X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে: মেয়র আতিক

আপডেট : ২৭ জুলাই ২০২০, ১৩:২৫

মেয়র আতিকুল ইসলাম রাজধানীর হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, ২০ থেকে ৩০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতকে মাথায় রেখে এর প্ল্যান করা হয়েছে। বাংলাদেশ তো বৃষ্টিপ্রবণ দেশ। ছয় ঋতুকে মাথায় রেখেই প্ল্যানটি করা উচিত ছিল। ৫০ থেকে ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টি হলে ঢাকার অবস্থা কী হবে সেটাও ভাবার দরকার ছিল। এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে যাদি পরিকল্পনাটি করা হতো, তাহলে আজ ঢাকার এমন দশা হতো না।

সম্প্রতি গুলশান-২ নম্বরে অবস্থিত নগর ভবনের মেয়র দফতরে বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে মেয়র এসব কথা বলেন। একইসঙ্গে তিনি ট্যাক্স না বাড়িয়ে, ট্যাক্স দাতার সংখ্যা বৃদ্ধি করে সংস্থার আয় বাড়ানো এবং যানজট নিরসনসহ নানা পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন।

বাংলা ট্রিবিউন: হাতিরঝিল প্রকল্পের মূল লক্ষ্য ছিল রাজধানীর যানজট নিরসন, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ, জলাবদ্ধতা ও বন্যা প্রতিরোধ, ময়লা পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা। কিন্তু এখন জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রকল্পটির কোনও ভূমিকা দেখা যাচ্ছে না। উল্টো প্রকল্পের কারণে সামান্য বৃষ্টি হলেই আশপাশের বড় অংশজুড়ে জলজট দেখা দেয়। এ নিয়ে সিটি করপোরেশন কী ভাবছে?

মেয়র আতিকুল ইসলাম

আতিকুল ইসলাম: হাতিরঝিল নিয়ে মিস প্ল্যান হয়েছে। বর্তমানে ডিএনসিসি এলাকায় মগবাজার প্রধান সড়ক, জাহান বক্স লেন, শাহ সাহেব বাড়ি লেন, নয়াটোলা ও মধুবাগ এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। হাতিরঝিল করার সময় যদি এই এলাকাগুলো নিয়ে পরিকল্পনা করা হতো, তাহলে এই সমস্যাটা হতো না। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীসহ হাতিরঝিল এলাকা পরিদর্শন করেছি। আজ টিসিবি ভবনের সামনে পানি জমে। অথচ তার পাশেই হাতিরঝিল। পানি নিষ্কাশনের সেই লাইন সেখান থেকে যাবে পূর্ব দিকে। সেখান থেকে লাইন ঘুরে এসে আবার পশ্চিম দিকে আসবে। সেখানে ধনমন্ডি থেকে পানি আসার যে কালভার্ট সেখানে গিয়ে পড়বে। তারপর সেটা হাতিরঝিলে যাবে। পানি তো এত সময় ওয়েট করবে না। বৃষ্টি এলে যত দ্রুত সম্ভব সেটা নিষ্কাশন করতে হবে। এসব বিষয় নিয়ে এখন আমাদের প্ল্যান করতে হচ্ছে।

মেয়র আরও বলেন, এখন হাতিরঝিল প্রসঙ্গে বলা হচ্ছে—২০ থেকে ৩০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতকে মাথায় রেখে এর প্ল্যান করা হয়েছে। বাংলাদেশ তো বৃষ্টি প্রবণ দেশ। ৬ ঋতুকে মাথায় রেখেই প্ল্যানটি করা উচিত ছিল। ৫০ থেকে ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টি হলে ঢাকার অবস্থা কী হবে সেটাও ভাবার দরকার ছিল। এখন হাতিরঝিলে আরও বেশি পাম্প বসিয়ে পানি আউট করতে হবে। যত তাড়াতাড়ি হোক শর্ট ওয়েতে পানি নিষ্কাশন করতে হবে।

প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম

হাতিরঝিল কর্তৃপক্ষের সমালোচনা করে মেয়র বলেন, হাতিরঝিল কর্তৃপক্ষের চিন্তা করতে করতেই অনেক বছর চলে যাবে। তারা এখনও চিন্তা করছে। তারা যতক্ষণে চিন্তা করছে, ততক্ষণে আমি প্রকল্প সাবমিট করে দিয়েছি। মন্ত্রণালয় যদি অনুমোদন দিয়ে দেয় আমি এখনই কাজ শুরু করবো। আগামী বর্ষায় কেউ যেন ভোগান্তিতে না পড়ে। এই কাজগুলো করতে হবে। তার সঙ্গে সঙ্গে খাল ও সারফেস ড্রেনের সঙ্গে কানেকটিভিটি করে দিতে হবে।

বাংলা ট্রিবিউন: হাতিরঝিলের আদলে বেগুনবাড়ি (আফতাব নগর-বনশ্রী) খালটি করার পরিকল্পনা ছিল। সেটি বাস্তবায়ন কতদূর?

আতিকুল ইসলাম: আফতাব নগর-বনশ্রী (বেগুনবাড়ি) খাল নিয়ে আমরা একটা প্রকল্প নিচ্ছি। এই খালটি হবে সুন্দর ও নান্দনিক। খালের দুই পাড় বাঁধাই করে দেবো। হাঁটার ওয়াকওয়ে থাকবে, যাতে আশপাশের মানুষ হাতিরঝিলের মতো ঘুরতে পারে। আমরা এই খালটিকে সুন্দর করে তৈরি করে বালু নদী পর্যন্ত নিয়ে যাবো। পার্লামেন্ট ভবনের পাশে যেভাবে রয়েছে, সেই আদলে করবো। আমি অলরেডি বলে দিয়েছি এই খাল নিয়ে একটা পরিকল্পনা করার জন্য। আমাদেরও দোষ আছে, আমরা খালের মধ্যে ময়লা ফেলি। এসব নিয়ে একটা মাস্টার প্ল্যান করেছি।

বাংলা ট্রিবিউন: বৃষ্টি হলেই পুরো নগরী পানিতে তলিয়ে যায়। এই জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্বে রয়েছে ৬টি সরকারি সংস্থা। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কীভাবে সমন্বয় করবেন। রাজধানীর এই জলাবদ্ধতা নিরসনে আপনার বিশেষ কোনও পরিকল্পনা আছে কিনা?

কথা বলছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম

আতিকুল ইসলাম: আমরা দেখেছি, যে সমস্যাগুলো হচ্ছে—সেটা হয়েই আসছে। কিন্তু কেন হচ্ছে সেটার গভীরে আমাদের যেতে হবে। আমি যখন প্রথমবার দায়িত্ব নিই, তখন কালশী খালে কোমর পানি ছিল। আমি সেখানে গিয়েছি, দেখেছি। আমাদের ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সঙ্গে আলাপ করেছি। এর পেছনে কারণটা কী তাও খুঁজেছি। আমি দেখলাম—সাত দিন বা সাত মাসের জন্য কাজ করে লাভ নেই। একটা একটা স্থায়ী সমাধান খুঁজতে হবে। এজন্য তিন ধরনের পরিকল্পনা নিয়েছি। শর্ট টাইম, মিডটাইম ও লং টাইম।

খালের দায়িত্ব ওয়াসার উল্লেখ করে মেয়র বলেন, এই খাল পরিষ্কার করা কিন্তু আমাদের কাজ না। এটা হচ্ছে সম্পূর্ণ ওয়াসার কাজ। এর পরও মানুষের দুর্ভোগ কমাতে আমরা পুরো খালটি পরিষ্কার করে দিয়েছি। সেই খাল থেকে ৩৩টি জাজিম, ৮০ ট্রাক ডাবের খোসা, টেলিভিশন-ফ্রিজ সবই উদ্ধার করা হয়েছে। খালের উত্তর দিকে একটা কালভার্ট ছিল। এর দক্ষিণ দিকে ছিল বাউনিয়া ও বাইশটেকি খাল। আমরা দেখলাম দক্ষিণ দিকে যাওয়ার কোনও উপায় নেই। খালটি দখল হয়ে হাজার হাজার বাড়ি হয়ে গেছে। আমি যদি বসে থাকি সেই বাড়ি ভাঙবো, তারপর করবো, তাহলে অনেক সময় লেগে যাবে। তখন আমি খালের উত্তর পাশ দিয়ে অন্য লাইন করে পুরোটা বালু নদীর সঙ্গে সংযোগ করে দিয়েছি। এভাবে পরিকল্পনা করে ওই এলাকার সমস্যা সমাধান করেছি। কালশী খালে কিন্তু এখন পানি জমবে না। সেখানে কিন্তু আমার ৫ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। এই খালটা ঠিক করার কথা ছিল ওয়াসার। কাজটি করার কারণে আমাকে কিন্তু অডিট ধরবে। কারণ সেই খালটি তো আমার না। তারপরেও করতে হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একইভাবে কাওলার সিভিল অ্যাভিয়েশন খাল ২৭ দিনের মধ্যেই উদ্ধার করেছি। সেখানে কিন্তু এখন পানি জমে না। সেই খালটি সিভিল অ্যাভিয়েশনের। আমরা জায়গাটি সেনাবাহিনীকে দিয়ে উদ্ধার করি। অথচ এই খালটির মালিকও আমরা না। কিন্তু জনপ্রতিনিধি হিসেবে সেই দায়িত্ব আমাকেই পালন করতে হচ্ছে। তাই সব সংস্থার সঙ্গে সমন্বয়টা খুবই জরুরি। যখনই সমন্বয় করতে পারছি না, তখনই এ সংক্রান্ত আইনগুলো ঘাঁটা শুরু করছি। আইনে কিন্তু বলে দিয়েছে এর দায়িত্ব পালন করবে সিটি করপোরেশন। কিন্তু অন্যান্য সংস্থা সেটা দিচ্ছে না। ওয়াসা যদি ব্যর্থ না হতো তাহলে আজকের এই পরিস্থিতি হতো না। আজ আমাদের গালি শুনতে হচ্ছে, আমরা তো গালি শোনার জন্য আসিনি; বরং জনগণ বলার আগেই তাদের সেবা দিতে হবে।

কথা বলছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম

জলাবদ্ধতা নিয়ে নিজের উদ্যোগুলোর কথা উল্লেখ করে মেয়র বলেন, আজ উত্তরা-৪ ও ৬ নম্বর সেক্টরে জলাবদ্ধতা নেই। আমরা পুরোপুরি ড্রেন বসিয়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছি। কাওলা সিভিল অ্যাভিয়েশন খাল, এয়ারপোর্ট, কালশী, খিলক্ষেতের জলাবদ্ধতা দূর করেছি। এখন কাওরানবাজার-বিজয় সরণি, এরোপ্লেন চত্বর হয়ে পরিকল্পনা কমিশন—এই এলাকায় পানি জমছে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে মেট্রোরেল। আমি কিন্তু তাদের গলা চেপে ধরেছি। বলে দিয়েছি জলাবদ্ধতার সমাধান না করলে আমি মেট্রোরেল করতে দেবো না। পরে মেট্রোরেল থেকে আমাদের ২০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। আমরা এখন এই এলাকায় জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ শুরু করে দিচ্ছি। কারণ এখন টেন্ডার দিলে সময় লাগবে, তাই কাজটি সেনাবাহিনীকে দিয়ে করাচ্ছি। তারা তিন মাসের মধ্যেই কাজটি করে দেবে। আর মগবাজার শাহ সাহেব বাড়ি এলাকায় আর পানি জমবে না। এটিও আমরা সেনাবাহিনীকে দিয়ে দিচ্ছি। এছাড়া আমরা বনশ্রী, নিকেতন, আগারগাঁও ও উত্তরাসহ বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা দূর করেছি।

‘ট্যাক্স নয়, বাড়াবো দাতার সংখ্যা’

বাংলা ট্রিবিউন: হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ে পুরাতন ও নতুন বাড়ি মালিকদের মধ্যে বৈষম্য রয়েছে। পুরাতন বাড়ি মালিকরা ৩০ বছর আগের রেশিও অনুযায়ী ট্যাক্স পরিশোধ করে থাকেন। আর নতুন বাড়ির মালিকরা বর্তমান রেশিও অনুযায়ী ট্যাক্স পরিশোধ করে থাকেন। এক্ষেত্রে রাজস্ব বৃদ্ধির লক্ষ্যে হোল্ডিং ট্যাক্স পুনর্মূল্যায়নের জন্য আপনি কোনও উদ্যোগ নেবেন কি?

আতিকুল ইসলাম: এবার আমাদের বোর্ড মিটিংয়ে কাউন্সিলরা এটা উঠিয়েছেন। হোল্ডিং ট্যাক্সের ক্ষেত্রে শুধু এটা নয়, আরও অনেক ধরনের বৈষম্য হচ্ছে। অলরেডি আমাদের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তাকে বলেছি, কীভাবে এটাকে সমতায় আনতে পারি। বর্তমানে যে বাড়ি করেছে, তার হোল্ডিং ট্যাক্স এক ধরনের, আর আগে যে বাড়ি করেছে, তার ট্যাক্স আরেক ধরনের। আবার পাশাপাশি দুই জন দুই ফ্ল্যাটে থাকেন, কিন্তু দুই জন দুই ধরনের হোল্ডিং ট্যাক্স দেন। আবার দেখা গেছে, আগে একটা ভবনের দুই থেকে তিন তলা পর্যন্ত হয়েছে। আমাদের লিস্টে কিন্তু দুই বা তিন তলা পর্যন্ত আছে। বর্তমানে ওই বাড়ি ১০ তলা পর্যন্ত হয়ে গেছে। বাকি ৭ বা ৮ তলা কিন্তু আমাদের ট্যাক্সে ধরা নেই। এমনটাও হয়ে আসছে। আমরা হোল্ডিং ট্যাক্স এখনও মেনুয়্যাল পদ্ধতিতে আদায় করছি। যত তাড়াতাড়ি পারি এটাকে অনলাইনের মাধ্যমে আনবো। আমরা বিভিন্ন এলাকাভিত্তিক ট্যাক্স নির্ধারণ করে দেবো। তখন নির্ধারিত পদ্ধতির বাইরে কারও যাওয়ার সুযোগ থাকবে না। তখন ট্যাক্স দিতে আর আমাদের অফিসে আসতে হবে না।

মেয়র বলেন, আমি ট্যাক্স বাড়াবো না, ট্যাক্স দাতার সংখ্যা বাড়াবো। এখন আমি দুই লাখ ৫০ হাজার বাড়ির ট্যাক্স পাই। এর সঙ্গে যদি আরও এক লাখ যোগ করতে পারি তাহলে আমার আয় বেড়ে যাবে। নিজের পায়ে নিজে দাঁড়ানোর জন্য এটাই যথেষ্ট।

বাংলা ট্রিবিউন: রাজধানীকে রিকশার নগরী বলা হচ্ছে। যানজটের জন্য এটাও অনেকাংশে দায়ী বলে মনে করা হয়। গত বছর রিকশাকে প্রধান সড়ক থেকে ভেতরের সড়কে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। বিষয়টি বর্তমানে কোন পর্যায়ে রয়েছে?

আতিকুল ইসলাম: রিকশা নিয়ে আরও অনেক রিসার্চ করতে হবে। রিসার্চ ছাড়া হবে না। দেখা যাচ্ছে—একটা বাড়ি থেকে স্কুলে যাওয়ার জন্য চার জন চারটা গাড়ি নিয়ে বের হচ্ছে। ওই কার পুল করে আমরা একই গাড়িতে সব শিশুকে স্কুলে নিয়ে যাবো। বাচ্চাদের ব্যাগের মধ্যে ডিভাইস দিয়ে দেবো। বাচ্চারা স্কুলে ঢুকলে অটোমেটিক্যালি তার অভিভাবক বা মা জেনে যাবেন তার শিশু স্কুলে প্রবেশ করেছে। আমরা এমন পরিকল্পনা নিয়েছি। সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টের কাজ চলছে। একটা ওয়ার্ডের তিন থেকে চারটি স্কুলকে আমরা প্রথমে এভাবে পরীক্ষামূলক প্রকল্প গ্রহণ করবো। এটা যদি সফল হয়, তাহলে আমরা পরবর্তীতে সব স্কুলে এটা চালু করবো।

ছবি: সাজ্জাদ হোসেন

দেখুন ভিডিও...

/আইএ/এমএমজে/

সম্পর্কিত

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কামরাঙ্গীরচরে বাসা থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

কামরাঙ্গীরচরে বাসা থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকায় গ্রেফতার চারশতাধিক

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকায় গ্রেফতার চারশতাধিক

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১২:০৩

কঠোর বিধিনিষেধের কারণে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট এবং ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত অফিস আদেশ আজ রবিবার (২৫ জুলাই) প্রকাশ করা হয়।

আদেশে জানানো হয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের গত ১৩ জুলাই জারি করা বিধিনিষেধ সংক্রান্ত পরিপত্রের  নির্দেশনার প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি ও ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য সপ্তাহভিত্তিক চলমান অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত করা হলো।

এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে উপপরিচালক, জেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা ও থানা শিক্ষা অফিসার এবং অধ্যক্ষ ও প্রধান শিক্ষকদের অফিস আদেশে নির্দেশনা দেওয়া হয়।

/এসএমএ/এমএস/

সম্পর্কিত

যেভাবে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা ও বিকল্প মূল্যায়ন

যেভাবে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা ও বিকল্প মূল্যায়ন

নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা

নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা

কাল এসএসসি-এইচএসসি’র সিদ্ধান্ত জানাবেন শিক্ষামন্ত্রী

কাল এসএসসি-এইচএসসি’র সিদ্ধান্ত জানাবেন শিক্ষামন্ত্রী

বিকল্প মূল্যায়নে এসএসসি-এইচএসসির ফল

বিকল্প মূল্যায়নে এসএসসি-এইচএসসির ফল

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১২:০১

রাজধানীর মতিঝিলে মধুমিতা সিনেমা হলের পেছনে একটি গাড়ির গ্যারেজে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিট কাজ করছে।

রবিবার (২৫ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের তথ্য কর্মকর্তা শাহজাহান শিকদার বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মধুমিতা সিনেমা হলের পিছনে একটি গাড়ির গ্যারেজে আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের ছয়টা ইউনিট নিয়ন্ত্রণের কাজ করছে। 

/এআরআর/ইউএস/

সম্পর্কিত

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

দেশে নতুন মাদকের বাজার সৃষ্টির চেষ্টা চলছেই

দেশে নতুন মাদকের বাজার সৃষ্টির চেষ্টা চলছেই

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:৫৫

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির অনলাইন প্রাথমিক আবেদন শুরু হবে আগামী ২৮ জুলাই বিকাল ৪টা থেকে। আর চলবে ১৪ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত। ১ম বর্ষে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস শুরু হবে আামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে।

রবিবার (২৫ জুলাই) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

আগ্রহী প্রার্থীকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট থেকে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। প্রাথমিক আবেদন ফি কলেজ কর্তৃক নির্ধারিত মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ১৬ আগস্টের মধ্যে অবশ্যই জমা দিতে হবে।  এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইটে (www.nu.ac.bd/admissions)।

গত ১২ জুলাই ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান। সভায় করোনাকালীন সেশনজট কমিয়ে আনার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন উপাচার্য। তিনি শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত বিশেষ একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রণয়নের ব্যাপারেও নির্দেশনা দেন।

উল্লেখ্য, সংশ্লিষ্ট সকলকে কোভিড-১৯ মহামারি সম্পর্কিত সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ ভর্তি কার্যক্রম অনলাইনে সম্পন্ন করার জন্য বলা হয়েছে। 

/এসএমএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:৪৬

রাজধানীর সদরঘাট মানেই মানুষের কোলাহল আর সারি সারি লঞ্চ। সন্ধ্যা নামলেই সেই লঞ্চগুলোর ফাঁকে দেখা মেলে অদ্ভূত দৃশ্য। জোনাকি পোকার মতো কিছু আলো দুলছে। আসলে ঘাটের ওপারে যাওয়ার সবচেয়ে সহজ বাহন ছোট নৌকা। বুড়িগঙ্গার পানি ততটা উপভোগ্য না হলেও অনেকেই সেসব নৌকা ঘণ্টা হিসাবে ভাড়া করে কিছুটা সময়ও কাটিয়ে আসেন। তবে করোনা মহামারি অন্য অনেক কিছুর মতোই কেড়ে নিয়েছে সদরঘাটের চেনা রূপ। সেখানে এখন সেই কোলাহল নেই, লঞ্চের ভেঁপুর শব্দ নেই। সদা ব্যস্ত নৌকাগুলো অলস পড়ে আছে ঘাটে  বাঁধা। পদ্মের মতো সাজিয়ে রাখা হয়েছে নৌকাগুলো। অবশ্য এর মধ্যেও কেউ কেউ জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বেরোচ্ছেন, তাদের ঘাট পার করাতে আশপাশে অপেক্ষা করছেন মাঝিরা। তারা বলছেন, সুসময়ের অপেক্ষা করা ছাড়া এখন আর কিছু করার নেই।

/ইউআই/ইউএস/

সম্পর্কিত

‘ঠাঁই নাই, ঠাঁই নাই...’ (ফটোস্টোরি)

‘ঠাঁই নাই, ঠাঁই নাই...’ (ফটোস্টোরি)

হাসপাতালে স্বজনদের বেদনাতুর চোখ (ফটোস্টোরি)

হাসপাতালে স্বজনদের বেদনাতুর চোখ (ফটোস্টোরি)

মুষলধারে বৃষ্টি, তবুও বের হয়েছেন তারা (ফটোস্টোরি)

মুষলধারে বৃষ্টি, তবুও বের হয়েছেন তারা (ফটোস্টোরি)

কঠোর অবস্থানে সেনাবাহিনী-পুলিশ-বিজিবি (ফটোস্টোরি)

কঠোর অবস্থানে সেনাবাহিনী-পুলিশ-বিজিবি (ফটোস্টোরি)

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:০০

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের বেশিরভাগ অংশ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিনের কিছু না কিছু সময় কাটান।  অনেক গবেষণায় দেখা গেছে, ব্যবহারকারীরা সাধারণত এক থেকে দেড় ঘণ্টা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যয় করেন।  তবে যারা আসক্ত তাদের ক্ষেত্রে সময়টা অনেক বেশি।

এখনকার দিনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পড়ে থাকাটাও খারাপ নয় যদি আপনি সেখান থেকে আয়ের রাস্তা খুঁজে বের করতে পারেন।  বর্তমানে প্রায় সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকেই আয়ের সুযোগ আছে।  তবে সেজন্য আপনাকে হতে হবে পরিশ্রমী এবং উদ্ভাবনী মনের অধিকারী।

দিন দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে আয়ের ক্ষেত্র আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। এইতো কয়েকদিন আগে নতুন একটি ওয়েবসাইট চালুর ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক।  বুলেটিন নামের এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে লেখকরা ফ্রি এবং পেইড নিউজলেটার তৈরি ও শেয়ার করতে পারবেন।  অর্থাৎ, এই প্ল্যাটফর্মটির মাধ্যমেও আয় করা যাবে।

বুলেটিনের লেখকদের সাবস্ক্রিপশন থেকে যে আয় আসবে তার পুরোটাই রাখতে পারবেন।  নতুন এ ওয়েবসাইট সম্পর্কে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, আমাদের লক্ষ্য হলো সৃজনশীল কাজের মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষ যেন জীবিকা নির্বাহ করতে পারে সেই বিষয়টিতে সমর্থন দেওয়া।

এ তো গেল ফেসবুকের আলাদা একটি সাইটের কথা।  এই সাইটের পাশাপাশি সরাসরি ফেসবুক থেকেও আয়ের সুযোগ রয়েছে।  এছাড়া অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমন- স্ন্যাপচ্যাট, টিকটক, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার, ক্লাবহাউস ইত্যাদি থেকেও আয় করতে পারবেন ব্যবহারকারীরা।

স্ন্যাপচ্যাট

সম্প্রতি সিএনবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, স্ন্যাপচ্যাটে দৈনিক যেসব কনটেন্ট তৈরি হয় সেগুলোর বিপরীতে ১ মিলিয়ন ডলার প্রদান করে প্রতিষ্ঠানটি।  কোনও ব্যবহারকারীর কনটেন্ট স্ন্যাপচ্যাটের শর্ত পূরণে সক্ষম হলে এটি শেয়ার করা হয়।

এর মানে হলো অন্য ব্যবহারকারীরা স্টোরি এবং সার্চ রেজাল্টস উভয় জায়গাতেই পাবে সেই স্ন্যাপ।  এভাবে কারও স্ন্যাপ ভাইরাল হয়ে গেলে সংশ্লিষ্ট ব্যবহারকারীর কাছে একটি নোটিফিকেশন যাবে এরকম- ‘আপনি স্পটলাইট পেআউট’ গ্রহণের যোগ্য।  তখন তিনি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ পাবেন।

টিকটক

টিকটকের ক্রিয়েটররা বিনোদন দেয়, উৎসাহ যোগায় এবং নিজেদের বিভিন্নভাবে তুলে ধরে। ক্রিয়েটরদের এমন কাজের জন্য তাদের সমর্থন ও পুরস্কার দেয় টিকটক কর্তৃপক্ষ।  টিকটকের দেওয়া পুরস্কার পেতে চাইলে নির্ধারিত কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

এসব শর্তের মধ্যে আছে- সর্বনিম্ন ১০ হাজার প্রকৃত অনুসারী থাকতে হবে। পাশাপাশি সর্বশেষ ৩০ দিনে থাকতে হবে এক লাখ প্রকৃত ভিডিও ভিউ।  শর্তগুলো পূরণ হলে নির্দিষ্ট কিছু দেশের টিকটক ব্যবহারকারীরা সহজেই অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

ইউটিউব

ইউটিউবের অফিসিয়াল ব্লগে দেওয়া তথ্যানুযায়ী, ইউটিউব শর্টস’র জন্য নির্ধারিত ফান্ডের আর্থিক মূল্য ১০০ মিলিয়ন ডলার।  এই অর্থ ২০২১ ও ২০২২ সালে বিতরণ করা হবে।  ইউনিক ইউটিউব শর্টস কনটেন্ট নির্মাতারা এখান থেকে অর্থ পেতে পারেন।

এছাড়া ইউটিউবে দীর্ঘ ভিডিও থেকেও আয় করতে পারবেন ক্রিয়েটররা।  এখান থেকে আপনি কী পরিমাণ আয় করবেন তা নির্ভর করবে আপনার সাবস্ক্রাইবার কেমন আছে এবং ভিডিওর কেমন ভিউ হচ্ছে তার ওপর।  ইউটিউবে সর্বশেষ ১২ মাসে ১ হাজার সাবস্ক্রাইবার এবং ৪ হাজার পাবলিক ওয়াচ আওয়ার সম্পন্ন হলে আপনি আয় শুরু করতে পারবেন।  ক্রিয়েটর অ্যাকাডেমি ওয়েবসাইট থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।  এছাড়া ইউটিউবে সুপার চ্যাটের মাধ্যমে আয় করা সম্ভব।  কোনও ব্যক্তি বা তারকার ফ্যান, সাবক্রাইবার বেড়ে গেলে তিনি কখনও লাইভে এলে সেখানে প্রশ্নের মাধ্যমে আয় করা সম্ভব।  ধরা যাক, কোনও তারকা লাইভে এলেন। তখন অনেকই তাকে প্রশ্ন করেন।  ওই তারকার পক্ষে সবার প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব হয় না।  তখন যিনি প্রশ্ন করতে চান তিনি নির্দিষ্ট অংকের অর্থের বিনিময়ে প্রশ্ন করতে পারবেন। এখান থেকে ওই তারকা বা বিখ্যাত ব্যক্তি আয় করতে পারবেন।

ইনস্টাগ্রাম

ইনস্টাগ্রামের কনটেন্ট ক্রিয়েটররা আর্থিক সহায়তার অপশনটি দেখাতে চাইলে লাইভ ভিডিও চলাকালে ব্যাজ কিনতে পারবেন।  অনুসারীরা সেই লাইভে প্রবেশ করা মাত্র আর্থিক সহায়তার অপশনটি দেখতে পাবেন এবং চাইলে যেকোনও পরিমাণ অর্থ প্রদান করতে পারবেন।

টুইটার

টুইটারের টিপ জারের সাহায্যে অর্থ প্রেরণ ও গ্রহণ করা যায়।  অ্যান্ড্রয়েড এবং আইফোন উভয় ব্যবহারকারীই টিপ পাঠাতে ও গ্রহণ করতে পারবেন।  বর্তমানে এই ফিচারটি অসংখ্য ব্যবহারকারীর জন্য চালু আছে।  বিশেষ করে ক্রিয়েটর, সাংবাদিক, বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ও অলাভজনক সংস্থাগুলো এই ফিচার ব্যবহার করে অর্থ আয় করতে পারবে।

ক্লাবহাউস

‘ক্রিয়েটর ফার্স্ট’ প্রোগ্রামের সাহায্যে ব্যবহারকারীদের অর্থ আয়ের সুযোগ দেয় ক্লাবহাউস।  একজন ক্রিয়েটর ক্লাবহাউস থেকে যে অর্থ আয় করেন তার পুরোটাই তাকে দিয়ে দেওয়া হয়। অর্থাৎ, ক্লাবহাউস কর্তৃপক্ষ এখান থেকে কোনও অংশ কেটে রাখে না।  ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠানটি অর্থ আয়ের আরও উপায় চালু করবে।  এ সম্পর্কে জানতে ব্যবহারকারীদের নিয়মিত খোঁজ রাখতে পরামর্শ দিয়েছে ক্লাবহাউস। সূত্র: গেজেটস নাউ, মেক আস ইউজ, সিএনবিসি

 

/এমআর/

সম্পর্কিত

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

দেশে নতুন মাদকের বাজার সৃষ্টির চেষ্টা চলছেই

দেশে নতুন মাদকের বাজার সৃষ্টির চেষ্টা চলছেই

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

ঢাকায় এলো উপহারের ২৫০টি ভেন্টিলেটর

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত

সর্বশেষ

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

বাংলাদেশ সফর থেকে ছিটকে গেলেন ফিঞ্চ

বাংলাদেশ সফর থেকে ছিটকে গেলেন ফিঞ্চ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমতা

অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমতা

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

আজ থেকে নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান দুইটা পর্যন্ত  খোলা

আজ থেকে নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান দুইটা পর্যন্ত খোলা

বিচ্ছেদের পর যে কারণে আবারও ভাইরাল আমির-কিরণ

বিচ্ছেদের পর যে কারণে আবারও ভাইরাল আমির-কিরণ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

লকডাউন অমান্য: রাজধানীতে গ্রেফতার ৩৮৩ জন

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কমলাপুর বিআরটিসি ডিপোতে হঠাৎ আগুনে পুড়লো বাস

কামরাঙ্গীরচরে বাসা থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

কামরাঙ্গীরচরে বাসা থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকায় গ্রেফতার চারশতাধিক

কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকায় গ্রেফতার চারশতাধিক

তবুও বাইরে মানুষ

তবুও বাইরে মানুষ

পোস্তার রাস্তায় পচা চামড়ার স্তূপ

পোস্তার রাস্তায় পচা চামড়ার স্তূপ

‘এত বছর বয়সে এমন কষ্ট কখনো করিনি বাবা’ 

‘এত বছর বয়সে এমন কষ্ট কখনো করিনি বাবা’ 

অযৌক্তিক কারণে বের হলে করা হচ্ছে জরিমানা

অযৌক্তিক কারণে বের হলে করা হচ্ছে জরিমানা

মূল সড়ক ফাঁকা, পাড়া-মহল্লায় আড্ডা 

মূল সড়ক ফাঁকা, পাড়া-মহল্লায় আড্ডা 

ঈদ শেষে লকডাউন উপেক্ষা করে রাজধানীতে ফিরছে মানুষ

ঈদ শেষে লকডাউন উপেক্ষা করে রাজধানীতে ফিরছে মানুষ

© 2021 Bangla Tribune