলমান আগ্রাসন বন্ধের বিষয়ে কাজ করবে দল। কনজারভেটিভ সরকারের মতো সক্রিয়ভাবে সমর্থন করবে না তারা।’

লেবার পার্টির সম্ভাব্য পররাষ্ট্রনীতি নীতিনির্ধারণী ওই বৈঠকে করবিন আরও বলেন, 'আমি নির্বাচিত হলে ইয়েমেনের পাশাপাশি ফিলিস্তিনি-ইসরায়েল ইস্যুতেও নজর দেবো।'

২০১৪ সালে রাজধানী সানা দখলের পর সৌদি সমর্থিত ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট আবদু রাব্বু মনসুর আল হাদিকে ক্ষমতা থেকে বিতাড়িত করে হুথি বিদ্রোহীরা। পালিয়ে সৌদিতে আশ্রয় নেন হাদি। তাকে ক্ষমতায় ফেরাতে ২০১৫ সালের জুনে ইয়েমেনে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট। তখন থেকে এ পর্যন্ত সৌদি আরবের কাছে ৬০০ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রির লাইসেন্স দিয়েছে যুক্তরাজ্য।

/এইচকে/বিএ/

লাইভ

টপ