X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

মোবাইল ব্যাংকিং হ্যাকার চক্রের ৩ সদস্য গ্রেফতার

আপডেট : ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০৩

ফরিদপুর  ও মুন্সিগঞ্জ থেকে মোবাইল ব্যাংকিং হ্যাকার চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। এসময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন নামের ২৪টি সিম ও ১৩টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। চক্রটি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শ্রমজীবী মানুষের এনআইডি ও মোবাইল ব্যাংক অ্যাকাউন্ট টার্গেট করে নম্বর ক্লোনিং করে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিতো।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) বিকালে রাজধানীর কাওরান বাজারে র‍্যাব-৪ এর অধিনায়ক মোজাম্মেল হক এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) থেকে সোমবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুর পর্যন্ত র‌্যাব-৪ এর অভিযানে ফরিদপুরের ভাঙ্গা এবং মুন্সিগঞ্জ থেকে মোবাইল ব্যাংকিং হ্যাকার চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হ্যাকাররা হলো—মো. নুরুজ্জামান মাতুব্বর (৩৫), মো. সজিব মাতুব্বর (২১)  ও মো. সুমন শিকদার (৪৫)। 

র‌্যাব কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, রিক্সাচালক, ভ্যানচালক, খেটে খাওয়া মানুষ ও সহজ-সরল মানুষদের এনআইডি টার্গেট করতো চক্রটি। ওই এনআইডি দিয়ে সিমকার্ড রেজিস্ট্রেশন করতো। এরপর মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানির কর্মকর্তাদের মোবাইল নাম্বার ক্লোনিং করে নিজেকে মোবাইল ব্যাংকিং হেড অফিসের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ফোন করে কৌশলে এজেন্টদের পিন কোড জেনে নিয়ে এজেন্টের অ্যাকাউন্টটি নিজের দখলে নেয়। তারপর নাম্বার ক্লোনিং করে সেই এলাকার এসআর এর কাছে ওই দোকানের পরিচয় দিয়ে চাওয়া হতো মোটা অংকের টাকা। সে টাকা অ্যাকাউন্টে আসা মাত্রই নিজের দখলে থাকা অ্যাকাউন্ট থেকে কৌশল হিসেবে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নাম্বারে স্থানান্তর করে দিত তারা। তাদেরকে যাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী শনাক্ত করতে না পারে তার কৌশল হিসেবে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে টাকা পাঠিয়ে তার অধীনে থাকা এজেন্ট থেকে টাকা সংগ্রহ করতো। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এ গ্রুপের ২০-২৫ জন সদস্য রয়েছে বলে জানা যায়।

মোবাইল ব্যাংকিং প্রতারকদের সাংগঠনিক কাঠামো

গ্রেফতার আসামিরা সাধারণত ৩টি ধাপে এই প্রতারণার কার্যক্রম চালিয়েছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে। এ চক্রের ১ম গ্রুপের সদস্যরা মোবাইল ব্যাংকিং হেড অফিসের অসাধু কর্মকর্তার-কর্মচারী থেকে এসআর এর নাম্বার সংগ্রহ করে থাকে। এরপর এসআরকে মোবাইলে কল করে বিভিন্নভাবে মোটা অংকের অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে তাদের দলে যোগ দিতে উদ্বুদ্ধ করে। কিছু কিছু অসাধু এসআর প্রতারক চক্রের সদস্যদের সঙ্গে যুক্ত হয়। সময়-সুযোগ বুঝে এসআর প্রতারক চক্রের সদস্যকে মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নম্বর দিয়ে ফোন দিয়ে বলতো—এখন কাজ হবে ফোন দেন। সাধারণত যখন মূল এজেন্ট দোকানে উপস্থিত থাকে না, তার অন্য কোন প্রতিনিধি বা যে এজেন্ট একটু সহজ-সরল তাদেরকেই মূল টার্গেট হিসেবে চিহ্নিত করে এসআর প্রতারক চক্রের সদস্যকে তথ্য সরবরাহ করে। এরপরই শুরু হয় টাকা হাতিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া।

তথ্য পাওয়ার পরপরই দ্বিতীয় গ্রুপের সদস্যরা এসআর এর নাম্বার স্পুফিং বাং ক্লোনিং করে এজেন্টের নম্বরে কল করে উন্নত সেবার জন্য মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট হালনাগাদ করার অনুরোধ করে এবং বলে যে কল সেন্টার থেকে আপনাকে কল দেওয়া হবে। প্রতারক গ্রুপের অপর সদস্য কল সেন্টার নাম্বার স্পুফিং বা ক্লোনিং করে এজেন্টকে ফোন দিয়ে উন্নত সেবা পেতে সার্ভিস পরিবর্তনের জন্য অফার করা হয়। প্রতারক মোবাইল ফোনের কিবোর্ড বা বাটনে বিভিন্ন অক্ষর বা সংখ্যা চাপতে বলে। ধাপে ধাপে বিভিন্ন তথ্য দিতে বলা হয়। কয়েকটি সংখ্যা দেওয়ার এক পর্যায়ে ভেরিফিকেশনের নামে একটি মোবাইল ফোন নম্বর দিয়ে তা ডায়াল বা মেসেজ অপশনে গিয়ে 'ওকে' বাটন চাপতে বলে। এভাবে এজেন্টের কাছ থেকে পিন নম্বর নিয়ে এজেন্টের অ্যাকাউন্ট নিজেদের দখলে নিয়ে এজেন্টের একাউন্টে থাকা সমুদয় অর্থ প্রতারক সদস্যরা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তাদের অন্যান্য সহযোগীদের কাছে ট্রান্সফার করে দেয়। 

তৃতীয় গ্রুপের সদস্যরা অসাধু সিম বিক্রেতাদের সিম কার্ড প্রতি এক হাজার টাকা দিয়ে অন্যের নাম-ঠিকানা দ্বারা নিবন্ধিত সিমকার্ড ব্যবহার করে ভুয়া মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট খোলে। ওই অ্যাকাউন্টে টাকা ট্রান্সফার করে পরবর্তী সময়ে অন্য এজেন্ট হতে ক্যাশ আউট, বিভিন্ন কেনা-কাটায় পেমেন্ট, মোবাইল রিচার্জসহ বিভিন্নভাবে টাকা উত্তোলন করে গ্রুপের সকল সদস্য মিলে ভাগ-বাটোয়ারা করে নেয়।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে প্রতারক সদস্যরা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে টাকা ট্রান্সফার করে। টাকা ভাগ-বাটোয়ারার ক্ষেত্রে প্রতি এক লাখ টাকায় এসআর পায় ২০-২৫ হাজার টাকা, যে এজেন্টদের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করা হয় সে পায় প্রতি এক লাখ টাকায় ১০-১২ হাজার টাকা এবং বাকি ৬৫-৭০ হাজার টাকা প্রতারক চক্রের অন্যান্য সদস্যরা ভাগ করে নেয় বলে সংবাদ সম্মেলনে জানায় র‍্যাব।

/এআরআর/এমএস/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ভোরের কাগজের প্রকাশক-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলায় এডিটরস গিল্ডের নিন্দা
ভোরের কাগজের প্রকাশক-সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলায় এডিটরস গিল্ডের নিন্দা
বিশ্বকাপের কাজে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে আগ্রহী কাতার
বিশ্বকাপের কাজে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে আগ্রহী কাতার
তালাক দেওয়ায় সাবেক স্ত্রীর সন্তানকে হত্যা
তালাক দেওয়ায় সাবেক স্ত্রীর সন্তানকে হত্যা
কলকাতায় জয় দিয়ে শুরু বসুন্ধরার
কলকাতায় জয় দিয়ে শুরু বসুন্ধরার
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বিপুল অর্থে গ্রেনাডার নাগরিক হয়েছিলেন পি কে হালদার!
বিপুল অর্থে গ্রেনাডার নাগরিক হয়েছিলেন পি কে হালদার!
দিনে দুই হাজার লোক ঢাকায় ঢুকে: মেয়র আতিক
দিনে দুই হাজার লোক ঢাকায় ঢুকে: মেয়র আতিক
কাদা মাড়িয়ে দায়িত্ব পালনে মেয়র তাপস
কাদা মাড়িয়ে দায়িত্ব পালনে মেয়র তাপস
বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ বাতিল
বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ বাতিল
সম্রাটের জামিন বাতিল, আত্মসমর্পণের নির্দেশ
সম্রাটের জামিন বাতিল, আত্মসমর্পণের নির্দেশ