রবি’র আলোয় ‘নগদ’ সূচনা

Send
বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক
প্রকাশিত : ১১:১৬, মে ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৬, মে ২৩, ২০২০

নগদ-রবি আজিয়াটা লিমিটেডের কয়েকজন গ্রাহকবাংলাদেশ ডাক বিভাগের আর্থিক লেনদেন সেবা ‘নগদ’ ২০১৯ সালের ২৬ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে। একবছরেই বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল লেনদেনের সুবিধা দিয়ে এখন দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যবহৃত মোবাইল ব্যাংকিং সেবা এটি।
মানুষের আস্থার অংশ হিসেবে গত জানুয়ারিতে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের (রবি-এয়ারটেল) ৫ কোটি গ্রাহক একসঙ্গে ‘নগদ’-এ যুক্ত হওয়ার ঘোষণা আসে। একদিনে এত বেশি মানুষের আর্থিক অন্তর্ভুক্তির ঘোষণা পৃথিবীতে এটাই প্রথম। এর মধ্য দিয়ে গ্রাহক সংখ্যায় ‘নগদ’ দেশের শীর্ষ মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় এ মাসে ‘নগদ-এ এলেই লাখপতি’ প্রচারণার মাধ্যমে অ্যাপ ও ইউএসএসডি দিয়ে রবি-এয়ারটেল গ্রাহকদের চার সংখ্যার একটি পিন সেট আপ করে ‘নগদ’-এ অন্তর্ভুক্তির প্রক্রিয়া শুরু হয়। এটি ইতোমধ্যে বাংলাদেশে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। প্রতিদিন অসংখ্য রবি ও এয়ারটেল গ্রাহক দুই ধাপে পিন সেট করে খুলে ফেলছেন ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট।

বাংলাদেশ ডাক অধিদফতরের মহাপরিচালক সুধাংশু শেখর ভদ্র মনে করেন, ‘নগদ ও রবি আজিয়াটা লিমিটেডের মধ্যকার চুক্তি মানুষের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা তৈরির একটি জায়গা গড়ে দিয়েছে। এর ফলে রবি-এয়ারটেল গ্রাহকেরা সবচেয়ে কম চার্জে লেনদেন এবং যেকোনও মোবাইল নম্বরে টাকা পাঠাতে পারবেন। এছাড়া বিল, মার্চেন্ট, ই-কমার্স পেমেন্টসহ অন্যান্য সুবিধা থাকছেই। সব মিলিয়ে লেনদেনের ক্ষেত্রে তাদের জন্য নতুন ডিজিটাল সেবার দুয়ার উন্মোচিত হলো।’

রবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাহতাব উদ্দিন আহমেদের বিশ্বাস, নগদে অ্যাকাউন্ট খোলার মাধ্যমে গ্রাহকরা খুব সহজেই ডিজিটাল লেনদেন করতে পারবেন এবং তাদের জীবনধারার মান উন্নত হবে। তার কথায়, ‘৫ কোটি রবি ও এয়ারটেল গ্রাহকের নগদে অন্তর্ভুক্ত হওয়া একটি যুগান্তকারী ঘটনা। চুক্তিটির মাধ্যমে শুধু রবি-এয়ারটেল গ্রাহকেরাই কোনও ঝামেলা ছাড়া সময়ক্ষেপণ না করেই পাচ্ছেন একটি সম্পূর্ণ সুরক্ষিত মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট। অ্যাপ বা ইউএসএসডি’র মাধ্যমে নিবন্ধন প্রক্রিয়াতেই প্রত্যেক গ্রাহকের কাছ থেকে সম্মতি নিয়ে খোলা হচ্ছে অ্যাকাউন্ট। এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি'র যথাযথ অনুমোদন রয়েছে। গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষার বিষয়ে রবি আজিয়াটা লিমিটেড সবসময়ই বদ্ধপরিকর।’

নগদ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক জানান, রবি আজিয়াটা লিমিটেডের (রবি-এয়ারটেল) যেসব গ্রাহক নিজের তথ্য সংগ্রহের সম্মতি দিয়েছেন, নগদ কেবল তাদের অ্যাকাউন্ট খুলছে। মানুষের তথ্য নির্বাচন কমিশন কিংবা বাংলাদেশ সরকারের আরেক সেবা ‘পরিচয় ডটকম’-এর মাধ্যমে নিজ উদ্যোগে যাচাই করে নিচ্ছে ‘নগদ’। পুরো প্রক্রিয়া স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পন্ন হচ্ছে মাত্র ১০ সেকেন্ডে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের জন্য অ্যাকাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে গ্রাহককে জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি দিতে হতো, রবি আজিয়াটার সহযোগিতায় তা আর লাগছে না।

বাংলাদেশে একসময় একটি এমএফএস অ্যাকাউন্ট খুলতে ৭-১০ দিনের মতো লাগতো। পাশাপাশি ভুয়া অ্যাকাউন্ট খোলা যেতো অনায়াসে। রাষ্ট্রীয় সেবা ‘নগদ’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দাবি, বাংলাদেশে তারাই প্রথম একদিনে মোবাইলে অ্যাকাউন্ট খোলার প্রযুক্তি নিয়ে আসে এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য যাচাইয়ের ব্যবস্থা করে। ফলে ভুয়া পরিচয় দিয়ে অ্যাকাউন্ট খোলার সুযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

৫ কোটি গ্রাহককে নগদে অন্তর্ভুক্তির চুক্তি যেমন মানুষের ব্যক্তিগত উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে, তেমনি এটাকে বলা হচ্ছে ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণের একটি মাইলফলক। এ প্রসঙ্গে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে ডাক বিভাগের আর্থিক লেনদেন সেবা অন্যতম এক সহযোদ্ধা। রবি’র ৫ কোটি গ্রাহক নগদ-এর মাধ্যমে আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে আসছে, এতে ডিজিটাল বিপ্লবের ক্ষেত্রে অনন্য নজির স্থাপন হচ্ছে। ডিজিটাল প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখছেন প্রধানমন্ত্রী, সেই স্বপ্নপূরণের পথে এই চুক্তি সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে।’

এসডিজি’র সাবেক মুখ্যসমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদের মন্তব্য, নগদ ও রবি’র মাধ্যমে ৫ কোটি গ্রাহক ডিজিটাল লেনদেনের আওতায় এলে তা এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা পূরণের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সূচকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। তিনি বলেন, “বাংলাদেশে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় থাকা বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড এগিয়ে চলছে। নগদ-রবি’র চুক্তির মাধ্যমে সেগুলোর অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রা আরও নিশ্চিত হবে। তাদের এই উদ্যোগ নিশ্চিতভাবে দেশের নিম্ন ও মধ্যম আয়ের জনগোষ্ঠীকে আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে আনতে সহায়তা করবে। পাশাপাশি এসডিজি অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।”

/জেএইচ/
টপ