X
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

এ কে আব্দুল মোমেনের ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’

আপডেট : ২০ আগস্ট ২০২০, ১৫:২২

দাউদ হায়দার মুজিববর্ষ এবং বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাস। শোকের মাস। দুই-ই আনন্দ ও বেদনার। বঙ্গবন্ধু না হলে বাংলাদেশ হয় না। বাঙালির স্বাধীনতা, জাতিসত্তার চেতনা, বৈশ্বিকবোধ দৃঢ়তর হয় না। বঙ্গবন্ধুকে ব্যতিরেকে বাংলাদেশের অস্তিত্ব, জলহাওয়া, সূর্যোদয়-সূর্যাস্তও অসম্পূর্ণ। ঠিক এই বিষয়টিই এ কে আব্দুল মোমেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষিতে, গাঢ় বিচারবিশ্লেষণে, ইতিহাসের নথি ঘেঁটে, ছোটবড়ো প্রবন্ধে বিস্তারিত করেছেন ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ গ্রন্থে। চন্দ্রাবতী একাডেমি প্রকাশিত। আগস্ট ২০১৯ সাল। লক্ষণীয় প্রকাশকাল, আগস্ট। ১১৮ পৃষ্ঠার বই। প্রবন্ধ সংখ্যা ১৪, তিন ভাগে বিভক্ত।
যেহেতু মুজিববর্ষ এবং শোকের মাস (বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ৪৫ বছর), মোমেনের বই নিয়ে আলোচনা প্রসঙ্গত, জরুরিও। মোমেনের জন্মও আগস্টে (২৩ আগস্ট ১৯৪৭, সিলেট)। কী করে ভুলবেন আগস্ট?
মোমেন বহুমানিত কৃত্যবিদ্য। মেধাবী ছাত্র। দেশে ও বিদেশে পাঠ, অধ্যয়ন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএ (অনার্স)। এমএ, এলএলবি, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমপিএ, বস্টন নর্থ ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ, পিএইচডিধারী। ডক্টরেট ডিগ্রি। শিক্ষকতা হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে, বস্টনের একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে। অর্থনীতি ও আন্তর্জাতিক রাজনীতি, শিক্ষা, শিল্পসংস্কৃতি, সমাজ, পারিপার্শ্বিক, মানবচেতনা, মানবিকতা, তাঁর হাড়েমজ্জায়। গবেষণাসূত্রে জেনেছেন আজকের বিশ্বে একটি দেশে গণ্ডিবদ্ধ হওয়া, গণ্ডির চালচিত্রে (বিশেষত রাজনীতি) উদ্ভাভাষণ মূর্খামি। বিশ্ববোধে জাগরণই সার্বিক মুক্তি। দেশ ও বিশ্বকে সঙ্গী করে।

এ কে আব্দুল মোমেন রণাঙ্গনে প্রত্যক্ষ মুক্তিযোদ্ধা কিনা, বলতে অপারগ। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা। না হন যদি, পাকসেনারা কেন ধরবে, অকথ্য নির্যাতন করবে? হত্যা করেনি ঠিকই, হত্যার চেয়েও নির্মমতার সাক্ষী, শরীরে তথা গাগতরে।

বলছিলুম মোমেনের মানবিকতার কথা। গত শতকের নব্বইয়ের শুরুতে অভাবনীয় প্রতিবাদ করেন। প্রতিবাদেই ক্ষান্ত নন। সরাসরি ঝাঁপিয়ে পড়েন। মধ্যপ্রাচ্যে তৃতীয় বিশ্বের কচি ছেলেদের ভুলিয়ে ভালিয়ে অর্থের লোভ দেখিয়ে, অকথ্য অত্যাচার করে উটের জকির কাজ, এই জঘন্য বর্বরতার বিরুদ্ধে তীব্র সোচ্চার। বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ। মার্কিন কংগ্রেসে সিনেটর এবং কংগ্রেসিদের নিয়ে সংগঠন, শুনানি। বিশ্বের নানা দেশের বিশ্বের নানা দেশের কর্মকর্তা, মানবাধিকার সংগঠনের চেতনায় আঘাত। জাতিসংঘেও। বন্ধ হয় আরবদেশে ‘জকি’ কালচার। এই কালচার বন্ধে মোমেন দুনিয়ার নানা মিডিয়ায় শিরোনামে।

মোমেনের কৃতিত্ব আরো। ঐতিহাসিক। বিদেশে নারী পাচার (মূলত ব্যবসা), অমানবিকতারোধে যোদ্ধা। পুরোপুরি সফল নয়, তবে জাতিসংঘের টনক নড়েছে। নাড়িয়েছেন মোমেনই।

এখানেই শেষ নয়, বাংলাদেশ থেকে পাচার বহু নারী পাকিস্তানে, ভারতের বোম্বাইয়ে (এখন মুম্বাই), মধ্যপ্রাচ্যে (বিশেষত কুয়েত-কাতার-সৌদি আরবে), কী ভয়ঙ্কর অত্যাচার ও ব্যবসা, মোমেন সোচ্চার, দেখিয়েছেন পরিসংখ্যানে।

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ: এ কে আব্দুল মোমেন এই যে মানবিকতা, মূলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ। চেতনা। বঙ্গবন্ধু এবং তিনি একই কাতারে, মানবিকবোধে। মানবিক সংগ্রামে। মানুষের কল্যাণে, মানুষের স্বাধীনতায়।
অনেকেরই অজানা, হয়তো, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট-পদে ডেমোক্রেটিক দলের ডুকাকিস তীব্র লড়াই করেন, পরাজিত অবশ্য। ডুকাকিসের নির্বাচনি সহযোগী, লেফটেন্যান্টও বলতে পারেন, ছিলেন এ কে আবদুল (নিজে লেখেন ‘আব্দুল’) মোমেন।
মোমেনের ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ বইয়ে, প্রথম পর্বের প্রথম লেখায় ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ: ১৯৭১-এর স্মৃতিচারণ’ অসম্ভব সংবেদনশীল, লেখাই নয়, শুধু ঐতিহাসিক ঘটনার বিশ্লেষণেও।
এই গ্রন্থের তৃতীয় পর্ব পড়ে ধারণা, মোমেন মজ্জাগত কবি। ‘সাহিত্য ও সংস্কৃতি’ অংশে ছয়টি গ্রন্থ। পয়লা প্রবন্ধ ‘বাংলা নববর্ষঃ দেশজ সংস্কৃতির প্রতীক।’ বাকি প্রবন্ধ রবীন্দ্রনাথ, নজরুল (নজরুলকে নিয়ে তিনটি) এবং লোকসংগীত, মরমি কবিতা কবিতা বিষয়ক। মৌলবাদ প্রসঙ্গেও (সাহিত্যে মৌলবাদিতা)।

এরকম গুঞ্জরণ, হাসন রাজাকে নিয়ে সিলেটিরা অতিরিক্ত কথক, মোমেন একটু কম, বিচার করেছেন হাসন রাজার গানের বিষয়াবলি, সমাজ ও দেশকালের দর্পণে। আজকের দিনের কতটা আত্মিক। আত্মিকতা।

এ কে আব্দুল মোমেনের গদ্য লেখা, বুদ্ধিদীপ্ত। ভাষা সহজ, সরল। চমৎকার পাঠ্য।

মোমেন না সংগ্রামে, অভিজ্ঞতায় ঋদ্ধ, দেশি ও বৈশ্বিকতায় আন্তর্জাতিক, আত্মজীবনী লিখেছেন কিনা, অজানা। পড়িনি। না লিখলে, আশা, লিখবেন। বহু তথ্য, ইতিহাস জানার অপেক্ষায় আছি। দেশ, জাতিও অপেক্ষায়। উপকৃত করবেন আমাদের।

লেখক: কবি ও সাংবাদিক

 

 

/এসএএস/এমএমজে/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সম্পর্কিত

বাংলা নববর্ষ, সংস্কৃতি ও রাজনীতি

বাংলা নববর্ষ, সংস্কৃতি ও রাজনীতি

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর: নিয়তি ও ইতিহাস

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর: নিয়তি ও ইতিহাস

অন্নদাশঙ্কর রায়ের জন্মদিন, কেন জরুরি মননবোধে

অন্নদাশঙ্কর রায়ের জন্মদিন, কেন জরুরি মননবোধে

ইউরোপ: করোনা ও শীত

ইউরোপ: করোনা ও শীত

বঙ্গবন্ধু-ইন্দিরা আকর্ষণ

বঙ্গবন্ধু-ইন্দিরা আকর্ষণ

মুনীরুজ্জামান: কমরেড, বিদায়

মুনীরুজ্জামান: কমরেড, বিদায়

পুলুদার ‘শালা’

পুলুদার ‘শালা’

জার্মানির একত্রীকরণ, ৩০ বছর

জার্মানির একত্রীকরণ, ৩০ বছর

শাহাবুদ্দিন ৭০, জন্মদিনে শুভেচ্ছা

শাহাবুদ্দিন ৭০, জন্মদিনে শুভেচ্ছা

১৫ আগস্টের স্মৃতি

১৫ আগস্টের স্মৃতি

সর্বশেষ

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

ইউরোর শেষ ষোলোয় কারা দেখে নিন

ইউরোর শেষ ষোলোয় কারা দেখে নিন

বাড়িতে হামলার প্রতিবাদে সড়কে ওবায়দুল কাদেরের দুই বোন

বাড়িতে হামলার প্রতিবাদে সড়কে ওবায়দুল কাদেরের দুই বোন

শত বছরের বোতল বন্দি চিঠিতে কী লেখা ছিলো?

শত বছরের বোতল বন্দি চিঠিতে কী লেখা ছিলো?

এইচটি ইমামের ছেলে এমপি তানভিরের নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা

এইচটি ইমামের ছেলে এমপি তানভিরের নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা

দেশের উত্তরাঞ্চলে গড়ে উঠবে গ্যাসভিত্তিক শিল্প

দেশের উত্তরাঞ্চলে গড়ে উঠবে গ্যাসভিত্তিক শিল্প

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

‘উত্তপ্ত’ ম্যাচে শেষ মুহূর্তের গোলে জিতলো ব্রাজিল

‘উত্তপ্ত’ ম্যাচে শেষ মুহূর্তের গোলে জিতলো ব্রাজিল

আফগানিস্তানে আর সেনা পাঠাবে না তুরস্ক

আফগানিস্তানে আর সেনা পাঠাবে না তুরস্ক

লায়নদের অভিনন্দন জানালেন বঙ্গবন্ধু

লায়নদের অভিনন্দন জানালেন বঙ্গবন্ধু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune