X
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

জাফর ইকবালকে হত্যার টার্গেটে রাখা হয়েছিল সবসময়: গণজাগরণ মঞ্চ

আপডেট : ০৩ মার্চ ২০১৮, ২২:১৭

শনিবার সন্ধ্যায় শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের বিক্ষোভ গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, ‘সরকারের হেয়ালীপনার কারণে প্রশাসনের কঠোর বেষ্টনীকে পাশ কাটিয়ে প্রগতিশীল লেখক জাফর ইকবালকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। মৌলবাদীদের সবসময়ের টার্গেট প্রগতিশীল লেখকরা। জাফর ইকবালকে হত্যার টার্গেটে রাখা হয়েছিল সবসময়। কিন্তু সরকার তা আমলে নেয়নি। ফলে এর সম্পূর্ণ দায় নিতে হবে সরকারকেই।’

জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় রাজধানীর শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চ বিক্ষোভ করে। পরে অনুষ্ঠিত সমাবেশে ইমরান এইচ সরকার এসব কথা বলেন।

বিক্ষোভ থেকে বলা হয়, জাফর ইকবালের উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা, সন্ত্রাসীদেরকে দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে রবিবার বিকাল ৪টায় সমাবেশ করবে গণজাগরণ মঞ্চ।

ইমরান সরকার আরও বলেন, ‘অভিজিৎ রায় হত্যার সময় আমরা বুঝতে পেরেছিলাম সরকার জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকতা করেছে। অভিজিৎ রায়ের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিতে ৩২ বার সময় পেছানো হয়েছে। এর আগে যতজন প্রগতিশীল লেখককে হত্যা করা হয়েছে। সেসব অপরাধীকে ধরতে ও তাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হেয়ালি করা হয়েছে। সবসময় তাদেরকে বাঁচানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘এ ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবে দেখার কোনও সুযোগ নেই৷’

ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘দ্রুত অপরাধীদেরকে গ্রেফতার করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হোক। সরকার যদি তা না করে অবহেলা করে তাহলে আরও কঠোর আন্দোলনে যাবো আমরা।’

ছাত্রইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি জিএম জিলানী শুভ বলেন, ‘জাফর ইকবাল প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিবাদী অবস্থানে ছিলেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগিংয়ের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন। সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে তার শক্ত অবস্থান ছিল। আজ তাকে হত্যা চেষ্টা হলো। যারা তাকে হত্যার চেষ্টা করেছে, তারা মুক্ত চিন্তার বিরুদ্ধ শক্তি। তাদের ক্ষমা নেই। তাদেরকে কঠিন শাস্তির মুখোমুখি দাঁড় করাতে হবে।’

প্রগতিশীল লেখক রবিন আহসান বলেন, ‘একের পর এক প্রগতিশীল লেখক ও দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে পেছন দিক থেকে আঘাত করা হচ্ছে। আজ পাঁচ জন পুলিশের পাহারার মধ্যে গুণী ব্যক্তিত্ব জাফর ইকবাল স্যারকে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। যারা আজ স্যারকে হত্যাচেষ্টা করেছে, তারা দেশের শত্রু জাতির শত্রু। তাদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে হবে। তাদের কঠিন শাস্তির মুখোমুখি দাঁড় করাতে হবে। জাফর ইকবাল স্যারের শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে অতি দ্রুত দেশের বাইরে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হোক।’

বিক্ষোভ কর্মূচিতে স্লোগান একাত্তর, নাগরিক সমাজ, ছাত্রমৈত্রী পৃথকভাবে অংশ নেয় এবং জাফর ইকবালকে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদ জানায়।

এ সংক্রান্ত আরও খবর:

‘ড. জাফর ইকবাল শঙ্কামুক্ত’

জাফর ইকবালের চিকিৎসায় বোর্ড গঠন

শাবিতে ড. জাফর ইকবালের মাথায় ছুরিকাঘাত

জাফর ইকবালকে দেখতে শিক্ষামন্ত্রী হাসপাতালে

জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারীকে র‌্যাবে হস্তান্তর

জাফর ইকবালের পেছনেই দাঁড়িয়েছিল হামলাকারী যুবক
হামলাকারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে সিলেট যাচ্ছে সিটিটিসি

অস্থিতিশীলতার ইঙ্গিত বলছে আ. লীগ, বিএনপি’র দাবি চক্রান্ত

জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ

জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতারে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

জাফর ইকবালকে হত্যার টার্গেটে রাখা হয়েছিল সবসময়: গণজাগরণ মঞ্চ

‘নিরাপত্তার মধ্যে তাৎক্ষণিক সুযোগ পেয়ে জাফর ইকবালের ওপর হামলা করা হয়’



/এসআইআর/আরএআর/এনআই/

সম্পর্কিত

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ১৮ সেপ্টেম্বরের ঘটনা।)

 

এদিন জাতীয় সংসদে সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিল উত্থাপন করা হয়। এই সংশোধনীতে যুদ্ধ বহিরাক্রমণ বা অভ্যন্তরীণ গোলযোগের কারণে বাংলাদেশের যেকোনও অংশে নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক জীবন বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলে সেক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতিকে জরুরি অবস্থা ঘোষণার ক্ষমতা দানের প্রস্তাব করা হয়।

আইন ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী মনোরঞ্জন ধর উত্থাপন করেন, এই সংশোধনীতে সংবিধানের একটি অধ্যায় সংযোজন ছাড়াও সংসদকে নিবর্তনমূলক আটকের বিধান সম্বলিত আইন প্রণয়নের ক্ষমতা দান করা হয়। সংসদের অধিবেশনের মধ্যবর্তী সময়ে ৬০ দিন হতে ১২০ দিন করা এবং সংবিধানের বিধান প্রয়োগ হতে সংবিধানের সংশোধনীসমূহ সংরক্ষণের প্রস্তাব করা হয়।

প্রস্তাবিত সংশোধনীতে জরুরি বিধান সংযোজনের প্রস্তাব করা হয়। এতে বলা হয়, রাষ্ট্রপতির নিকট যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে এমন জরুরি অবস্থা বিদ্যমান রয়েছে, যাতে যুদ্ধ বা বহিরাক্রমণ অভ্যন্তরীণ গোলযোগের দ্বারা বাংলাদেশে কোনও অংশের নিরাপত্তা অর্থনৈতিক জীবন বিপদের সম্মুখীন- তা হলে তিনি জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে পারবেন। তবে সে ঘোষণার বৈধতার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতিস্বাক্ষরের প্রয়োজন হবে। জরুরি অবস্থার ঘোষণাটি পরে কোনও ঘোষণা দ্বারা প্রত্যাহার করা যাবে এবং সংসদে উপস্থাপিত হবে। এই ঘোষণা ১২০ দিন অতিবাহিত হওয়ার আগে সংসদের প্রস্তাব অনুমোদিত না হলে উক্ত সময়ের অবসানে কার্যকর থাকবে না।

তবে যদি সংসদ ভেঙে যাওয়া অবস্থায় অনুরূপ কোনও ঘোষণা জারি করা হয় কিংবা ১২০ দিনের মধ্যে সংসদ ভেঙে যায় তা হলে পুনর্গঠিত হওয়ার পর সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ থেকে ৩০ দিন অতিক্রান্ত হওয়ার আগে ঘোষণাটি অনুমোদন করে সংসদে প্রস্তাব গ্রহণ করতে হবে।

দৈনিক বাংলা, ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩

মৌলিক অধিকার স্থগিত করার বিষয়ে

জরুরি অবস্থার সময় মৌলিক অধিকারগুলো স্থগিতকরণের প্রস্তাব করা হয়। এতে বলা হয়, জরুরি অবস্থা ঘোষণার কার্যকারিতাকালে রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা ঘোষণা করতে পারবেন যে, সংবিধানের তৃতীয় ভাগের অন্তর্গত মৌলিক অধিকারসমূহ বলবৎকরণের জন্য আদালতে মামলা রুজু করার অধিকার এবং আদালতে অনুরূপভাবে উল্লিখিত কোনও অধিকার বলবৎ করার জন্য কোনও আদালতে বিবেচনাধীন সকল মামলা, জরুরি অবস্থা ঘোষণা কার্যকারিতাকালে কিংবা উক্ত আদেশের দ্বারা নির্ধারিত স্বল্পকালের জন্য স্থগিত থাকবে।

এই বিলে জরুরি অবস্থার সময় সংবিধানের কতিপয় অনুচ্ছেদের বিধান স্থগিত করার প্রস্তাব করা হয়। বিধানগুলো হচ্ছে চলাফেরার স্বাধীনতা, সমাবেশের স্বাধীনতা, সংগঠনের স্বাধীনতা, চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা, বাক-স্বাধীনতা, পেশা-বৃত্তির স্বাধীনতা ও সম্পত্তির অধিকার সম্পর্কিত।

দ্য অবজারভার, ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩

১২৫ বাঙালি ফিরবেন

এদিন বলা হয়, ২৮ আগস্টের দিল্লিচুক্তির বাস্তবায়ন শুরু হতে যাচ্ছে। ঢাকা রাওয়ালপিন্ডি ও নয়াদিল্লি থেকে সরকারিভাবে ত্রিমুখী লোক বিনিময় শুরুর কথা এই দিন ঘোষণা করা হয়। এদিন সন্ধ্যায় ঢাকায় সরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়, ২৮ আগস্ট দিল্লিচুক্তি বাস্তবায়ন একদিনের পর থেকে শুরু হতে যাচ্ছে। প্রথম দফায় ১২৫ জন আটক বাঙালি পাকিস্তান থেকে ফিরে আসছেন। খবরে বলা হয়, এই দিন নয়াদিল্লিতে ভারতের পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র বলেন, পাকিস্তান থেকে দুই হাজার বাঙালি এবং বাংলাদেশ থেকে দুই হাজার ৬শ পাকিস্তানি নাগরিক বিনিময়ে উভয় দেশের সরকার রাজি হয়েছে।

এক খবরে বলা হয়, এই দিন রাওয়ালপিন্ডিতে এক সহকারী মুখপাত্র বলেছেন, এদিন থেকে ত্রিমুখী লোক বিনিময় শুরু হচ্ছে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

বড় প্রকল্পগুলো দুর্নীতির সুযোগ করে দিচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

বড় প্রকল্পগুলো দুর্নীতির সুযোগ করে দিচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কমনওয়েলথের সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কমনওয়েলথের সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশের ভেতর ভারতের কোস্টাল বেসলাইন

বাংলাদেশের ভেতর ভারতের কোস্টাল বেসলাইন

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:৩৯

বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা শিথিল করছে যুক্তরাজ্য।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) এক ঘোষণায় যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, রেড লিস্ট থেকে বাংলাদেশকে এম্বার লিস্টে দেওয়া হচ্ছে।

আগামী ২২ সেপ্টেম্বর থেকে এটি কার্যকর হবে। এর আগে কেউ যদি বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্যে সফর করে তবে রেড লিস্ট অনুযায়ী সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।

এর আগে, করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত ২ এপ্রিল বাংলাদেশ থেকে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলো যুক্তরাজ্য।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিলো যুক্তরাজ্য

/এসএসজেড/এমএস/

সম্পর্কিত

ভারত থেকে ফিরেছেন বিমানের ১২৪ যাত্রী 

ভারত থেকে ফিরেছেন বিমানের ১২৪ যাত্রী 

যুক্তরাজ্যের রিপোর্ট গ্রহণযোগ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যুক্তরাজ্যের রিপোর্ট গ্রহণযোগ্য নয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা: ২০ দেশের ওপর থেকে বিধি নিষেধ প্রত্যাহার

আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা: ২০ দেশের ওপর থেকে বিধি নিষেধ প্রত্যাহার

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:০১

আগামী প্রজন্মের জন্য টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে কাজ করতে বিশ্বের প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘পরবর্তী প্রজন্মের জন্য টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোকে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে বিশ্বব্যাপী সব অংশীজনের সঙ্গে কাজ করতে হবে।’

আজ ওয়াশিংটন ডিসিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ডাকা ‘মেজর ইকোনমিক ফোরাম অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লাইমেট’ শীর্ষক সম্মেলনে আগে ধারণ করা ভাষণে প্রধানমন্ত্রী ফোরামের বিবেচনার জন্য ছয় দফা প্রস্তাব রাখেন।

প্রধানমন্ত্রী তার প্রথম প্রস্তাবে প্রধান কার্বন নির্গমনকারী দেশগুলোকে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমিত রাখার লক্ষ্যে তাদের কার্বন নির্গমন হ্রাস করার জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা তার দ্বিতীয় প্রস্তাবে বলেন, জলবায়ু তহবিলের জন্য উন্নত দেশগুলোর বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলারের অঙ্গীকার পূরণ এবং অভিযোজন ও প্রশমনের মধ্যে ৫০:৫০ বিতরণ করতে হবে।

তৃতীয় প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রযুক্তি হস্তান্তরের পাশাপাশি সবচেয়ে কার্যকর জ্বালানি সমাধান নিয়ে এগিয়ে আসার জন্য উন্নত দেশগুলোর প্রতি তার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন।

তার চতুর্থ প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহারে উত্তরণের ক্ষেত্রে, জাতি-রাষ্ট্রগুলোর সংশ্লিষ্ট উন্নয়ন অগ্রাধিকারগুলোর হিসাব নেওয়া এবং তাদের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে লোকসান ও ক্ষতির বিষয়গুলো বিবেচনা করা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী তার পঞ্চম প্রস্তাবে বলেছেন, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদীভাঙন, বন্যা ও খরার কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষের পুনর্বাসনের দায়িত্ব সব দেশকে ভাগ করে নেওয়া দরকার।

তিনি আগামী নভেম্বরে গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিতব্য কপ-২৬ সম্মেলনে দৃঢ় ও তাৎপর্যপূর্ণ ফলাফল কামনা করেন এবং এ লক্ষ্যে সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার জন্য বিশ্বের প্রধান অর্থনীতিগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। তিনি আরও বলেন, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদীভাঙন, বন্যা ও খরার প্রভাব ছাড়াও ১১ লক্ষ রোহিঙ্গা জোরপূর্বক মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হওয়ার কারণে বাংলাদেশ গুরুতর জলবায়ু প্রভাবের সম্মুখীন হচ্ছে।

জলবায়ু পরিবর্তন অভিযোজন ও প্রশমন প্রচেষ্টায় তার সরকারকে অগ্রণী উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সম্প্রতি একটি উচ্চাকাঙ্ক্ষী ও হালনাগাদকৃত এনডিসি জমা দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের সর্বাধিক বিস্তৃত অভ্যন্তরীণ সৌরশক্তি কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ‘মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা’ বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে, যা জলবায়ু ঝুঁকি থেকে জলবায়ু সহিষ্ণুতা এবং তা থেকে জলবায়ু সমৃদ্ধি পর্যন্ত একটি যাত্রা।

জলবায়ু ঝুঁকি ফোরাম (সিভিএফ) এবং ভি-২০’র সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মূল লক্ষ্য হচ্ছে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর স্বার্থ তুলে ধরা। তিনি আরও বলেন, ঢাকায় গ্লোবাল সেন্টার অন অ্যাডাপ্টেশনের দক্ষিণ এশিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের মাধ্যমেও বাংলাদেশ সেরা অনুশীলন ভাগ করে নেয়।

সূত্র: বাসস

/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মোদিকে ৭১টি গোলাপে শুভেচ্ছা জানালেন শেখ হাসিনা

মোদিকে ৭১টি গোলাপে শুভেচ্ছা জানালেন শেখ হাসিনা

যা আছে প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচিতে

যা আছে প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচিতে

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৩৪

জাতিসংঘে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের দিন ২৫ সেপ্টেম্বরকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্র্যান্ট ডে’ ঘোষণা করা হয়েছে। ধারাবাহিকভাবে তৃতীয়বারের মতো এই দিবস উদযাপিত হতে যাচ্ছে।

গত ২১ জানুয়ারি সিনেটর স্টেভেস্কি বিলটি নিউ ইয়র্ক স্টেটের আইন পরিষদে উত্থাপন করেন। ২৬ জানুয়ারি সর্বসম্মতভাবে বিলটি পাস হয়। এটির সিনেট রেজ্যুলেশন নম্বর জে-০০১৯৭। নিউ ইয়র্ক স্টেট সেক্রেটারি আলেন্ড্রো এন পলিনো গত ১৪ মার্চ স্টেট গভর্নর স্বাক্ষরিত ঘোষণাপত্রের কপি ২০ জানুয়ারি বিতরণ করেছেন।

১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর ছিল নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের ২৯তম সাধারণ অধিবেশন। অধিবেশন কক্ষে সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রনায়ক ও সরকারপ্রধানরা। অধিবেশনে সভাপতির আসনে আলজেরিয়ার মুক্তি সংগ্রামের নেতা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা আবদেল আজিজ বুতেফ্লিকা। তিনি 'বাঙালি জাতির মহান নেতা' হিসেবে পরিচিতি দিয়ে বক্তৃতা মঞ্চে আহ্বান করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।

বাঙালির মহানায়ক বঙ্গবন্ধু আরোহণ করলেন বক্তৃতা মঞ্চে। প্রথম এশীয় নেতা, যিনি এই অধিবেশনে সবার আগে ভাষণ দেবেন। দৃপ্ত পায়ে বক্তৃতা মঞ্চে উঠে ডায়াসের সামনে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু বক্তৃতা শুরু করেন মাতৃভাষা বাংলায়। যে ভাষার জন্য ঢাকার রাজপথে বাঙালি বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিল, সেই ভাষায় প্রথম ভাষণ দেন জাতিসংঘে।এভাবে বঙ্গবন্ধু বাংলা ভাষাকে বিশ্বদরবারে আবার ঠাঁই করে দিলেন। এর আগে ১৯১৩ সালে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নোবেল প্রাপ্তির মধ্য দিয়ে বিশ্ববাসী জেনেছিল বাংলা ভাষার অমর আবেদন। এর ষাট বছর পর ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির পক্ষ থেকে উচ্চারণ করলেন বিশ্বসভায় বাংলা ভাষার অমর শব্দগুচ্ছ।

সূত্র: বিএসএস। 

/এফএএন/এমওএফ/

সম্পর্কিত

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

এদিন আটক বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়

এদিন আটক বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়

জাতিসংঘে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে তখন আলোচনা ‍তুঙ্গে

জাতিসংঘে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে তখন আলোচনা ‍তুঙ্গে

আটকে পড়া বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু

আটকে পড়া বাঙালিদের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু

ফিনল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:২৮

জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে যাওয়ার পথে ফিনল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় তিনি ফিনল্যান্ডের হেলসিংকি ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান। 

ফিনল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত মো. নজরুল ইসলাম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান। 

প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব হাসান জাহিদ তুষার তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে এ তথ্য উল্লেখ করেছেন।
 
একদিন ফিনল্যান্ডে অবস্থান শেষে রবিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় হেলসিংকির ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভিভিআইপি ফ্লাইটে  (বিজি-১৯০২) নিউ ইয়র্কে রওনা হবেন প্রধানমন্ত্রী। 

সেদিন নিউ ইয়র্ক সময় বিকাল ৬টায় জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। সেখানে  আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রধানমন্ত্রী তার সফরকালীন আবাসস্থল লোটে নিউ ইয়র্ক প্যালেসে যাবেন।

 করোনা মহামারির ১৯ মাস পর এই প্রথম কোনও বিদেশ সফরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘের ৭৬তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) নিউ ইয়র্কের উদ্দেশে সকাল ৯টা ২৩ মিনিটে ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি।

/ইএইচএস/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলে যা ছিল

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও 'বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে' ঘোষণা

ফিনল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

ফিনল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

বড় প্রকল্পগুলো দুর্নীতির সুযোগ করে দিচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

বড় প্রকল্পগুলো দুর্নীতির সুযোগ করে দিচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

বাংলাদেশ ভারতের ভাইয়ের মতো: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

বাংলাদেশ ভারতের ভাইয়ের মতো: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কমনওয়েলথের সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কমনওয়েলথের সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশের ভেতর ভারতের কোস্টাল বেসলাইন

বাংলাদেশের ভেতর ভারতের কোস্টাল বেসলাইন

আরও ৩৮ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯০৭

আরও ৩৮ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯০৭

সর্বশেষ

রামেক হাসপাতালে মৃত্যু বেড়েছে

রামেক হাসপাতালে মৃত্যু বেড়েছে

সোনালী পেপারের ৪০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

সোনালী পেপারের ৪০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা

দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা

কক্সবাজারে আবাসিক হোটেল থেকে উদ্ধার ছাত্রলীগ কর্মীর হাসপাতালে মৃত্যু

কক্সবাজারে আবাসিক হোটেল থেকে উদ্ধার ছাত্রলীগ কর্মীর হাসপাতালে মৃত্যু

কুমিল্লায় বাসচাপায় প্রাণ গেলো অটোরিকশার ৩ যাত্রীর 

কুমিল্লায় বাসচাপায় প্রাণ গেলো অটোরিকশার ৩ যাত্রীর 

© 2021 Bangla Tribune