আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সংঘাতে ৫০০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে: পুতিন

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:৪৫, অক্টোবর ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:৩৫, অক্টোবর ২৩, ২০২০

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দাবি করেছেন, আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সংঘাতে দুই পক্ষের অন্তত ৫০০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার এক আলোচনায় তিনি জানিয়েছেন, দুই দেশের সঙ্গেই প্রতিদিন যোগাযোগ রাখছেন তিনি। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। 

নাগরনো-কারাবাখের স্বাধীন প্রশাসন যুদ্ধে ক্ষয়ক্ষতির একটি হিসেব দিয়েছে। তাদের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৮৭৪ জন সেনা এবং ৩৭ জন সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে শুধু নাগরনো-কারাবাখে। আজারবাইজান জানিয়েছে, সেখানে ৬১ জন সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। তবে তাদের তরফ থেকে সেনা মৃত্যুর কোনও সংখ্যা জানানো হয়নি। আর্মেনিয়া কিছু দিন আগে জানিয়েছিল, যুদ্ধে হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

পুতিন বলেছেন, তার কাছে যা খবর, তাতে অন্তত পাঁচ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে। কারণ, দুই দেশই যুদ্ধবিরতি মানতে চাইছে না। ‘দুই পক্ষেই হতাহত ব্যাপকভাবে বাড়ছে। প্রত্যেক পক্ষেরই ২ হাজারেরও বেশি করে মানুষ প্রাণ হারিয়েছে’— বলেছেন তিনি।

নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের পুরনো সংঘাত গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে আবার শুরু হয়। এরইমধ্যে সংঘাতে কয়েকশ’ মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। সংঘাত নিরসনে এখন পর্যন্ত মধ্যস্থতার চেষ্টা চালিয়ে এসেছে রাশিয়া। তবে মস্কোর উদ্যোগে আর্মেনিয়া-আজারবাইজান দুটি অস্ত্রবিরতি চুক্তিতে পৌঁছার পরও লড়াই থামেনি।

এমন অবস্থায় এবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় আলোচনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান জানিয়েছে, তুমুল লড়াই অবসানের চেষ্টায় তাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে আলোচনায় বসবেন। দুই দেশের দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে পম্পেওর আলাদা বৈঠক করার কথা রয়েছে। তবে আর্মেনীয় এবং আজেরি পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে অপরের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করবেন কিনা তা জানা যায়নি। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও এ বৈঠকের ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে কোনও মন্তব্য করেনি।

সংঘাত নিরসনে প্রথম দফার অস্ত্রবিরতি ব্যর্থ হওয়ার পর রাশিয়ার মধ্যস্থতায় শনিবার (১৭ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে নতুন অস্ত্রবিরতি কার্যকরের কথা ছিল। তবে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান একে অপরের বিরুদ্ধে সেই যুদ্ধবিরতিও লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছে।

/এফইউ/বিএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ