জাতিসংঘের নেতৃত্বে লিবিয়ার দুই পক্ষের আলোচনা শুরু

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৩:৪৪, ফেব্রুয়ারি ০৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৩৭, ফেব্রুয়ারি ০৪, ২০২০

লিবিয়ার সংকটের রাজনৈতিক সমাধানের লক্ষ্যে জাতিসংঘের নেতৃত্বে আলোচনা শুরু করেছে দেশটিতে যুদ্ধরত দুই পক্ষ। সোমবার (৩ ফেব্রুয়ারি) জেনেভায় ওই আলোচনা শুরু হয়েছে। এতে অংশ নিচ্ছে জাতিসংঘ সমর্থিত লিবিয়ার জাতীয় ঐক্যের সরকারের (জিএনএ) পাঁচ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিদ্রোহী সামরিক নেতা খলিফা হাফতার নিযুক্ত পাঁচ প্রতিনিধি।

লিবিয়ার সংঘাতের রাজনৈতিক সমাধান খুঁজে বের করতে গত ১৯ জানুয়ারি বার্লিনে একদিনের শান্তি সম্মেলন আয়োজন করেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা ম্যার্কেল। ওই সম্মেলনে তুরস্ক, ফ্রান্সসহ ১২টি আঞ্চলিক দেশ লিবিয়ায় বিদেশি হস্তক্ষেপ বন্ধের বিষয়ে একমত হয়। এছাড়া জাতিসংঘের নেতৃত্বে লিবিয়ার ঐক্য প্রতিষ্ঠায় রাজনৈতিক ও পুনর্গঠন প্রক্রিয়া শুরুর বিষয়েও সম্মতি আসে ওই সম্মেলনে।

সোমবার জাতিসংঘের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, গত মাসে বার্লিন সম্মেলনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দশ সদস্যের ‘লিবিয়ার যৌথ সামরিক কমিশন’ গঠন করা হয়েছে। এই কমিশন দুই পক্ষের যুদ্ধবিরতি পর্যবেক্ষণ করবে। সোমবার শুরু হওয়া বৈঠক তদারকি করছেন লিবিয়ায় নিযুক্ত জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ঘাসান সালামে।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের পর থেকেই সহিংসতা আর বিভক্তিতে জর্জরিত হয়ে আছে লিবিয়া। গত প্রায় পাঁচ বছর ধরে দেশটিতে সক্রিয় রয়েছে দুটি সরকার। এরমধ্যে রাজধানী ত্রিপোলি থেকে পরিচালিত সরকারকে সমর্থন দিয়েছে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের বড় অংশ। তুরস্কের সমর্থনও এই সরকারের প্রতি। আর দেশটির পূর্বাঞ্চল থেকে পরিচালিত জেনারেল খলিফা হাফতারের নেতৃত্বাধীন অপর সরকারটিকে সমর্থন দিচ্ছে মিসর, সংযুক্ত আরব আমিরাত, জর্ডান, সৌদি আরব ও ফ্রান্স। রাজধানী ত্রিপোলির দখল নিতে গত বছরের এপ্রিল থেকে অভিযান জোরালো করেছে হাফতার বাহিনী।

/জেজে/এমওএফ/

লাইভ

টপ