X
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে মির্জা ফখরুল

পুলিশের হুইসেল-সাউন্ড গ্রেনেড শুনে পালাবে না, সেই সাহস নিয়ে দাঁড়াতে হবে

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
২৫ মার্চ ২০২৪, ১৫:৫৬আপডেট : ২৫ মার্চ ২০২৪, ১৬:০৭

বিএনপির তরুণ নেতাকর্মীদের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংগঠন গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘কেবল স্লোগান দিলে হবে না। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংগঠন গড়ে তুলতে হবে। পুলিশের হুইসেল শুনলে দৌড়াবে না। সাউন্ড গ্রেনেড শুনলে পালাবে না। আমাদের একজন মুক্তিযোদ্ধা নেতা বলেছেন, ইনফ্যান্ট্রি (সম্মুখ সমরে যে বাহিনী থাকে) যদি শক্তিশালী না হয়, তাহলে যুদ্ধ কে করবে। সেই ইনফ্যান্ট্রি শক্তিশালী করতে হবে।’

সোমবার (২৫ মার্চ) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল এই সমাবেশের আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল আরও উল্লেখ করেন, ভয়াবহ রকম শক্তিশালী করতে হবে। যারা একটি পুলিশের হুইসেল শুনলে দৌড়াবে না। সাউন্ড গ্রেনেড শুনলে পালাবে না। যারা রাস্তায় অনড়প্রাণ দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে। এই ধরনের মানুষ তৈরি করতে হবে। সেই সাহস বুকে নিয়ে দাঁড়াতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘গণতান্ত্রিক লড়াই এত সহজ নয়। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে, তারেক রহমানের নেতৃত্বে— আমাদের অগণিত নেতাকর্মীর প্রচেষ্টায় ১৫ বছর ধরে আন্দোলন চালিয়ে গেছি। বিশেষ করে আমাদের ২২ জন নেতাকর্মী প্রাণ দিয়েছেন। এখনও কারাগারে আছেন অনেক নেতা।’

পাকিস্তানের কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রসঙ্গে টেনে এনে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন কীভাবে তরুণদের মাঠে আনতে হয়, কীভাবে নারীদের মাঠে আনতে হয়। আমাদের চেয়ে কম অত্যাচার তাদের ওপর হয়নি। তারা সেনানিবাস আক্রমণ করেছিল। তারা মার্কিনিদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।’

এ প্রসঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘পাকিস্তানে এই অবস্থান নিয়ে রাজনীতিতে কেউ কোনও দিন টিকতে পারেনি। ইমরান খান জেলে চলে গেছে, ৩৪ বছর সাজা হয়েছে। তার দুই হাজারের বেশি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জোর করে দলবদল করা হয়েছে। তার মার্কাও নিয়ে নিয়েছে। তারপরও জেলে বসে তখন তিনি সিদ্ধান্ত দিয়েছেন নির্বাচনে যাও।’

কারাগারে থাকা দলের তরুণ কয়েকজন নেতার নাম উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সাড়ে তিন মাসে অসংখ্য ছাত্রনেতার পা ভেঙে দিয়েছে, হাত ভেঙে দিয়েছে। পায়ের রগগুলো তুলে নিয়েছে। এত অত্যাচার, এত নির্যাতন গেছে আমাদের ওপর দিয়ে। ছাত্রনেতাদের ওপর দিয়ে। গ্রামের মানুষের অবস্থা আরও খারাপ। কেউ কারও বাড়িতে যেতে পারে না। বনে জঙ্গলে দিন কাটায় অনেকে।’

‘যখনই কোনও মানুষ বিপ্লব করতে চায়, ঘুরে দাঁড়াতে চায়—তখনই তাকে তুলে ফেলা হয়’ বলে অভিযোগ করেন ফখরুল। তার ভাষ্য, ‘বর্তমান সরকার মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে ভিন্ন কায়দায় ও ছদ্মবেশে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চাপিয়ে দিচ্ছে।’

২০১৪ সালে নির্বাচনে কেউ অংশ নেয়নি, কেউ যেন অংশ নিতে না পারে, সেই ব্যবস্থা করেছিল সরকার, এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘২০১৮ সালে রাতে নির্বাচন করেছে। আর এবার এক নাটকীয় মাধ্যমে নিজেরা ডামি প্রার্থী দিয়ে নিজেরাই ভোট করেছে। বিরোধী দল হিসেবে যারা দাবি করে, তাদেরও আসন কর্তন করা হয়েছে। এ নির্বাচন কেউ গ্রহণ করেনি। দেশের জনগণ ভোট দেয়নি। এমনকি বিশ্ব এই নির্বাচন গ্রহণ করেনি।’

একটি শাসকগোষ্ঠী এই দেশের মানুষের বুকের ওপর চেপে বসে আছে—এমন মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘এদের কোনও নৈতিক অধিকার নেই, শাসনতন্ত্র ও সাংবিধানিক অধিকার নেই চেয়ারগুলোতে বসে থাকার, শাসন করবার।’

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উদ্দিন আহমদ বীর বিক্রম সভায় সভাপতিত্ব করেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

আরও বক্তব্য রাখেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদীন ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত, সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ।

/এসটিএস/এপিএইচ/এমওএফ/
সম্পর্কিত
বিএনপিই ভরসা, টিকে থাকবে হাজার বছর: মির্জা ফখরুল
রাজনীতির খুব কঠিন সময়ে অবস্থান করছি: মির্জা ফখরুল
আজিজ-বেনজীরকে তারাই তৈরি করেছে, লালন করেছে: মির্জা ফখরুল
সর্বশেষ খবর
পিতার নাম পাল্টে ফেলেছে বঙ্গবন্ধুর খুনি মোসলেহ উদ্দিনের সন্তানরা
ইসিকে ব্যবস্থা নিতে সরকারের চিঠিপিতার নাম পাল্টে ফেলেছে বঙ্গবন্ধুর খুনি মোসলেহ উদ্দিনের সন্তানরা
রাঙামাটির দুই উপজেলার নির্বাচনে জয় পেলেন যারা
রাঙামাটির দুই উপজেলার নির্বাচনে জয় পেলেন যারা
বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়ার বিনিয়োগ চায় এফবিসিসিআই
বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়ার বিনিয়োগ চায় এফবিসিসিআই
খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতির লাগাম টানবে কে?
খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতির লাগাম টানবে কে?
সর্বাধিক পঠিত
ধান বিক্রি করে ৯৬ হাজার টাকা পেলেন প্রধানমন্ত্রী
ধান বিক্রি করে ৯৬ হাজার টাকা পেলেন প্রধানমন্ত্রী
ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমানসহ ৪ জনের রিমান্ড নামঞ্জুর
ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমানসহ ৪ জনের রিমান্ড নামঞ্জুর
শান্তি সম্মেলনে বাইডেনের অনুপস্থিতিতে হাততালি দেবেন পুতিন: জেলেনস্কি
শান্তি সম্মেলনে বাইডেনের অনুপস্থিতিতে হাততালি দেবেন পুতিন: জেলেনস্কি
ব্যাংক বাড়ায় সুদ, টাকা যায় মানুষের পকেটে!
ব্যাংক বাড়ায় সুদ, টাকা যায় মানুষের পকেটে!
কলা সহজে কালো হবে না এই ৪ টিপস মানলে
কলা সহজে কালো হবে না এই ৪ টিপস মানলে