পুরান ঢাকাকে নতুন করে সাজাতে কাজ করেছি: সাঈদ খোকন

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৫৩, মার্চ ১১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৫৫, মার্চ ১১, ২০২০

বক্তব্য রাখছেন সাঈদ খোকন

রাজধানীর পুরান ঢাকাকে নতুন করে সাজিয়ে তুলতে কাজ করেছেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

তিনি বলেছেন, পুরান ঢাকাবাসীর জন্য বাহাদুর শাহ পার্ক, আব্দুল আলিম খেলার মাঠ, রসুলবাগ পার্ক, বাংলাদেশ মাঠসহ একাধিক মাঠ আধুনিকায়ন করেছি। এসব মাঠ এখন বিশ্বমানের। রাস্তাঘাট, এলইডি বাতিসহ অনেক উন্নয়ন করেছি।

বুধবার (১১ মার্চ) পুরান ঢাকার নব সজ্জিত বাহাদুর শাহ পার্কের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র একথা বলেন। ৬ কোটি ৬৮ লাখ টাকা ব্যয়ে এ পার্কটি নতুন করে সংস্কার করেছে ডিএসসিসি। ঐতিহাসিক এ পার্কে পথচারীদের জন্য উন্মুক্ত হাঁটার পথ, বৃষ্টির পানি নিরসনের জন্য চার ফুট গভীর ড্রেন, সিপাহী বিদ্রোহের স্মৃতিস্তম্ভ, অ্যাম্ফিথিয়েটার, ঝলমলে আলোক ব্যবস্থা, মেঝেতে নুড়িপাথর, ট্রাফিক সমস্যা সমাধানে বিশেষ ব্যবস্থা ও একটি আধুনিক পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা হয়েছে। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাঈদ খোকন বলেন, ‘‘দায়িত্ব ভার গ্রহণের সময় বলেছিলাম, পুরান ঢাকাকে নতুন রূপে সাজাবো। সেই কাজ অনেকটাই শুরু করে দিয়েছি। আমাদের ‘জল সবুজে ঢাকা প্রকল্পের’ আওতায় ৩১টি খেলার মাঠ ও পার্ক নিয়ে কাজ করেছি। আমার মেয়াদ আগামী ১৬ মে পর্যন্ত। আরও  দুই মাসের বেশি সময়  রয়েছে। এই মেয়াদের মধ্যেই কমপক্ষে ২৭-২৮টি মাঠ-পার্ক আপনাদের জন্য উন্মুক্ত করে দেবো।’

তিনি বলেন, ‘আমি পরিবর্তনের সূচনা করে দিয়ে গেলাম। সবকিছু কর্মময় স্মৃতি রেখে গেলাম। আমি আপনাদের জন্য কাজ করেছি এবং করে যাবো। আমরা রাজনৈতিক জীবন আপনাদের জন্যই ব্যয় করবো। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান দিয়েছেন। এখন পুরো দেশটাকে নিয়েই আমাকে ভাবতে হবে। আপনাদের পাশে ছিলাম, আছি এবং থাকবো।’

সাঈদ খোকন বলেন, ‘আমরা যে সব মাঠ-পার্ক করেছি, সেগুলো আন্তর্জাতিক মানের। বিশ্বমানের পার্ক করে দিয়েছি। আমরা চাই মানুষ পার্কে এসে মন খুলে আড্ডা দিক। সব ধরনের অনাচার থেকে মুক্ত থাকুক।’

তিনি বলেন, ‘একসময় রাজধানী ছিল অন্ধকারাচ্ছন্ন। আজ পুরান ঢাকার অলি-গলি এলইডি বাতির আলোয় আলোকিত। আমরা জনসাধারণের জন্য ৫০টি উন্নত মানের পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করে দিয়েছি।’

মেয়র বলেন, ‘অনেক কাজ করেছি। যতটুক সম্ভব, জীবন-প্রাণ দিয়ে চেষ্টা করেছি। ইতিবাচক ধারা সূচনা করতে সক্ষম হয়েছি। পরবর্তীতে যিনি দায়িত্ব নেবেন, এই কাজগুলো এগিয়ে নেবেন সেটাই প্রত্যাশা করছি।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক, সারোয়ার হোসেন আলো, সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. ইমদাদুল হক প্রমুখ।

 

/এসএস/এপিএইচ/

লাইভ

টপ