ভারতের নিষেধাজ্ঞার মুখেও নিজের অবস্থানে অটল মাহাথির

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:১৫, জানুয়ারি ১৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:২২, জানুয়ারি ১৫, ২০২০

মালয়েশিয়া থেকে পাম তেল আমদানিতে ভারতের নিষেধাজ্ঞার মুখেও নিজের অবস্থানে অটল থাকার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, অর্থের জন্য সত্য বলা থেকে তিনি নিজেকে বিরত রাখবেন না।
ভারতের মুসলিমবিদ্বেষী নাগরিকত্ব আইন ও কাশ্মির ইস্যুতে মাহাথিরের সমালোচনার প্রেক্ষিতে সম্প্রতি মালয়েশিয়া থেকে পাম তেল আমদানিতে অনানুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে দিল্লি। আকস্মিকভাবে রফতানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্বভাবতই এর বড় ধাক্কা লেগেছে মালয়েশিয়ার অর্থনীতিতে। তবে এমন পরিস্থিতিতেও অর্থের জন্য নীতি বিসর্জন দিতে রাজি নন তিনি।

মঙ্গলবার কুয়ালালামপুরে এ নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মাহাথির মোহাম্মদ। তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা অবশ্যই উদ্বিগ্ন। কেননা, ভারতের কাছে আমরা প্রচুর পরিমাণ পাম তেল বিক্রি করি। কিন্তু আমাদের খোলামেলা কথা বলতে হবে। কিছু ভুল হলে সেটা নিয়ে আওয়াজ তুলতে হবে।

পাম তেল রফতানিতে ভারতের বিকল্প বাজার খোঁজার কথাও জানান মাহাথির। তিনি বলেন, বৃহত্তম আমদানির বিকল্প পাওয়া সহজ নয়। তবে লোকসান সামাল দিতে পাকিস্তান, ফিলিপাইন, মিয়ানমার, ভিয়েতনাম, ইথিওপিয়া, সৌদি আরব, মিসর, জর্ডান ও আলজেরিয়ায় আরও বেশি করে পাম তেল রফতানি করা হবে। কূটনৈতিক পর্যায়ে এ নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুধু অর্থের জন্য যদি আপনি ভুলটা হয়ে যেতে দেন, তাহলে ওই ভুলটা আমরা এবং সবাই করবে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স জানিয়েছে, মোদি সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ইতোমধ্যেই কুয়ালালামপুর থেকে পাম তেলা কেনা বন্ধ করে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা।

কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল, রাজ্যের মর্যাদা প্রত্যাহার এবং অঞ্চলটিকে ভেঙে দুই টুকরো করে দেওয়ার ঘটনায় দিল্লির সমালোচনা করেছিলেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। জাতিসংঘে দেওয়া ভাষণে ভারতকে কাশ্মিরের দখলদার শক্তি হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি। পরে মোদি সরকারের মুসলিমবিদ্বেষী নাগরিকত্ব আইন নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন মাহাথির। তিনি বলেন, ‘আমি দুঃখের সঙ্গে দেখছি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র বলে দাবি করা ভারত এখন কিছু মুসলিমদের নাগরিকত্ব থেকে বঞ্চিত করতে উদ্যোগ নিচ্ছে। আমরা যদি এখানে এটি বাস্তবায়ন করি, আমি জানি না তাহলে কী ঘটবে! বিশৃঙ্খলা ও অস্থিরতা তৈরি হবে এবং সবাই ভোগান্তির শিকার হবে।’

মাহাথির কাশ্মির ইস্যু ও ভারতের নাগরিকত্ব আইন নিয়ে দফায় দফায় কথা বলার পর গত সপ্তাহে মালয়েশিয়া থেকে পাম তেল আমদানির বিষয়ে ফের ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দেয় দিল্লি। এর আগে ২০১৯ সালের অক্টোবরেও একই ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছিল ভারত। তখন মালয়েশিয়া থেকে পাম তেল আমদানি বন্ধে ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল দেশটির ভোজ্যতেল ব্যবসায়ীদের শীর্ষ একটি সংগঠন। মূলত এ বিষয়ে সরকারের কঠোর অবস্থানের প্রেক্ষিতেই ওই আহ্বান জানিয়েছিল সংগঠনটি।

আগের দফায় মূলত কাশ্মির নিয়ে কথা বলায় মাহাথিরের ওপর ক্ষুব্ধ ছিল দিল্লি। এখন এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ভারতের মুসলিমবিদ্বেষী নাগরিকত্ব আইন নিয়ে মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রীর খোলামেলা বক্তব্য। গত অক্টোবরে মালয়েশীয় পাম তেলের ওপর ভারতের প্রথম দফা অনানুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞার পর কুয়ালালামপুরের প্রতিক্রিয়া ছিল, দিল্লির সিদ্ধান্ত শুধু মালয়েশিয়াকেই নয়, বরং ভারতকেও ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

ওই সময়েই মাহাথির মোহাম্মদ সাফ জানিয়ে দেন, ভারত তাদের পণ্য বয়কট করলেও কাশ্মির প্রশ্নে করা মন্তব্য থেকে তিনি পিছু হটবেন না। কারণ, তিনি যা বলেছেন তা ‘মন থেকেই’ বলেছেন। ১৪ জানুয়ারি মঙ্গলবারও দৃশ্যত ওই অবস্থানেরই পুনরাবৃত্তি করলেন তিনি।

নতুন করে অনানুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে অবগত অন্তত পাঁচটি সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, সরকারের নির্দেশনার ফলে ভারতীয় আমদানিকারকরা আর মালয়েশিয়া থেকে কোনও অপরিশোধিত বা পরিশোধিত পাম তেল কিনছেন না।

ভারতে অশোধিত তেল পরিশোধনের সঙ্গে যুক্ত একজন শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তি রয়টার্সকে বলেন, ‘আনুষ্ঠানিকভাবে মালয়েশিয়া থেকে অপরিশোধিত পাম তেল আমদানিতে কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই। তবে সরকারের নির্দেশনার (অনানুষ্ঠানিক) কারণে কেউ কিনছে না।’ তিনি জানান, সরকারের নির্দেশনার ফলে এখন বেশি দামে ইন্দোনেশিয়া থেকে পাম তেল আমদানি করতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।

/এমপি/এমওএফ/

লাইভ

টপ