জোহর ও মাগরিবে মাস্ক পরার বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:৪৬, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৮, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক (ছবি: ফোকাস বাংলা)

মসজিদে জোহর ও মাগরিবের নামাজের সময় সাধারণ মানুষকে মুখে মাস্ক পরার বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সব মসজিদে জোহর ও মাগরিবের নামাজের সময় যেন ঘোষণা দেওয়া হয়, মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, এটা রাষ্ট্রীয় কল্যাণকর নির্দেশ।’ ধর্ম মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে তিনি এ নির্দেশনা দেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা কক্ষে সীমিত পরিসরে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, দ্বিতীয় দফায় করোনা সংক্রমণ মোকাবিলায় প্রস্তুতির অংশ হিসেবে মঙ্গলবার আন্তমন্ত্রণালয় সভা ডাকা হয়েছে। আজ মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক থেকে সবাইকে মাস্ক পরার জন্য সচেতনতা সৃষ্টির ওপর গুরুত্বারোপ করা হয় । এ বিষয়ে জোহর ও মাগরিবের নামাজের সময় মসজিদ থেকেও প্রচারের জন্য বলা হয়েছে।

তিনি জানান, স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে অভিযান অব্যাহত আছে। মোবাইল কোর্ট চলছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

বায়তুল মোকাররম (ছবি: ফোকাস বাংলা)

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে বৈঠকে যুক্ত হন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন আমাদের যেন প্রস্তুতি থাকে। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন, সেকেন্ড ওয়েভ যদি আসে, অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে যদি সচেতন হই, তাহলে আমাদের জন্য এটা সুবিধা হবে। অক্টোবরের শেষ বা নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ঠান্ডার প্রকোপটা বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে আমাদের লোকজনের নিউমোনিয়া, সর্দি, জ্বর বা অ্যাজমার সমস্যা থাকে, সবাই যাতে প্রস্তুতি নেয়। এসবে আক্রান্ত হলে যেন চিকিৎসা করান। কোভিডের সেকেন্ড ওয়েভ এলে মাঠপর্যায়ে সেটাকে কীভাবে মোকাবিলা করতে হবে সেটার জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে বলেছেন তিনি। কাল বসে বিস্তারিত কর্মসূচি নেবো।’

তিনি বলেন, ‘সবাই মিলে ঠিকভাবে মাস্ক যদি ব্যবহার না করি তাহলে কিন্তু মুশকিল। কারণ, বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সবাই যদি মাস্ক পরা থাকে তাহলে ৯৫ থেকে ৯৮ শতাংশ নিরাপদ। আর শুধু নিজে মাস্ক পরা থাকলে ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ নিরাপদ। মাস্ক যদি না পরে তাহলে কিন্তু কোনও কিছুই সফল হবে না। এজন্য সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। ধর্ম মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সব মসজিদে জোহর ও মাগরিবের নামাজের সময় যেন ঘোষণা দেওয়া হয়, মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, এটা রাষ্ট্রীয় কল্যাণকর নির্দেশ।’

 

/এসআই/এফএস/এমএমজে/এমওএফ/

লাইভ

টপ